Connect with us

আন্তর্জাতিক

হামাস নির্মূলে রাফায় শিগগিরই অভিযান: ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী

Avatar of author

Published

on

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। সংগৃহীত ছবি

‘ফিলিস্তিনের গাজার রাফা এলাকায় অভিযানের তারিখ চূড়ান্ত করা হয়েছে এবং হামাস নির্মূলে শিগগির সেখানে অভিযান চালানো হবে।  সব জিম্মিকে মুক্ত করা এবং হামাসের বিরুদ্ধে পুরোপুরি বিজয় অর্জন করা ইসরায়েলের লক্ষ্য।’ ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু এসব কথা বলেন। তবে নির্দিষ্ট তারিখ তিনি ঘোষণা করেননি।

সোমবার এ তথ্য দেন তিনি। তবে নির্দিষ্ট করে কোনো দিন-তারিখের কথা উল্লেখ করেননি। খবর বিবিসির।

কায়রো আলোচনা নিয়ে বিস্তারিত প্রতিবেদন হাতে এসেছে জানিয়ে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘লক্ষ্য অর্জনে আমরা কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। লক্ষ্যগুলোর প্রথমেই রয়েছে আমাদের সব জিম্মিকে মুক্ত করা এবং হামাসের বিরুদ্ধে পুরোপুরি বিজয় অর্জন করা। এই বিজয়ের জন্য প্রয়োজন রাফায় প্রবেশ করা এবং সেখানে থাকা সন্ত্রাসী দলগুলোকে নির্মূল করা। এটা করা হবে। একটি তারিখ ঠিক করা আছে।’

নেতানিয়াহু এমন সময় রাফায় অভিযান শুরুর দিনক্ষণ নিয়ে কথা বললেন, যখন গাজায় যুদ্ধবিরতি এবং জিম্মি ও কারাবন্দিদের মুক্তির জন্য মিসরের রাজধানী কায়রোয় আলোচনায় বসেছে ইসরাইল ও ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৭ই অক্টোবর ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র সংগঠন হামাসের যোদ্ধারা গাজা থেকে ইসরায়েলে প্রবেশ করার পর ছয় মাস হয়ে গেছে। ওইদিন হামাস হামলা চালিয়ে ইসরায়েলে প্রায় ১২০০ মানুষকে হত্যা করে এবং শতাধিক মানুষকে জিম্মি করে নিয়ে যায়। এর জবাবে ‘হামাসকে চূর্ণ-বিচূর্ণ ও ধ্বংস করার’ প্রতিশ্রুতি দিয়ে গাজায় সামরিক অভিযান চালানোর নির্দেশ দেয় বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু প্রশাসন। সামরিক অভিযানের প্রধান লক্ষ্য ছিলো হামাস যাতে তাদের জন্য আর কোনো হুমকি সৃষ্টি করতে না পারে এবং ইসরায়েল যেন তাদের সব জিম্মিকে ঘরে ফিরিয়ে আনতে পারে।

Advertisement

ইসরায়েলের চালানো সেই অভিযান এখনও চলছে। গত বছরের ৭ অক্টোবর যুদ্ধ শুরুর ছয় মাস পার হয়ে সাত মাসে গড়িয়েছে। ইসরায়েলের নির্বিচার হামলায় গাজা এরইমধ্যে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে। হাজারো ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। ইসরায়েলে হামলায় অন্তত ৩৩ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে এবং গাজার বড় অংশ ধ্বংস হয়ে গিয়েছে বলে জানিয়েছে হামাস পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এ ছাড়া হামলায় ধসে পড়া ভবন ও ধ্বংসস্তূপের নিচে আরও হাজার হাজার মানুষ নিখোঁজ রয়েছে। তারা সবাই মারা গেছেন বলেই ধারণা করা হচ্ছে। ঘরবাড়ি ছাড়া হয়েছেন আরও লাখ লাখ মানুষ। ইসরায়েলি বাহিনী পূর্ণ অবরোধ আরোপ করে রাখায় গাজায় ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। এত কিছুর পরও ইসরায়েলের তরফ থেকে যুদ্ধ বন্ধের কোনো লক্ষণ নেই।

Advertisement

আন্তর্জাতিক

ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবে নিহত ১০, বাংলাদেশিসহ জীবিত উদ্ধার ৫১

Published

on

ভূমধ্যসাগরে-নৌকা-ডুবি

লিবিয়ার জোয়ারা উপকূল থেকে ৬১ জন অভিবাসী নিয়ে যাত্রা করা একটি কাঠের নৌকা থেকে ১০ অভিবাসীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। নৌকাটিতে গ্যাসোলিনের ধোঁয়া থেকে সৃষ্ট বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা যায়। জার্মান এনজিও রেসকিউশিপ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) কাতারভিত্তিক সংবাদ সংস্থা আল-জাজিরা ইতালিয়ান কোস্ট গার্ড, জাতিসংঘের সংস্থা ও জার্মান একটি দাতব্য সংস্থার বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে।

জার্মান দাতব্য সংস্থা রিসকিউশিপ জানিয়েছে, গতকাল সোমবার (১৭ জুন) ল্যাম্পেডুসা দ্বীপের কাছে তারা একটি ডুবন্ত কাঠের নৌকা থেকে ৫১ জনকে উদ্ধার করেছেন। এ সময় নৌকার নীচের ডেকে ১০ জনের মরদেহ পাওয়া গেছে।

সংস্থাটি বলছে, বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিদের সোমবার (১৭ জুন) সকালে ইতালীয় কোস্টগার্ডের কাছে হস্তান্তরের পর তাদের তীরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে মৃতদের ল্যাম্পেডুসা দ্বীপে নেয়া হয়েছে।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর, ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আইওএম) এবং জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ এক যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছে, নৌকাটি লিবিয়া থেকে যাত্রা করেছিল। এতে সিরিয়া, মিসর, পাকিস্তান ও বাংলাদেশের অভিবাসীরা ছিলেন। তবে কোন দেশের কত যাত্রী ছিলেন, তা জানানো হয়নি।

Advertisement

একই দিনে পৃথক আরেক নৌকাডুবির ঘটনায় ৬০ জনের বেশি মানুষ নিখোঁজ হয়েছেন। তাদের মধ্যে ২৬ জনের মতো শিশু রয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। দক্ষিণ ইতালির ক্যালাব্রিয়ার উপকূল থেকে প্রায় ১২৫ মাইল দূরে এই ঘটনা ঘটে। মেডেসিনস সানস ফ্রন্টিয়েরস (এমএসএফ) নামে একটি সংগঠন এই তথ্য জানিয়েছে।

এই ঘটনায় ১২ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। তবে তাদের সবাইকে তীরে নেয়ার পর একজন মারা যান বলে জানিয়েছে ইতালীয় কোস্টগার্ড।

ভূমধ্যসাগর বিশ্বের সবচেয়ে প্রাণঘাতী মাইগ্রেশন রুট হিসেবে পরিচিত। জাতিসংঘের তথ্য অনুসারে, ২০১৪ সাল থেকে এই রুটে ২৩ হাজার ৫০০ জনের বেশি অভিবাসী মারা গেছে বা নিখোঁজ হয়েছে।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

ভেঙে গেলো নেতানিয়াহুর যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা

Published

on

ইসরাইলের-প্রধানমন্ত্রী-বেনিয়ামিন-নেতানিয়াহু
ফাইল ছবি

ছয় সদস্যকে নিয়ে গঠিত যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা ভেঙে দিয়েছেন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু। খবর- আলজাজিরা

গেলো রোববার সন্ধ্যায় ইসরাইলি এই নেতা রাজনৈতিক নিরাপত্তা মন্ত্রিসভার সঙ্গে বৈঠক করে সোমবার (১৭ জুন) তিনি এ ঘোষণা দেন।

নেতানিয়াহুর অতি ডানপন্থী জোটের অংশীদারগণ নতুন যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা গঠনের চাপ দিচ্ছেন। বেনি গ্যান্টজ যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাদের পর এ আবেদন আরও জোড়ালো হচ্ছে।

ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু এখন গাজা যুদ্ধ নিয়ে মন্ত্রিদের একটি ছোট দলের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাবেন। যাদের মধ্যে রয়েছে প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ট এবং কৌশলগত পররাষ্ট্রমন্ত্রী রন দারমার।

 

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

পশ্চিমবঙ্গে ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত বেড়ে ১৫, আহত ৬০

Published

on

ছবি- সংগৃহীত

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ জনে ও আহত হয়েছেন অন্তত ৬০ জন। হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। খবর- হিন্দুস্তান টাইমস

এর আগে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি ৮ জন নিহত ও ১৫ জন আহতের খবর দিয়েছিলো।

সোমবার (১৭ জুন) শিয়ালদহের দিকে যাওয়ার পথে দুর্ঘটনার কবলে পরে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস ট্রেন। দার্জিলিঙের ফাঁসি দেওয়া এলাকায় একটি মালবাহী ট্রেনের ধাক্কায় কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের তিনটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় কলকাতা থেকে শিলিগুড়ির রেল যোগাযোগ সাময়িক বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানায় দার্জিলিং পুলিশের অ্যাডিশনাল এসপি অভিষেক রায়।

এদিকে ট্রেন দুর্ঘটনা নিয়ে এক্স হ্যান্ডলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Advertisement

তিনি লিখেছেন, এই মাত্র দার্জিলিঙের ফাঁসি দেওয়া এলাকায় ট্রেন দুর্ঘটনার খবর পেলাম। বিস্তারিত এখনও জানতে পারিনি। কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে মালগাড়ি ধাক্কা দিয়েছে শুনেছি। জেলাশাসক, এসপি, চিকিৎসক এবং অ্যাম্বুলেন্স ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। তৎপরতায় উদ্ধারকাজ শুরু হয়েছে।

অন্যদিকে রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব বলেছেন, ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবার প্রতি ১০ লাখ, গুরুতর আহতদের আড়াই লাখ ও অপেক্ষাকৃত কম আহতের পঞ্চাশ হাজার রুপি করে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত