Bayanno Tv
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮
×

দেশের হাসপাতালগুলোতে শয্যার চরম সংকট দেশের হাসপাতালে : বিবিএস

  বায়ান্ন অনলাইন ২১ জুন ২০২১, ১৬:৩১

হাসপাতাল

বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে এক বছরের ব্যবধানে কর্মসংস্থান বেড়েছে ৯ দশমিক ২৭ শতাংশ। কর্মসংস্থান বাড়লেও দেশের হাসপাতালগুলোতে শয্যা সংখ্যার চরম সংকটের চিত্র উঠে এসেছে। 

সোমবার (২১ জুন) বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) অডিটোরিয়ামে ‘সার্ভিস অ্যান্ড স্টাডিজ রিলেটিং টু জিডিপি রিবেইজিং ২০১৫-১৬’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ‘বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান জরিপ ২০১৯’র ফলাফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানানো হয়। 

২০১৭ সালের জুন থেকে ২০১৮ সালের জুনের তথ্য বিশ্লেষণ করে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রকল্প পরিচালক আবদুল খালেক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

প্রকল্প পরিচালক জানান, ২০১৭ সালের জুনে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন ২ লাখ ৮৯ হাজার ১২৬ জন। যা ২০১৮ সালের জুনে বেড়ে হয় ৩ লাখ ১৫ হাজার ৯৪১ জন। বছরের ব্যবধানে এই সেক্টরে কর্মসংস্থান বেড়েছে ২৬ হাজার ৮১৫টি। 

তিনি বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা খাতের উল্লেখযোগ্য অবদান রয়েছে। তবে সরকারি হাসপাতালে প্রতি ১ হাজার মানুষের জন্য শয্যা সংখ্যা প্রায় ০.৩২টি। বেসরকারি হাসপাতালে প্রতি ১ হাজার মানুষের জন্য শয্যা সংখ্যা প্রায় ০.৬৪টি। সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে প্রতি ১ হাজার মানুষের জন্য হাসপাতালে শয্যা সংখ্যা মাত্র ০.৯৬টি। অথচ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) সুপারিশ অনুযায়ী প্রতি ১ হাজার মানুষের বিপরীতে সাড়ে ৩টি শয্যা থাকতে হবে। আন্তর্জাতিক মানের চেয়ে দেশের সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলোয় শয্যা সংখ্যা অনেক কম- এই চিত্র বিবিএস’র রিপোর্টে উঠে এসেছে। 

জরিপ প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, প্রতি একজন চিকিৎসকের (ডেন্টাল সার্জন বাদে) বিপরীতে মাত্র ০.৮৫ জন সেবিকা রয়েছেন। ডেন্টাল সার্জনদের অন্তর্ভুক্ত করলে প্রতি একজন চিকিৎসকের বিপরীতে সেবিকার সংখ্যা দাঁড়ায় ০.৮৩ জন। প্রতি ৩.৪৭টি শয্যার জন্য একজন সেবিকা দায়িত্ব পালন করছেন।

অন্যদিকে, ২০১৯ সালের ২১ মে থেকে ২০২১ সালের ১৩ মে পর্যন্ত একটি জরিপ কার্যক্রম পরিচালনা করা হয় বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। দেশজ মোট উৎপাদন প্রাক্কলনে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর হালনাগাদ ও নির্ভরযোগ্য তথ্য-উপাত্ত অন্তর্ভুক্ত করার লক্ষ্যে ওই জরিপ করা হয়। জরিপের তথ্য বলছে, স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত বেসরকারি খাতে বাংলাদেশে মোট ১৬ হাজার ৯৭৯টি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান ছিল। তার মধ্যে রোগ নির্ণয় কেন্দ্র ১০ হাজার ২৯১টি (৬০.৬১ শতাংশ), হাসপাতাল ৪ হাজার ৪৫২টি (২৬.২২ শতাংশ) এবং মেডিকেল ক্লিনিক ১ হাজার ৩৯৭টি (৮.২৩ শতাংশ)। অন্যদিকে ডেন্টাল ক্লিনিকের সংখ্যা ৮৩৯টি (৪.৯৯ শতাংশ)।

বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান জরিপে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে কর্মসংস্থানের আকার তুলে ধরে জরিপে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালের ৩০ জুনে ১৬ হাজার ৯৭৯টি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে মোট ৩ লাখ ৬৮ হাজার ৫৮০ জন কর্মী নিয়োজিত ছিলেন। তার মধ্যে ৩ লাখ ১৫ হাজার ৯৪১ জন (৮৫.৭২ শতাংশ) পূর্ণকালীন এবং ৫২ হাজার ৬৩৯ জন (১৪.২৮ শতাংশ) খণ্ডকালীন। মোট নিয়োজিত জনবলের মধ্যে হাসপাতালে ৫৬ দশমিক ৩২ শতাংশ, রোগনির্ণয় কেন্দ্রে ৩৬ দশমিক ৭৯ শতাংশ এবং ক্লিনিকে ৫ দশমিক ৭ শতাংশ জনবল নিয়োজিত ছিলেন। ডেন্টাল ক্লিনিকে নিয়োজিত জনবল ১ দশমিক ১৯ শতাংশ।

বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের পূর্ণকালীন কর্মসংস্থানের প্রবৃদ্ধি ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ছিল ৯ দশমিক ২৭ শতাংশ, হাসপাতালের কর্মসংস্থান বৃদ্ধির হার ছিল ১২ দশমিক ১৬ শতাংশ, মেডিকেল ক্লিনিকগুলোয় কর্মসংস্থান বৃদ্ধির হার ৫ দশমিক ৮৯ শতাংশ ছিল। এছাড়া রোগ নির্ণয় কেন্দ্রের কর্মসংস্থান বৃদ্ধির হার ৫ দশমিক ৩১ শতাংশ এবং ডেন্টাল ক্লিনিকগুলোয় প্রবৃদ্ধি ০.৮২ শতাংশ ছিল।

বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানগুলোয় পূর্ণকালীন কর্মসংস্থান সৃষ্টির তথ্য তুলে ধরে জরিপে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালের জুনে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানগুলোয় মোট ২ লাখ ৮৯ হাজার ১২৬ জন কাজ করতেন, বিপরীতে ২০১৮ সালের জুনে সেখানে ৩ লাখ ১৫ হাজার ৯৪১ জন কাজ করতেন।

পূর্ণকালীন কর্মসংস্থানের মধ্যে হাসপাতালগুলোয় এককভাবে ২০ হাজার ৪৬৯টি (৭৭.৩৩ শতাংশ) নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছে। তারপর যথাক্রমে রোগ নির্ণয় কেন্দ্র (১৯.৮৫ শতাংশ) এবং ক্লিনিকগুলোয় (৩.৭০ শতাংশ) অবস্থান। নতুন পূর্ণকালীন কর্মসংস্থানের মধ্যে ডেন্টাল ক্লিনিকের আওতায় কর্মসংস্থানের প্রাক্কলিত হিসাব ছিল ০.১২ শতাংশ। মোট পূর্ণকালীন নতুন কর্মসংস্থানের মধ্যে চিকিৎসক পদ ৪ হাজার ৫৯০টি, সেবিকা পদে ৪ হাজার ৭২১টি এবং ডেন্টাল সার্জন পদে ৪৯টি পূর্ণকালীন কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে বলেও জরিপে উল্লেখ করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র

প্রধান সম্পাদকঃ সৈয়দ আশিক রহমান
বেঙ্গল টেলিভিশন লিমিটেড

৪৩৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।