Connect with us

ঢাকা

আন্দোলনের মুখে বন্ধ হলো পোশাক কারখানা

Avatar of author

Published

on

কারখানা

বেতন-বোনাস বৃদ্ধি ও ওভারটাইম বিলসহ কয়েকটি দাবিতে আশুলিয়ার একটি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা গেলো দুইদিন ধরে কর্মবিরতিতে নামে। এর জেরে অনির্দিষ্টকালের জন্য কারখানাটি বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। এসময় কারখানাটির প্রায় ১৫শ শ্রমিক কারখানার সামনের সড়কে বিক্ষোভে নামে।

সোমবার (১৫ জানুয়ারি) সকালে আশুলিয়ার জিরাবো এলাকায় আইরিশ ফ্যাশন লিমিটেড নামক পোশাক কারখানায় এই ঘটনা ঘটে। এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়।

বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের দাবিগুলো হলো, সরকার নির্ধারিত বেতন বাস্তবায়ন করা, ঈদ বোনাস বেতনের ৫০ শতাংশ করা, মাতৃত্বকালীন ছুটির ভাতা প্রদান, কর্মঘণ্টার অতিরিক্ত ডিউটি করালে (বিকাল ৫টার পর) ওভারটাইম বিল দিতে হবে, বাৎসরিক ছুটির টাকা প্রদান, শ্রমিকদের কাজের রেট প্রদান, কাজের রেট কমপ্লিট সর্বনিম্ন ২৫ টাকা নির্ধারণ করা, প্রোডাকশন বোনাস সর্বনিম্ন ৪০ শতাংশ করা, অপারেটরদের আইডি কার্ড A এবং B গ্রেডিং করা, কোন শ্রমিক রিজাইন দিলে তার পাওনাদি বুঝাইয়া দেয়া।

বিক্ষোভে অংশ নেয়া কারখানাটির লিংকিং অপারেটর মো. জাকির বলেন, গার্মেন্টস শ্রমিকদের আন্দোলনের কারণে সরকার তাদের বেতন বৃদ্ধি করেছে। কিন্তু আমরা যারা সোয়েটার ফ্যাক্টরি শ্রমিক রয়েছি তারা সেই বেতন থেকে বঞ্চিত। তাই আমরা গেলো দুই দিন যাবত আমাদের বিভিন্ন যৌক্তিক দাবি আদায়ে কারখানায় শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করে আসছিলাম। গতকাল কারখানা কর্তৃপক্ষ আমাদের দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস দিলে আমরা বাসায় চলে যাই। কিন্তু আজ সকালে কারখানায় এসে দেখি কারখানার ফটকে অনির্দিষ্টকালের জন্য কারখানা বন্ধের নোটিশ ঝুলছে।

এমদাদ নামে আরেক শ্রমিক জানান, আমরা আমাদের ১০ দফা দাবি নিয়ে দুই দিন ধরে কর্মবিরতি পালন করছিলাম। এ সময়ে কারখানার এডমিন কর্মকর্তা মোহাম্মদ রিপন স্যার আমাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে পরে আমরা উনার পদত্যাগ দাবি করি। এসময় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তাকে অপসারণের আশ্বাস দিয়ে আমাদের দাবি মেনে নিবে বলে জানায় এবং আমাদেরকে বলে আগামীকাল কারখানায় আসতে কিন্তু আজ সকালে আমরা কারখানায় এসে দেখি তারা অনির্দিষ্টকালের জন্য কারখানা বন্ধ ঘোষণা করেছে।

Advertisement

এ ব্যাপারে আইরিশ ফ্যাশন লিমিটেডের এডমিন অফিসার মো. মোখলেসের সঙ্গে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

Advertisement

ঢাকা

ফের মেট্রোরেলের পিলারে ট্রাকের ধাক্কা

Published

on

মেট্রোরেল

রাজধানী ঢাকার আগারগাঁওয়ে একটি ড্রাম্প ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মেট্রোরেলের পি-৩৬৪ নম্বর পিলারে আঘাত করেছে। বাস ও মাটি ভর্তি ড্রাম্প ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

শুক্রবার (২৫ মে) দিবাগত রাত সাড়ে ৩টায় এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কাফরুল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনির হোসেন।

তিনি বলেন, গতকাল দিবাগত রাতে আগারগাঁওয়ে বাস ও একটি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। পরে ট্রাকটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মেট্রোরেলের একটি পিলারে ধাক্কা দেয়। ঘটনার পর পরই ট্রাকচালক ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় বাস চালক ও হেল্পার আহত হয়েছেন। তারা বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

প্রসঙ্গত, গেলো ৯ এপ্রিল দুপুর ২টার দিকে আগারগাঁও বিমান যাদুঘরের সামনে দুই বাসের রেষারেষিতে সেফটি পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মেট্রোরেলের ৭৪ নং পিলারে সজোরে ধাক্কা দেয়। এ দুর্ঘটনায় বাসের ১০ জন যাত্রী আহত হন। ঘটনাস্থলে পৌঁছার আগেই বাস থেকে নেমে পালিয়ে যান চালক ও হেলপার।

কেএস/

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ঢাকা

টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজনের মৃত্যু

Published

on

দুর্ঘটনা

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের পৌলী এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় একটি কাভার্ডভ্যানের চালক ও হেলপারের মৃত্যু হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

শনিবার (২৫ মে) সকালে কালিহাতী উপজেলার পৌলী এলাকায় ব্রিজের দক্ষিণ পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ওসি মীর মোহাম্মদ সাজেদুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা-উত্তরবঙ্গ মহাসড়কের পৌলী ব্রিজের দক্ষিণ পাশে ঢাকাগামী একটি কাভার্ডভ্যান একটি লরির পেছনে ধাক্কা দেয়। এতে কাভার্ডভানের সামনের অংশটি দুমড়ে মুচড়ে যায় এবং ঘটনাস্থলেই কাভার্ডভ্যানের চালক ও হেলপার নিহত হন। দুর্ঘটনার ফলে ঢাকাগামী লেনে কিছুটা যানজট হলে তাৎক্ষণিক সেটি স্বাভাবিক করেন পুলিশ।

কেএস/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ঢাকা

কনে দেখা নিয়ে মারামারি, একাই বাড়ি ফিরলেন বর

Published

on

কনে,-বৌ

বিয়ে বাড়িতে বউ দেখা নিয়ে বর ও কনেপক্ষের লোকজনের মধ্যে বিরোধের জেরে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় দুই পক্ষের অন্তত ৫ জন আহত হয়েছেন। এরপর বউ রেখে একাই বাড়ি ফিরলেন বর।

শুক্রবার (২৪ মে) ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার কাইচাইল ইউনিয়নের মধ্য কাইচাইল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, উপজেলার চর যশোরদী ইউনিয়নের নাগারদিয়া গ্রামের মিরান তালুকদারের ছেলে শাহ আলমের সঙ্গে গত দুই মাস আগে একই উপজেলার মধ্য কাইচাইল গ্রামের পান্নু মিয়ার মেয়ে বৃষ্টি আক্তারের বিয়ে সম্পন্ন হয়। শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ের আয়োজন করা হয়। বর পক্ষের আত্নীয়স্বজন কনে দেখা নিয়ে কনে পক্ষের সঙ্গে কথা-কাটাকাটিতে জড়িয়ে পরে। একপর্যায়ে উভয়পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ৫ জনের মতো আহত হয়েছে। পরে কনে বৃষ্টি আক্তারকে রেখেই বরযাত্রীসহ ফিরে যান বর শাহ আলম।

নগরকান্দা থানার ওসি মোহাম্মদ আমিনুর রহমান বলেন, বিয়ে বাড়িতে কনে দেখা নিয়ে দুই পক্ষের আত্মীয়স্বজনের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় কোনো পক্ষই থানায় অভিযোগ করেননি, অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত