Connect with us

জাতীয়

মানবাধিকার একটি ব্যবসায় পরিণত হয়েছে : তথ্যমন্ত্রী

Avatar of author

Published

on

মানবাধিকার একটি ব্যবসায় পরিণত হয়েছে। মানবাধিকারের কথা বলে কোনো কোনো দেশকে দমন করে রাখার চেষ্টা করা হয়। দেশে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে মানুষ হত্যা করা হচ্ছে, অথচ বিবৃতিজীবীরা হারিয়ে গেছে। বলেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, কিছু বিবৃতিজীবী আছেন, বিবৃতি দেয়ায় তাদের পেশা। বাংলাদেশেও কিছু বিবৃতিজীবী আছেন। ইদানিং অবশ্য তাদের দেখা যাচ্ছে না। বিবৃতিজীবীরা বেশিরভাগ হারিয়ে গেছেন। দেশে যেভাবে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে মানুষ হত্যা করা হচ্ছে, সবসময় যারা এ ধরনের বিবৃতি দেন, তাদের বিবৃতি এখন দেখতে পাচ্ছি না। এ বিবৃতিজীবীরা কই? জনগণ এদের খুঁজছে, আমিও তাদের খুঁজছি। ।

শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের এস রহমান হলে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের আয়োজনে বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, সন্ত্রাসীর মানবাধিকার নিয়েও কেউ কেউ সোচ্চার হয়। কিন্তু সে সন্ত্রাসী যে এত মানুষ মারল, সেটি নিয়ে কোনো কথাবার্তা নেই। পৃথিবীতে কিছু মানবাধিকার সংগঠন আছে, যেগুলো মূলত মানবাধিকারের ব্যবসা করে। তারা ফিলিস্তিনে সাধারণ মানুষসহ দশ হাজারের বেশি নারী ও শিশুকে হত্যা নিয়ে বিবৃতি দেয়নি। অথচ তারা বরিশালে একজন আরেকজনকে ঘুষি মারল এবং কোথায় কিছু মানুষ একজনকে ধাওয়া করল সেজন্য বিবৃতি দিল। আমি কথাগুলো বলছি, কারণ আগামী পরশু দিন ১০ ডিসেম্বর বিশ্ব মানবাধিকার দিবস। এ দিবসকে সামনে রেখে দেশে পরিস্থিতি ঘোলাটে করার চক্রান্ত হচ্ছে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে ১৯৭৫ সালে। ওই সময় বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বেই ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করা হয় এবং সেটিকে আইনে পরিণত করে হত্যাকাণ্ডের বিচার বন্ধ করা হয়েছিল। দ্বিতীয় সবচেয়ে বড় মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে ১৯৭৭ সালে। ওই সময় নির্বিচারে সেনা অফিসার ও বিমান বাহিনীর অফিসারদেরকে হত্যা করা হয়েছিল। একজনের নামের সঙ্গে আরেকজনের মিল আছে, সেজন্য ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেওয়া হয় এবং ফাঁসি কার্যকর হবার পর রায় হয়েছে ফাঁসির, এমন ঘটনাও আছে। তারপর ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা। ২০১৩, ১৪ ও ১৫ সালে মানুষ পোড়ানোর মহোৎসব। এগুলো চরম মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা।

Advertisement

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী বলেন, ফিলিস্তিনে হামলা চালিয়ে একই হাসপাতালে একসঙ্গে ৫০০ মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। আরেকটি হাসপাতালে হামলা চালিয়ে হাসপাতালকে অকেজো করে দেওয়ার পর সেখানে আইসিইউতে থাকা সবগুলো মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে। এ ধরনের চরম মানবাধিকার লঙ্ঘন বিশ্ববেনিয়ারা তাকিয়ে তাকিয়ে দেখেছে। আবার ইসরায়েলি বাহিনী যাতে ভালোমতো বোমা বর্ষণ করতে পারে সেজন্য সহায়তাও করছে।

তিনি বলেন, বিশ্ব প্রেক্ষাপটে এ মানবাধিকার লঙ্ঘনে আমরা চুপ থাকতে পারি না। আমি প্রথম থেকেই এটার বিরুদ্ধে সোচ্চার আছি এবং থাকবো। আমাদের সরকার এবং প্রধানমন্ত্রীও আছেন। আমাদের প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে গিয়ে এটার বিরুদ্ধে বক্তব্য রেখেছেন। আরব রাষ্ট্রগুলোর সমস্ত রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বসে এ ব্যাপারে করণীয় নির্ধারণ করার জন্য তাদের অনুরোধ জানিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান বলেন, কেউ হরতাল-অবরোধের ডাক দিতে পারে, সরকার পতনের ডাক দিতে পারে, সরকারের বিরুদ্ধে বক্তব্য রাখতে পারে, এটিই গণতান্ত্রিক ও বহুমাত্রিক সমাজের রীতি। কিন্তু ঘরে বসে আন্দোলনের ডাক দিয়ে গাড়িতে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ, মানুষ পুড়িয়ে হত্যা, সেটি তো কোনো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নয়। এগুলো একদিকে যেমন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড, অপরদিকে মানুষের অধিকার এবং মানবাধিকার লঙ্ঘন করা। আমি আশা করব, সাংবাদিকরা এগুলোর বিরুদ্ধে কথা বলবেন, কলম ধরবেন।

শ্রমিক অধিকারের নামে বছরে ১২ বার বিদেশ সফরকারী দুয়েকজন শ্রমিক নেতা কারো এজেন্ট হিসেবে কাজ করছে কি না প্রশ্ন রেখে মন্ত্রী ড. হাছান বলেন, দেখা গেল, আল্পনা আক্তার, কল্পনা আক্তার, জল্পনা আক্তাররা বছরে ১২ বার বিদেশ গেছে এবং ১৮ থেকে ২০ লাখ টাকা বিমান ভাড়া দিয়েছে। এদের কারো কারো আবার গাড়ি আছে, ঢাকা শহরে বড় বড় ফ্ল্যাট আছে। শ্রমিক সমাবেশে যাওয়ার সময় কিছু দূরে গাড়ি রেখে হেঁটে কিংবা রিকশায় যান, যদি শ্রমিকরা গাড়ি দেখে ফেলে। এরা কীভাবে এবং কার এজেন্ট হিসেবে কাজ করে সেটি আজকে স্পষ্ট। এ সমস্ত এজেন্টের ব্যাপারেও আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। আমি সাংবাদিক সমাজের কাছে অনুরোধ জানাবো তাদের মুখোশ উন্মোচন করার জন্য।

এএম/

Advertisement
Advertisement

আর্কাইভ

জাতীয়

অপরাধ26 mins ago

জজ কোর্ট চত্বরে একাধিক ককটেল বিস্ফোরণ

ঢাকা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উত্তেজনায় জজকোর্ট চত্বরে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এদিন সকাল ৯টায় দ্বিতীয় দিনের মতো ঢাকা...

জাতীয়35 mins ago

মার্চ নয়, বিদ্যুতের নতুন দাম কার্যকর হবে ১ ফেব্রুয়ারি থেকেই

মার্চ নয়, বিদ্যুতের নতুন দাম কার্যকর ১ ফেব্রুয়ারি থেকেই প্রতি ইউনিটে ক্ষুদ্রগ্রাহক পর্যায়ে ৩৪ পয়সা আর বৃহৎগ্রাহক পর্যায়ে ৭০ পয়সা...

বিএনপি-নেতা-ইশরাক বিএনপি-নেতা-ইশরাক
আইন-বিচার2 hours ago

বিএনপি নেতা ইশরাকের আগাম জামিন

রাজধানীর বিভিন্ন থানায় দায়ের করা নাশকতার ১২ মামলায় হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন পেয়েছেন বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেন। গেলো ২৮ অক্টোবর...

জরিমানা জরিমানা
বাংলাদেশ2 hours ago

ভূয়া ডাক্তার ও কয়েল কারখানায় অভিযানে জরিমানা আদায়

পাবনায় ভূয়া ডাক্তার ও কয়েল কারখানায় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযানে এক লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। পাবনা জেলা  কার্যালয়ের...

জাতীয়2 hours ago

‘পুলিশকে যখনই যেটার দরকার সেই ভূমিকা পালন করতে হবে’

আগামীতে কেউ যেন আর এভাবে পুলিশের ওপর আক্রমণ করতে না পারে, সেটা ওই রাজনীতির নামে হোক, সন্ত্রাসের নামেই হোক। কেউ...

আইন-বিচার3 hours ago

জবি ছাত্রী খাদিজা দুই মামলাতেই অব্যাহতি পেলেন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলায় অব্যাহতি পেয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ছাত্রী খাদিজাতুল কুবরাকে । এর আগে গত ২৮ জানুয়ারি কলাবাগায় থানায়...

একে আবদুল মোমেন একে আবদুল মোমেন
জাতীয়3 hours ago

 ইউরোপীয় ৫০ চিকিৎসককে জরিমানা, ক্ষুব্ধ মোমেন

বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দিতে ইউরোপ থেকে বাংলাদেশে এসে জরিমানার শিকার হয়েছেন ৫০ জন চিকিৎসক। এ ঘটনায় বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল...

হাইকোর্ট হাইকোর্ট
আইন-বিচার4 hours ago

সাজার মেয়াদ শেষ হওয়া বিদেশি কারাবন্দিদের ফেরত পাঠাতে হাইকোর্টের নির্দেশ

দেশের কারাগারগুলোতে বিভিন্ন অপরাধের সাজা খাটা শেষে প্রত্যাবাসনের অপেক্ষায় থাকা ১৫৭ জন বিদেশি কারাবন্দিকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে নির্দেশ...

ট্রেন ট্রেন
বাংলাদেশ5 hours ago

ঢাকার সঙ্গে উত্তরাঞ্চলের ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক

চার ঘণ্টা পর ঢাকার সঙ্গে স্বাভাবিক হয়েছে উত্তরাঞ্চলের ট্রেন চলাচল। বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮টার দিকে টাঙ্গাইল কমিউটারের ইঞ্জিন বিকল...

আইন-বিচার6 hours ago

ড. ইউনূসকে ৫০ কোটি টাকা জমা দিয়েই আপিল করতে হবে

শান্তিতে নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূসের গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টকে ৫০ কোটি টাকা জমা দিয়েই আপিল করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।...

Advertisement
প্রবাস47 seconds ago

যুক্তরাষ্ট্রে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি নিহত

আন্তর্জাতিক3 mins ago

৪ বছরে একবার প্রকাশিত হয় যে পত্রিকা

অপরাধ26 mins ago

জজ কোর্ট চত্বরে একাধিক ককটেল বিস্ফোরণ

জাতীয়35 mins ago

মার্চ নয়, বিদ্যুতের নতুন দাম কার্যকর হবে ১ ফেব্রুয়ারি থেকেই

পরামর্শ46 mins ago

রোগ প্রতিরোধ করে সজনে ডাঁটা, আর কী কী গুণ রয়েছে এই সবজিতে?

স্বাস্থ্য1 hour ago

ওষুধের দাম কমানোর বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিএনপি-নেতা-ইশরাক
আইন-বিচার2 hours ago

বিএনপি নেতা ইশরাকের আগাম জামিন

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ
আওয়ামী লীগ2 hours ago

বিএনপি-জামায়াত ইসরায়েলের দোসর : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

জরিমানা
বাংলাদেশ2 hours ago

ভূয়া ডাক্তার ও কয়েল কারখানায় অভিযানে জরিমানা আদায়

এশিয়ান ফার্মা
ঢাকা2 hours ago

পূর্বাচলে এশিয়ান ফার্মা এক্সপো-২০২৪ অনুষ্ঠিত

প্রবাস6 days ago

দেশে ফিরলেন আটক হওয়া ১৪৪ বাংলাদেশি

ঢালিউড2 days ago

মাহি ইস্যুতে ইমনকে হুঁশিয়ারি ডি এ তায়েবের

ঢালিউড2 days ago

‘মাহি আস্থার আস্তানা’য়’ স্বামী রাকিব করলেন বিস্ফোরক মন্তব্য

বাংলাদেশ20 hours ago

আইসিইউতে গেলো রোগী, ফিরে এলো ধর্ষিত হয়ে

টুকিটাকি2 days ago

গর্ভনিরোধক বড়ি যেসব রোগের ঝুঁকি বাড়াচ্ছে

টুকিটাকি1 day ago

আম্বানির ছেলের বিয়েতে ২৫০০ পদ রাধঁবেন ২১ বাবুর্চি, মেনুতে যা থাকছে

নিপুণ
ঢালিউড1 day ago

শিল্পী সমিতির নির্বাচনে যে পদে লড়বেন নিপুণ

ধর্ম3 days ago

বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম মসজিদ উদ্বোধন

সালমান-খান
বলিউড2 days ago

৫৮ বছরে বিয়ের প্রস্তাব পেলেন সালমান, কে এই অপূর্ব সুন্দরী?

বাংলাদেশ7 days ago

আগাম জামিন পেলেন বিএনপি নেতা বুলু

অপরাধ2 weeks ago

ডিবিতে যে অভিযোগ দিলেন তিশার বাবা

ব্যারিস্টার-সৈয়দ-সায়েদুল-হক-সুমন
আওয়ামী লীগ3 weeks ago

‘আমি ফেসবুকের এমপি ঠিকই, ফসল হিসেবে তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী’

ওবায়দুল-কাদের
জাতীয়3 weeks ago

বাংলাদেশ কারো সঙ্গেই যুদ্ধে জড়াতে চায় না : কাদের

এশিয়া1 month ago

হামাসের ৮০ ভাগ টানেল অক্ষত, ঘুম হারাম ইসরায়েলের!

মঈন-খান
বিএনপি1 month ago

প্রতিহিংসার রাজনীতির শিকার হয়েছিলেন কোকো: মঈন খান

ফিচার2 months ago

শেখ হাসিনা-খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার করেও ঠেকানো যায়নি যে নির্বাচন (ভিডিও)

প্রধানমন্ত্রী.-সাকিব-আল-হাসান
আওয়ামী লীগ2 months ago

এইবারও ইলেকশনে ছক্কা মেরে দিও: সাকিবকে প্রধানমন্ত্রী

৭ম-জাতীয়-নির্বাচন
জাতীয়2 months ago

‘তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে প্রথম নির্বাচন’

জাতীয়2 months ago

৫ম জাতীয় নির্বাচন: প্রথমবারের মতো নারী প্রধানমন্ত্রী পায় বাংলাদেশ

জাতীয়2 months ago

তৃতীয় জাতীয় সংসদ যে কারণে ভেঙে দিতে বাধ্য হন এরশাদ

সর্বাধিক পঠিত