ঢাকা , ১৬ ২০১৯ ,

আবরারের বাড়িতে তোপের মুখে বুয়েট ভিসি, পুলিশের লাঠিচার্জের অভিযোগ

বায়ান্ন অনলাইন রিপোর্ট | ৯ অক্টোবর, ২০১৯ ৮:৩৯ অপরাহ্ন | আপডেট : ৯ অক্টোবর, ২০১৯ ৮:৩৯ অপরাহ্ন
feature-top

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের হাতে নিহত আবরার ফাহাদের গ্রামের বাড়ি এসে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসীর তোপের মুখে পড়েছেন বুয়েট ভিসি অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। এসময় অবস্থা বেগতিক দেখে দ্রুত স্থান ত্যাগ করেন তিনি। অভিযোগ রয়েছে, পুলিশ গ্রামবাসী ও আবরারের নিকটাত্মীয়ের গায়ে হাত তুলেছে।

বুধবার বিকেল ৪ টার দিকে ভিসি নিহত আবরারের কবর জিয়ারত এবং শোকাহত পরিবারকে সমবেদনা জানানোর জন্য কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার রায় ডাঙ্গা গ্রামে যান।

আবরার হত্যার বিচারে শুধু বুয়েট ফুঁসছে না, কাঁপছে কুষ্টিয়ার কুমারখালী রায়ডাঙ্গাও। বুয়েটে ভিসি আসার খবর পেয়ে এলাকার সর্বস্তরের নারী পুরুষ বিক্ষুব্ধ হয়ে ভিসিবিরোধী স্লোগান এবং আবরার হত্যার বিচার চেয়ে ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে প্রতিবাদ জানাতে থাকে।

ভিসি অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম আবরারের কবর জিয়ারত করেন। কবর জিয়ারত শেষে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তিনি আবরারের মায়ের সাথে দেখা করার জন্য তার বাড়ির সামনে পৌঁছালে গ্রামবাসী আরও উত্তেজিত হয়ে পড়ে। 

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এসময় ভাই হারানো ক্ষোভ জানাতে গিয়ে পুলিশের মারধরের শিকার হন আবরারের ছোট ভাই ও ফুপাতো ভাইয়ের স্ত্রীসহ অনেকে আহত হন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

উত্তেজিত জনতার তোপের  মুখে ভিসি তড়িঘড়ি করে সেখান থেকে সটকে পড়েন। এরপর কড়া পুলিশি নিরাপত্তায় কুষ্টিয়া সার্কিট হাউজে আসেন এবং কিছুক্ষণ পর কুষ্টিয়া ত্যাগ করেন।

এদিকে যার নেতৃত্বে নির্যাতন করা হয়েছে, সেই অমিত সাহার নাম মামলার এজাহার থেকে বাদ দেয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছেন আবরারের বাবা।

বলেন, যার নেতৃত্বে আবরারকে নির্যাতন করা হয়েছে সেই অমিত সাহাকেই মামলার আসামি করা হয়নি।

এরআগে কুষ্টিয়া জিলা স্কুলের মসজিদে আবরার স্মরণে দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভায় সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে জড়িতদের মামলায় অন্তর্ভুক্ত ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন সবাই।

মিথুন

feature-top
feature-top

আরও খবর »

feature-top