ঢাকা , ১৬ ২০১৯ ,

পেঁয়াজ এখনো নাগালের বাইরে

বায়ান্ন অনলাইন রিপোর্ট | ৪ অক্টোবর, ২০১৯ ৫:০৪ অপরাহ্ন | আপডেট : ৪ অক্টোবর, ২০১৯ ৫:১৬ অপরাহ্ন
feature-top

পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম কমলেও খুচরা বিক্রেতারা এখনো বাড়তি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করছেন। ফলে ক্রেতাদের কাছে পেঁয়াজ এখনো নাগালের  বাইরে রয়েছে।  

শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা যায়। 

রাজধানীর কারওয়ান বাজারের পাইকারি দোকানগুলোতে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৭০–৭৫ টাকা, ভারতীয় পেঁয়াজ ৬৫-৭০ টাকা এবং মিয়ানমারের পেঁয়াজ ৫৮-৬০ টাকা দরে বিক্রি হয়। 

তবে ঢাকার কয়েকটি খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, দেশি পেঁয়াজ কেজিপ্রতি ১০০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।  

পাইকারি বাজার থেকে বেশি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করছেন কাঠাল বাগানের ব্যবসায়ী আরিফুল। বেশি দরে বিক্রির কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা কি করবো? পাইকারদের কাছ থেকে বেশি দামে মাল কিনে আনি। আমাদেরও বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। 

কাঠালবাগানের কাঁচা বাজার থেকে নিয়মিত সবজি কেনেন শিলা বেগম। তিনি বলেন, পাইকারী ভাবে দাম কমলেও খুচরা দোকানগুলোতে বেশি দামেই বিক্রি হচ্ছে। সবজির দাম বাড়তি, মাছের দাম বাড়তি, মাংসের দাম বাড়তি। সব কিছু মিলিয়ে প্রতিদিনই আমাদের মতো অল্প আয়ের মানুষের সংসার সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। এভাবে দিনের পর দিন জিনিস পত্রের দাম বাড়লে সাধারণ মানুষ কি করবে।

বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করায় ভ্রাম্যমাণ আদালত দেশের বিভিন্ন স্থানে ব্যবসায়ীদের জরিমানা করেছেন। কিন্তু বাস্তবে ততটা ফল আসছে না। 

গত রোববার ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাবে, গত বছর দেশে প্রায় ১১ লাখ টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। দেশে যতটুকু পেঁয়াজ আমদানি হয়, তার প্রায় পুরোটা আসে ভারত থেকে। 

অবশ্য এখন মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আসছে। অন্যদিকে তুরস্ক ও মিসরের পেঁয়াজ বাজারে শিগগিরই আসবে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। 

বুধবার বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশিও বলেছিলেন, দুই-এক দিনের মধ্যে পেঁয়াজের দাম ৮০ টাকায় নামবে। তিনি বলেছেন, মিয়ানমার থেকে ৪৮৩ টন পেঁয়াজ আনা হয়েছে। আরো ৫শ’ টন পেঁয়াজ দেশে পৌঁছানোর অপেক্ষায়।

এদিকে পেঁয়াজের রপ্তানি বন্ধ করে দেয়ায় ভারতের প্রতি অসন্তুষ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। ভারতে সফরে থাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি অনুষ্ঠানে বলেন, আমার জানা নেই কেনো আপনারা পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছেন? আমি জানিনা আপানারা কি চান আমরা পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিই? এরকম কিছু করলে অন্তত কিছুদিন আগে আমাদের নোটিশ করলে আমরা সেভাবেই প্রস্তুত হতাম।

মিথুন

feature-top
feature-top

আরও খবর »

feature-top