Connect with us

ফুটবল

১ উইকেট হাতে রেখে প্রথম দিন শেষ করলো বাংলাদেশ

Avatar of author

Published

on

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচের প্রথম দিনে ব্যাটিং ব্যর্থতায় কেটে গেছে বাংলাদেশের। দিন শেষ মাত্র ১ উইকেট হাতে রেখে ৯ উইকেট হারিয়ে ৩১০ রান তুলতে সক্ষম হয়েছে টাইগাররা।

মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন শান্ত। ওপেনিংয়ে মাহমুদুল হাসান জয় ও জাকির হাসান ভালোই শুরু করেন।  তবে এজাজ প্যাটেলের বলে দলীয় ৩৯ রানে ১২ রানেই শেষ হয় জাকিরের ইনিংস।  এরপর ব্যাট করতে নেমে নাজমুল হোসেন শান্তকে নিয়ে এগিয়ে যেতে থাকেন জয়।  তবে লাঞ্চ বিরতির ঠিক আগমুহূর্তে গ্লেন ফিলিপসের ফুল টস ডেলিভারিতে ৩৫ বলে ৩৭ রান করে আউট হয়ে যান শান্তর।

এরপর দ্বিতীয় সেশনে মমিনুল হককে নিয়ে একেবারে টেস্ট মেজাজে খেলে ব্যক্তিগত হাফ-সেঞ্চুরি তুলে নেন জয়।  তবে দলীয় ১৮০ রানের মাথায় গ্লেন ফিলিপসের বলে ৩৭ রান করে কট-বিহাইন্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন মমিনুল।  ৫ বল ব্যবধানে শতকের কাছাকছি গিয়ে ফিরে যান জয়ও।

তৃতীয় সেশনে তাই দলকে টেনে তোলার দায়িত্ব ছিল অভিজ্ঞ মিডল-অর্ডার ব্যাটার মুশফিকুর রহিমের ওপর। কিন্তু সেটা না তিনি পারেননি। চা বিরতি থেকে ফিরেই উড়িয়ে মারতে গিয়েছিলেন মুশি। প্যাটেলের ফুলার লেংথের ডেলিভারি লং-অফে থাকা ফিল্ডারের মাথার ওপর দিয়ে মারতে গিয়ে ঠিকঠাক টাইমিং না হওয়ায় উইলিয়ামসনের হাতে ক্যাচ দিয়ে মাত্র ১২ ফিরতে হয় তাকে।

মুশির বিদায়ের পর মির্ডল-অর্ডারে নেমে মেহেদি হাসান মিরাজও ব্যক্তিগত ২০ রানে কাইল জেমিসনের বলে মিচেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। এরপর ২৪ রান করে ফিরে যান শাহাদত হোসেন।

Advertisement

শান্ত, মুমিনুল এবং দিপুর পর ‍নুরুল হাসান সোহানকেও ২৯ রানে শেষ বিকেলে ফিরিয়েছিলেন ডানহাতি অফ-স্পিনার ফিলিপস।  এরপর ব্যাট হাতে নেমে বেশ ভালোই ব্যাটিং করছিলেন নাঈম হাসান। তবে তিন চারে ১৬ রানে নাঈমকে ফেরান জেমিসন।

শেষ পর্যন্ত ১ উইকেট হাতে রেখে প্রথমদিন শেষে ৯ উইকেটে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩১০ রান।

 

Advertisement

ফুটবল

লিগের শেষ ম্যাচে পিএসজির স্কোয়াডে নেই এমবাপ্পে

Published

on

মেসের বিপক্ষে মৌসুমের শেষ লিগ ম্যাচ খেলবে পিএসজি। এই ম্যাচ দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে লিগ আঁ বিদায় জানানোর কথা ছিলো কিলিয়ান এমবাপ্পের।

কিন্তু আজ রাতে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ম্যাচটিতে প্যারিসের ক্লাবটির স্কোয়াডেই রাখা হয়নি তাকে।  ফলে তুলুজের বিপক্ষের ম্যাচটি ফরাসি তারকার শেষ ম্যাচ হয়ে থাকল। যে ম্যাচটি ৩-১ গোলে হারে পিএসজি।

Advertisement

পিএসজির হয়ে সাত মৌসুম খেলেছেন এমবাপ্পে। এই সময়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ৩০৭ ম্যাচে করেছেন ২৫৬ গোল।  ক্লাবটির ইতিহাসের সর্বোচ্চ গোল স্কোরার দলের সবশেষ ম্যাচে নিসের বিপক্ষেও খেলতে পারেননি। তখন জানানো হয়েছিল, হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে ভুগছেন এমবাপ্পে।

স্কোয়াড থেকে অবশ্য শুধু এমবাপ্পেই নন, বাদ পড়েছেন উসমান দেম্বেলে ও ফ্যাবিয়ান রুইজও। আগামী শনিবার ফ্রেঞ্চ কাপের ফাইনালে পিএসজির প্রতিপক্ষ লিলে। শিরোপা লড়াইয়ে সেই ম্যাচে এমবাপ্পেকে শেষ পর্যন্ত দেখা যাবে কি না, সেটাই দেখার অপেক্ষা।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ফুটবল

বক্সিং ম্যাচ দেখতে গিয়ে দেখা নেইমার ও রোনালদোর

Published

on

সৌদি আরবের রিয়াদে অনুষ্ঠিত একটি বক্সিং ম্যাচ দেখতে এসেছিলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ও নেইমার জুনিয়র। আর সেখানে দেখা হয় ফুটবল বিশ্বের এই দুই জনপ্রিয় তারকার।

দুজনের মধ্যে সাক্ষাতের সেই ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

পর্তুগিজ তারকা তার বড় ছেলে রোনালদো জুনিয়রকে নিয়ে এসেছিলেন বক্সিং ম্যাচটি দেখতে। আর নেইমার এসেছিলেন তার বান্ধবী ব্রুনা বিয়ানকার্দিকে নিয়ে।

সাক্ষাতের পর দুজনই পর্তুগিজ ভাষায় কথা বলছিলেন। স্পষ্ট বুঝা না গেলেও, মনে হচ্ছিলো রোনালদো নেইমারের ইনজুরি সম্পর্কে খোঁজ নিচ্ছিলেন।

ইনজুরির কারণে গেলো বছরের অক্টোবর থেকেই মাঠের বাইরে আছেন নেইমার। আগামী মৌসুমের শুরুতেই মাঠে ফেরার কথা এই ব্রাজিলিয়ান তারকার।

Advertisement

নেইমার ও রোনালদো এক সময় লা লিগায় দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্লাব বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদে খেলেছেন। সেখানে অসংখ্যবার মাঠে মুখোমুখিও হয়েছেন তারা।

এখন দুজনে খেলছেন সৌদি লীগের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্লাব আল হিলাল ও আল নাসরে। তবে ইনজুরিতে থাকায় রোনালদোর আল নাসরের বিপক্ষে এখনো মাঠে নামা হয়নি আল হিলালের হয়ে খেলা নেইমার জুনিয়রের।

 

 

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ফুটবল

মেসি ফেরার দিনে মায়ামির জয়

Published

on

ফ্লোরিডা ডার্বিতে অরল্যান্ডো সিটির বিপক্ষে ছিলেন না লিওনেল মেসি। সেই ম্যাচ জিততেও পারেনি ইন্টার মায়ামি।  ডিসি ইউনাইটেডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে আবার মাঠে ফিরলেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। আর ইন্টার মায়ামি জয় পেলো ১–০ গোলে।

রোববার বাংলাদেশ সময় সকালে ম্যাচের বেশির ভাগ সময় ইন্টার মায়ামি দাপট দেখালেও নির্ধারিত সময় পর্যন্ত পায়নি গোলের দেখা। একপর্যায়ে মনে হচ্ছিল ম্যাচটা হয়তো গোলশূন্য ড্রয়েই শেষ হবে।

তবে যোগ করা সময়ের চতুর্থ মিনিটে সের্হিও বুসকেতসের দারুণভাবে বাড়ানো বলকে নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুর্দান্ত ভলিতে গোল করেন কাম্পানা।

এই জয়ে ১৫ ম্যাচ শেষে ইস্টার্ন কনফারেন্সের শীর্ষেই থাকল মায়ামি। ১৫ ম্যাচে ৯ জয় ৪ ড্র ও ২ হারে মায়ামির পয়েন্ট এখন ৩১।

 

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত