Connect with us

দুর্ঘটনা

ঈদের দিন সড়কে ঝরলো ১৮ প্রাণ

Avatar of author

Published

on

সড়ক দুর্ঘটনা

ঈদের দিন সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায়  ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশ দুর্ঘটনা ঘটেছে মোটরসাইকেলে।

বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) ঈদের দিন দেশের বিভিন্ন জেলায় এসব দুর্ঘটনা ঘটে বলে গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা।

পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সরকার ইফতেখারুল মোকাদ্দেম জানান, বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে চাচা-ভাতিজাসহ চারজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন উপজেলার দন্ডপাল ইউনিয়নের লোহাগাড়া সুপারিতলা এলাকার বাছের আলীর ছেলে কাউসার আলী (১৬), একই এলাকার ইয়াকুব আলীর ছেলে সাব্বির হোসেন (১৭), দেবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের খাঁ পাড়া এলাকার মজনু রহমানের ছেলে সাব্বির (২২) ও একই এলাকার হজরত আলীর ছেলে বরকত (১৭)।

খাগড়াছড়ির গুইমারায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন গুইমারা বাজারের মুরগি ব্যবসায়ী হারুনুর রশীদের ছেলে আলী হোসেন (১৭), বড়পিলাক এলাকার মৃত জামাল হোসেনের ছেলে মেহেদী হাসান পায়েল (২০) এবং মহালছড়ির মুবাছড়ি এলাকার বাসিন্দা দিগন্ত চাকমা (১৮)। তারা তিনজনই মোটরসাইকেল আরোহী।

নরসিংদীতে বাসের সঙ্গে মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নরসিংদীর দগরিয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন নারায়ণগঞ্জ জেলার গাউসিয়া শাওগাট এলাকা শাহিন (২৩) ও সানি (২২)।

এছাড়া রাজধানীর গুলশান-২ গোলচত্বর এলাকায় প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। মমতা শিকদার (২৭) নামে ওই নারী একজন এক নার্স ছিলেন।

Advertisement

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মো. শফিকুল ইসলাম (২৫) নামে এক প্রবাসীর মৃত্যু হয়েছে। শফিকুল ইসলাম বিজয়নগর উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের ভিটিদাউদপুর উত্তর পাড়ার ইদন মিয়ার ছেলে।

যশোরের মনিরামপুরে ঈদের দিন ঘুরতে বেরিয়ে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় রাকিবুল ইসলাম রাব্বি (২২) নামে এক সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। রাকিবুল ইসলাম রাব্বি মনিরামপুর উপজেলার বাজুয়াডাঙা গ্রামের সোহরাব হোসেনের ছেলে।

নেত্রকোনার কলমাকান্দায় মোটরসাইকেলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তিন যুবক নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের কয়রা কুমিল্লাপাড়া গ্রামের কবীর মিয়ার ছেলে হৃদয় মিয়া (২৩), আমতলা গ্রামের মো. জয়নাল মিয়ার ছেলে হালিম হোসেন (১৮) ও হাটশিরা শিবনগর গ্রামের মজিবুর রহমানের ছেলে নবী হোসেন (৩৫)।

নড়াইলের ডৌয়তলায় এলাকায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুজন নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন ফরিদপুরের সালথা উপজেলার কুমোরপট্টি গ্রামের আসাদ মাতুব্বরের ছেলে আলছাফ মাতুব্বর (২২) এবং অন্যজনের পরিচয় জানা যায়নি।

চুয়াডাঙ্গা সদরে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে শামিম হোসেন (১৭) নামে এক তরুণের মৃত্যু হয়েছে। নিহত শামিম সদর উপজেলার বোয়ালমারি গ্রামের শাহ জামালের ছেলে।

Advertisement

এ ছাড়া নৌপথেও  ঝড়েছে প্রাণ। রাজধানীর সদরঘাটে দুর্ঘটনায় একই পরিবারের তিনজনসহ নিহত হন ৫ জন।  সদরঘাট টার্মিনালে এমভি ফারহান ৬ নামক লঞ্চ বার্থিং করার সময় পল্টুনে বাঁধা এমভি  তাসরিফ ৪ লঞ্চের দড়ি ছিঁড়ে এ পাঁচজনের মৃত্যু হয়।

নিহতরা হলেন পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া থানার মাটিচোরা গ্রামের মৃত আব্দুল মালেকের ছেলে বিল্লাল (৩০), তার স্ত্রী মুক্তা (২৬), তাদের মেয়ে মাইশা (৩), পটুয়াখালী সদরের জয়নাল আবেদিনের ছেলে রিপন হাওলাদার (৩৮) এবং ঠাকুরগাঁও সদরের নিশ্চিতপুর এলাকার আব্দুল্লাহ কাফীর ছেলে রবিউল (১৯)।

Advertisement

ঢাকা

২ বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৩

Published

on

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে। এতে তিনজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৩০ জন। তবে প্রাথমিকভাবে হতাহতদের পরিচয় জানা সম্ভব হয়নি।

বুধবার (১৭ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের ভাঙ্গার পূর্ব সদরদী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানা গেছে, ঢাকা থেকে বরিশালগামী বিআরটিসি পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা শাহ জালাল পরিবহনের আরেকটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় তিনজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৩০ জন।

এ বিষয়ে ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. নোমান গণমাধ্যমে বলেন, ঘটনাস্থলে পৌঁছে মরদেহ উদ্ধারে কাজ করেছি। এ ছাড়া আমাদের সঙ্গে ফায়ার সার্ভিসের লোকজনও রয়েছে। বিস্তারিত তথ্য পরে জানাতে পারব।

ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সাঈদ মোহাম্মদ খায়রুল আনাম গণমাধ্যমে জানান, আহতদের উদ্ধার করে ভাঙ্গা ও ফরিদপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়েছেন। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে কাজ করছে পুলিশ।

Advertisement

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ঢাকা

সিএনজি-কাভার্ডভ্যানের সংঘর্ষ, শিশুসহ নিহত ২

Published

on

নরসিংদীর পাঁচদোনায় কাভার্ডভ্যানের ও সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে এক শিশুসহ দুজন নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন সিএনজির আরও চার যাত্রী। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে যান।

রোববার (১৪ জুলাই) বিকেলে সদর উপজেলার পাঁচদোনা-ঘোড়াশাল-টঙ্গী সড়কের নগর পাঁচদোনা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, শিবপুর উপজেলার ইটাখোলা মুনসেফের চর এলাকার গিয়াস উদ্দিনের ছেলে এনামুল হক (০৬) এবং টাঙ্গাইলের আবুল কালামের ছেলে জারিফ (৪)।

ঘটনার সত্যতা গণমাধ্যমে নিশ্চিত করেছেন মাধবদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান।

পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানান, বিকেলে সিএনজি অটোরিকশাটি ইটাখোলা থেকে যাত্রী নিয়ে টঙ্গীর উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। পরে ঘোড়াশাল পাঁচদোনা মহাসড়কের নগর পাঁচদোনা এলাকায় পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি কাভার্ডভ্যানের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই শিশু জারিফসহ এনামুল হকের মৃত্যু হয়। আহত হয় সিএনজিতে থাকা আরও চার যাত্রী। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার পর নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়।

Advertisement

মাধবদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান জানান, সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ দুজনের মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে।

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ঢাকা

ইজিবাইকের ধাক্কায় পুলিশ সদস্য নিহত

Published

on

রাজবাড়ী সদর উপজেলার বাগমারা এলাকায় ইজিবাইকের ধাক্কায় আহত পুলিশ সদস্য মো. মিজানুর রহমানের চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে। গেলো শনিবার  দিবাগত রাত ১২টা ১০মিনিটের দিকে রাজবাড়ী সদরে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

রোববার (১৪ জুলাই) সকাল সাড়ে ৯টার সময় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান তিনি।

নিহত মিজানুর রহমান ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা থানার কাপুরিয়া সদরদী গ্রামের বাসিন্দা। তিনি রাজবাড়ী সদর থানায় কনস্টেবল পদে কর্মরত ছিলেন।

বিষয়টি গণমাধ্যমে নিশ্চিত করে রাজবাড়ী পুলিশ সুপার জিএম আবুল কালাম আজাদ জানান, রাজবাড়ী সদর থানার কনস্টেবল মিজানুর রহমান শনিবার রাতে মোবাইল ডিউটিতে ছিলেন। বাগমারা এলাকায় রাত ১২টা ১০ মিনিটের দিকে একটি ইজিবাইক তাকে ধাক্কা দিলে তিনি পিছঢালা রাস্তায় পড়ে মাথায় আঘাত পেয়ে আহত হন। পরে তাকে উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন চিকিৎসক। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল সাড়ে ৯টায় তার মৃত্যু হয়।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইফতেখারুল আলম প্রধান জানান, কনস্টেবল মিজানুরের মরদেহ ঢাকা থেকে তার গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। সেখানে জানাজা শেষে দাফন করা হবে।

Advertisement

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত