Connect with us

আইন-বিচার

গৃহবধূ হত্যা: স্বামীসহ ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

Avatar of author

Published

on

হবিগঞ্জে গৃহবধূ হত্যায় স্বামী-শাশুড়ি ও ননদসহ পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে জেলার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালত-২ এর বিচারক মো. জাহিদুল হক এ আদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- চুনারুঘাট উপজেলার সাদেকপুর গ্রামের হরমুজ আলীর ছেলে মো. রাসেল মিয়া (২৫), নিহতের ভাসুর মো. কাউছার মিয়া (৩২), শাশুড়ি তাহেরা বেগম (৫০), ননদ হোছনা বেগম (২০) ও জা রোজি বেগম (২৭)। এদের মধ্যে কাউছার মিয়া পলাতক।

মামলার বাদী আব্দুস সাত্তার বলেন, যৌতুকের জন্য তার মেয়েকে শশুরবাড়ির লোকেরা নির্মমভাবে হত্যা করেছে। মেয়েটি সাত মাসের গর্ভবতী ছিল। দ্রুত রায় কার্যকরের দাবি জানান তিনি।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে উপজেলার পঞ্চাশ গ্রামের আব্দুস সাত্তারের মেয়ে তাহেরা খাতুন আয়েশার (২০) সঙ্গে একই উপজেলার সাদেকপুর গ্রামের হরমুজ আলীর ছেলে রাসেল মিয়ার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তাকে যৌতুকের জন্য নির্যাতন করতে থাকেন স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন। একই বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে তাকে অমানবিক নির্যাতন করা হয়। এতে গুরুতর আহত হলে তাকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

Advertisement

এ ঘটনায় তার বাবা আব্দুস সাত্তার বাদ হয়ে চুনারুঘাট থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ উল্লেখিত পাঁচজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয়। ১২ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বিচারক তাদের মৃত্যুদণ্ড দেন।

Advertisement

আইন-বিচার

বিএনপির ৭ আইনজীবীর আদালত অবমাননার আদেশে পেছালো

Published

on

ছবি সংগৃহীত

আদালত অবমাননার মামলায় বিএনপির সাত শীর্ষ আইনজীবীর বিষয়ে আদেশের দিন পিছিয়ে আগামী ১ আগস্ট ধার্য করেছেন আপিল বিভাগ। আপিল বিভাগের দুই বিচারপতির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন ও মিছিল সমাবেশ করার ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করা হয়।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ এই আদেশ দেন।

এর আগে ১৫ আগস্টের শোক দিবসের আলোচনা সভায় ‘বিচারপতিরা শপথবদ্ধ রাজনীতিবিদ’ উল্লেখ করে বক্তব্য দেয়ায় আপিল বিভাগের দুজন বিচারপতির বিরুদ্ধে একাধিকবার সংবাদ সম্মেলন করে আসছে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম। এছাড়া ওই দুজন বিচারপতিকে বিচারকাজ থেকে বিরত রাখতে কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।এছাড়া মিছিল সমাবেশও করা হয়।

পরে গেলো বছর ২৯ আগস্ট আপিল বিভাগের দুই বিচারপতির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন ও মিছিল সমাবেশ করায় বিএনপির সাত আইনজীবী নেতার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার আবেদন দায়ের করা হয়। আইনজীবী নাজমুল হুদার পক্ষে অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথি এ আবেদন দায়ের করেন।

গেলো ১৫ নভেম্বর আপিল বিভাগের দুই বিচারপতির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন ও মিছিল সমাবেশ করায় তার ব্যাখ্যা দিতে বিএনপির সাত শীর্ষ আইনজীবী নেতাকে তলব করেন আপিল বিভাগ। ১৫ জানুয়ারি তাদের আদালতে হাজির হতে বলা হয়। একইসঙ্গে তাদেরকে সুপ্রিম কোর্টসহ সব আদালত অঙ্গনে কোনো ধরনের মিছিল সমাবেশ না করার বিষয়ে হাইকোর্টের রায় কঠোরভাবে অনুসরণ করতে বলা হয়।

Advertisement

এর প্রেক্ষিতে গেলো ২৪ এপ্রিল এ ৭ আইনজীবীর বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার আবেদনের আদেশের জন্য আজকের  দিন ধার্য করা হয়। পরে আদালত অবমাননার আসামি সিনিয়র আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী, ফাহিমা নাসরিন মুন্নী চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে থাকায় আপিল বিভাগ আদেশের দিন পিছিয়ে দেন।

উল্লেখ্য, বিএনপির এ ৭ শীর্ষ আইনজীবী নেতা হলেন, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব ও বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট ফাহিমা নাসরিন মুন্নি, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম সুপ্রিম কোর্ট শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল জব্বার ভূঁইয়া, সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল, সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সহ-সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান খান ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সুপ্রিম কোর্ট শাখার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট গাজী কামরুল ইসলাম সজল।

আই/এ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আইন-বিচার

আবেদন খারিজ, ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে মামলা চলবে

Published

on

গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক-কর্মচারীদের লভ্যাংশ আত্মসাতের মামলায় অভিযোগ গঠনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বুধবার (২৪ জুলাই) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকতার ও বিচারপতি কাজী ইবাদত হোসেনের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এসময়ে হাইকোর্ট এ মামলা এক বছরের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তি করতে বিচারিক আদালতকে নির্দেশ দিয়েছেন।

এর আগে গেলো ১২ জুন গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক-কর্মচারীদের লভ্যাংশ আত্মসাতের মামলায় প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত।

গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক-কর্মচারীদের লভ্যাংশ আত্মসাতের মামলায় অভিযোগ গঠনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে আবেদন করেন প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস। আবেদনে অভিযোগ গঠনের আদেশ বাতিল চাওয়া হয়।

Advertisement

উল্লেখ্য, আদালতে ড. ইউনূসের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মামুন। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।

আই/এ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আইন-বিচার

রোববার কোটা নিয়ে আপিল বিভাগের শুনানি, বিশেষ চেম্বার আদালতের আদেশ

Published

on

হাইকোর্টে

কোটা নিয়ে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে আগামী রোববার শুনানি হবে ।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সন্ধ্যায় বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের বিশেষ চেম্বার জজ আদালত শুনানির জন্য এদিন ধার্য করেন।

এর আগে অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন জানান, কোটা বাতিল চেয়ে লিভ টু আপিল দ্রুত শুনানি করতে সরকারের পক্ষ থেকে তাকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষ রোববার সকালেই আপিল বিভাগে লিভ টু আপিল দ্রুত শুনানির জন্য আবেদন করবে।  জনগুরুত্ব বিবেচনায় আদালত আবেদন গ্রহণ করবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষ হাইকোর্টের রায় বাতিল চাইবে।

আই/এ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত