Connect with us

হলিউড

জেমস বন্ড সিরিজের পরবর্তী `জিরো জিরো সেভেন’ কে হচ্ছেন?

Avatar of author

Published

on

সংগৃহীত ছবি

জেমস বন্ড বলতেই চলচিত্রপ্রেমী যেকোন মানুষের মনে ভেসে ওঠে সুদর্শন, রূক্ষ, দুর্ধর্ষ ও স্টাইলিশ এক পুরুষের ছবি। জেমস বন্ড মানেই বিশ্বের আধুনিকতম ও ভয়ঙ্কর গোয়েন্দা।  ডাবল ও সেভেন-বা জিরো জিরো সেভেন মানেই শ্বাসরুদ্ধকর অ্যাকশন ছবির কোটি কোটি দর্শকনিন্দত অভিনেতা জেমস বন্ড।

বহুল আলোচিত ‘স্পেকটর’ সিনেমার মুক্তির পর ২০১৫ সালে জেমস বন্ড চরিত্রের অভিনেতা ড্যানিয়েল ক্রেইগ বলেছিলেন, আবার বন্ড হতে হলে তিনি হাতের কবজি কেটে ফেলবেন।  তবে এরপর কবজিসহই ‘নো টাইম টু ডাই’ সিনেমাটি করেন ক্রেইগ।  পরে এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছিলেন, ‘বন্ড’ ছবি করতে শরীরের ওপর ভীষণ চাপ পড়ে। এ জন্যই জনপ্রিয় এই গুপ্তচরের ভূমিকায় অভিনয় করতে চাননি। কিন্তু নানা কারণে শেষবারের মতো রাজি হয়েছিলেন। ’

‘জেমস বন্ড’ সিরিজের সর্বশেষ সিনেমা ‘নো টাইম টু ডাই’ মুক্তি পেয়েছে ২০২১ সালে। এর মধ্য দিয়ে ড্যানিয়েল ক্রেইগ ইতি টানেন বন্ড ক্যারিয়ারের। ক্রেগ হচ্ছেন সেই অভিনেতা যিনি ১৫ বছর ধরে জেমস বন্ড চরিত্রে অভিনয় করেছেন। এরপর তিন বছর পেরিয়েছে, নতুন ‘জেমস বন্ড’ সিনেমার খবর পাওয়া যায়নি। নতুন ‘জিরো জিরো সেভেন’ হিসেবে অনেকের নাম শোনা গেছে কিন্তু কেউ শেষ পর্যন্ত চূড়ান্ত হননি।

গত তিন বছর থেকেই বন্ডপ্রেমীদের মনে প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে, কে হচ্ছেন পরবর্তী জেমস বন্ড? ২০২২ সালে হলিউডের একটি সূত্র জানিয়েছিলো-সময়ের বহুল আলোচিত অভিনেতা কিলিয়ান মারফি হতে যাচ্ছেন জিরো জিরো সেভেনের নতুন মুখ। তাকে বাছাই করার পেছনে যুক্তি ছিলো- ‘কিলিয়ান এই মুহূর্তে হলিউডের দারুণ জনপ্রিয় অভিনেতা। ২০২৪ সালে সেরা অভিনেতা হিসেবে অস্কারজয়ী হলিউডের এই সুপারস্টার জেমস বন্ড চরিত্রের জন্য মানানসই। বন্ড ফ্র্যাঞ্চাইজির জন্য অভিনেতার দৌড়ে শীর্ষে অবস্থান করছেন ৪৭ বছর বয়সী এই আইরিশ অভিনেতা।

তবে, এখন শোনা যাচ্ছে আরেক ব্রিটিশ অভিনেতার নাম। অ্যারন টেইলর-জনসনকে পরবর্তী জেমস বন্ডের জন্য ভাবা হচ্ছে। ৩৩ বছর বয়সী এই ব্রিটিশ অভিনেতাকে শেষ বন্ড তারকা ড্যানিয়েল ক্রেগের কাছ থেকে দায়িত্ব বুঝে নিতে বলা হয়েছে।

Advertisement

টেইলর-জনসন ২০০৯ সালে খ্যাতি অর্জন করেন। ক্রারাভান দ্য হানটার, ‘স্যাভেজ’, ‘আন্না কারেনিনা’, ‘গডজিলা’ ইত্যাদি সিনেমায় অভিনয় করেছেন অ্যারন টেইলর-জনসন। তবে সমালোচকদের কাছে তিনি প্রিয়পাত্র হয়ে ওঠেন ‘নকচারাল অ্যানিম্যালস’ সিনেমা দিয়ে। ছবিটির জন্য তিনি গোল্ডেন গ্লোবে সেরা পার্শ্ব অভিনেতার পুরস্কার পান। ২০১৫ সালে ‘অ্যাভেঞ্জার্স: এজ অব আলট্রন’ দিয়ে পরিচিতি পান ৩৩ বছর বয়সী এই অভিনেতা।

জেমস বন্ড সিরিজের বেশিরভাগ চলচ্চিত্র তৈরি করেছে প্রযোজনা সংস্থা ইয়ন প্রোডাকশন। এই প্রোডাকশনের একটি সূত্রে জানা যায়, টেইলর জনসনকে জিরো জিরো সেভেনের ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। চুক্তিপত্রটি এখনও অপেক্ষমান রয়েছে। চুক্তিতে অভিনেতা সই করলেই বড় ধরণের একটি ঘোষণা আসবে। আর ছবির শুটিং শুরু হবে চলতি বছরেই।

তবে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি বোলছে অন্য কথা। জেমস বন্ড চরিত্রে অভিনয়ের বিষয়টি এখনও স্পষ্ট করেনি অ্যারন টেইলর। এই অভিনেতা শুধু বলেছেন-‘বন্ডের ভূমিকায় তাকেদেখার বিষয়ে যেসব কথাবার্তা চলছে, সেটা তার কাছে রীতিমতো বিস্ময়কর ও আনন্দদায়কও বটে। ’

প্রযোজনা সংস্থার একটি সূত্রেও জানা গেছে, অ্যারনের জিরো জিরো সেভেনের চরিত্রের অভিনয়ের খবরের কোনো সত্যতা নেই। ফলে ২৬তম জেমস বন্ড ছবিতে কে হচ্ছেন ‘জিরো জিরো সেভেন ‘ বিষয়টি এখনো ধোঁয়াশাই রয়ে গেলো।

Advertisement
Advertisement

বলিউড

প্রকাশ্যে বিয়ের প্রস্তাব দেওয়ায় শাহরুখকে যা বলেছিলেন প্রিয়াঙ্কা

Published

on

বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খান এবং প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার প্রেমের গুঞ্জনে এক সময় উত্তাল ছিল ইন্ডাস্ট্রি। পরে রাজনীতির শিকার হয়ে ইন্ডাস্ট্রি তো বটেই, দেশও ছাড়তে হয়েছিল বলে প্রিয়াঙ্কাকে। তবে সেসব ঘটনার অনেক আগেই শাহরুখ জানতে চেয়েছিলেন, পিসির পছন্দের পাত্র কেমন হবে?

২০০০ সালে প্রিয়াঙ্কা যখন বিশ্ব সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশ নিলেন, সেখানে একজন বিশেষ বিচারক ছিলেন শাহরুখ খান। প্রশ্নোত্তর পর্বে শাহরুখ বলেন, ‘ধরো তোমাকে যদি বিয়ের পাত্র হিসেবে ক্রিকেটার মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন, বা কোনো ধনকুবের ব্যবসায়ী অথবা আমার মত কোনো অভিনেতাকে বেছে নিতে বলা হয়, তখন তুমি কাকে জীবনসঙ্গী হিসেবে নির্বাচন করবে?’

প্রিয়াঙ্কা খুব বেশি ভাবনাচিন্তা না করেই আজহারউদ্দিনের নাম নেন।

প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘তিনি একজন মহান খেলোয়াড়। কোনো ম্যাচ জিতে তিনি যখন বাড়ি ফিরবেন, আমি তাকে বলব, পুরো দেশবাসীর মত আমিও তোমার জন্য গর্বিত। আমার বিচারে আজহারউদ্দিন একজন বলিষ্ঠ নেতা, যিনি টিমকে গড়ে তুলতে জানতেন।’

ঐ সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় সেরার শিরোপা জিতেছিলেন অভিনেত্রী। তার পরপরই একটি তামিল সিনেমা করেন প্রিয়াঙ্কা। এর পরের অধ্যায়ে একের পর এক সিনেমায় অভিনয় করেছেন।

Advertisement

কিন্তু বিপত্তি বাঁধে শাহরুখের সঙ্গে ডন সিনেমায় অভিনয় করার পর। একটা সময়ে হিন্দি সিনেমায় অনিয়মিত হয়ে পড়েন তিনি। প্রিয়াঙ্কার বলিউড ছাড়ার কারণগুলোর মধ্যে বারবার এসেছে শাহরুখের নাম।

ডন সিনেমার সেটে শাহরুখ-প্রিয়াঙ্কা ভালো বন্ধু বনে গিয়েছিলেন। এরপর ডন-২ মুক্তির পর ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে দুজনের সম্পর্কের নতুন বাঁকের খবর ছড়ায়। প্রিয়াঙ্কা তখন শাহরুখের স্ত্রী গৌরী খানের বিরাগভাজন হোন।

সে সময় স্ত্রীকে শান্ত করতে গিয়ে শাহরুখ নাকি কথা দিয়েছিলেন, আর কোনো কাজ তিনি করবেন না প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে। এরপর কাজ কমে যাওয়ায় প্রিয়াঙ্কাও বলিউড ছেড়ে পাড়ি জমান হলিউডে।

পরে এক সাক্ষাৎকারে প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘ইন্ডাস্ট্রিতে আমাকে একটা সময় কোনঠাসা করে ফেলা হয়েছিল। আমাকে সিনেমায় নেয়া হচ্ছিল না। এই রাজনীতিতে আমি ভীষণ তিক্ত হয়ে পড়েছিলাম।’

পরবর্তীতে ২০১৫ সালে আমেরিকান টিভি সিরিজ কোয়ান্টিকোতে অভিনয়ের মাধ্যমে হলিউডে পা রাখেন প্রিয়াঙ্কা। বর্তমানে নিজেকে আন্তর্জাতিক তারকা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন সাবেক এই বিশ্ব সুন্দরী।

Advertisement

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বলিউড

নিজের তৈরি গাউনে কানের লাল গালিচায় কয়লা শ্রমিকের মেয়ে ন্যান্সি

Published

on

ঠিক যেন একটা বার্বি ডল! এক মাস ধরে নিজের হাতে ১০০০ মিটার কাপড় সেলাই করে তৈরি পোশাকে কানের লাল গালিচা মাত করেছেন ভারতীয় ফ্যাশন ইনফ্লুয়েন্সার ন্যান্সি ত্যাগী। নিজস্ব সৃজনশীলতায় ফ্যাশন বোদ্ধাদের চমকে দিলেন উত্তর প্রদেশে বেড়ে ওঠা মেয়েটি।

ন্যান্সির গাউনের রঙ ছিল বেবি পিংকের চেয়ে আরও দু-এক শেড গাঢ়। যেটিকে ব্লাশ পিংক বলা চলে। বিশাল ঘেরের এই গাউনের ওজন ২০ কেজি। বহু রাফল আর প্লিটের সমন্বয়ে এই শিয়ার জর্জেটের অফ দ্য শোল্ডার গাউনটি সম্পূর্ণ নিজের হাতেই সেলাই করেছেন ন্যান্সি। সঙ্গে ম্যাচিং গ্লাভস পরেছিলেন।

তাঁর এই অভিনব ফ্যাশন সেন্সের জন্য ন্যান্সি আলোচনার কেন্দ্রে আছেন। তাঁর মা কাজ করতেন কয়লাখনিতে। করোনার জন্য বিসর্জন দিতে হয়েছিল পড়াশুনা করার স্বপ্নকেও। দিল্লির সরোজিনী নগরের ফুটপাথে যে মেয়েটি কিনা ফ্যাশন ব্লগ করত, সেই তরুণীই এবার কান চলচ্চিত্র উৎসবের রেড কার্পেটে নজর কাড়লেন নিজের সেলাই করা গাউন পরে।

ইংরেজিতে কথা বলতে পারেন না কিন্তু তাতে কি, কানের লাল গালিচায় যাওয়ার পথে ভাষা তাঁর অন্তরায় হয়ে ওঠেনি। ঝরঝরে হিন্দিতেই কান-এর রেড কার্পেটে কথা বলেন সাংবাদিকদের সঙ্গে। ভারতীয় এই ফ্যাশন ইনফ্লুয়েন্সার বলেন, ‘হাজার মিটার কাপড় থেকে নিজে হাতে গাউন তৈরি করা এবং কান-এর লাল গালিচা পর্যন্ত আসার সফর কঠিন ছিল ঠিকই, তবে প্রতিটা মুহূর্ত আমার কাছে মূল্যবান। আমার স্বপ্নপূরণ হল।’

ছেলেবেলায় মায়ের সেলাই মেশিনে পুতুলের জন্য জামা তৈরি করতেন। সেই প্রতিভার ওপর ভর করেই নায়িকাদের পোশাক সস্তায় তৈরি করে দেখানোর ভিডিও পোস্ট করতে শুরু করেন ন্যান্সি। সেখান থেকেই কান-এর রেড কার্পটে বাজিমাত করলেন এই ফ্যাশনিস্তা।

Advertisement

দিল্লির ফ্যাশন ব্লগার ন্যান্সি ত্যাগীর ইনস্টাগ্রামে প্রায় ৯ লক্ষ ফলোয়ার। তাঁর এই সাফল্যকে কুর্নিশ জানিয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী সোনম কাপুর থেকে শুরু করে উরফি জাভেদও।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বলিউড

কানের লাল গালিচায় উপেক্ষিত ঐশ্বরিয়া, ক্ষোভে ফুঁসছেন ভক্ত-অনুসারী’রা

Published

on

কান চলচ্চিত্র উৎসবের লাল গালিচায় আর কেউ থাকুক না থাকুক সেই ২০০২ সাল থেকে নিয়মিত অংশ নেন সাবেক বিশ্বসুন্দরী ও বলিউড অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রায় বাচ্চান। এবারও হাতে প্লাস্টার নিয়ে সমুদ্র পাড়ের শহর কানে দ্যুতি ছড়িয়েছেন এই লাস্যময়ী। তবে উৎসব কর্তৃপক্ষ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাঁর নাম উল্লেখ না করায় ক্ষোভে ফুঁসছেন তাঁর ভক্ত-অনুসারীরা।

বৃহস্পতিবার নির্মাতা ফ্রান্সিস ফোর্ড কপোলা পরিচালিত ‘মেগালোপোলিস’ সিনেমার প্রিমিয়ারে অংশ নিতে লাল গালিচায় হাঁটেন ঐশ্বরিয়া। এই দিনে তিনি পড়েছিলেন ভারতীয় ফ্যাশন ডিজাইনার ফাল্গুনী শেন পিককের তৈরি মেটালিক কালো গাউন।

এ সময় ঐশ্বর্যার সঙ্গেই লাল গালিচায় হাঁটেন হলিউড নির্মাতা গ্রেটা গেরউইগ, নাদিন লাবাকি, ওমর সাই, আইরিন জেকবের মতো আন্তর্জাতিক তারকারা। কিন্তু বিপত্তি ঘটে যখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঐ বিভাগের যে ছবিগুলি উৎসব কর্তৃপক্ষ পোস্ট করেছেন, সেখানে ঐশ্বরিয়ার নাম উল্লেখ করা হয়নি।

এমনকি তাঁকে সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডলেও ট্যাগ করা হয়নি। বিষয়টি নজরে আসতেই চটেছেন ঐশ্বরিয়ার ভক্ত-অনুরাগীদের একাংশ। ওই পোস্টের নীচে তাঁরা ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন। মন্তব্যকারীদের একজন লিখেছেন, ‘‘আপনারা ক্যাপশনে ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনের নাম উল্লেখ করলেন না, যিনি কি না গ্রেটা গারউইগের আগে থেকে কানে যাচ্ছেন!’’ আরও এক জন ঐশ্বরিয়ার সোশ্যাল অ্যাকাউন্ট ট্যাগ করে লেখেন, ‘‘ওনার নাম উল্লেখ করা হয়নি কেন?’’ আরেক জনের কথায়, ‘‘কানের রানি শুধুই ঐশ্বরিয়া।’’

এই অসম্মানের নেপথ্যে কী উদ্দেশ্য রয়েছে তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠছে। এখনও আন্তর্জাতিক মঞ্চে ভারতীয়রা যে অনেকাংশেই উপেক্ষিত, সে কথাই উঠে আসছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। সম্প্রতি, ফ্যাশন ইভেন্ট মেট গালায় ডিজাইনার সাব্যসাচী মুখোপাধ্যায়ের তৈরি শাড়ি পরে উপস্থিত হয়েছিলেন বলিউড অভিনেত্রী আলিয়া ভাট।

Advertisement

কিন্তু নেটিজেনদের একাংশের মতে, বিদেশি সংবাদমাধ্যম আলিয়াকে নিয়ে সেই ভাবে কোনও উৎসাহ দেখায়নি। এমন কি তাঁকে দীপিকা পাড়ুকোন ভেবে উপস্থিত সংবাদমাধ্যমের একাংশ ভুল করে বসেন। তাদের মতে, ঐশ্বর্যার ঘটনায় আন্তর্জাতিক মঞ্চে ভারতীয়দের প্রতি পাশ্চাত্যের উপেক্ষাই যেন আরও এক বার প্রমাণিত হল।

তবে সমালোচনা শুরু হতেই বেগতিক দেখে উৎসব কর্তৃপক্ষ দ্রুত ভুল শুধরে নেন। পরবর্তীতে তাঁরা ঐ পোস্টে ‘ঐশ্বরিয়া রাই’ লেখেন এবং অভিনেত্রীর অ্যাকাউন্টও ট্যাগ করেন। প্রসাধনী ব্র্যান্ড ল’ওরিয়াল প্যারিসের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে প্রতি বছরই কানের লাল গালিচা মুখরিত করে আসছেন ঐশ্বরিয়া।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত