Connect with us

ফিচার

যে জাদুঘরে আছে নবীজীর (সাঃ) ব্যবহৃত জিনিস

Avatar of অনন্যা চৈতী

Published

on

দেশ-বিদেশের বিচিত্র জাদুঘরে শত-সহস্র বছরের প্রাচীন সংস্কৃতি, ঐতিহ্য ও বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার ঠায় দাঁড়িয়ে থাকে। এগুলো একেকটি ইতিহাসের সাক্ষী।

তেমনই এক ঐতিহাসিক জাদুঘর তুরস্কের ইস্তামবুল শহরে অবস্থিত সুলতান সুলেমানের আমলের তোপকাপি প্রাসাদ। তুর্কি ভাষায় একে বলা হয় তোপকাপি সারাই, যার অর্থ- কামানগোলা প্রাসাদ। দ্বিতীয় মুহাম্মদ পঞ্চদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে এই প্রাসাদের নির্মাণকাজ শুরু করান। তোপকাপি প্রাসাদটি প্রায় ৪০০ বছর (১৪৬৫ – ১৮৫৬) ধরে তুরস্ক সম্রাজ্যের রাজপ্রাসাদ হিসেবে ব্যবহৃত হতো।

তুরস্কের ইস্তাম্বুলে গিয়ে ঐতিহাসিক সুলতান সুলেমানের তোপকাপি রাজ্যে ঘুরতে না গেলে ব্যর্থ হয়ে যাবে আপনার তুরস্ক সফরটাই।

তোপকাপি প্রসাদটি এক সময় রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান এবং রাজকীয় বিনোদনস্থল হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হয়ে থাকলেও বর্তমানে এটি গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে পরিণত হয়েছে। কারণ এখানে রয়েছে মুসলমানদের জন্য পবিত্র স্মরণচিহ্ন।

মুসলিম খেলাফতের শাসন পরিচালনাকারী রাজা-বাদশাহরা সব সময় নিজেদের কাছে রাখতে চেয়েছেন তাদের মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের রেখে যাওয়া মহামূল্যবান জিনিসগুলো। সে হিসেবে অটোমান খেলাফতের সময় সে জিনিসগুলো চলে আসে তুরস্কে। যা বর্তমানে তুরস্কের ঐতিহাসিক তোপকাপি রাজ প্রাসাদ জাদুঘরে সংরক্ষিত রয়েছে।

Advertisement

খলিফারা মক্কা-মদিনা থেকে মহানবী (সাঃ)-এর স্মৃতিগুলো সঙ্গে করে নিয়ে এসেছিলেন। তোপকাপি জাদুঘরে রয়েছে মহানবী (সাঃ)-এর দাঁত, চুল, দাড়ি, তখনকার আমলে চামড়ার ওপর লেখা চিঠি, জুতা, পবিত্র মক্কার কাবা শরিফের হাজরে আসওয়াদ পাথর, ধনুক, তরবারি, পোশাকাদি ছাড়াও খলিফা আবু বকর, হযরত আলী ও হযরত ওসমানের ব্যবহৃত তলোয়ার-সবই।

বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ব্যবহৃত দুর্লভ সেসব জিনিসগুলো তোপকাপি জাদুঘরের প্রিভি রুমে সর্বোচ্চ নিরাপত্তায় সংরক্ষণ করা হয়েছে।

খেলাফতের শাসনের পর তুরস্কে প্রজাতন্ত্র শুরু হলে রাজপ্রাসাদটিকে জাদুঘরে রূপান্তরিত করা হয়। এরপর থেকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তায় মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর ব্যবহৃত জিনিসগুলো দর্শণার্থীদের জন্য দেখার ব্যবস্থা করা হয়।

জাদুঘরে গেলে দেখা যাবে সামনে থেকে সাপের মতো এঁকেবেঁকে মানুষ ভেতরে প্রবেশের জন্য লাইন ধরে অপেক্ষা করছেন। প্রবেশ পথের সামনে থাকে মানুষের বেশ বড়সড় ভিড়। ৫-৭ মিনিট পরপর ২০-৩০ জন করে পর্যটককে ভেতরে প্রবেশের অনুমতি দেয়া হয় এখানে। প্রবেশদ্বারের সামনেই লেখা আছে- লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ।

তোপকাপি প্রসাদে প্রবেশের পর দেখা যাবে সেখানে এখনও সংরক্ষিত আছে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যে পেয়ালায় পানি পান করতে ক্যালিগ্রাফিতে সজ্জিত সে পেয়ালাটি।

Advertisement

আরো আছে লম্বা একটি সুসজ্জিত পাত্রে বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পবিত্র দাঁড়ি মোবারক। বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের তলোয়ার। যা হজরত ওমর এবং হজরত আলি রাদিয়াল্লাহু আনহুর কাছেও সংরক্ষিত ছিল। এখনো তা সংরক্ষিত আছে তোপকাপি রাজপ্রাসাদে ।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ব্যবহৃত ধনুক ও ক্যালিগ্রাফি খচিত কাভারেরও দেখা মিলবে এ প্রসাদে। তুরস্কের ইস্তামবুলে যেখানে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ব্যবহৃত জিনিসগুলো সংরক্ষিত সেখানে রয়েছে স্বর্ণ দ্বারা নির্মিত কাবা শরিফের একটি তালা ও চাবি। রয়েছে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ব্যবহৃত ক্যালিগ্রাফি খচিত স্টাম্প।

এছাড়া ইস্তাম্বুলের ফেইথ জেলায় হিরকা-ই শরিফ মসজিদে গেল ১ হাজার ৪০০ বছর ধরে যত্নসহকারে সংরক্ষণ করে রাখা হয়েছে নবীজির (সাঃ) পোশাক মোবারক।

কথিত আছে, হজরত ওয়াইস করনির কোনো এক বংশধরের মাধ্যমে পোশাকটি তুরস্কের মসজিদে এসেছিল। ইয়েমেনের এই অধিবাসীকে রাসুল (সাঃ) তার জুব্বা উপহার দিয়েছিলেন।

১৯২১ সালে উসমানীয় সাম্রাজ্যের পতনের পর, তোপকাপি প্রাসাদ সরকারি রায়ে ১৯২৪ এর এপ্রিল ৩ তারিখে সাম্রাজ্যিক সময়ের জাদুঘরে পরিণত হয়। তোপকাপি প্রাসাদ জাদুঘরটির বর্তমানে সংস্কৃতি ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়। প্রাসাদ চত্বরে কয়েকশ ঘর এবং প্রকোষ্ঠ রয়েছে, তবে জনসাধারণের দর্শনের জন্য এখন শুধুমাত্র গুরুত্বপূর্ণ ঘরগুলোতেই প্রবেশাধিকার রয়েছে। চত্বরটিতে মন্ত্রণালয়ের কর্মচারী ছাড়াও তুর্কি সেনাবাহিনীর সশস্ত্র কর্মীদের পাহারায় মোতায়েন রয়েছে। প্রাসাদে উসমানীয় স্থাপত্যকলার বহু উদাহরণসহ বিপুল সংখ্যক চীনা মাটির বাসন, পোশাক, অস্ত্র, ঢাল, বর্ম-আবরণ, উসমানীয় বিভিন্ন ক্ষুদ্র নকল, ইসলামিক ক্যালিগ্রাফিক হস্তলিপির সংগ্রহ রয়েছে সেই সাথে উসমানীয় বিভিন্ন মূল্যবান ধন ও রত্ন প্রদর্শনী ব্যবস্থা করা হয়েছে।

Advertisement

হিন্দু-বৌদ্ধ-মুসলিম-খ্রিষ্টানসহ পৃথিবীর সকল জাতির পর্যটকরা ছুটে আসেন শত শত বছরের পুরোনো এ প্রাসাদ দেখতে।

ফুটবল

বিছানা ছেড়ে ব্রাজিল ম্যাচে গ্যালারিতে নেইমার!

Published

on

ব্রাজিল

মাঠে যখন সুইজারল্যান্ডের বিরুদ্ধে রিচার্লিসনরা খেলছেন, এমন সময় হঠাৎই অবাক হয়ে যান গ্যালারির ব্রাজিলের সমর্থকরা। অনেকে তার সঙ্গে সেলফিও তোলেন।

গোড়ালিতে চোট পাওয়ার পর থেকে মাঠে নামতে পারেননি নেইমার। সুইজারল্যান্ডের বিরুদ্ধে খেলতে পারেননি। ক্যামেরুনের বিরুদ্ধে গ্রুপের তৃতীয় ম্যাচেও নামার সম্ভাবনা কম। রয়েছেন হোটেলেই। অথচ সেই নেইমার কি না হোটেল ছেড়ে সোজা চলে গেলেন গ্যালারিতে। মাঠে যখন রিচার্লিসন, ভিনিসিয়াসরা খেলছেন তখন গ্যালারিতে বসে তিনি। নেইমারকে দেখে অবাক সেখানে উপস্থিত ব্রাজিলের সমর্থকরা। যদিও কিছুক্ষণ পরে ভুল ভাঙে সবার।

ব্যাপারটা কী হয়েছিল?

ব্যাপারটা হলো যিনি গ্যালারিতে ছিলেন তিনি আসল নেইমার নন। অবিকল তার মতো দেখতে। একবার দেখলে অনেকের পক্ষেই আলাদা করা কঠিন। গ্যালারিতে তাই তাকে দেখে অবাক হয়ে গিয়েছিলেন ব্রাজিলের সমর্থকরা। ভিড়ের মধ্যে থেকে রক্ষীরা সেই নকল নেইমারকে বের করে নিয়ে যান। শুধু গ্যালারিতে থাকা দর্শকরা নন, বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমও নকল নেইমারকে চিনতে ভুল করে। তারাও তার ছবি দিয়ে জানায়, ব্রাজিল ম্যাচে গ্যালারিতে নেইমারকে দেখা গিয়েছে। পরে অবশ্য ভুল শুধরে নেয় তারা।

ব্রাজিল

এত কিছু যখন হচ্ছে, তখন নেইমার শুয়ে হোটেলের বিছানায়। জানা গিয়েছে, হোটেলের ঘরে নেইমারের ফিজিয়োথেরাপির সেশন ছিল। তাই দলের সঙ্গে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। হোটেলের ঘরে বসেই খেলা দেখার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। দলের তরফেও কোনও আপত্তি করা হয়নি। দলের প্রধান লক্ষ্য যত দ্রুত সম্ভব নেইমারকে সুস্থ করে তোলা। সে কারণেই চিকিৎসকরা দিন রাত খাটছেন। বিছানায় শুয়ে টেলিভিশনে ব্রাজিলের খেলা দেখেছেন নেইমার। সেই ছবি নিজের ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতেও দিয়েছেন তিনি।

Advertisement

অবশ্য এই প্রথম নকল নেইমারকে দেখে চিনতে ভুল হয়েছে তা নয়, ব্রাজিলের প্রথম ম্যাচের পরে কাতারের রাস্তায় তাকে দেখে নেইমার ভেবে বসে ফক্স স্পোর্টসের মতো নামী সংবাদমাধ্যম। নকল নেইমারের ছবি তুলে টুইট করে তারা জানায়, দোহার রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন নেইমার। পরে অবশ্য ভুল বুঝতে পারে তারা।

সূত্র: ডেইলি মেইল

পুরো প্রতিবেদনটি পড়ুন

ফিচার

বিয়ের আগে কীভাবে ত্বক উজ্জ্বল করবেন জানেন কি!

Published

on

হত্যা

বিয়ে হতে আর মাত্র এক মাস বাকি। হাতে নেই সময়। প্রস্তুতি চলছে জোরকদমে। তার মধ্যেই ত্বকের যত্ন বিশেষ ভাবে জরুরি। অনেকেই বিয়ের কিছু দিন আগে ত্বকে নানা রকম বিউটি ট্রিটমেন্ট করিয়ে থাকেন। যা আপনার ত্বকে নেতিবাচক প্রভাবের ঝুঁকি বেশ কিছুটা বাড়িয়ে তোলে। তাই ভরসা ঘরোয়া উপায়ে থাকাটাই শ্রেয়। বেশ কিছু সহজ ঘরোয়া পদ্ধতিতে কিন্তু উজ্জ্বল ত্বক পেতে পারেন অনায়াসেই।

  • শরীরে আর্দ্রতা বজায় রাখুন। তা শুধুমাত্র ত্বক কোমল রাখে তা-ই নয়, শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে রেখে ব্রণ থেকেও দূরে রাখে। পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি খাওয়ার পাশাপাশি ত্বকে প্যারাবেনমুক্ত ও টক্সিন মুক্ত ময়শ্চারাইজার ব্যবহার করুন।
  • ত্বক উজ্জ্বল রাখুন ভিতর থেকে। খাদ্যতালিকায় বেশি করে ফল ও শাকসব্জি যোগ করুন। চিনি ও অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন। স্যালাড আপনার অন্ত্রের স্বাস্থ্য উন্নত করে তোলে, যা আপনার ত্বকে কোমলতা ও উজ্জ্বলতা এনে দেয়।
  • সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি ত্বকের বিপর্যয় ডেকে আনে। নিয়ে আসে হাইপারপিগমেন্টেশন, বলিরেখা ও রুক্ষতা। তাই বাইরে যাওয়ার আগে ন্যূনতম এসপিএফ ৩০ সানস্ক্রিন ব্যবহার করা বাঞ্ছনীয়। যেহেতু সানস্ক্রিন সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক হয় না, তাই অবশ্যই তা প্যারাবেনমুক্ত ও টক্সিন মুক্ত কি না দেখে নিতে হবে।
  • ত্বকের যত্নের জন্য বাজারে অজস্র পণ্য রয়েছে। কিন্তু সেগুলির মধ্যে থাকা রাসায়নিক উপাদান উল্টে ত্বকের ক্ষতি করতে পারে। তাই প্রাকৃতিক বা আয়ুর্বেদিক জিনিস ব্যবহার করুন। বিভিন্ন সংস্থা এই ধরনের ফেসপ্যাক, ফেসওয়াশ, ময়শ্চারাইজার নিয়ে এসেছে সাজ মহলে। এগুলি মূলত হলুদ, কেশর, মুলতানি মাটির মতো নানা প্রাকৃতিক বা ভেষজ উপাদানে তৈরি।
  • নিয়মিত শরীরচর্চা করা জরুরি ত্বকের স্বাস্থ্যের জন্য। গালের ফোলা ভাব কমাতে তা সাহায্য করে। নিয়মিত শরীরচর্চা করলে শরীরে রক্ত সঞ্চালন ঠিক থাকে এবং এন্ডোরফিন হরমোন নিঃসরণ করে যা ত্বকের প্রদাহ কমায়। ত্বক হয়ে ওঠে মোলায়েম।
  • শুধু মুখের যত্ন নয়, সারা শরীরেরই যত্ন নিন। স্নানের সময়ে এক্সফোলিয়েশন করুন এবং পরে ময়শ্চারাইজার দিন ভাল ভাবে। বডি মাস্ক ব্যবহার করুন মাঝে মধ্যে। এতে ত্বক মসৃণ থাকবে। আর বিয়েতে লো কাট, ব্যাকলেস ও স্লিভলেস পোশাকে নজর কাড়ুন নিশ্চিন্তে।
পুরো প্রতিবেদনটি পড়ুন

ফিচার

ব্রাজিল রসগোল্লা, আর্জেন্টিনা সন্দেশ!

Published

on

রসগোল্লা

ফুটবল জ্বরে আক্রান্ত এখন গোটা বিশ্ব। প্রিয় দলের জার্সি, পতাকা থেকে খেলোয়ারদের ছবি, দেদার বিকোচ্ছে সবকিছু। আর এবার বিশ্বকাপের আঁচ এসে পড়ল মিষ্টির দোকানেও। ব্রাজিল রসগোল্লা থেকে আর্জেন্টিনা সন্দেশ। ছানার বিশ্বকাপ থেকে মেসি-রোনাল্ডোর আদলে তৈরি মিষ্টি থরে থরে সাজানো আছে মিষ্টির শোকেসে। খেলা যত এগোবে মিষ্টির বৈচিত্র‌ ততই বাড়বে। জানিয়েছেন কলকাতার অভিজাত মিষ্টির বিক্রেতারা।

সম্প্রতি ভারতীয় গণমাধ্যম প্রতিদিন’র এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

মিষ্টি বিক্রেতারা জানিয়েছেন, নিত‌্য নতুন আইডিয়াতে তৈরি হচ্ছে মিষ্টি। কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে মূলত বিক্রি বাড়ে কারণ, সেই সময় প্রিয় দল জিতলে মিষ্টি বিক্রি শুরু হয়। ফলে প্রচুর বিক্রি হয় বিশ্বকাপ স্পেশাল মিষ্টি। যে দলের খেলা থাকে সেই দলের পতাকার রঙে রসগোল্লা, সন্দেশ তৈরি করেন দোকানদাররাও।

শনিবার (১৯ নভেম্বর) মেসি এবং রোনাল্ডোর ক্ষীরের সন্দেশ তৈরি করেছে কলকাতার অভিজাত মিষ্টির দোকান বলরাম মল্লিক এবং রাধারমন মল্লিক। তাছাড়াও সেখানে ব্রাজিল, জার্মানি, আর্জেন্টিনা-সহ বিভিন্ন দেশের পতাকার রঙে তৈরি হয়েছে সন্দেশ।

বিক্রেতারা জানাচ্ছেন, আরও ভাবনা চলছে নতুন কী বানানো যায় তা নিয়ে। বানানো হয়েছে বিশ্বকাপ সন্দেশও। মেসি, রোনাল্ডোর সন্দেশ শুধু ভবানীপুরের দোকানেই পাওয়া যাচ্ছে। বিভিন্ন দেশের পতাকার রঙে সন্দেশ বানানো হয়েছে বিশ্বকাপ উপলক্ষে। আরও নিত‌্যনতুন মিষ্টি তৈরি হবে। বিশ্বকাপ সন্দেশ বানিয়েছে মিঠাইও।

Advertisement

২২ নভেম্বর থেকে হিন্দুস্তান সুইটসও নেমেছে বিশ্বকাপের আসরে। ফুটবলের মাধ‌্যমে সমস্ত দেশকে একসঙ্গে বাধা হচ্ছে। কলকাতার মিষ্টি বিক্রেতারা মনে করেন সম্প্রীতির বার্তা দেয়া হবে এই মিষ্টির মাধ‌্যমে।

হাওড়ার ব‌্যাতাই মিষ্টান্ন ভাণ্ডার অবশ‌্য বিশ্বকাপ উপলক্ষে অনেক ধরনের মিষ্টিই নিয়ে আসবে তবে তা আরও কিছুদিন পর থেকে। একটা ছোট আর একটা বড় ওয়ার্ল্ড কাপ সন্দেশ বানানো হচ্ছে তাদের দোকানে। ছোটটার দাম ৪০ টাকা। আর বড়টার ২৫০ টাকা। আরও কিছুদিন পর থেকে বিশ্বকাপ খেলা বাকি দেশের জার্সির রংয়ের রসগোল্লাও বানানো হবে। যেগুলোর দাম হবে ১৫ টাকা। বিশ্বকাপ যত শেষের দিকে যায় ততই বাড়ে এসব মিষ্টির চাহিদা।

পুরো প্রতিবেদনটি পড়ুন

জাতীয়

হত্যা হত্যা
অপরাধ1 hour ago

ফুটবল দ্বন্দ্বে নয়, কোমরের বেল্ট নিয়ে বন্ধুকে হত্যা

ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে নয় বরং কোমরের বেল্ট নিয়ে চাঁদপুরে দশম শ্রেণির ছাত্র মো. বরকত ছুরিকাঘাতে তার বন্ধু মো. মেহেদীকে...

হত্যা হত্যা
বাংলাদেশ1 hour ago

ভারতে আরো একটি ব্যবসা বন্ধ করছে অ্যামাজন

ভারতে পাইকারি বিতরণ ব্যবসাও বন্ধ করে দিচ্ছে অ্যামাজন। বার্ষিক পরিচালন কার্যক্রম পর্যালোচনা এবং খরচ কমানোর অংশ হিসেবে এ পদক্ষেপ নিচ্ছে...

হত্যা হত্যা
বাংলাদেশ2 hours ago

বিশ্বকাপসহ টিভিতে যা দেখবেন আজ

ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপে আজ (২৯ নভেম্বর) ‘এ’ গ্রুপে রাত ৯টায় নেদারল্যান্ডসের মুখোমুখি হবে কাতার এবং ইকুয়েডরের প্রতিপক্ষ সেনেগাল। অন্যদিকে ‘বি’...

হত্যা হত্যা
জাতীয়2 hours ago

জঙ্গি তৎপরতা আর বিএনপির কার্যক্রম এক সূত্রে গাঁথা: তথ্যমন্ত্রী

জঙ্গি তৎপরতা আর বিএনপির কার্যক্রম এক সূত্রে গাঁথা। বলেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। আজ মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) সচিবালয়ে...

বেসিক ব্যাংক বেসিক ব্যাংক
আইন-বিচার2 hours ago

বেসিক ব্যাংক: ৩ মাসের মধ্যে তদন্ত শেষ না হলে ব্যবস্থা নিবে হাইকোর্ট

আগামী তিন মাসের মধ্যে বেসিক ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারির মামলাগুলোর তদন্ত কাজ শেষ করতে হবে দুদককে। অন্যথায় দুদকের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী...

হত্যা হত্যা
আইন-বিচার3 hours ago

চিত্রনায়িকা শিমু হত্যা: স্বামীসহ দুজনের বিচার শুরু

চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমু হত্যা মামলায় স্বামী সাখাওয়াত আলী নোবেল ও তার বন্ধু এস এম ফরহাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছেন...

সতর্ক সতর্ক
জাতীয়3 hours ago

‘জঙ্গি ও শীর্ষ সন্ত্রাসীদের স্থানান্তরকালে অধিকতর সতর্ক হতে হবে’

কারা অভ্যন্তরে  জঙ্গি, শীর্ষ সন্ত্রাসীরা কোনো ধরনের সমাজ ও রাষ্ট্রবিরোধী তৎপরতা চালাতে না পারে সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। এমনকি...

হত্যা হত্যা
জাতীয়4 hours ago

টিকিট কেটে চোখের পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী

চোখের চিকিৎসা করাতে সাধারণ রোগীদের মতো ১০ টাকায় টিকিট কাটলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারপর করালেন চোখ পরীক্ষা। মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর)...

হত্যা হত্যা
অপরাধ4 hours ago

আয়াত হত্যা: ৩ দিনের রিমান্ডে আবীরের মা-বাবা-বোন

চট্টগ্রাম শহরের ইপিজেডে ৫ বছরের শিশু আলীনা ইসলাম আয়াতকে অপহরণের পর হত্যায় অভিযুক্ত আবীরের মা-বাবা ও বোন ৩ দিনের রিমান্ডে...

জিএম কাদের জিএম কাদের
আইন-বিচার4 hours ago

জিএম কাদেরের দায়িত্ব পালনে নেই বাধা: হাইকোর্ট

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদেরকে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী যে দায়িত্ব পালনে নিষেধাজ্ঞা ছিল সেটি স্থগিত...

Advertisement

আর্কাইভ

হত্যা
জাতীয়19 hours ago

সরকারকে জ্বালানির মূল্য নির্ধারণে সংশোধনী অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা

হত্যা
রংপুর1 day ago

পা দিয়ে লিখে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে সেই মানিক

সতর্ক
আওয়ামী লীগ3 days ago

বিএনপির সম্মেলন নিয়ে অফিসিয়ালি কিছু আসেনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

হত্যা
জাতীয়3 days ago

খেতে খেতে চীনের প্রধানমন্ত্রীকে টানেলের প্রস্তাবটা দেই: প্রধানমন্ত্রী

হত্যা
জাতীয়4 days ago

ময়দার বস্তায় আটা বিক্রি

হত্যা
বলিউড5 days ago

উরফি এবার মদের গ্লাস দিয়ে শরীর ঢাকলেন

হত্যা
জাতীয়5 days ago

‘রাজনীতি করতে চাই না, রাজনীতিবীদদের সহযোগিতা চাই’

হত্যা
জাতীয়6 days ago

বিশ্বকাপে আমাদের টিম নেই এটা আসলে কষ্ট দেয় : প্রধানমন্ত্রী

হত্যা
অপরাধ6 days ago

প্রেমিককে সঙ্গে নিয়ে নানাকে হত্যা

হত্যা
বিএনপি6 days ago

‘আদালত থেকে জঙ্গি ছিনতাই সরকারের নতুন নাটক’

সর্বাধিক পঠিত