Connect with us

টলিউড

লাইনে নেমেই ঠিক আছি: স্বস্তিকা

Avatar of author

Published

on

স্বস্তিকা-মুখার্জি

টলিপাড়ার ঠোঁটকাটা অভিনেত্রী হিসেবেই পরিচিত তিনি। তবে বরাবরই নির্বিকার। বলছিলাম ওপারের জনপ্রিয় অভিনেত্র স্বস্তিকা মুখার্জির কথা।

শাড়ি বিতর্কের পরে এ বার ‘লাইন’ শব্দের আক্ষরিক অর্থ নিয়ে কথা বললেন স্বস্তিকা। সম্প্রতি নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে ‘লাইন’ শব্দের ব্যবহারিক প্রয়োগ নিয়ে লিখেছেন, “লাইন শব্দটার কি কোনও কপিরাইট হয়ে গিয়েছে? মুখ দিয়ে বেরোলেই লোকে বিচারপ্রবণ হয়ে ধেয়ে আসছে।”

কেন লোকজন ধেয়ে আসছেন? অভিনেত্রী আরও লিখেছেন, “ধরুন বললাম, তারাগুলো বেশ লাইন দিয়ে তাকিয়ে আছে বা তাল গাছের লাইন, তাতেও আমার গুষ্টির পিন্ডি এক করে রেখে দিচ্ছে।” তবে অভিনেত্রী জানিয়েছেন, শুধু তাঁর সঙ্গেই এমন ঘটনা ঘটছে তা নয়। অনেকেই ভুক্তভোগী।

আকছার শোনা যায়, ‘ফিল্ম লাইনে নেমেছে’। প্রচলিত শব্দবন্ধনীকে একহাত নিলেন স্বস্তিকা। “আমি তো ফিল্ম লাইনের। আর ফিল্ম লাইনে সবাই ‘নামে’। কাউকে কোনও দিন বলতে শুনেছেন যে ওমুক বা তমুক ফিল্ম লাইনে উঠেছে? আমার তো দু’দশক হয়ে গেল এই লাইনে। আর উঠতেও চাই না। নেমেই ঠিক আছি।”

স্বস্তিকা,-ফেসবুক-স্ট্যাটাস

বেশ কিছু দিন আগে শাড়ির আঁচল নিয়ে মমতাশঙ্করের বক্তব্য ঝড় তোলে টলিপাড়ার অন্দরে। সমাজমাধ্যমে প্রতিবাদমূলক পোস্ট করেন সাধারণ মানুষ। কিছু মানুষ তাঁর সমর্থনেও এগিয়ে আসেন। মমতাশঙ্করের মতে, নতুন প্রজন্মের মহিলারা শাড়ির আঁচল নামিয়ে পরেন। তাঁদের ল্যাম্পপোস্টের নীচে দাঁড়ানো মহিলা বলে কটাক্ষ করেন অভিনেত্রী। সেই সময় তাঁর বিরুদ্ধে কড়া শব্দে মুখ খোলেন স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়।

Advertisement

আবারও সেই প্রসঙ্গ তুলে স্বস্তিকা লিখেছেন, “কিন্তু লাইন শব্দটার কেবল একটাই অর্থ হতে পারে বা একটাই প্রসঙ্গে ব্যবহার করা যাবে— শুধু বুকের খাঁজ বা শাড়ির আঁচলে পুরো বিষয়টা সীমাবদ্ধ হয়ে গেলে খুব অসুবিধে হবে। তেড়ে আসার আগে পুরোটা পড়ে নেবেন, এই আর কী।”

Advertisement

টলিউড

সত্যিই কি প্রেমের সম্পর্ক ছিলো প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণার?

Published

on

শিগগিরই মুক্তি পেতে চলেছে চলেছেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় ও ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত জুটির ৫০তম সিনেমা অযোগ্য। একসময় বাংলা ইন্ডাস্ট্রিকে বাঁচিয়ে রেখেছিলেন তাঁরাই। উত্তম-সুচিত্রার সঙ্গে যদি টলিউডে আরও দুটো নাম একসঙ্গে উচ্চারিত হয়, তবে তাঁরা হলেন প্রসেনজিৎ আর ঋতুপর্ণা।

‘অযোগ্য’ সিনেমার প্রচারণায় এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন এই জুটি। নতুন ছবি মুক্তি সামনে রেখে আরো একবার অবধারিত একটি প্রশ্নের মুখে পড়তে হলো প্রসেনজিৎ ও ঋতুপর্ণা’কে!

এই দুই তারকার সম্পর্কের সমীকরণ নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে বহুবার। মাঝে অনেকগুলো বছর একসঙ্গে কাজ করেনি। শোনা যায়, ভুল বোঝাবুঝি দূরত্ব এনেছিল দুজনের মধ্যে। অনেক দর্শকের মনে তাই প্রশ্ন জাগে, কোনও দিন কি প্রেম করেছেন তাঁরা? শুধুই কি সহকর্মী বা বন্ধু ছিলেন, নাকি আরও কিছু ছিল দুজনের মধ্যে?

ভক্তদের মনে থাকা প্রশ্নকে আরও যেন একটু উস্কে দিলেন প্রসেনজিৎ। বললেন, ‘উত্তম-সুচিত্রার প্রেম ছিল কি ছিল না? থাকুক না, কিছু জিনিস অজানা থাকুক, মানুষ ভাবতে থাকুক। যখন আমরা থাকব না, তখনও যাতে এসব নিয়ে আলোচনা চলে।’

একই সুর শোনা গেল ঋতুপর্ণার মুখেও। বললেন, ‘আমি তো বলেছি প্রজন্মের পর প্রজন্ম এটাই হাতড়ে যাবে, ওদের মধ্যে সম্পর্ক ছিল কী ছিল না।’

Advertisement

এ সময় প্রসেনজিৎ আরো বলেন, ‘সব সম্পর্কের না বিশ্লেষণ হয় না। কিছু সম্পর্ক বিশ্লেষণের বাইরে। সেই জায়গাটাকে ছেড়ে রাখাই ভালো।’

আসছে ৭ জুন মুক্তি পাবে ‘অযোগ্য’। ছবিটিতে আরো রয়েছেন শিলাজিৎ মজুমদার, লিলি চক্রবর্তীরা।

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

টলিউড

না ফেরার দেশে ‘ভূতের ভবিষ্যৎ’ এর ‘আত্মারাম’

Published

on

‘ভূতের-ভবিষ্যৎ’-এর-‘আত্মারাম’

না ফেরার দেশে পাড়ি দিয়েছেন ‘ভূতের ভবিষ্যৎ’- খ্যাত টলিউডের বর্ষীয়ান অভিনেতা উদয় শঙ্কর পাল। গতকাল সোমবার (২০ মে) সন্ধ্যায় দক্ষিণ কলকাতার বাঙ্গুর হাসপাতালে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, উদয়শঙ্কর ফুসফুসের ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে বেশ কয়েক মাস থেকে অসুস্থ ছিলেন। ক্যানসারের তৃতীয় ধাপে পৌঁছে গিয়েছিল, অসুস্থতার কারণে মাঝে মধ্যে জ্ঞানও হারিয়ে ফেলতেন তিনি।

অভিনেতার বিপদের দিনে অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে ছিলেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন ধরণের পোস্ট করে আর্থিক সাহায্য করার চেষ্টা করেছিলেন তার শুভাকাঙ্ক্ষীরা।

বর্ষীয়ান অভিনেতার অসুস্থতার কথা প্রথম সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানান পরিচালক অভিজিৎ পাল। প্রথমে হাওড়ার একটি নার্সিংহোমে অভিনেতার চিকিৎসা শুরু হয়েছিল। পরে অবশ্য আর্টিস্ট ফোরামের তত্ত্বাবধানে উদয়শঙ্করকে দক্ষিণ কলকাতার বাঙ্গুর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানেই ৭৬ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন তিনি।

থিয়েটার দিয়েই পথচলা শুরু অভিনেতার। একের পর এক ছবিতে একাধিক চরিত্র অভিনয় করে দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছিলেন। ‘ভূতের ভবিষ্যৎ’ ছবিতে রিকশাওয়ালা ‘আত্মারাম’-এর ভূমিকায় অভিনয় করে উচ্চ প্রশংসা পেয়েছিলেন।

Advertisement

উদয়শঙ্কর অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে রয়েছে- ‘রয়েল বেঙ্গল রহস্য’, ‘চতুষ্কোণ’, ‘প্রফেসর শঙ্কু ও এল্ ডোরাডো’, ‘আশ্চর্য প্রদীপ’, ‘শজারুর কাঁটা’।

 

এসি//

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

টলিউড

‘মুঠোফোনে জালিয়াতি’ সতর্ক করলেন আলিয়ার মা

Published

on

আজ কাল মুঠোফোনের মাধ্যমে বহু মানুষই জালিয়াতির শিকার হচ্ছেন। অচেনা নম্বর থেকে ফোন করে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার ঘটনা প্রায়ই ঘটে। এবার সেই জালিয়াতির নিশানায় ছিলেন অভিনেত্রী আলিয়া ভটের মা সোনি রাজ়দান।  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই কথা বললেন সোনি রাজদান।

‘আমাদের চারপাশে বড় জালিয়াতি চলছে। একজন আমায় ফোন করে বললেন, তিনি দিল্লি পুলিশ থেকে কথা বলছেন।

তিনি বললেন, আমি নাকি বেআইনি মাদক অর্ডার করেছি। আমার আধার কার্ডের নম্বর জিজ্ঞাসা করলেন। আমারই পরিচিত কয়েক জনের কাছে এই ধরনেরই ফোন কল এসেছিল। ইনস্টাগ্রামে এক পোস্ট তিনি এ তথ্য জানিয়েছেন।

আলিয়ার মা আরও বলেন ‘তারা ফোন করে ভয় পাইয়ে দেন। এই ধরনের কথা বলে টাকা হাতিয়ে নিতে চান। এই ধরনের ফাঁদে পা দেবেন না। তাদের দ্বারা প্রভাবিত হবেন না। আমি কয়েক জনকে জানি, যারা তাদের কথার ফাঁদে পড়েছেন এবং বহু টাকা হারিয়েছেন। অন্য কেউ যাতে এই বিপদে না পড়েন, তাই এই পোস্টে জানালাম।’

এই ধরনের জালিয়াতি নিয়ে সচেতন থাকার কথা বলে সোনি জানান, ‘এই ধরনের ফোন এলে স্বাভাবিক ভাবেই বোঝা যায় না। বিশ্বাস করুন, আমিও প্রথমে ভেবেছিলাম, এই ফোনের মধ্যে কোনও সত্যতা আছে। আমি এক জনের সঙ্গে কথা বলে বুঝতে পারলাম যে, এটা আসলে জালিয়াতি করার উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। তাই আমি এড়িয়ে গিয়েছি। দিন দিন এই ধরনের জালিয়াতি আরও বাড়ছে। তাই সতর্ক থাকুন।’

Advertisement

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত