Connect with us

শিক্ষা

৩৫ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি নিয়ে ইউজিসির সতর্কতা

Avatar of author

Published

on

স্থায়ী ক্যাম্পাস, উপাচার্য না থাকা, মামলা-মোকাদ্দমায় জর্জরিত দেশের ৩৫টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার ক্ষেত্রে সতর্কতা জারি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে অভিভাবকদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে ইউজিসি বলছে, ভর্তি হয়ে কেউ প্রতারিত হলে ইউজিসি কোনো দায়-দায়িত্ব নেবে না। সম্প্রতি এমন সতর্কতার কথা জানিয়ে ওয়েবসাইটে একটি বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে ইউজিসি।

গেলো ১ এপ্রিল স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এমন সতর্কতা জারি করে ইউজিসি। যদিও চিঠি সোমবার (৩ এপ্রিল) ইউজিসির ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়। তারকা চিহ্নিত এসব বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর নাম ইউজিসির ওয়েবসাইট থেকে দেখে নেয়ার জন্য বলা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, সতর্কতা অবলম্বনের জন্য বলা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ৩০টিতে রাষ্ট্রপতির নিয়োগ করা উপাচার্য না থাকায় শিক্ষার্থীদের সনদে স্বাক্ষর করার বৈধ কোনো কর্তৃপক্ষ নেই। এর বাইরে অবৈধভাবে ক্যাম্পাস ও অবৈধ শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ৩টি, নির্ধারিত সময় স্থায়ী ক্যাম্পাসে না যাওয়ায় একটি এবং সাময়িক অনুমতির মেয়াদ উত্তীর্ণ ও আদালতে মামলা থাকায় আরও একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে সতর্ক করেছে ইউজিসি।

এছাড়া শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে অভিভাবকদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছে ইউজিসি। ভর্তি হয়ে কেউ প্রতারিত হলে ইউজিসি কোনো ‘দায়-দায়িত্ব’ নেবে না বলেও জানিয়েছে সংস্থাটি।

ইউজিসির বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ওমর ফারুক স্বাক্ষরিত সতর্কীকরণ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, দেশে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনাকারী ১০৪টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ৭৪টিতে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিয়োগকৃত উপাচার্য রয়েছেন। বাকি ৩০টিতে বৈধ কোনো উপচার্য নেই।

Advertisement

ইউজিসি বলছে, অবৈধ ক্যাম্পাস ও অবৈধভাবে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনাকারী ৩টি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিতে রেড এলার্ড জারি করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হলো-ইবাইস ইউনিভার্সিটি, আমেরিকা বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি, দি ইউনিভার্সিটি অব কুমিল্লা।

এই তিন বিশ্ববিদ্যালয় ব্যাপারে ইউজিসির রেড এলার্ডে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সাময়িক অনুমতিপত্রের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন, ২০১০ এর ১২(১) ধারা অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়টির কার্যক্রমের আর কোনো আইনগত ভিত্তি নেই।এছাড়া ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি ২০২৩ সালের ১ জানুয়ারি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে না যাওয়ায় শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ রয়েছে।

অন্যদিকে স্থায়ী সনদের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়া, শুরু থেকে মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ্ব, মামলা, রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিয়োগে বৈধ ভিসি-প্রো-ভিসি ও ট্রেজারায় না থাকা, শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক কোনো অডিট ফার্ম দ্বারা অডিট না করার কারণে মিরপুরে অবস্থিত সেন্ট্রাল ইউনিভাসিটির অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ থাকবে।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের পরিচালক (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়) ওমর ফারুক জানিয়েছেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা যেন সচেতন থাকেন এবং জেনে-শুনে তাদের সন্তানদের ভর্তি করাতে পারেন সেজন্য প্রতি সেমিস্টারের আগে এ ধরনের সতর্কতা বা গণবিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়।

এএম/

Advertisement

 

Advertisement

শিক্ষা

পদোন্নতি পেয়েছেন হিজাবকাণ্ডে অব্যাহতিপ্রাপ্ত সেই রাবি শিক্ষক

Published

on

রাবি-শিক্ষক-হাফিজুর-রহমান

ছাত্রীকে আপত্তিকর বার্তা ও হিজাব কাণ্ডে একাডেমিক কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি পাওয়া শিক্ষক হাফিজুর রহমানকে সহযোগী অধ্যাপক থেকে অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি দেয়া হয়েছে। গেলো ৩ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৩১তম সিন্ডিকেট সভায় তাকে পদোন্নতি দেয়া হয়।

বুধবার (০৫ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্যদের একটি সূত্র তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

বিষয়টি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, একাডেমিক কার্যক্রম থেকে অব্যাহতির বিষয়টি বিভাগ উল্লেখ করেছে। আবার বিভাগেরই পরিকল্পনা কমিটি তার পদোন্নতির জন্য সুপারিশও করেছে। ফলে নিয়ম মেনেই পদোন্নতি পেয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক আশরাফুজ্জামান বলেন, বিভাগের পরিকল্পনা কমিটির পক্ষ থেকে তার পদোন্নতির সুপারিশ করা হয়েছিল। এর আগে তাকে অব্যাহতির সুপারিশও করা হয়েছিল।

গেলো ১১ মার্চ ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষক ড. হাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে আপত্তিকর বার্তা ও হিজাব নিয়ে কটাক্ষের অভিযোগ উঠে। এ নিয়ে শিক্ষককে বহিষ্কারের দাবিতে দফায় দফায় আন্দোলন করেন শিক্ষার্থীরা। বিভাগে নিজের কৃতকর্মের জন্য অনুতপ্ত হওয়ায় বিভাগের একাডেমিক কার্যক্রম থেকে পাঁচ বছর তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এই অব্যাহতির মাঝেই গেলো ৩ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৩১তম সিন্ডিকেট সভায় তাকে পদোন্নতি দেয়া হলে এ নিয়ে আবার প্রশ্ন উঠেছে।

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

শিক্ষা

১৫ বছর পর কলেজে ফিরলেন শাহেদুল খবির

Published

on

কলেজে

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের একজন প্রভাবশালী পরিচালককে বদলি করা হয়েছে। অধিদপ্তরের দ্বিতীয় শীর্ষ ব্যক্তি কলেজ ও প্রশাসন শাখার পরিচালক অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরীকে ঢাকার বিজ্ঞান কলেজে বদলি করা হয়েছে।

বুধবার (৫ জুন) তাকে বদলির আদেশ দেয়া হলেও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বৃহস্পতিবার (৬ জুন) সেটি প্রকাশ করা হয়েছে।

শিক্ষা ক্যাডারে চাউর রয়েছে, এই ক্যাডারে শাহেদুল খবিরের চেয়ে বড় প্রভাবশালী কর্মকর্তা দ্বিতীয়জন কেউ নেই। তিনি বর্তমানে শিক্ষা ক্যাডারের সংগঠন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডার সমিতির বর্তমান সভাপতি। আগামী ৯ জুন এ সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সেই নির্বাচনে তিনি আবার সভাপতি প্রার্থী। নির্বাচনে ঠিক তিনদিন আগে তাকে বদলি করায় সবাই এটি নিয়ে কানাঘুষা করছেন। তবে ঠিক কী কারণে তাকে বদলি করা হয়েছে, এ ব্যাপারে কেউ অফিসিয়াল বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

শাহেদুল খবির চৌধুরী সর্বশেষ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হওয়ার দৌড়েছিলেন। শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তারা বলছেন, তিনি শিক্ষা প্রশাসনের দ্বিতীয় শীর্ষ ব্যক্তি হিসেবে আসন্ন সমিতির নির্বাচনে নানাভাবে প্রভাব বিস্তার করছিলেন। অন্য প্যানেলগুলো শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান নওফেলের কাছে অভিযোগ করার পর তদন্ত করে এর প্রমাণ মেলায় তাকে অন্যত্র বদলি করা হয়েছে।

অভিযোগে জানা যায়, বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডার সমিতির আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত কয়েকদিন ধরে শিক্ষা অধিদপ্তর, পাঠ্যপুস্তক বোর্ড, মাদ্রাসা অধিদপ্তর, ঢাকা শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা বোর্ড, কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড, রাজশাহীর নিউ ডিগ্রি কলেজ, নায়েম ও কয়েকটি কলেজের প্রধানদের প্রভাবিত করা হচ্ছিল।

Advertisement

শাহেদুল খবির চৌধুরী বর্তমান সরকারের শুরু থেকে অর্থাৎ, ২০০৯ সাল থেকে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড এবং মাউশি অধিদপ্তরে চাকরি করছেন। গেলো সাড়ে ১৫ বছরে একদিনের জন্যও তিনি সরকারি কোনো কলেজে চাকরি করেননি। তিনি ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে স্কুল পরিদর্শক, পরে সচিব ছিলেন। ২০১৯ সালে তিনি মাউশি অধিদপ্তরের পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) হিসেবে পদায়ন পান।

তার বিরুদ্ধে মাউশির একটি নিয়োগে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

কেএস/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

শিক্ষা

দুই বিষয়ে ফেলের পর একাদশে ভর্তি সম্পর্কে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী

Published

on

এসএসসির-ফল-প্রকাশ

নতুন শিক্ষাক্রমে এসএসসি পরীক্ষায় এক বা দুই বিষয়ে অনুত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির সুযোগ রাখা হলেও তাদের সনদ দেয়া হবে না। বলেছেন শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।

বুধবার (৫ জুন) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন করেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এসএসসি পরীক্ষায় এক বা দুই বিষয়ে অনুত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির সুযোগ আগেও ছিল। একজন শিক্ষার্থী যদি দুটি সুনির্দিষ্ট বিষয়ে অকৃতকার্য হয়, প্রক্রিয়া অনুযায়ী পরবর্তী ধাপ উত্তরণ হবে না, কিন্তু সনদায়ন হবে। অর্থাৎ সেই শিক্ষার্থী পূর্ববর্তী যে দুটি বিষয়ে সুনির্দিষ্ট মান অর্জন করতে পারেনি বা ধাপ অতিক্রম করতে পারেননি, শিখন ফল ঘাটতি মিটিয়ে নেয়ার পর উচ্চতর পর্যায়ে গিয়ে তখন সনদ পাবে। নম্বরপত্র দেয়া হবে, কিন্তু এসএসসির সনদ পাবে না।’

তিনি বলেন, ‘শিক্ষার্থী যদি মনে করে পরবর্তী ধাপে সনদায়ন করতে চাচ্ছে না, কিন্তু ফলাফলটি চাচ্ছে বা মার্কশিট চাচ্ছে, সেটা তারা পাবে। এ ক্ষেত্রে এটা শিক্ষার্থীর ওপর নির্ভর করবে; তারা যদি উচ্চ মাধ্যমিকের পূর্ণ সনদায়ন না চায়, যেহেতু আমরা এখনও উচ্চ মাধ্যমিকে এই প্রক্রিয়াটা শুরু করিনি। তারা উচ্চ মাধ্যমিকের পূর্ণ সনদায়ন পাবে না। কারণ, তাদেরকে কাজে যোগদান করতে সব বিষয়ে যে উত্তীর্ণ হয়ে কাজে যোগদান করবে তা নয়।’

আমরা এতটুকু নিশ্চয়তা দিতে চাই, তারা ধাপ অতিক্রম করবে, কিন্তু পূর্ণ সনদায়ন পাবে না। পূর্ণ সনদায়নে সব বিষয়ে কৃতকার্য হতে হবে, যোগ করেন মন্ত্রী।

Advertisement

 

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত