Connect with us

জাতীয় পার্টি

জাপা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে তদন্ত চাওয়া রিটে সাড়া দেননি হাইকোর্ট

Published

on

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জি এম কাদেরে

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের বিরুদ্ধে দলীয় মনোনয়ন বাণিজ্য করে অবৈধ উপায়ে অর্থ-সম্পত্তি অর্জনের অভিযোগ তদন্তে চাওয়া রিটের ওপর আদেশ না দিয়ে তা নিষ্পত্তি করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আজ মঙ্গলবার (১৮ অক্টোবর) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রিটটি নিষ্পত্তির আদেশ দেন।

নিষ্পত্তিতে আদালতের দেয়া পর্যবেক্ষণে বলা হয়, এ মুহূর্তে রিটের বিষয়ে কোনো নির্দেশনা দেয়ার প্রয়োজন মনে করছি না। পরে প্রয়োজন মনে করলে আমরা পদক্ষেপ গ্রহণ করব।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী মো. মোতাহারা হোসেন সাজু। তার সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট মো. হেলাল উদ্দিন। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। সঙ্গে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আন্না খানম কলী। আর দুদকের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান।

এর আগে দলীয় মনোনয়ন বাণিজ্য করে অবৈধ অর্থ আদায়ের অভিযোগ তদন্ত করার জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির দফতর সম্পাদক। গেলো ১৮ সেপ্টেম্বর জাতীয় পার্টির প্যাডে লেখা অভিযোগটি দুদকে জমা দেন জাতীয় পুনর্গঠন প্রক্রিয়া কেন্দ্রীয় কমিটির দফতর সম্পাদক মো. ইদ্রিস আলী।

Advertisement

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে জাতীয় পার্টির চারজন মহিলা সংসদ সদস্য পদের মনোনয়ন কার্যক্রমে ১৮ কোটি ১০ লাখ টাকা উৎকোচ নেন জি এম কাদের। উৎকোচের বিনিময়ে ওই চার নারীকে সংসদ সদস্যপদে মনোনয়ন দেয়া হয়। মসিউর রহমান রাঙ্গার মাধ্যমে ওই নারীদের জাতীয় সংসদের আসনে মনোনীত করার অঙ্গীকার ও অর্থ প্রদানের শর্তে চুক্তিপত্র সম্পাদন হয়। এ বিষয়ে একজন মহিলা এমপির চুক্তির বিষয়টি এরই মধ্যে মিডিয়ায় ফাঁস হয়েছে। তিনজন মহিলা সদস্যের কাছ থেকে ৫ কোটি করে মোট ১৫ কোটি এবং প্রয়াত অধ্যাপক মাসুদা এম রশীদ চৌধুরীর কাছ থেকে ৩ কোটি ১০ লাখ টাকা দুর্নীতির মাধ্যমে জি এম কাদের গ্রহণ করেছেন, যা তদন্ত করলে বেরিয়ে আসবে।

অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, দলীয় পদপদবি ব্যবহার ও প্রভাব খাটিয়ে দলের কো-চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর মসিউর রহমান রাঙ্গাকে ব্যবহার করে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে সৃষ্টি করা একটি নামসর্বস্ব প্যাডে এরশাদ সাহেবের দস্তখত তৈরি করেন।

সেটি তদন্ত শুরু না করায় দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছিলেন মো. ইদ্রিস আলী। তবে আইনি নোটিশ পাওয়ার পর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের বিরুদ্ধে মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগের আবেদন নিষ্পত্তি করার নির্দেশনা চেয়ে রিটটি করা হয়। রিটের শুনানি শেষে সেটি নিষ্পত্তি করে দিলেন আদালত।

Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

জাতীয় পার্টি

কোটা সংস্কার আন্দোলনে সমর্থন জানিয়েছে জাতীয় পার্টি

Published

on

কোটা সংস্কারের দাবিতে চলমান আন্দোলনে  নিজেদের সমর্থন জানিয়েছে জাতীয় পার্টি। একই সঙ্গে কোটা সংস্কার আন্দোলন করতে গিয়ে যারা প্রাণ হারিয়েছেন তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা  এবং পরিবার পরিজনদের সমবেদনা জানায় দলটি।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) জাতীয় পার্টির নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী ফিরোজ রশীদ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এ সমর্থন জানান।

ফিরোজ রশীদ বলেন, সরকারি চাকরির ৫৬ শতাংশ কোটার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে- এটা জাতীয় পার্টিও মানতে পারছে না। তাহলে মেধার মূল্যায়ন হয় না। ছাত্ররা চেয়েছে কোটা থাকবে। তবে তা বিশেষ ক্ষেত্রে এবং তার হার ৫ শতাংশের বেশি নয়। এসব বিষয় আলাপ-আলোচনার মাধ্যমেই মীমাংসা করা উচিৎ ছিল।

তিনি বলেন, কোটা যেখানে সরকারই বাতিল করেছিলেন সেটা হাইকোর্টের রায়ে বাতিল হলো। হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায়ে বলা হয়েছে- কোটা থাকবে। তবে কোটার হার কমানো বা বাড়ানোর এখতিয়ার সরকারের হাতে থাকবে। ফলে রায় অনুসারেই সরকারের পক্ষে ছাত্রদের দাবি মেনে নেওয়ার সুযোগ আছে।

তিনি আরও বলেন, সরকার হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেছেন। এই পর্যায়ে অ্যাটর্নি জেনারেল সুপ্রিম কোটের শুনানি এগিয়ে নিয়ে এসে সমস্যার সমাধান করতে পারেন। তাই জাতীয় পার্টি দাবি জানাচ্ছে কোনোভাবে কালক্ষেপণ না করে আগামী রোববারই সুপ্রিম কোর্টে মেনশন করে- সিভিল আপিলটি দ্রুত শুনানি করা হোক।

Advertisement

আই/এ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

জাতীয় পার্টি

৬ শিক্ষার্থী হত্যায় বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি : জিএম কাদের

Published

on

কোটা সংস্কার আন্দোলনে সহিংসতায় অংশ নেয়া ৬ শিক্ষার্থীর মৃত্যুতে গভীর ক্ষোভ-শোক এবং দুঃখ প্রকাশ করেছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের। একইসঙ্গে প্রতিটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠনের দাবিও জানান তিনি।

বুধবার (১৭ জুলাই) এক শোক বার্তায় এ দাবি জানান জিএম কাদের। হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের বিচারের মুখোমুখি করা এবং নিহতদের পরিবারকে যৌক্তিক ক্ষতিপূরণ দিতে আহ্বান জানান জিএম কাদের।

তিনি বলেন, ছাত্রদের কোটা সংস্কার আন্দোলনের দাবি যৌক্তিক। তাদের এ যৌক্তিক দাবি মেনে নিতে হবে।

জিএম কাদের বলেন, রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্র আবু সাঈদ শান্তিপূর্ণভাবে অহিংস প্রতিবাদ চালিয়ে যাচ্ছিল। তখন ঠান্ডা মাথায় একের পর এক গুলি করে তাকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে পুলিশ। এই নির্মম হত্যাযজ্ঞের ভিডিও বিশ্ববাসী দেখেছে।

তিনি বলেন, কোটা পদ্ধতিতে নিয়োগ পাওয়া, সরকারি দলের আনুগত্যে অন্ধ ও অনুপযুক্ত আইনশৃখলা বাহিনীর সদস্য এবং সশস্ত্র ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নির্বিচারে হামলা করেছে আন্দোলনরত নিরিহ ছাত্রদের ওপর। গণমাধ্যমের একাধিক রিপোর্টে প্রকাশ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সামনে আগ্নেয়াস্ত্র বের করে সরকারি দলের অঙ্গসংগঠনের অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা ছাত্রদের ওপর গুলি করেছে। কিন্তু অবৈধ অস্ত্রধারীদের বাধা বা গ্রেপ্তার করা হয়নি।

Advertisement

রাতের আধারে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে নিরিহ ছাত্রীরাও রেহাই পায়নি এইসব নরপশুদের নির্যাতন থেকে— উল্লেখ করে জিএম কাদের।

কাদের বলেন, প্রতিবেশী দেশ শ্রীলঙ্কায় কিছু দিন আগে ব্যাপক আন্দোলন হয়েছে। সেই আন্দোলনে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী দরকারের বেশি শক্তি প্রয়োগ করেনি বোঝা যায়। কেননা, শ্রীলঙ্কায় এতবড় আন্দোলন হলো কিন্তু কোনো মায়ের কোল খালি হয়েছে বলে শুনিনি। আইনের শাসন এবং ন্যায় বিচার ভিত্তিক সমাজ গঠনের জন্য সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে আমাদের বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। দুঃখজনক হলেও সত্য, আমাদের দেশে অন্যায়, অবিচার ও অত্যাচার ভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থা চালু হয়েছে।

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

জাতীয় পার্টি

সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

Published

on

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী আজ রোববার (১৪ জুলাই)। এ উপলক্ষে জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে ঢাকা ও রংপুরের গ্রামের বাড়িসহ দেশব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। ২০১৯ সালের এই দিনে তিনি ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।

আজ জাতীয় পার্টি ও অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনগুলো যথাযোগ্য মর্যাদায় হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যু বার্ষিকী পালন করবে। ১৪ জুলাই ২০২৪ সকাল ৯টায় কাকরাইলস্থ জাতীয় পার্টি কেন্ত্রীয় কার্যালয় চত্বরে এরশাদের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হবে। একইদিন বেলা ৩টায় রাজধানীর রমনাস্থ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) মিলনায়তনে স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

সভায় সভাপতিত্বে করবেন বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জি.এম. কাদের এমপি। জাতীয় পার্টি মহাসচির মোঃ মুজিবুল হক চুন্নু এমপিসহ শীর্ষ নেত্ববৃন্দ সভায় উপস্থিত থাকবেন।

এছাড়া সারাদেশের ইউনিয়ন, থানা, উপজেলা, মহানগর, জেলা ও বিভাগীয় কমিটি এ উপলক্ষে আলোচনা সভা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে ও আলোচনা সভার আয়োজন করবে।

জেএইচ

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত