Connect with us

আন্তর্জাতিক

ইয়েমেনে পশ্চিমা জোটের হামলা

Avatar of author

Published

on

ইয়েমেনে-পশ্চিমা-জোটের-হামলা

ইরাক ও সিরিয়ার পর ইয়েমেনে সশস্ত্র গোষ্ঠী হুথিদের বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে নতুন করে হামলা চালিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্য। এদিনের হামলায় হুথিদের ৩৬টি লক্ষ্যবস্তুতে হামলা করে দেশ দুটি। লোহিত সাগরে একের পর এক জাহাজে হামলার পর মার্কিন ও ব্রিটিশ বাহিনীর এ হামলার ঘটনা ঘটল। ভূমি ও আকাশ থেকে এই হামলা চালানো হয় বলে জানিয়েছে পশ্চিমা জোট।

রোববার (০৪ ফেব্রুয়ারি) আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা এএফপি’র প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র এবং ব্রিটেন শনিবার ইয়েমেনে কয়েক ডজন লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হেনেছে। ইরান-সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীদের জাহাজে বারবার হামলার প্রতিক্রিয়ায় এই হামলা চালানো হয়েছে। লোহিত সাগরে হুথিদের এই হামলা বিশ্ব বাণিজ্যকে ব্যাহত করেছে এবং অনেকের জীবনকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছে বলে দাবি পশ্চিমাদের।

ইরাক ও সিরিয়ায় ইরান-সম্পর্কিত লক্ষ্যবস্তুগুলোর বিরুদ্ধে একতরফা আমেরিকান হামলার একদিন পর ইয়েমেনে যৌথ এই বিমান হামলা চালাল মার্কিন ও ব্রিটিশ বাহিনী। গেলো ২৮ জানুয়ারি জর্ডানে সামরিক ঘাঁটিতে ড্রোন হামলায় তিন মার্কিন সৈন্য নিহত হওয়ার প্রতিক্রিয়ায় ইরাক ও সিরিয়ায় এই হামলা চালিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন এবং এই অভিযানে সহায়তা প্রদানকারী অন্যান্য দেশগুলো এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘আন্তর্জাতিক এবং বাণিজ্যিক জাহাজের পাশাপাশি লোহিত সাগরে চলাচলকারী নৌযানগুলোর বিরুদ্ধে হুথিদের ক্রমাগত আক্রমণের জবাবে ইয়েমেনের ১৩টি স্থানে ৩৬টি হুথি লক্ষ্যবস্তুতে এই হামলা চালানো হয়েছে।’

Advertisement

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘এই নিখুঁত হামলার উদ্ধেশ্য ছিল- বৈশ্বিক বাণিজ্য এবং নিরপরাধ নাবিকদের জীবনকে হুমকির মুখে ফেলার জন্য হুথিদের ব্যবহৃত সক্ষমতাকে ব্যাহত ও অবনমিত করা।’

শনিবারের (০৩ ফেব্রুয়ারি) এই হামলায় ‘হুথিদের সু-সংরক্ষিত অস্ত্র স্টোরেজ অবকাঠামো, ক্ষেপণাস্ত্র সিস্টেম এবং লঞ্চার, আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ও রাডারগুলোর সাথে সম্পর্কিত স্থাপনাগুলোকে’ লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছে বলেও এতে বলা হয়েছে।

মার্কিন সামরিক বাহিনীর সেন্ট্রাল কমান্ড (সেন্টকম) বলেছে, এর আগে শনিবার পৃথকভাবে হুথিদের ছয়টি জাহাজ-বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্রের বিরুদ্ধে হামলা চালায় মার্কিন বাহিনী। এসব ক্ষেপণাস্ত্র ‘লোহিত সাগরে বিভিন্ন জাহাজের বিরুদ্ধে নিক্ষেপ করার জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছিল’।

সামরিক কমান্ড শনিবার আরও বলেছে, মার্কিন বাহিনী ইয়েমেনের কাছে আটটি ড্রোনকে গুলি করে ভূপাতিত করেছে এবং উৎক্ষেপণ করার আগেই আরও চারটি ড্রোন ধ্বংস করেছে।

ইসরায়েলের সাথে সম্পর্ক থাকার সন্দেহে সাম্প্রতিক মাসগুলোতে বাণিজ্যিক জাহাজগুলোতে হুথিদের হামলা লোহিত সাগরে উত্তেজনা ব্যাপকভাবে বাড়িয়েছে। মার্কিন ও ব্রিটিশ বাহিনী হুথিদের বিরুদ্ধে হামলার জবাব দিয়েছে। এর বিপরীতে হুথিরা আমেরিকান এবং ব্রিটিশ স্বার্থকেও হামলার বৈধ লক্ষ্য হিসেবে ঘোষণা করেছে।

Advertisement

এছাড়া হুথিদের বিরুদ্ধে হামলার পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র একটি বহুজাতিক নৌ টাস্কফোর্সও গঠন করেছে যার লক্ষ্য লোহিত সাগরের ট্রানজিট রুটে জাহাজ চলাচলের নিরাপত্তা রক্ষা করা।

প্রসঙ্গত, ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাস এবং ইসরায়েলের যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে ওই অঞ্চলে সংঘাত ছড়িয়ে পড়ার ক্রমবর্ধমান ঝুঁকি তৈরি হয়েছে। ওই অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম বিরোধী ইরানের মিত্ররাও লেবানন, সিরিয়া এবং ইরাক থেকে মার্কিন স্বার্থকে লক্ষ্যবস্তু বানানোয় এতে নতুন করে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।

এর মাঝেই হুথিদের সাথে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা জোটের হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনায় ব্যাপক উদ্বেগ বৃদ্ধি পেয়েছে।

হুথিরা মূলত ইয়েমেনের শিয়া মুসলিম সংখ্যালঘু জাইদি নামের উপ-সম্প্রদায়ের সশস্ত্র গোষ্ঠী। বেশিরভাগ ইয়েমেনি হুথিদের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় বসবাস করে। পাশাপাশি সানা এবং ইয়েমেনের উত্তরে হুথিরা লোহিত সাগরের উপকূলরেখাও নিয়ন্ত্রণ করে থাকে।

মূলত ইসরায়েলি আগ্রাসন শুরুর পর থেকে গত প্রায় চার মাস ধরে লোহিত সাগরে ইসরায়েল সংশ্লিষ্ট ও ইসরায়েলগামী জাহাজে অব্যাহতভাবে হামলা চালিয়ে আসছে হুথি বিদ্রোহীরা। ইরান সমর্থিত সশস্ত্র এই গোষ্ঠী জানিয়েছে, যতদিন গাজায় ইসরায়েলের বর্বরতা চলবে ততদিন তারা হামলা চালিয়ে যাবে।

Advertisement

এদিকে বাণিজ্যিক জাহাজ লক্ষ্য করে হুথিদের এসব হামলার কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে এর অনেক প্রভাব পড়েছে। লোহিত সাগর থেকে মিসরের সুয়েজ খাল হয়ে যেসব জাহাজ ইউরোপে যেত; সেসব জাহাজকে এখন আফ্রিকা ঘুরে যেতে হচ্ছে।

Advertisement

আর্কাইভ

শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯ 

জাতীয়

জাতীয়9 hours ago

‘সাধারণ পরিষদের সিদ্ধান্তেই বাংলা হতে পারে দাপ্তরিক ভাষা’

বাংলাভাষা জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হবে কিনা তা নির্ভর করছে সংস্থাটির সাধারণ পরিষদের সিদ্ধান্তের ওপর-এমনটাই জানালেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র...

জাতীয়9 hours ago

একুশে ফেব্রয়ারি নিয়ে যা বললেন পিটার হাস-সারাহ কুক

একুশে ফেব্রুয়ারি শুধুমাত্র আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবস নয়। এটি বিশ্বের প্রতিটি ভাষার আত্মরক্ষার প্রতীক-এমন মন্তব্য করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার...

অপরাধ9 hours ago

দুই শিশু সন্তানসহ বিষপান, মায়ের মৃত্যু

দুই শিশু সন্তানসহ বিষপানের অভিযোগ উঠেছে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে এক মায়ের বিরুদ্ধে। এরপর তিনি নিজেও বিষপান করেন। হাসপাতালে নেয়ার পর তানিয়া...

অপরাধ9 hours ago

অর্থ আত্মসাতের মামলায় যুব মহিলা লীগ নেত্রী গ্রেপ্তার

পাবনা জেলা যুব মহিলা লীগের সদস্য মিম খাতুন ওরফে আফসানা মিম (২৬) ও তার স্বামী ওবায়দুল্লাহকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। যুবলীগ...

জাতীয়10 hours ago

ভাষা আন্দোলন দমাতে পাকিস্তান সরকার বঙ্গবন্ধুকে কারান্তরীণ রাখে : জয়

ভাষা আন্দোলনের গতিবেগ দমিয়ে রাখতে পাকিস্তান সরকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে কারান্তরীণ করে রাখে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য...

দুর্ঘটনা10 hours ago

সড়ক দুর্ঘটনায় সাংবাদিকের মৃত্যু

নীলফামারীর সদরে রাকিবুল ইসলাম রকি (৩৮) নামে এক সাংবাদিকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি দৈনিক আলোকিত নিউজ পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত...

অপরাধ11 hours ago

বাবা-মায়ের ঝগড়া, মেয়েকে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা বাবার

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে মেয়েকে জবাই করে হত্যার পর বাবা নিজেরে পেটে ছুরি মেরে আত্মহত্যার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত বাবাকে মুমূর্ষু অবস্থায়...

জাতীয়11 hours ago

‘খতনায় শিশুর মৃত্যু, হাসপাতালটির কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা’

রাজধানীর মালিবাগের জেএস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল সেন্টারে খতনা করাতে গিয়ে আহনাফ তাহমিন আয়মান নামে এক শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ...

জাতীয়12 hours ago

যেকারণে বাংলা এখনও হয়নি জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা

২১ ফেব্রুয়ারি রক্তাক্ত  ঘটনার দুই বছরের বেশি সময় পর ১৯৫৪ সালের ৭মে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকার করে একটি প্রস্তাব গ্রহণ...

জাতীয়12 hours ago

‘দেশে ৩০ শতাংশ খাদ্য অপচয় হয়’

বাংলাদেশে ফসল সংগ্রহের পর বিভিন্ন পর্যায়ে প্রায় ৩০ শতাংশ ফসল ও খাদ্য নষ্ট এবং অপচয় হয়। খাদ্য নষ্ট ও অপচয়ের...

Advertisement
জাতীয়9 hours ago

‘সাধারণ পরিষদের সিদ্ধান্তেই বাংলা হতে পারে দাপ্তরিক ভাষা’

জাতীয়9 hours ago

একুশে ফেব্রয়ারি নিয়ে যা বললেন পিটার হাস-সারাহ কুক

অপরাধ9 hours ago

দুই শিশু সন্তানসহ বিষপান, মায়ের মৃত্যু

অপরাধ9 hours ago

অর্থ আত্মসাতের মামলায় যুব মহিলা লীগ নেত্রী গ্রেপ্তার

জাতীয়10 hours ago

ভাষা আন্দোলন দমাতে পাকিস্তান সরকার বঙ্গবন্ধুকে কারান্তরীণ রাখে : জয়

দুর্ঘটনা10 hours ago

সড়ক দুর্ঘটনায় সাংবাদিকের মৃত্যু

অপরাধ11 hours ago

বাবা-মায়ের ঝগড়া, মেয়েকে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা বাবার

জাতীয়11 hours ago

‘খতনায় শিশুর মৃত্যু, হাসপাতালটির কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা’

ঢালিউড11 hours ago

এবার বইমেলা থেকে ‘বিতাড়িত’ হিরো আলম

জাতীয়12 hours ago

যেকারণে বাংলা এখনও হয়নি জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা

অপরাধ4 days ago

ডিবিতে যে অভিযোগ দিলেন তিশার বাবা

ব্যারিস্টার-সৈয়দ-সায়েদুল-হক-সুমন
আওয়ামী লীগ2 weeks ago

‘আমি ফেসবুকের এমপি ঠিকই, ফসল হিসেবে তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী’

ওবায়দুল-কাদের
জাতীয়2 weeks ago

বাংলাদেশ কারো সঙ্গেই যুদ্ধে জড়াতে চায় না : কাদের

এশিয়া3 weeks ago

হামাসের ৮০ ভাগ টানেল অক্ষত, ঘুম হারাম ইসরায়েলের!

মঈন-খান
বিএনপি4 weeks ago

প্রতিহিংসার রাজনীতির শিকার হয়েছিলেন কোকো: মঈন খান

ফিচার2 months ago

শেখ হাসিনা-খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার করেও ঠেকানো যায়নি যে নির্বাচন (ভিডিও)

প্রধানমন্ত্রী.-সাকিব-আল-হাসান
আওয়ামী লীগ2 months ago

এইবারও ইলেকশনে ছক্কা মেরে দিও: সাকিবকে প্রধানমন্ত্রী

৭ম-জাতীয়-নির্বাচন
জাতীয়2 months ago

‘তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে প্রথম নির্বাচন’

জাতীয়2 months ago

৫ম জাতীয় নির্বাচন: প্রথমবারের মতো নারী প্রধানমন্ত্রী পায় বাংলাদেশ

জাতীয়2 months ago

তৃতীয় জাতীয় সংসদ যে কারণে ভেঙে দিতে বাধ্য হন এরশাদ

সর্বাধিক পঠিত