Connect with us

স্বাস্থ্য

আমরা চাই মানুষ চিকিৎসা নিতে আসুক: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

Avatar of বিপ্লব আহসান

Published

on

ডলারের

দেশে প্রতিবছর যক্ষ্মায় ৩ লাখেরও অধিক মানুষ আক্রান্ত হয়। আমাদের মৃত্যু বেশি, কারণ আমাদের জনসংখ্যাও বেশি। আমরা চাই মানুষ চিকিৎসা নিতে আসুক। তাদের চিকিৎসা দেয়ার সব ব্যবস্থা রয়েছে। বললেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

আজ রোববার (৩০ অক্টোবর) রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে আয়োজিত টিবি বিষয়ক নবম জেএমএম প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেছেন, পৃথিবীর জন্মলগ্ন থেকে এ রোগের প্রাদুর্ভাব এখনো রয়ে গেছে। এতে আগে মৃতের হার বেশি থাকলেও সাম্প্রতিক সময়ে কমে এসেছে। এখন শতকরা ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ যক্ষ্মা রোগীই সুস্থ হয়ে যাচ্ছে। সমাজে প্রচলিত স্টিগমা দূর করে মৃতের হার আরও কমানো সম্ভব

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ২০১৫ সালে যেখানে যক্ষ্মায় ৭০ হাজারের অধিক মৃত্যু ছিল এখন তা ৪০ হাজারে নেমে এসেছে। আমাদের মৃত্যু বেশি, কারণ আমাদের জনসংখ্যাও বেশি। আমরা চাই মানুষ চিকিৎসা নিতে আসুক। তাদের চিকিৎসা দেয়ার সব ব্যবস্থা রয়েছে।

তিনি বলেন, টিবি পরিস্থিতির অগ্রগতি হচ্ছে। ব্যাপকভিত্তিতে টিবি স্ক্রিনিং কার্যক্রম চলছে। আমাদের সব হাসপাতালে যক্ষ্মা পরীক্ষার যন্ত্রপাতি রয়েছে। টিবির বিষয়ে আমাদের দেশে বেশ কিছু স্টিগমা আছে। তবে পরিবর্তন আসছে। মানুষ এখন কুসংস্কার এড়িয়ে চিকিৎসা কেন্দ্রে যাচ্ছে।

Advertisement

জাহিদ মালেক বলেন, আমাদের দেশে এখন টিবির ওষুধ তৈরি হচ্ছে। এগুলো দেশে ব্যবহারের পাশাপাশি বিদেশে রপ্তানি করবো। একই সঙ্গে দেশে ভালো মানের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। টিবিতে আমাদের যে বাজেট বরাদ্দ রয়েছে প্রয়োজনে তা বাড়ানো হবে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ২০২১ সালে নতুনভাবে ফুসফুসের যক্ষ্মায় আক্রান্ত রোগীদের ৯৫ ভাগ শনাক্তকরণ এবং তাদের চিকিৎসা নিশ্চিতকরণ সম্ভব হয়েছে। ২০১৫ সালে প্রতি ১ লাখ জনসংখ্যায় যক্ষ্মা সংক্রমণের হার ২২৫ জন থেকে ২০২১ সালে এই সংক্রমণের হার ২১৮ জনের মধ্যে কমিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। সব ধরনের যক্ষ্মা রোগীর সংখ্যা শনাক্তকরণ বেড়েছে যা ২০১৫ সালে ছিল প্রায় ২ লাখ ৬ হাজার ৮৬৬ এবং ২০২১ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৬ হাজার ৫৩১।

বাংলাদেশ ২০১২ সালে জিন এক্সপার্ট নামে একটি উন্নত স্বয়ংক্রিয় যক্ষ্মা শনাক্তকারী পরীক্ষা চালু করেছিল। যা এখন ৫১০টি স্থানে স্থাপন করা হয়েছে এবং ২০২৫ সালে মধ্যে সমস্ত যক্ষ্মা অনুমানকারীর জন্য এ পরীক্ষাটি নিশ্চিত করার পরিকল্পনা করেছে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ সর্ব প্রথম স্বল্প মেয়াদি ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মার চিকিৎসা পদ্ধতি চালু করেছে। বেসরকারি স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে যক্ষ্মা সম্পর্কে সচেতনতা অর্জনের জন্য বাংলাদেশ সরকার লক্ষ্যকে একটি বাধ্যতামূলক লক্ষণীয় রোগ হিসেবে ঘোষণা করেছে। কাগজ ভিত্তিক রেকর্ডিং এর রিপোর্টিংয়ের পাশাপাশি বাংলাদেশ ইলেক্ট্রনিক রেকর্ডিং এবং রিপোর্টিং চালু করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির কার্যক্রম মূল্যায়নের জন্য প্রতি তিন বছর অন্তর বাংলাদেশে জেএমএম কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়। যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম বাংলাদেশ সরকার এবং বিভিন্ন দাতা সংস্থার অর্থায়নে পরিচালিত হয়। বাংলাদেশে বিদ্যমান জনস্বাস্থ্য সমস্যাগুলোর মধ্যে যক্ষ্মা যেহেতু একটি প্রধান সমস্যা, তাই বাংলাদেশ সরকার সব নাগরিকের জন্য বিনামূল্যে যক্ষ্মা রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসাসেবা প্রদানে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

বাংলাদেশ যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণে দৃশ্যমান অগ্রগতি অর্জন করলেও বড় চ্যালেঞ্জ রয়ে গেছে। এখনও ধারণা করা হচ্ছে যক্ষ্মায় আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে ৩৬ শতাংশ শনাক্তকরণ সম্ভব হয়নি। এ লক্ষ্যে নবম জেএমএম-এ যক্ষ্মা কর্মসূচির অগ্রগতি পর্যালোচনা ও মূল্যায়ন প্রস্তাবিত হয়েছে। মূল চ্যালেঞ্জগুলো খুঁজে বের করে ২০১৮ সালের মধ্যে প্রোগ্রামের লক্ষ্যগুলো অর্জনের জন্য এবং ২০৩০ সালের মধ্যে টিবি মহামারির একটি টেকসই সমাপ্তির জন্য যক্ষ্মা কার্যক্রমকে আরও শক্তিশালী করার লক্ষ্যে অর্জনযোগ্য সমাধানগুলো চিহ্নিত করা।

Advertisement

জাতীয়

ডলারের ডলারের
বাংলাদেশ2 hours ago

এপ্রিলে দেশে ডলারের ঘাটতি থাকবে না: পরিকল্পনামন্ত্রী

টাকা থাকলেই অপচয় করা যাবে না। বর্তমানে দেশে ডলারের কোনো সংকট নেই, তবে কিছুটা ঘাটতি আছে। আগামী বছরের মার্চ বা...

সিদ্ধান্ত সিদ্ধান্ত
জাতীয়4 hours ago

সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের এখনও সময় আছে বিএনপির

নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপির সমাবেশের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের এখনও সময় আছে। গণমাধ্যমের কাছে এমনই আশা প্রকাশ করেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি)...

ডলারের ডলারের
অপরাধ4 hours ago

‘বাড়াবাড়ি করলে তোকে ১২ টুকরো করবো’

চট্টগ্রামের ইপিজেডে ৫ বছরের শিশু আলীনা ইসলাম আয়াতকে (৫) হত্যার পর এবার তার স্বজনদের হত্যার হুমকি দিয়ে অজ্ঞাত নম্বর থেকে...

ডলারের ডলারের
জাতীয়5 hours ago

‘জুনের পর ডিজেলভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে না’

বেসরকারি খাত চাইলে তেল-গ্যাস আমদানি করতে পারে। আগামী জুনের পর থেকে ডিজেলভিত্তিক কেন্দ্র থেকে ‍বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে না। বললেন...

ডলারের ডলারের
জাতীয়7 hours ago

আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস আজ

আজ ৩১তম আন্তর্জাতিক ও ২৪তম জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস। দিবসটির এ বছরের প্রতিপাদ্য ‘অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নের জন্য পরিবর্তনমুখী পদক্ষেপ: প্রবেশগম্য ও সমতাভিত্তিক...

ডলারের ডলারের
দুর্ঘটনা1 day ago

ঢাবি ক্যাম্পাসে প্রাইভেটকারের ধাক্কায় নারী নিহত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় প্রাইভেটকারের ধাক্কায় রুবিনা আক্তার (৪০) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গাড়িচালককে গণপিটুনি দিয়েছে জনতা। আজ...

ডলারের ডলারের
করোনা ভাইরাস1 day ago

দেশে করোনায় একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৫

সবশেষ হিসাব অনুযায়ী দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গেলো ২৪ ঘণ্টায় একজন মারা গেছে। এ সময়ে নতুন করে ১৫ জনের দেহে...

ডলারের ডলারের
দুর্ঘটনা1 day ago

নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাবার হোটেলে কাভার্ড ভ্যান, নিহত ৫

যশোরের মণিরামপুরের বেপারিতলায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাবার হোটেলে কাভার্ড ভ্যান ঢুকে পড়ায় পাঁচজন নিহত হয়েছে। আহতও হয়েছেন বেশ কয়েকজন। নিহতদের মধ্যে...

ডলারের ডলারের
বাংলাদেশ2 days ago

বীরপ্রতীক তারামন বিবির ৪র্থ-তম মৃত্যুবার্ষিকী

একাত্তরের রণাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা বীরপ্রতীক তারামন বিবির ৪র্থ-তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত। ২০১৮ সালের ১ ডিসেম্বর তিনি কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলায় নিজ বাড়িতে...

ডলারের ডলারের
করোনা ভাইরাস2 days ago

মৃত্যু না থাকলেও আজ ১২ জনের করোনা শনাক্ত

গেলো ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১২ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০ লাখ ৩৬ হাজার ৫৯৭...

Advertisement

আর্কাইভ

December 2022
MTWTFSS
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031 
ডলারের
খেলাধুলা25 mins ago

মেসির ক্যারিয়ারের হাজার তম ম্যাচ

ডলারের
আওয়ামী লীগ30 mins ago

চট্টগ্রামের জনসভায় ১০ লক্ষাধিক মানুষ আসবে : নানক

ভুল
লাইফস্টাইল51 mins ago

কোন ভুল এড়াতে পারলে ফুলবে বাড়িতে বানানো কেক

ডলারের
ক্যাম্পাস1 hour ago

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সম্মেলন শুরু আজ

ডলারের
ফুটবল2 hours ago

নেইমার নিয়ে ব্রাজিল ভক্তদের জন্য সুখবর!

ইউক্রেন
ইউরোপ2 hours ago

ইউক্রেন দূতাবাসগুলোতে ‘রক্ত ভেজা ভীতিকর’ উড়ো পার্সেল

ডলারের
আওয়ামী লীগ2 hours ago

‘বিএনপি বন্দুকের নলে ক্ষমতায় এসেছিল’

ডলারের
আন্তর্জাতিক2 hours ago

রাশিয়ার তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ৬০ ডলারে বেঁধে দিল পশ্চিমারা

ডলারের
বাংলাদেশ2 hours ago

এপ্রিলে দেশে ডলারের ঘাটতি থাকবে না: পরিকল্পনামন্ত্রী

সমাবেশ
আওয়ামী লীগ2 hours ago

নয়াপল্টনে কোনো সমাবেশ হবে না: কামরুল ইসলাম

স্বস্তিকা মুখোপাধ‍্যায়
বিনোদন3 days ago

স্বস্তিকা মুখোপাধ‍্যায় গর্ভবতী, বাবা কে!

ডলারের
বিনোদন5 days ago

১৪ বছর আগের বিয়ের শাড়িতে ‘নতুন লুকে’ রুনা

ডলারের
ব্যাংক6 days ago

ইসলামী ব্যাংক থেকে টাকা আত্মসাৎ, গভর্নরকে চিঠি

ডলারের
রূপচর্চা7 days ago

উজ্জ্বল লাল শাড়িতে কাজল যেনো ২৫ এর তরুণী

ডলারের
ফুটবল5 days ago

আজ মাঠে নামছে ব্রাজিল, নেই নির্ভরযোগ্য ৩ খেলোয়াড়

জিএম কাদের
আইন-বিচার3 days ago

জি এম কাদের জাপার চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না

ডলারের
এশিয়া7 days ago

কিছু না পরলেও সুন্দর দেখায় মেয়েদের : রামদেব

ডলারের
রাজশাহী2 days ago

রাজশাহীর কারাগারে এক আসামির ফাঁসি কার্যকর

ডলারের
জাতীয়3 days ago

বিএনপির নেতাকর্মীদের স্বাচ্ছন্দের ব্যবস্থা করছে সরকার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ডলারের
বিএনপি5 days ago

হামলার শিকার হয়ে বিএনপির সাবেক এমপি শাহজাহান মারা গেলেন

সিদ্ধান্ত
জাতীয়4 hours ago

সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের এখনও সময় আছে বিএনপির

ডলারের
জাতীয়5 hours ago

‘জুনের পর ডিজেলভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে না’

ডলারের
রংপুর1 day ago

বর-কনেপক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১, বরসহ আটক ১২

ডলারের
আওয়ামী লীগ1 day ago

এটা কী ছাত্রলীগ? কোনো শৃঙ্খলা নেই : ওবায়দুল কাদের

ডলারের
জাতীয়3 days ago

বিএনপির নেতাকর্মীদের স্বাচ্ছন্দের ব্যবস্থা করছে সরকার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ডলারের
জাতীয়4 days ago

সীমান্তে নিরাপত্তায় যৌথ টহল দেবে বিজিবি-বিজিপি

ডলারের
জাতীয়5 days ago

সরকারকে জ্বালানির মূল্য নির্ধারণে সংশোধনী অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা

ডলারের
রংপুর5 days ago

পা দিয়ে লিখে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে সেই মানিক

সতর্ক
আওয়ামী লীগ1 week ago

বিএনপির সম্মেলন নিয়ে অফিসিয়ালি কিছু আসেনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ডলারের
জাতীয়1 week ago

খেতে খেতে চীনের প্রধানমন্ত্রীকে টানেলের প্রস্তাবটা দেই: প্রধানমন্ত্রী

সর্বাধিক পঠিত