Connect with us

ঢাকা

স্বামীর পরকীয়া সন্দেহে ২ মেয়েসহ গৃহবধূর আত্মহত্যা

Avatar of author

Published

on

আত্মহত্যা

স্বামী পরকীয়ায় আসক্ত এমনটাই সন্দেহ করতেন ফাতেমা আক্তার সীমা। আর তাই ক্ষুদ্ধ হয়ে ২ মেয়েসহ আত্মহত্যা করেছেন এ গৃহবধূ।

মঙ্গলবার (০৯ এপ্রিল) সকালে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার চরদুঃখিয়া পশ্চিম ইউনিয়নের পুটিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সংবাদ পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে।

আত্মহত্যাকারী ফাতেমা আক্তার সীমা (২৬) পুটিয়া গ্রামের সদ্য প্রবাস ফেরত আরিফ হোসেন রাঢ়ীর স্ত্রী। মৃত দুই শিশুকন্যা হলো আরিফা (৪) ও আরিয়া (২)।

জানা গেছে, ৭ বছর আগে হাইমচর উপজেলার চরকৃষ্ণপুর গ্রামের মোস্তফা কোতোয়ালের মেয়ে ফাতেমা আক্তার সীমার সঙ্গে ফরিদগঞ্জ উপজেলার চরদুঃখিয়া পশ্চিম ইউনিয়নের পুটিয়া গ্রামের পুটিয়া গ্রামের সিরাজুল ইসলাম রাঢ়ীর ছেলে আরিফ হোসেন রাঢ়ীর বিয়ে হয়। প্রবাসী আরিফ হোসেন রাঢ়ী গেলো ফেব্রুয়ারি মাসে দুবাই থেকে দেশে আসে। পবিত্র ঈদুল ফিতরের দুই দিন পর প্রবাসে ফিরে যাওয়ার কথা।

স্বামী আরিফ হোসেন রাঢ়ী জানায়, মঙ্গলবার সকালে বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় তার স্ত্রী ফতেমা আক্তার সীমা তার দুই সন্তানকে খাওয়াচ্ছে। কিন্তু প্রায় দুই ঘণ্টা পর চালের বস্তা নিয়ে বাড়ি ফিরে দেখি ঘরের দরজা বন্ধ। পরে ডাকাডাকি করে কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে ঘরের পিছন দিক দিয়ে জানালা গিয়ে দেখতে পাই স্ত্রী ও দুই সন্তান ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে রয়েছে। পরে চিৎকার দিলে মাসহ আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে ঘরের দরজা ভাঙ্গলে আমি নিজেই তিনজনের ঝুলন্ত লাশ রশি কেটে খাটের মধ্যে শুইয়ে দেই।

Advertisement

প্রতিবেশীদের উদ্ধৃতি দিয়ে পুলিশ জানায়, প্রবাসী আরিফ হোসেন রাঢ়ীর সঙ্গে ফাতেমা আক্তার সীমার সোমবার রাতে কথা কাটাকাটি হয়। এর পরই সকালে এই ঘটনা ঘটে।

ফাতেমা আক্তার সীমার মা শাহিনুর বেগম জানান, মেয়ে ও দুই নাতনির মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে ছুটে এসেছি। সোমবার রাতেও মেয়ের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলেছি। তদন্তের মাধ্যমেই প্রকৃত সত্য বেরিয়ে আসবে বলে বিশ্বাস করি।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান জানান, মঙ্গলবার সকালে আরিফ রাঢ়ীর ঘরের বিছানায় মা ও দুই মেয়ের লাশ পড়ে থাকতে দেখেছি। এ ছাড়া ঘরের ফ্যানের সঙ্গে একাধিক দড়ি ঝুলন্ত অবস্থায় ছিল। ঘটনা কি এবং কেন ঘটেছে তা তদন্ত সাপেক্ষে রহস্য বের হবে। এছাড়া আত্মহত্যাকারী ফাতেমা আক্তার সীমার বড় বোনও প্রবাসে ইতোপূর্বে আত্মহত্যা করেছে বলে শুনেছি। ওই পরিবারের এই ধরনের মানসিক সমস্যা রয়েছে কিনা তাও তদন্ত করা প্রয়োজন।

ফরিদগঞ্জ থানার ওসি মো. সাইদুল ইসলাম জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর পাঠানো হয়েছে।

 

Advertisement
Advertisement

ঢাকা

মৃত রাসেলস ভাইপার নিয়ে হাসপাতালে কৃষক

Published

on

রাজবাড়ীর পাংশায় রাসেলস ভাইপারের ছোবলে আহত হয় এক কৃষক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছেন। এর আগে সাপটিকে মেরে মধু বিশ্বাস (৫০) নামে ঐ কৃষক হাসপাতালে নিয়ে আসেন। ওই কৃষক বর্তমানে সুস্থ আছেন।

শুক্রবার (২১ জুন) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার হাবাসপুর ইউনিয়নের চরআফড়া এলাকায় পদ্মা নদীর চরে এ ঘটনা ঘটে বলে গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. মো. এনামুল হক।

কৃষক মধু বিশ্বাস জানান, সকালে পদ্মা নদীর চরের চর আফড়া এলাকায় ক্ষেত থেকে বাদাম তোলার সময়  একটি সাপ তাকে ছোবল দেয়। এসময়  চিৎকার করলে আশপাশের অন্য কৃষকরা এগিয়ে এসে সাপটি মেরে ফেলে। পরে মৃত সাপসহ তিনি পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এলে চিকিৎসকরা এটিকে রাসেলস ভাইপার বলে শনাক্ত করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার জানান, ওই কৃষক বর্তমানে চিকিৎসাধীন। তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ আছেন।

আই/এ

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ঢাকা

বাসের ধাক্কায় ইজিবাইকের ২ যাত্রী নিহত

Published

on

সড়ক দুর্ঘটনা

ফরিদপুরের মধুখালীতে বাসের ধাক্কায় ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকের দুই যাত্রী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ছয় জন। তাদেরকে ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার (২০ জুন) রাত দেড়টার দিকে মধুখালী বাজারের বালিয়াকান্দি লিংক রোড এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- বরিশালের বন্দর উপজেলার ইয়াসিন হাওলাদারের ছেলে মিরাজ হাওলাদার এবং ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার মো. মোবারকের ছেলে সুমন। আহতদের উদ্ধার করে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মধুখালী থানার ওসি মো. মিরাজ হোসেন জানান, পূর্বাশা পরিবহনের একটি বাস চুয়াডাঙ্গা থেকে ঢাকায় যাচ্ছিল। বাসটি রাত সাড়ে ১২টার দিকে মধুখালী বাজার এলাকা পার হওয়ার সময় বালিয়াকান্দি লিংক রোড থেকে মহাসড়কে আসা একটি ইজিবাইককে ধাক্কা দেয়। এতে ইজিবাইকে থাকা দুই যাত্রী নিহত হন। আহত হন অন্তত ১০ জন।

জেএইচ

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ঢাকা

গরু-খাসি বিক্রি নিয়ে ডিগবাজি দিলেন ইমরান

Published

on

কোটি টাকা দামের গরু আর ১৫ লাখ টাকা দামের খাসি নিয়ে এবার নিজের বক্তব্য পাল্টালেন আলোচিত সাদিক এগ্রোর কর্ণধার ইমরান। ১৫ লাখের খাসি ক্রেতা না নিলেও। কোটি টাকা দামের সেই গরুর ক্রেতা আগামী বছর গরুটি নিবেন বলে দাবি করছেন ইমরান।

বুধবার (১৯ জুন) বিক্রির বিষয়টি  গণমাধ্যমের কাছে প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার ইমরান হোসেন নিজেই নিশ্চিত করেছেন।

গরু ও খাসি নিয়ে ইমরান বলেন, কোটি টাকায় গরুটি যিনি ক্রয় করেছেন তিনি এ বছর হজে গিয়েছেন। আগামী বছর ওই ক্রেতা গরু ডেলিভারি নেবেন। অপরদিকে খাসির ক্রেতা ১ লাখ টাকা বুকিং মানি দিয়েছিলেন কিন্তু পরে আর ছাগলটি নেননি।

যদিও ঈদের আগে তিনি বলেছিলেন, ১৫ লাখ হাকানো ছাগলটি ১২ লাখে বিক্রি হয়েছে।

এদিকে খাসির ক্রেতার পরিচয় নিয়ে চলমান আলোচনার বিষয়ে এ খামারি বলেন, যে ছেলেটি তাঁর কাছ থেকে খাসি কিনেছে,তার বাবা বিদেশে থাকেন। ইমরানের কাছ থেকে কোনও রাজস্ব কর্মকর্তার ছেলে খাসি কেনেনি, একটি তরুণ ছেলে কিনেছে। এখন ওর বাবা কে, সেটি তাঁর জানা নেই।

Advertisement

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, এমনকি গণমাধ্যমেও বিভিন্ন মহল থেকে বলা হচ্ছে যে ছাগলের এই অস্বাভাবিক দাম বাজারে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করছে।

এ বিষয়ে ইমরানের দাবি, এ আলোচনা একেবারেই অযৌক্তিক এবং ভিত্তিহীন। কোরবানি উপলক্ষে এবার ৩৩০০ পশু তিনি খামারে তুলেছিলেন। যার মধ্যে ১২০০ ছাগল ও ২১০০ গরু। এত ছাগলের মাঝে কেবল একটির দাম ছিল ১৫ লাখ টাকা। বাকী ছাগলগুলোর দাম ১৫-২০ হাজার টাকা, যা মূলত আমজনতার ছাগল।

আই/এ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত