Connect with us

দুর্ঘটনা

খাজা টাওয়ারের আগুন : ৫ ঘণ্টায়ও নিয়ন্ত্রণে আসেনি

Avatar of author

Published

on

মহাখালীর খাজা টাওয়ারে আগুন লাগার ৫ ঘণ্টা পার হলেও এখনও নিয়ন্ত্রণে আসেনি। ১৪ তলা ভবনটির আগুন নিয়ন্ত্রণে এখনও কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।  সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ওই ভবন থেকে পড়ে এক নারী নিহত হয়েছেন। নিহত নারীর নাম হাসনা হেনা (২৭)। তিনি ওই ভবনের একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন।

বৃহস্পতিবার (২৬ অক্টোবর) বিকেল ৫টার দিকে আগুন লাগার খবর পায় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

এ বিষয়ে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড নিয়ন্ত্রণ কক্ষের মিডিয়া শাখার কর্মকর্তা শাহজাহান সিকদার গণমাধ্যমে বলেন, আটকে পড়া ৮ জনকে এখন পর্যন্ত জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। আর কোনো তলায় কেউ আটকে আছে কিনা তা দেখতে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা বিভিন্ন ফ্লোরে তল্লাশি চালাচ্ছেন। তবে ভেতরে ধোঁয়ার কারণে ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের কাজ করতে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে, একটু সময় লাগছে।

এদিকে আগুন লাগার খবর শুনে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন ঢাকা উত্তর সিটি মেয়র আতিকুল ইসলাম। এ সময় তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি হবে। তারপর বোঝা যাবে এ ভবনে কী ধরনের সমস্যা ছিল। উদ্ধার কাজ এখনও চলছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, প্রতিরক্ষা বাহিনীসহ সিটি করপোরেশনের লোকজন কাজ করছে। সব ধরনের কার্যক্রম শেষ হলে পরবর্তীতে বিস্তারিত জানানো সম্ভব হবে।

তিনি আরও বলেন, ডি টি এল মেশিন আনার কারণে ফায়ার সার্ভিস উঁচু ভবনের আগুন নেভাতে পেরেছে। এই মেশিনে সাকসেসফুলি কাজ হয়েছে। এ ধরনের আরও পাঁচটি মেশিন আনা হবে।

Advertisement

আতিকুল ইসলাম বলেন, ১১ তলা, ১৩ তলা এবং ১৪ তলা থেকে অনেককেই নামানো সম্ভব হয়েছে। সিঁড়িগুলো পরিষ্কার রাখার জন্য বলা হয় সবসময়। সে কারণেই আজ অনেকে সিঁড়ি ব্যবহার করে নামতে পেরেছেন। ভেতরে এখনও ধোঁয়া রয়েছে। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা কাজ করছেন। তারা ভবনের প্রতিটি তলা চেক করছেন। উদ্ধার কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত তারা সবাই কাজ করবেন।

Advertisement

ঢাকা

২ বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৩

Published

on

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে। এতে তিনজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৩০ জন। তবে প্রাথমিকভাবে হতাহতদের পরিচয় জানা সম্ভব হয়নি।

বুধবার (১৭ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের ভাঙ্গার পূর্ব সদরদী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানা গেছে, ঢাকা থেকে বরিশালগামী বিআরটিসি পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা শাহ জালাল পরিবহনের আরেকটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় তিনজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৩০ জন।

এ বিষয়ে ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. নোমান গণমাধ্যমে বলেন, ঘটনাস্থলে পৌঁছে মরদেহ উদ্ধারে কাজ করেছি। এ ছাড়া আমাদের সঙ্গে ফায়ার সার্ভিসের লোকজনও রয়েছে। বিস্তারিত তথ্য পরে জানাতে পারব।

ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সাঈদ মোহাম্মদ খায়রুল আনাম গণমাধ্যমে জানান, আহতদের উদ্ধার করে ভাঙ্গা ও ফরিদপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়েছেন। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে কাজ করছে পুলিশ।

Advertisement

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ঢাকা

সিএনজি-কাভার্ডভ্যানের সংঘর্ষ, শিশুসহ নিহত ২

Published

on

নরসিংদীর পাঁচদোনায় কাভার্ডভ্যানের ও সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে এক শিশুসহ দুজন নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন সিএনজির আরও চার যাত্রী। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে যান।

রোববার (১৪ জুলাই) বিকেলে সদর উপজেলার পাঁচদোনা-ঘোড়াশাল-টঙ্গী সড়কের নগর পাঁচদোনা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, শিবপুর উপজেলার ইটাখোলা মুনসেফের চর এলাকার গিয়াস উদ্দিনের ছেলে এনামুল হক (০৬) এবং টাঙ্গাইলের আবুল কালামের ছেলে জারিফ (৪)।

ঘটনার সত্যতা গণমাধ্যমে নিশ্চিত করেছেন মাধবদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান।

পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানান, বিকেলে সিএনজি অটোরিকশাটি ইটাখোলা থেকে যাত্রী নিয়ে টঙ্গীর উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। পরে ঘোড়াশাল পাঁচদোনা মহাসড়কের নগর পাঁচদোনা এলাকায় পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি কাভার্ডভ্যানের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই শিশু জারিফসহ এনামুল হকের মৃত্যু হয়। আহত হয় সিএনজিতে থাকা আরও চার যাত্রী। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার পর নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়।

Advertisement

মাধবদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান জানান, সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ দুজনের মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে।

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ঢাকা

ইজিবাইকের ধাক্কায় পুলিশ সদস্য নিহত

Published

on

রাজবাড়ী সদর উপজেলার বাগমারা এলাকায় ইজিবাইকের ধাক্কায় আহত পুলিশ সদস্য মো. মিজানুর রহমানের চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে। গেলো শনিবার  দিবাগত রাত ১২টা ১০মিনিটের দিকে রাজবাড়ী সদরে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

রোববার (১৪ জুলাই) সকাল সাড়ে ৯টার সময় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান তিনি।

নিহত মিজানুর রহমান ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা থানার কাপুরিয়া সদরদী গ্রামের বাসিন্দা। তিনি রাজবাড়ী সদর থানায় কনস্টেবল পদে কর্মরত ছিলেন।

বিষয়টি গণমাধ্যমে নিশ্চিত করে রাজবাড়ী পুলিশ সুপার জিএম আবুল কালাম আজাদ জানান, রাজবাড়ী সদর থানার কনস্টেবল মিজানুর রহমান শনিবার রাতে মোবাইল ডিউটিতে ছিলেন। বাগমারা এলাকায় রাত ১২টা ১০ মিনিটের দিকে একটি ইজিবাইক তাকে ধাক্কা দিলে তিনি পিছঢালা রাস্তায় পড়ে মাথায় আঘাত পেয়ে আহত হন। পরে তাকে উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন চিকিৎসক। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল সাড়ে ৯টায় তার মৃত্যু হয়।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইফতেখারুল আলম প্রধান জানান, কনস্টেবল মিজানুরের মরদেহ ঢাকা থেকে তার গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। সেখানে জানাজা শেষে দাফন করা হবে।

Advertisement

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত