Connect with us

রাজনীতি

খালেদা জিয়া অসুস্থ- এবার যেখানে ঈদ করবেন তিনি

Avatar of author

Published

on

নানা রকম শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। আর এ অসুস্থতাকে সঙ্গী করে গুলশানের বাসা ‘ফিরোজা’য় পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করবেন তিনি। এমনটিই বুধবার (১০ এপ্রিল) গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন।

অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন বলেন, ম্যাডাম অসুস্থ, গুলশানের বাসায় মেডিকেলে বোর্ডের অধীনে চিকিৎসাধীন। বোর্ডের চিকিৎসকদের সার্বক্ষণিক মনিটরিংয়ে আছেন তিনি। ঈদের দিন সকালে ছোট ভাইসহ কয়েকজন নিকটাত্মীয় বাসায় আসবেন, তাদের নিয়েই সময় কাটবে তার। এছাড়া রাতে দলের সিনিয়র নেতারা ঈদের সালাম জানাতে আসবেন ফিরোজায়।

তিনি আরও জানান, ঈদের দিনে ঢাকায় ওনার যেসব নিকটাত্মীয়-স্বজন আছেন, ওনারা বাসায় দেখা-সাক্ষাত করতে আসবেন। তাদের নিয়ে সময় কাটাবেন ম্যাডাম। এছাড়া লন্ডন থেকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও বিএনপি চেয়ারপারসনের ছেলে তারেক রহমান এবং তার সহধর্মিণী ডা. জোবায়েদা রহমান ভার্চ্যুয়ালি তার সঙ্গে কথা বলবেন। ওনার (খালেদা জিয়া) এবারকার ঈদটা এরকমই।

Advertisement

বিএনপি

কারা নির্যাতনেই মাখনের অকাল মৃত্যু হয়েছে : রিজভী

Published

on

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলন করতে গিয়ে মাখনের ওপর সরকারের ভয়াবহ নিপীড়ন হয়েছে। একাধিকবার সে কারা নির্যাতিত হয়েছে। এছাড়াও বারবার গ্রেপ্তারের পর পুলিশি নির্যাতনও চলে তার ওপর। বললেন, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

শুক্রবার (২১ জুন) ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সদস্য ও ভাসানটেক থানা বিএনপির সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া মাখনের জানাজা শেষে এসব কথা বলেন রিজভী।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব  বলেন, তিনি কারাগারে গেলে মাখনের সাথে দেখা হয়েছিল। তার ওপর যে ভয়াবহ নির্যাতন হয়েছিল সে বর্ণনা  সে তাকে শুনিয়েছিল। আজকে তার অকাল মৃত্যুতে তিনি গভীরভাবে শোকাহত।

রিজভী বলেন, মাখনের মতো সাহসী নেতার মৃত্যুতে যে শূন্যতা তৈরি হয়েছে তা সহজে পূরণ হওয়ার নয়। এসময়ে তিনি মরহুমের  রুহের মাগফিরাত কামনা করেন ও পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

জানাজার নামাজে আরও অংশ নেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার, ক্রীড়া সম্পাদক আমিনুল হকসহ অনেকে।

Advertisement

আই/এ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আওয়ামী লীগ

বিএনপির আন্দোলন ভুয়া, তাঁদের সঙ্গে জনগণ নেই : কাদের

Published

on

বিএনপির আন্দোলন ভুয়া। বিএনপি হচ্ছে ভুয়া। ভুয়া দলের সঙ্গে জনগণ নেই। যারা আন্দোলনের হুমকি দিচ্ছেন, পরিষ্কারভাবে বলতে চাই আমাদের ক্ষমতার উৎস বাংলাদেশের জনগণ। কচু পাতার উপর শিশির বিন্দু আওয়ামী লীগ নয় যে একটু টোকা লাগলেই পড়ে যাবে। একটু ধাক্কা লাগলে সরে যাওয়ার পাত্র নয় আওয়ামী লীগ।  বললেন, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার (২১ জুন) বিকেলে আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার উদ্বোধনী দেওয়া ভাষণে এ কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আন্দোলন করবেন- ২৮ অক্টোবরের মতো পালিয়ে যাবেন না তো? বিএনপির আন্দোলন ভুয়া। বিএনপির নেতৃত্ব, দফা ভুয়া। এই ভুয়া দলের ভুয়া আন্দোলনে জনগণ নেই। আগেও ছিল না ভবিষ্যতেও থাকবে না। যে আন্দোলনে জনগণ নেই সেই আন্দোলন, আন্দোলন নয়।

বিএনপিকে হুঁশিয়ারি দিয়ে কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ মাথা নত করার দল নয়, ব্যক্তি অপরাধ করলে দুদক স্বাধীন, বিচার বিভাগ স্বাধীন। বিচার করার সৎ সাহস আছে শেখ হাসিনার। আজকে যে চক্রান্ত চলছে এটা আওয়ামী লীগকে হটানোর জন্য কি না এটা ভেবে দেখতে হবে। আজকে আন্দোলনের নামে যদি আবার আগুন নিয়ে মাঠে নামে, খুনের রাজনীতি করেন,আওয়ামী লীগ তার জবাব দিতে প্রস্তুত আছে।

নেতাকর্মীদের গুজবের বিষয়ে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, সাবধানে থাকবেন, সতর্ক থাকবেন। ফখরুলরা আজ গুজব ছড়াচ্ছে। আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ঢালাওভাবে গুজব ছড়াচ্ছে। পুলিশের ওপর আক্রমণ করছে৷ সেনাবাহিনীর প্রতিও তাদের সেই মতলব আছে। তারা আজকে গুজব ছড়িয়ে আওয়ামী লীগকে দুর্নীতিবাজ দল বানানোর চক্রান্ত চলছে।

Advertisement

বক্তব্যে তিনি দাবি করেন, আওয়ামী লীগ বিরোধী অপপ্রচারে গণমাধ্যমও জড়িত। কিছু কিছু মিডিয়া সেই অপপ্রচারে নেমেছে।

উল্লেখ্য, সভায় আওয়ামীলীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

আই/এ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বিএনপি

কারামুক্ত হলেন বিএনপি নেতা নীরব

Published

on

এক বছরেরও বেশি সময় কারা ভোগের পর জামিনে মুক্তি পেয়েছেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও যুবদলের সাবেক সভাপতি সাইফুল আলম নীরব। মুক্তির পরে তাকে কারাফটকে নেতাকর্মীরা ফুল দিয়ে বরণ করেন। গেলো বছর ৪ মার্চ পুলিশের ওপর ককটেল হামলার অভিযোগে গ্রেপ্তার হন নীরব।

শুক্রবার (২১ জুন) বিকেল ৩টার দিকে কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান এ বিএনপি নেতা।

জানা যায়, পুলিশের ওপর ওই হামলার মামলায় তেজগাঁও থানায় দায়েরকৃত মামলায় তাকে কারাগারের পাঠানো হয়। একাধিক দফায় তাকে রিমান্ডে নেওয়া হয়। এছাড়াও নীরবের বিরুদ্ধে ভাঙচুর,পুলিশের ওপর হামলাসহ একাধিক মামলা হয়েছে।

২০১৩ সালে রাজধানী মোহাম্মদপুর এলাকায় একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দেয়ার অভিযোগ তার নামে নাশকতার মামলা হয়। এ মামলায় তার ৩ বছরের সাজা হয়েছে।

আই/এ

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত