Connect with us

রংপুর

কুড়িগ্রামে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বরাদ্দের টাকা নয়ছয়

Avatar of author

Published

on

টাকা

কুড়িগ্রামে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোতে উন্নয়নের বরাদ্দের টাকা নয়ছয়। শিক্ষা বিভাগের তদারকির অভাবে নাম মাত্র কাজ দেখিয়ে আত্নসাৎ করা হচ্ছে এসব অর্থ।

কুড়িগ্রাম জেলার ভূরুঙ্গামারী উপজেলার দলবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ওয়াশ ব্লক তালাবদ্ধ দীর্ঘদিন ধরে, বেচিং নষ্ট, বিদ্যালয়ের ছাদ পলেস্তারা ওঠাসহ নানা সমস্যায় জর্জরিত।

গেলো ২০২৩-২৪ অর্থ বছরে এই বিদ্যালয়ে ক্ষুদ্র মেরামত,স্লিপ,ওয়াশ ব্লক সংস্কার বাবদ বরাদ্দ দেয়া প্রায় তিন লাখ টাকা। এই টাকা দিয়ে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণীর শিক্ষার্থীর জন্য শিক্ষা উপকরণ ক্রয়,ওয়াশ ব্লক এবং বিদ্যালয় সংস্কার কাজে ব্যয় করার কথা। অথচ বিদ্যালয়ের সাম্প্রতিক সময়ে অবসরে যাওয়া প্রধান শিক্ষক আলী আকবর নামমাত্র কাজ দেখিয়ে এসব অর্থ আত্নসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে। তার অর্থ আত্নসাতের বিষয়টি ধরা পড়ে চলতি বছরের জুলাই মাসে মা সমাবেশ দেখিয়ে খাবারের পাঁচ হাজার টাকার একটি ভাউচারে বিল উত্তোলন করার ঘটনায়। তিনি গেলো ৫ মে অবসরে যাবার আগেই এপ্রিল মাসে বিদ্যালয় বন্ধ থাকাকালীন এসব কাজ সম্পন্ন করে বিল তুলেছেন।

এই বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, আমাদের ওয়াশ ব্লকে একটি ছেলে এবং মেয়েদের জন্য আলাদা দুটি লেট্রিন রয়েছে। কিন্তু ওয়াশ ব্লক নির্মাণের পর থেকে মেয়েদের লেট্রিন তারাবদ্ধ। ছেলে-মেয়ে সবাই একটি লেট্রিন ব্যবহার করি। সেখানেও বেচিং,কমোট,টেপ এগুলো নষ্ট।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক শিক্ষক ও অভিভাবক জানান,এই স্কুলে কোন মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়নি। শিক্ষা উপকরণও কেনা হয়নি। পুরাতন গুলো দেখিয়ে টাকা উত্তোলন করা হয়েছে।

Advertisement

সহকারি শিক্ষক শামসুন্নাহার বলেন, বিদ্যালয়ে কত টাকা বরাদ্দ হয়েছে তা আমরা জানি না। গত ঈদুল ফিতরে বিদ্যালয় বন্ধ থাকাকালীন আমাদের সাবেক প্রধান শিক্ষক কাজ করছেন। তবে আমাদের চোখের সামনে কাজ হয়নি। তিনি ভালো বলতে পারবেন কি কি কাজ হয়েছে।

সাবেক প্রধান শিক্ষক আলী আকবর জুলাই মাস না আসলেও কিভাবে টাকা উত্তোলন করা হয়েছে সেই বিষয়ে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। ভুল বসত এমন তারিখ হয়েছে। তবে তার দাবী সঠিক নিয়মে বরাদ্দের টাকা খরচ করেছেন তিনি।

একই উপজেলার চর ধাউরার কুটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চিত্র প্রায় একই। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলোতে উন্নয়নের জন্য প্রতিবছর যে বরাদ্দ আসে তা সম্পর্কে জানা নেই শিক্ষক,শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের। ফলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক,ম্যানেজিং কমিটি এবং কর্মকর্তারা অনায়সে আত্নসাৎ করেন এসব টাকা।

এই বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক শফিকুল ইসলাম বলেন, স্কুলে কত টাকা বরাদ্দ আসছে আমার জানা নেই। প্রাক-প্রাথমিকের শিক্ষার্থীর জন্য কোন খেলনা বা শিক্ষা উপকরণ নেই। শুধু বর্ণ চাট আর পাপোষ আছে। প্রায় দেড় বছর থেকে কোন কিছু কেনা হয়নি। কি কি কাজ হয়েছে তা আমাদের জানা নেই। এখন বিল উত্তোলন হয়েছে কিনা আমি বলতে পারি না।

অভিভাবক মজিবর রহমান বলেন,এই স্কুলে কয়েক বছর থেকে কোন কাজ হয়নি। শোনা যায় দুই-তিন লাখ টাকা করে বরাদ্দ আসে। অথচ আমরা জানতেও পারি না কি কি কাজ হয়। কোন সাইন বোর্ডও দেয়া হয় নি। স্কুলের পলেস্তারা নষ্ট,বাচ্চাদের দোলনা নষ্ট হয়ে পড়ে আছে।

Advertisement

ব্রহ্মপুত্র নদ দ্বারা বিচ্ছিন্ন রাজিবপুর উপজেলার মোহনগঞ্জ ইউনিয়নের নয়ারচর কোল পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩৩ শতক জমি। এরমধ্যে ৮ শতক জমিতে বিদ্যালয়ের একটি ভবন নির্মাণ করা হয়। এই বিদ্যালয়ের ভবনের চারপাশে সীমানা প্রাচীর থাকলেও সেটির কাজ শেষ হয়নি। অথচ অসমাপ্ত সীমানা প্রাচীরের কাজ না করেই বিদ্যালয়ের বাকি ২৫শতক জমিতে আংশিক ভাবে দেয়া হয়েছে সীমানা প্রাচীর। কর্তৃপক্ষের এমন কাজ দেখে স্থানীয়দের অভিযোগ সরকারি টাকা অপচয় করা হয়েছে।

স্থাণীয় বাসিন্দা মকবুল হোসেন বলেন, এই দেয়াল দেখে আমি তো মনে করেছি কারও বাড়ির দেয়াল দিচ্ছে। কিন্তু এটা যে স্কুলের দেয়াল তা কিভাবে বুঝবো। কেননা স্কুল এখানে আর দেয়াল অন্যখানে। এভাবে সরকারের টাকা অপচয় ছাড়া আর কিছুই না। এই দেয়াল না দিয়ে ভবনের সামনের দেয়ালের কাজটা শেষ করলেও এটা মানাতো। এখন কর্মকর্তা কি মনে করে দিছে তারাই ভালো জানেন।

এই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম বলেন, সীমানা দেয়াল নির্মাণ করেছে উপজেলা প্রকৌশল বিভাগ থেকে। তারা কত টাকা বরাদ্দ বা ব্যয় করেছে আমি জানি না। আমাকে তারা বলেওনি।

এই বিষয়ে অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা রাজিবপুর উপজেলা প্রকৌশলী সৌরভ কুমার সাহা স্কুলের ভবন থেকে অন্য স্থানে দেয়াল নির্মাণ করে সরকারি অর্থ অপচয়ের ব্যাপারে তিনি বলেন,বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ খবর নিয়ে এই প্রসঙ্গে জানাতে পারবো।

রুপার খামার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সাজেদা বেগম বলেন ,কর্মকর্তাদেরকে ঘুষ দিয়ে সন্তুষ্ট করতে না পারায় দীর্ঘদিন ধরে রুপার খামার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বরাদ্দ হয়না। যারা ঘুষ দিতে পারে তারাই বরাদ্দ পায়। অনেক সহকর্মীদের কাছ থেকে শুনেছি বরাদ্দ ভেদে কর্মকর্তাদের দুই হাজার হতে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ দিতে হয়।

Advertisement

কুড়িগ্রাম জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নবেজ উদ্দিন সরকার বলেন,সরকারি টাকা আত্নসাৎ কিংবা অপচয় করার বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবার আশ্বাস দেন।

Advertisement

রংপুর

বছর পার হতেই মডেল মসজিদে ফাটল, মুসল্লিদের ক্ষোভ

Published

on

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলা চত্বরে নির্মিত দৃষ্টিনন্দন মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রটিতে নির্মানের এক বছর পার হতেই ফাটল দেখা দিয়েছে। দৃষ্টিনন্দন মডেল মসজিদে ফাটল দেখা  দেয়ায় ঠিকাদারের বিরুদ্ধে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ করেছেন  ধর্মপ্রাণ মুসল্লিসহ  স্থানীয় বিভিন্ন মহল।

শনিবার (১৩ জুলাই) ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রেহেনুমা তারান্নুম বায়ান্ন টিভিকে মসজিদে ফাটলের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, ২০১৯ সালের জুলাই মাসে ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর বাস্তবায়নে এবং গণপূর্ত অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে ১১ কোটি ৩৮ লাখ ৯২ হাজার ১০৬ টাকা ব্যয়ে। মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্রটি সাজিন কনস্ট্রাকশন লিঃ এ্যান্ড বাবর এ্যাসোসিয়েটস (জেভি) নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান  নির্মান করেন। ২০২৩ সালের ১৬ মার্চ গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ফুলবাড়ী উপজেলার দৃষ্টিনন্দন মডেল মসজিদের উদ্বোধন করেন  প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনা।

মুসল্লিরা জানান, মসজিদটির নির্মাণের এক বছরের মাথায় সিড়িঁর নীচের গোডাউন রুমটির কমপক্ষে ৫ থেকে৭ টি স্থানে ফাটল দেখা দেয়। সেই ফাটল দিয়ে বৃষ্টির পানি চুইয়ে দেয়ালের গা ঘেসে নামে। অন্য দিকে মসজিদটির নীচতলার পার্কিং এরিয়ার উপরের ছাদের পূর্ব পাশের  ছাদের দক্ষিণ থেকে উত্তর দিকে পুরোটাই লম্বাভাবে ফেটে গেছে। ফলে পুরো ছাদটি ড্যাম হয়ে গেছে।

মুসল্লিরা আরও জানান, নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করায় পুরো মসজিদটিতে বিদ্যুৎ সংযোগে প্রচুর সমস্যা দেখা দিয়েছে। যে কারণে বিদ্যুতের সুইচ দিলেই স্পার্কিং শুরু হয়ে যায়। এছাড়াও নিম্নমানের লাইট সরবরাহের কারণে অধিকাংশ লাইট অকেজো হয়ে আছে। মসজিদটির বাইরে প্রটেকশন দেয়াল দেয়ার কথা থাকলেও সেটি দেয়া হয়নি। ফলে মসজিদটির বাইরের অংশ অরক্ষিত। প্রতিনিয়ত কুকুর-বিড়ালসহ অন্যান্য প্রাণী সহজেই প্রবেশ করে জায়গাটি অপরিস্কার করে তোলে।

Advertisement

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল আজিজ মজনু ও জাহাঙ্গীর আলম জানান,  বর্তমান সরকার যেখানে সারাদেশের জেলা-উপজেলাগুলোতে এই দৃষ্টিনন্দন মডেল মসজিদ নির্মাণ করায় এক দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছে। সেখানে কিছু অসাধু ঠিকাদার ও কর্মকর্তার কারণে সরকারের উন্নয়নমুলক কাজ গুলো নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে নির্মাণ করায় সরকারের সুনাম নষ্ট হচ্ছে।

এ ব্যাপারে সাজিন কনস্ট্রাকশন লিঃ এ্যান্ড বাবর এ্যাসোসিয়েটস (জেভি) নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলেও তাদের কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

কুড়িগ্রাম গণপূর্ত অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্যাহ আল ফারুক মোবাইল জানান, মসজিদে ফাটল দেখা দেয়ার বিষয়টি তিনি শুনেছেন। দু’মাস হলো তিনি কুড়িগ্রামে যোগদান করেছেন। দ্রুত মসজিদটি পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান এ কর্মকর্তা।

ইউএনও রেহেনুমা তারান্নুম জানান, মসজিদের ফাটলের বিষয়টি তাঁর আগের ইউএনও ও জানেন। তিনিও বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছিলেন। বর্তমান ইউএনও পুনরায় মসজিদের ফাটল অংশগুলো পরিদর্শন করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন ।

আই/এ

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

রংপুর

কুড়িগ্রামে এখনো পানিবন্দী ২ লাখ মানুষ, বেড়েছে দুর্ভোগ

Published

on

কুড়িগ্রামের ১৬টি নদ নদীর পানি গত দুদিন ধরে কিছুটা কমে আবারও বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে।  ফলে জেলার ৯ উপজেলার ৫৫টি ইউনিয়নের প্রায় দুই লাখ পানিবন্দি মানুষের দুর্ভোগ বেড়েছে। অনেকে ঘরবাড়ি ছেড়ে পরিবারের লোকজনকে নিয়ে উঁচু স্থানে অবস্থান করছে। উপায় না পেয়ে অনেকেই নৌকার ওপর দিন কাটাচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) সকালে নদ-নদীর পানি সমতলে কিছুটা হ্রাস পেলেও ব্রহ্মপুত্রের পানি চিলমারী পয়েন্টে বিপৎসীমার ৫৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে বায়ান্ন টিভিকে জানিয়েছে জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)।

পাউবো জানায়, জেলার  হাতিয়া পয়েন্টে ব্রক্ষ্মপুত্রের পানি বিপৎসীমার ৩২ সেন্টিমিটার, নুনখাওয়া পয়েন্টে ৩৪ সেন্টিমিটার এবং ধরলার পানি ৭ সেন্টিমিটার ও দুধূকুমারের পানি ৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

জানা যায়, গেলো ১০ দিন ধরে জেলার ৯ উপজেলার দুই লাখ পানিবন্দি মানুষের দূর্ভোগের শেষ নেই। রাস্তা ঘাট তলিয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। কয়েকদিনের বন্যায় নাগেশ্বরী উপজেলার ২ টি বাঁধ ভেঙে নতুন বেশ কয়েকটি এলাকা প্লাবিত হয়েছে। বানভাসি মানুষগুলো না খেয়ে দিন পার করছেন। পাঁচগাছী ইউনিয়নের গোবিন্দপুর এলাকার আফরোজা বেগম বলেন, টানা ১০ দিন ধরে পানি বন্দী। ছোট বাচ্চাদের নিয়ে খুব কষ্টে আছি। কাজ কামাই নাই, খাওয়ার কষ্ট,থাকার কষ্ট।

মন্ডল পাড়া এলাকার শাহাজাহান আলী বলেন, বাড়ির চারিদিকে পানি। গত এক সপ্তাহ ধরে বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না। শুকনো খাবার,বিশুদ্ধ পানি আর গবাদিপশুর তীব্র খাদ্যের সংকট দেখা দিয়েছে।

Advertisement

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. আব্দুল হাই সরকার বলেন, জেলার বন্যা কবলিতদের জন্য বুধবার দুপুর পর্যন্ত ৫৪২ মেট্রিক টন চাল, ৩২ লাখ ৮৫ হাজার টাকা ও ২৩ হাজার ১২০ প্যাকেট শুকনো খাবার ৯ উপজেলায় বিতরণ চলমান।

প্রসঙ্গত, জেলা প্রশাসন থেকে ত্রান সহায়তা কার্যক্রম চলমান থাকলেও গো খাদ্য সংকট নিয়ে দুঃশ্চিন্তা আছে বানভাসিরা।

জেড/এস

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

রংপুর

তেঁতুলিয়ায় পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

Published

on

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় পুকুরের পানিতে ডুবে  হুসাইন নামে চার বছর বয়সী এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (৯ জুলাই) দুপুরে উপজেলার শালবাহান ইউনিয়নের দানাগছ মাঝিপাড়া এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। তেতুঁলিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুজয় কুমার রায় বিষয়টি বায়ান্ন টিভিকে নিশ্চিত করেছেন।

শালবাহান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলাম বলেন, আজ সকালে শিশু হুসাইনকে বাসায় রেখে তাঁর বাবা-মা মাঠে পাট কাটতে যান। পরে বাবা মাকে খুঁজতে বাড়ি থেকে বের হয় হুসাইন। এক পর্যায়ে বাড়ির পাশের পুকুরের পাশ দিয়ে হাঁটার সময় অসাবধানতাবশত পানিতে পড়ে যায় সে।

এদিকে মাঠ থেকে বাসায় ফিরে শিশু হুসাইনকে না পেয়ে খোঁজাখুজিঁ শুরু করেন বাবা-মা। পরে হুসাইনকে বাড়ির পাশের পুকুরে ভাসতে দেখেন তারা। এরপর তাকে উদ্ধার করে তেতুঁলিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

প্রসঙ্গত, নিহত শিশু হুসাইন মাঝিপাড়া এলাকার আজিজুল হকের ছেলে।

Advertisement

জেড/এস

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত