Connect with us

সিলেট

আধিপত্য বিস্তার : সংঘর্ষে ৩ ভাইসহ ৫ জন নিহত

Avatar of author

Published

on

হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে পুর্বের বিরোধর জের।  তারপর কথা কাটাকাটি-ঝগড়া। শুরু সংঘর্ষ। পরে তা ছড়িয়ে পরে দুই গ্রামের মধ্যে। এ ঘটনায় প্রাণ হরালেন তিন ভাইসহ পাঁচজন। বৃহস্পতিবার ঘটনাস্থলে দুইজন মারা যান। পরে হাসপাতালে নেয়ার পথে ও চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও তিন জন মারা যান। এ ঘটনায় শতাধিক লোক আহত হয়েছে।

বানিয়াচং সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পলাশ রঞ্জন দে এ তথ্য জানিয়েছেন।

সংঘর্ষে নিহতরা হলেন, আগোয়া গ্রামের আব্দুল কাদির (২৫), সিরাজ মিয়া (৫০) লিলু মিয়া (৪০) তার ভাই জিলু মিয়া (৪২) ও আনু মিয়া। আহতদের নাম-পরিচয় তাৎক্ষনিকভাবে পাওয়া যায়নি।

পুলিশ সুপার পলাশ রঞ্জন দে জানান, উপজেলায় মন্দরী ইউনিয়নের আগোয়া গ্রামে ইউপি সদস্য সোহেল মিয়ার সঙ্গে পরাজিত ইউপি সদস্য প্রার্থী বদির মিয়ার মধ্যে পুর্বের বিরোধর জের ধরে বৃহস্পতিবার দুপুরে দুইজনের সমর্থক অটোরিকশাচালক আব্দুল কাদির ও স্ট্যান্ড ম্যানেজার বদির মিয়ার মধ্যে ঝগড়া হয়। এ ঘটনায় একপর্যায়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে দুইপক্ষ। এতে ঘটনাস্থলেই আব্দুল কাদির ও সিরাজ মিয়ার মৃত্যু হয়। আহত হয় আরও শতাধিক মানুষ। আহতদের উদ্ধার করে হবিগঞ্জ ২৫০ শয্যা আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে নেয়া হলে তাদের মধ্যে লিলু নামের আরো একজনকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। পরবর্তীতে সিলেটে নেয়ার পথে মৃত্যু হয় লিলুর ভাই জিলু মিয়া ও আনু মিয়ার ।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি।

Advertisement

স্থানীয়রা জানান, সংঘর্ষ চলাকালে উভয়পক্ষ দুই দিক থেকে দেশীয় অস্ত্র ও ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন। এ সময় সংঘর্ষকারীরা একে অন্যের বসতঘরও ভাঙচুর করেছে। ঘটনার পর থেকে গ্রেপ্তার আতঙ্কে এলাকা ছেড়ে পালিয়েছেন গ্রামের সামর্থ্যবান পুরুষরা।

জেএইচ

Advertisement

সিলেট

যুক্তরাজ্যে এবার চাষাবাদ হবে সিলেটের ধান

Published

on

চাষাবাদ

বছরের অধিকাংশ সময় তীব্র ঠান্ডা আবহাওয়া যেখানে বিরাজমান থাকে সেখানে ধান চাষাবাদ করা অসম্ভব এবং আশ্চর্যের বিষয়। এবার শীতল আবহাওয়ার দেশ বৃটেনের মাটিতে ধান চাষ করে এই অসম্ভবকে সম্ভব করে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশের সফল উদ্ভাবক ও উদ্যোক্তা। বৃটেনে ধান চাষের এই অবাক করা সংবাদটি ইতিমধ্যে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের গণমাধ্যমে সংবাদের শিরোনাম হয়েছে।

যুক্তরাজ্যে বসবাসরত বহুল আলোচিত ধান চাষের সফল উদ্যোক্তা হলেন আজম খান ও তার সহধর্মিণী সুলতানা চৌধুরী। এই দম্পতির বাড়ি সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলী ইউনিয়নের দড়ি কুচ্ছনপুর গ্রামে। মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়ার বিশিষ্ট জিনবিজ্ঞানী আবেদ চৌধুরী একটি নতুন জাতের ধান উদ্ভাবন করেছেন। নতুন আবিষ্কৃত ‘পঞ্চব্রীহি’ নামের এই ধানের মতোই নতুন জাতের ধান চাষ করে সাফল্যের মুখ দেখেন প্রবাসী উদ্যোক্তা আজম খান। বৃটেনের শীতল মাটিতে প্রথমবার আজম খান ও তার সহধর্মিণী সুলতানা চৌধুরী নতুন জাতের এই ধানের বীজ বপন করে সফলতার মুখ দেখেন।

আজম খান জানান, আমাকে বিশ্ববিখ্যাত জিনবিজ্ঞানী আবেদ চৌধুরী নতুন জাতের এই ধান বীজ দিয়েছিলেন। ধানের বীজ গুলো টবে আমি আমার সহধর্মিণীকে সঙ্গে নিয়ে প্রথম বার ২০২৩ সালের সাত জুলাই বৃটেনের প্রতিকুল  আবহাওয়ায় বীজ বপন করি, প্রায় তিন মাস নিবিড় পরিচর্যা করি  এবং শীতল আবহাওয়া আসলে চারা ধান গুলো গ্রীণ হাউজে সংরক্ষণে রাখি, শীতল আবহাওয়ায় ধানের চারা গুলো টিকে থাকার প্রায় সাত মাস পর চারা থেকে ধানের তুর আসে, এক পর্যায়ে একটি দু’টি  করে ধানের শীষ পাকতে শুরু করে, পাকা ধানের একটি ছরা কাটার পর অপর গুছিতে তুর আসে, আবার নিচ থেকেও ধানের শীষ গজিয়ে উঠে। তিনি আরও বলেন, আশ্চর্যের বিষয় মাত্র একটি ধানের বীজ থেকে ৯৬টি ধানগাছ হয়েছে, তবে এই ধানের জাত ‘পঞ্চব্রীহি’ নয়, এটি পঞ্চব্রীহির মতোই  বছরে কয়েক বার ফলন দিবে। বৃটেনের শীতল আবহাওয়ায় এই ধানের চাষ করা সম্ভব হবে বলে আজম খান জানান।

আবেদ চৌধুরী জানান, বর্তমান বৈশ্বিক আবহাওয়া পরিবর্তনের ফলে অনুকূল আবহাওয়া থাকায় বৃটেনের মাটিতেও ধান চাষাবাদ করা সম্ভব হবে এবং সারা বছর না হলেও নির্দিষ্ট মৌসুমে ধান চাষ হবে। এখন থেকে সিলেটিরা বৃটেনে খাদ্য উৎপাদন করবেন এটি ঐতিহাসিক একটি মহূর্ত, সিলেটিরা বৃটেনকে এই টেকনোলজি দিয়েছে, একটি দুটি ধানের ক্ষণা থেকে একদিন লক্ষ লক্ষ টন ধান উৎপাদন হবে এবং বৃটেনের খাদ্য নিরাপত্তায় বিরাট ভূমিকা রাখবে। নতুন এই জাতের ধানের বিষয় আবেদ চৌধুরী জানান, আজম খান যে ধান চাষ করেছেন এটি পঞ্চব্রিহি ধানের মতোই নতুন একটি জাত। এই ধান একবার রোপণ করলে আর মরবেনা জীবিত থাকবে এবং একবার কাটার পর আবার গুছা গজিয়ে ধানের ফলন দিবে।

 

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

জাতীয়

সিলেটে নতুন কূপে গ্যাসের সন্ধান, দৈনিক মিলবে ২১ মিলিয়ন ঘনফুট

Published

on

সিলেটের কৈলাশটিলা গ্যাস ফিল্ডের আরেকটি কূপ (কৈলাশটিলা-৮) খনন করে গ্যাস পাওয়া গেছে। ৩ হাজার ৪৩৮ থেকে ৩ হাজার ৪৪৭ মিটার গভীরতায় এই গ্যাসের সন্ধান পেয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিডেট (বাপেক্স)।

শুক্রবার (২৪ মে) বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ধারণা করা হচ্ছে, এই কূপ থেকে প্রতিদিন ২১ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে। আগামী তিন মাসের মধ্যে গ্যাস গ্যাদারিং পাইপলাইন নির্মাণ করে এই গ্যাস জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করবে সিলেট গ্যাস ফিল্ডস লিমিটেড (এসজিএফএল)।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, কৈলাশটিলা-৮ কূপে নতুন গ্যাস স্তর ‘হরাইজোন-৪’ এ এই গ্যাসের সন্ধান পাওয়া গেছে। কূপটিতে ২৫ হাজার ৪০ বিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের মজুত রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে, যার বাজার মূল্য প্রায় ১ হাজার ৬২০ কোটি টাকা।

প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের মূল্য ২২ টাকা ৮৭ পয়সা হিসাব ধরে এই বাজার মূল্য জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়। তবে পুরো কৈলাশটিলা স্ট্রাকচারে ১ হাজার ৯০০ বিলিয়ন ঘনফুট উত্তোলনযোগ্য গ্যাসের মজুত রয়েছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

Advertisement

প্রতিবেদনে জানানো হয়, নতুন এই কূপটি খনন করতে ‘বিজয়-১২’ রিগ ব্যবহার করেছে বাপেক্স। চলতি বছরের ১১ জানুয়ারি এর খনন কাজ শুরু হয়। প্রায় সাড়ে চার মাস খনন কার্যক্রম শেষে এই কূপে গ্যাসের সন্ধান পেলো রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানিটি।

প্রসঙ্গত, স্বাধীনতার আগে ১৯৬২ সালে কৈলাশটিলা গ্যাসক্ষেত্রটি আবিষ্কৃত হয়। এরপর ১৯৮৩ সালে সেখান থেকে গ্যাস উত্তোলন শুরু হয়। এই পুরো ক্ষেত্রটিতে বর্তমানে সাতটি গ্যাসকূপ রয়েছে। যেগুলো থেকে জাতীয় গ্রিডে দৈনিক ২৮ মিলিয়ন ঘনফুট হারে গ্যাস উত্তোলন করছে পেট্রোবাংলা।

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সিলেট

উপহারের মোবাইল ফিরিয়ে নেয়ায় প্রেমিকার আত্মহত্যা

Published

on

আত্মহত্যা

সুনামগঞ্জে প্রেমিকের  দেয়া মোবাইল ফোন ফিরিয়ে নেয়ায় শামিমা আক্তার (১৭) নামে এক কিশোরী আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ওই প্রেমিক দুই সন্তানের জনক, তাঁর সাথে প্রেমিকার বিয়ের কথা চলছিল।

গেলো সোমবার (২০ মে)সন্ধ্যায়  ছাতক উপজেলার চরচৌড়াই (আশাকাচর) গ্রামে প্রেমিকার নিজ বাড়িতে ঘটনাটি ঘটে বলে গণয়ামধ্যমকে জানিয়েছেন ছাতক থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. জাহাঙ্গীর আলম।

স্থানীয়রা জানান, চরচৌড়াই গ্রামের দুই সন্তানের পিতা ইউনুস আলীর সঙ্গে শামীমার দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। একপর্যায়ে ইউনুস তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। এই প্রস্তাবে মেয়ের পরিবার তাঁদের মেয়ে সবসময় বাবার পরিবারে থাকবে এই শর্তে রাজী হয়। কিন্তু এই শর্তে ইউনুস তাকে বিয়ে করতে রাজি না হয়ে তার দেওয়া মোবাইলটি ঘটনাটির দিন দুপুরে ফিরিয়ে নেয়। হতাশা ও কষ্টে  ওই প্রেমিকা আত্মহত্যা করে।

প্রসঙ্গত, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

আই/এ

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত