Connect with us

বাংলাদেশ

শাকিবকে বিয়ের আগেই বুবলী বিবাহিত ও এক সন্তানের জননী, বোমা ফাটালেন সুরুজ বাঙালি

Avatar of author

Published

on

নায়িকা শবনম বুবলী ও কৌতুক অভিনেতা সুরুজ বাঙালি। সংগৃহীত ছবি

ব্যক্তিজীবন নিয়ে কথা বলে বারবার খবরের শিরোনামে আসেন ঢালিউড চলচ্চিত্রের আলোচিত নায়িকা শবনম বুবলী। কিছুদিন পরপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসকে নিয়ে তিনি মন্তব্য করে আলোচনার জন্ম দেন। সম্প্রতি একটি সংবাদমাধ্যমে জনপ্রিয় কৌতুক অভিনেতা সুরুজ বাঙালি বুবলীর অতীত নিয়ে কথা বলেছেন।

ওই সংবাদমাধ্যমকে বুবলী সম্পর্কে জনপ্রিয় এ কৌতুক অভিনেতা বলেন, ‘বুবলী কিন্তু আগে থেকেই বিবাহিত, এটা শাকিব জানত না। দিস ইজ ফ্যাক্ট। তার আগের ঘরে একটি মেয়েও আছে। এটাও শাকিব খান জানতো না। এটা পরে জানতে পেরে শাকিব তাকে এড়িয়ে চলছে। কিন্তু বীরতো শাকিবের রক্তের তাই শাকিব বীরকে কখনোই ফেলে দেবে না।’

ঢালিউডের এ জনপ্রিয় কৌতুক অভিনেতা বলেন, ‘বুবলী শাকিব খানকে ধরে এ পর্যন্ত এসেছে। তাকে ধরে ১০টি ছবিও করেছে। তাকে শাকিবই উপরে উঠাইছে।’

বর্তমানে শাকিব-অপু দুজনেই ভালো আছে উল্লেখ করে সুরুজ বাঙালি আরও বলেন, ‘তাদের মধ্যে বুবলী ঢুকে সবকিছু নষ্ট করতে চাইছে। বুবলী চায় বীরকে দিয়ে শাকিবের সম্পত্তিতে ভাগ বসাতে। যেখানে শাকিব-অপু এখন এক হয়ে গেছে তখন তার এর মধ্যে নাক গলানোর কী দরকার?’

সম্প্রতি একটি বেসরকারি টেলিভিশনের ঈদ অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে শাকিব খানের সঙ্গে বিয়ের পর নানা খুঁটিনাটি বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন শবনম বুবলী।

Advertisement

সাক্ষাৎকারে একটি অংশে বুবলী বলেন, আমার ও শাকিব খানের একটা জায়গাতে খুব মিল রয়েছে। আমরা দুজনেই খুব ‘ইন্ট্রোভার্ট’। বাহিরে হয়তো চুপচাপ থাকি, কিন্তু পরিবারের মানুষদের সঙ্গে অনেক কথা বলি।

ওই অনুষ্ঠানে বুবলী জানান, তারা দুজনেই এখনও সময় নিচ্ছেন। আনুষ্ঠানিকভাবে বিচ্ছেদটা হয়নি। তবে বর্তমানে শাকিবের সঙ্গে এক ছাদের নিচে থাকছেন না তিনি। আলাদা থাকছেন এই জুটি।

প্রসঙ্গত, শাকিব খানের মাধ্যমেই অভিনেত্রী শবনম বুবলীর চলচ্চিত্র জগতে হাতেখড়ি হয়। ২০১৬ সালে ‘বসগিরি’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমেই বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পে তার অভিষেক ঘটে।

Advertisement

জাতীয়

এক ঘণ্টা বন্ধ থাকার চালু হলো মেট্রোরেল

Published

on

মেট্রোরেলের

যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে সন্ধ্যা ৭টার দিকে হঠাৎ বন্ধ হয়ে পড়ে মেট্রোরেল। এক ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর অবশেষে ৮টা ২১ মিনিটে সচল হয় মেট্রোরেল চলাচল। মেট্রোরেলের ইন্টারনাল সার্ভার ত্রুটির জন্য এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়।

শনিবার (২৫ মে) রাত সোয়া আটটার দিকে গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান মেট্রোরেল চলাচলকারী কর্তৃপক্ষ ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন সিদ্দিক।

তিনি বলেন, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ১৫ মিনিট মেট্রোরেল চলাচল বন্ধ থাকে। পরে আবার চালু হয়।

তবে মেট্রোরেলের একাধিক যাত্রী জানিয়েছেন, ট্রেন চলাচল এক ঘণ্টার বেশি বন্ধ ছিল।

উল্লেখ্য, সাড়ে সাতটার দিকে বিভিন্ন স্টেশনে ঘোষণা দিয়ে বলা হয়, যাত্রীদের তাড়া থাকলে বিকল্প পথে যেতে। এ সময় যাত্রীদের টিকিটের টাকা ফেরত দেয়ার ঘোষণাও দেয়া হয়। মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের ঘোষণার পর বিভিন্ন স্টেশন থেকে হাজারো যাত্রী বের হয়ে যান।

Advertisement

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

জাতীয়

যান্ত্রিক ত্রুটিতে মেট্রোরেল চলাচল বন্ধ

Published

on

সিগন্যালিং সিস্টেম ফেল করায় মেট্রোরেল চলাচল বন্ধ রয়েছে। সেই সঙ্গে বেশ কয়েকটি ট্রেন কাছাকাছি স্টেশনে আটকে আছে।

শনিবার (২৫ মে) সন্ধ্যায় এমআরটি লাইন-৬-এর একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র থেকে বিষয়টি জানা গেছে।

জানা গেছে, মেট্রোরেলের ইন্টারনাল সার্ভার ত্রুটির জন্য এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। তবে ধীরে ধীরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে। কিন্তু পৌনে আটটা পর্যন্ত মেট্রোরেল চলাচল বন্ধই রয়েছে।

বিস্তারিত আসছে…ৎ

 

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আইন-বিচার

ভোক্তা অধিদপ্তরের তৎপরতা চ্যালেঞ্জ করে আদালতে তনির রিট

Published

on

‘সানভীস বাই তনি’র স্বত্বাধিকারী ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান সিলগালা ও জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের তৎপরতা চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করেছেন প্রতিষ্ঠানটির মালিক রোবাইয়াত ফাতিমা তনি। রিটে সানবিসকে কোনো প্রকার নোটিশ না দিয়ে এবং শুনানি না করে ভোক্তা অধিকার হয়রানি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের হুমকি দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তনি। একই সঙ্গে ভোক্তা অধিকারের নামে শুধু টাকা দেয়ার রশিদ দিয়ে এবং কোনো প্রকার দালিলিক প্রমাণ না দিয়ে দুই লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে, যা অবৈধ ও বেআইনি বলে প্রতিকার চাওয়া হয়েছে রিটে।

হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই রিট আবেদন করা হয়েছে বলে শনিবার (২৫ মে) রিটকারীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট সৈয়দ খালেকুজ্জামান অরুন গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

রিট পিটিশন থেকে জানা গেছে, গত ১৪ মে সানবিসকে দুটি অপরাধের দায়ে ৫০ হাজার ও দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। লুবনা ইয়াসমিন নামের এক নারীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ইন্দ্রানী রায়। লুবনা ইয়াসমিন সানবিস থেকে একটি পোশাক কিনেছিলেন ৯ ফেব্রুয়ারি। এর ৫৩ দিন পর ৩ এপ্রিল ভোক্তা অধিদপ্তরে অভিযোগ করেন। পরে ১২ মে সানবিসের প্রধান শোরুমে অভিযান চালিয়ে সেটি সিলগালা করে দেন সহকারী পরিচালক জব্বার মন্ডল।

রিটে বলা হয়, ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৬০ ধারা অনুযায়ী অধিদপ্তরে অভিযোগ করতে হয় ঘটনার ৩০ দিনের মধ্যে। কিন্তু লুবনা ইয়াসমিন অভিযোগ করেছেন ৫৩ দিন পর। ফলে তিনি অভিযোগ আমলে নেওয়ার বৈধতা হারিয়েছেন। এই ৫৩ দিন তিনি ওই কাপড় ব্যবহার করে নষ্ট করেছেন কি না সেটিও নিশ্চিত নয় কেউ। কিন্তু এমন অবৈধ অভিযোগ আমলে নিয়ে ৪৫ ধরা মতে সর্বোচ্চ শাস্তি ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় সানবিসকে। এমন অবৈধ অভিযোগে সর্বোচ্চ শাস্তি প্রদান আইনের প্রয়োগকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে বলে মনে করছেন তনির পক্ষে রিটকারী সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সৈয়দ খালেকুজ্জামান অরুন।

অন্যদিকে মিথ্যা বিজ্ঞাপনের অভিযোগে ৪৪ ধারায় সানবিসকে দ্বিতীয় জরিমানা (দুই লাখ টাকা) করেন ঢাকা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল জব্বার মন্ডল। দ্বিতীয় জরিমানার টাকা আদায়ের রশিদে অভিযোগকারী হিসেবে রাজু নামের এক ব্যক্তিকে দেখানো হয়েছে। কিন্তু রাজু নামে কোনো ব্যক্তি সানবিসের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করেননি। এমনকি এই অভিযোগের বিষয়ে সানবিসকে কোনো নোটিশ দেয়া হয়নি বা শুনানিও হয়নি।

Advertisement

প্রসঙ্গত, লুবনা ইয়াসমিনের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সানবিসের মালিক তনিকে তলব করেন ইন্দ্রানী রানি। তিনি ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের কর্মকর্তা। কিন্তু সেই তলবের শুনানিতে অযাচিতভাবে হাজির হন ঢাকা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল জব্বার মন্ডল এবং ভুয়া অভিযোগকারীর নামে নোটিশ বা শুনানি ছাড়াই বেআইনিভাবে দুই লাখ টাকা জরিমানা করেন।

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত