Connect with us

টুকিটাকি

‘শয়তানের নিঃশ্বাস’ নামের যে ড্রাগ বাংলাদেশে অভিনব প্রতারণায় ব্যবহার হচ্ছে

Avatar of author

Published

on

ঢাকার তাহমিনা বেগম (ছদ্মনাম) কিছুদিন আগে ‘অদ্ভূত’ এক ঘটনার মুখোমুখি হয়েছিলেন। বাজার থেকে বাড়িতে ফেরার সময় হঠাৎ তার পথ আগলে দাঁড়িয়েছিলেন অপরিচিত এক নারী। তার প্রায় গা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে সেই নারী জানতে চান কোনো একটি ঠিকানা।

এরপরই সামনে আসে আরেক যুবক। মাত্র দুই/তিন মিনিট কথার পরই কী যেন হয়ে যায় তাহমিনার।

তাহমিনা বলছিলেন, ‘ব্যাপারটা অদ্ভূত এবং ভয়ংকর। লোকটা আমার কাছে জানতে চায় এলাকায় পরিচিত কোনো গরীব কিংবা এতিম কেউ আছে কি না। সে তাকে সাহায্য করবে। এরকম একটা গরীব পরিবার ছিল আমার বাড়ির কাছে। তাই আমি বিস্তারিত জানতে চাই। ওদের সঙ্গে কথা বলি কয়েক মিনিট। এরপরই কী যেন হয়ে গেলো, আমার আর বুদ্ধি কাজ করছিলো না।’

একপর্যায়ে তাহমিনা বেগম অপরিচিত ঐ নারী ও যুবকের কথা মতো তার কানের দুল, গলার চেইন এবং সঙ্গে থাকা কয়েকহাজার নগদ টাকা তুলে দেন।

তাহমিনা বলেন, ‘ওরা বললো আন্টি আপনার গয়না আর টাকাগুলো ব্যাগে রাখেন। নইলে হারিয়ে যেতে পারে। আমি ঠিক সেটাই করলাম। আমার মাথায় আসলো না যে কেন আমি এগুলো খুলবো, কেন হারিয়ে যাবে বা কেন ব্যাগে রাখবো? তারপর ছেলেটা বললো আমার সঙ্গে আসেন। আমি তখন ব্যাগটা মেয়েটার কাছে দিয়ে ছেলেটার পেছনে হাঁটতে শুরু করি।

Advertisement

কিছুদূর হাঁটার পরই তাহমিনা বেগমের সম্বিত ফিরে আসে। কিন্তু তখন ছেলেটাকে আর দেখতে পাচ্ছিলেন না তিনি। ফেরত এসে মেয়েটাকেও আর পাননি। সেদিনের সেই ঘটনায় তার সোয়া ভরি স্বর্ণের চেইন, কানের দুল, নগদ টাকা এবং মোবাইল খুইয়ে আসেন তিনি।

‘আমি এখনও বুঝতে পারি না কীভাবে কী হয়ে গেলো। ওরা আমাকে কিছুই করেনি। শুধু কাছাকাছি ছিল এবং মেয়েটা মুখের সামনে হাত নেড়ে একটা ঠিকানা জিজ্ঞেস করেছিলো।’

তাহমিনা বেগম যে তিক্ত অভিজ্ঞতার মুখোমুখি বাংলাদেশে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে অনেকেই এমন ঘটনার শিকার হচ্ছেন। এর পেছনে কারণ হিসেবে উঠে আসছে স্কোপোলামিন নামে একটি ড্রাগের কথা।

বলা হচ্ছে, এটা তরল কিংবা পাউডার দুই ধরনেই পাওয়া যায়। অপরাধের ক্ষেত্রে এই ড্রাগ কাগজ, কাপড়, হাত এমনকি মোবাইলের স্ক্রিনে লাগিয়েও এর ঘ্রাণ দিয়ে কিছু সময়ের জন্যযে কারো মানসিক নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়া সম্ভব।

কিন্তু বাস্তবে আসলেই কি এমন কোনো ড্রাগ আছে? আর থাকলেও এটা বাংলাদেশে ব্যবহার হচ্ছে কি না সেটাই বা কতটা নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে?

Advertisement

বাংলাদেশে স্কোপোলামিন ব্যবহারের প্রমাণ কী?

বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জে ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বরে একটি বেসরকারি বিশ্ববদ্যিালয়ের শিক্ষক হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। সেই হত্যার ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ একজনকে গ্রেপ্তার করেছিলো। পরে আরো একজনকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করে।

এদের মধ্যে একজনের কাছে প্রথমবারের মতো স্কোপোলামিন পাওয়ার কথা জানায় পুলিশ।

বোতলের ভেতর সাদা পাউডার আকারে কয়েক গ্রাম স্কোপোলামিনসহ আরো কয়েক ধরনের মাদক জব্দ করা হয়।

পরে আদালতের আদেশ নিয়ে সিআইডি’র ল্যাবে টেস্ট করার পর সেখানে স্কোপোলামিন শনাক্ত হয়।

Advertisement

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল বিবিসি বাংলাকে বলেন, শুরুতে এই স্কোপোলামিন সম্পর্কে কোনো ধারণা ছিল না তাদের।

‘রাসায়নিক পরীক্ষার যে রিপোর্টটা আমরা পেয়েছি সেই রিপোর্টে কিন্তু স্কোপোলামিন, পটাশিয়াম সায়ানাইড ও ক্লোরোফর্ম শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে স্কোপোলামিন ছিল আমাদের কাছে একেবারেই নতুন। এই নাম, এর ব্যবহার, কোন কোন ক্ষেত্রে এটা কাজে লাগানো হতে পারে সেটা আমরা জানতাম না। পরে এটা নিয়ে স্টাডি করে আমরা জানতে পারি যে, এটাকে আসলে ‘ডেভিলস ব্রেথ’ বা ‘শয়তানের নিঃশ্বাস’ বলে অনেকে।’

মি. মোস্তফা জানান, তারা এখনও পর্যন্ত তদন্তে যেটা পেয়েছেন সেটা হচ্ছে এই ড্রাগ কুরিয়ারের মাধ্যমে এবং বিভিন্নভাবে চোরাকারবারিরা দেশে আনছে।

ধুতরার ফুল থেকে স্কোপোলামিন বানায় কারা?

স্কোপোলামিন মূলত একটি সিনথেটিক ড্রাগ। চিকিৎসা বিজ্ঞানে ওষুধ তৈরিতে এর ব্যবহার আছে। বমি বমি ভাব, মোশন সিকনেস এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে অপারেশন পরবর্তী রোগীর জন্য ওষুধে এর ব্যবহার আছে।

Advertisement

তবে এটা প্রাকৃতিক কোনো উপাদান নয়। বরং প্রাকৃতিক উপাদানের সঙ্গে আরো কিছু যোগ করে কৃত্রিমভাবে স্কোপোলামিন তৈরি করা হয়। এটা তরল এবং পাউডার দুই রূপেই পাওয়া যায়।

তবে এর গুরুত্বপূর্ণ বা মূল উপাদান আসে ধুতরা ফল থেকে।

‘আমাদের দেশে একসময় মানুষকে পাগল করে দেয়ার জন্য দুধের মধ্যে ধুতরা বেটে খাইয়ে দেয়া হতো। ধুতরা ফুল কিন্তু একটা বিষ। ঐ ধুতরা থেকে উপাদান নিয়ে সিনথেটিক্যালি এটা বানানো হয়েছে। মেক্সিকোর যে মাদক চক্র আছে, তারা এই মাদকটা বানিয়ে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিচ্ছে,’ বলছিলেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রধান রাসায়নিক পরীক্ষক ড. দুলাল কৃষ্ণ সাহা।

স্কোপোলামিন কখন, কীভাবে কাজ করে?

স্কোপোলামিন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় গোয়েন্দা সংস্থাগুলোতে ব্যবহারের নজির আছে। তখন এর ব্যবহার হতো লিকুইড হিসেবে, ইনজেকশনের মাধ্যমে।

Advertisement

বাংলাদেশের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. সায়েদুর রহমান বলেন, ওষুধ হিসেবে স্কোপোলামিনের ব্যবহার এখনও আছে।

‘এটা এবং এর মতো আরো বেশ কিছু ওষুধ চিকিৎসা বিজ্ঞানে ব্যবহার করা হয়। এটা সত্য। স্কোপোলামিন প্রথম দিকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় গোয়েন্দা জ্ঞিাসাবাদের ক্ষেত্রে ‘ট্রুথ সেরাম’ হিসেবে ব্যবহার করা হতো। অর্থাৎ এটা যদি ইনজেক্ট করে দেয়া হয় তাহলে সে সত্য কথা বলতে শুরু করে। কারণ তার মগজের উপর নিজস্ব যে নিয়ন্ত্রণ সেটা চলে যায়। সে তখন অন্যের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়, অন্যের কথা শুনতে থাকে।’

‘যখন আপনি কথা বলানোর জন্য ব্যবহার করছেন তখন এটা ট্রুথ সেরাম। যখন আপনি পাউডার ফর্মে নিঃশ্বাসের জন্য ব্যবহার করছেন তখন এটা ‘ডেভিলস ব্রেথ’। আর যখন এটা বমি অথবা মোশন সিকনেসের ক্ষেত্রে ব্যবহার করছেন তখন এটা আসলে মেডিসিন হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে,” বলছিলেন মি. রহমান।

স্কোপোলামিন মূলত পাউডার হিসেবে প্রতারণার কাজে ব্যবহার হচ্ছে। ভিজিটিং কার্ড, কাগজ, কাপড় কিংবা মোবাইলের স্ক্রিনে এটি লাগিয়ে কৌশলে টার্গেট করা ব্যক্তিদের নিঃশ্বাসের কাছাকাছি আনা হয়।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রধান রাসায়নিক পরীক্ষক ড. দুলাল কৃষ্ণ সাহা বলছিলেন, স্কোপোলামিন মানুষের নাকের চার থেকে ছয় ইঞ্চি কাছাকাছি আসলেই নিঃশ্বাসের আওতায় আসে।

Advertisement

‘এটা নিঃশ্বাসের সঙ্গে ঢুকলেই মাত্র ১০ মিনিট বা তারও আগে প্রভাব ফেলতে শুরু করে। মেমোরি আর ব্রেন তখন সচেতনভাবে কাজ করতে পারে না। কারো ক্ষেত্রে স্বাভাবিক হতে এক ঘণ্টা লাগে। আবার কেউ তিন/চার ঘণ্টার মধ্যেও স্বাভাবিক হতে পারে না।’

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কী করছে?

বাংলাদেশে শুরুতে ঢাকায় পাওয়া গেলেও পরে স্কোপোলামিন ব্যবহার করে প্রতারণার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে ঢাকার বাইরের জেলাগুলোতেও।

যদিও এমন ঘটনার নির্দিষ্ট কোনো পরিসংখ্যান নেই পুলিশের কাছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে কীভাবে মাদক কারবারীরা স্কোপোলামিন আনছে সেটিও একটা বড় প্রশ্ন।

নারায়ণগঞ্জের ঘটনার পর গোয়েন্দারা তথ্য পান স্কোপোলামিন অনলাইনে বিক্রি হচ্ছে। মূলত যে দু’জন আটক হয় তারা অনলাইনে বিক্রির সঙ্গেই জড়িত বলে জানাচ্ছে পুলিশ। আর এগুলো আসছে মূলত দেশের বাইরে থেকে।

Advertisement

এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার হচ্ছে কুরিয়ার সার্ভিস। তবে ওষুধের কাঁচামাল হিসেবেও আইনের ফাঁক গলিয়ে কেউ স্কোপোলামিন আনছে কি না সেটাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানাচ্ছেন পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা।

জানতে চাইলে পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি ইনামুল হক সাগর বিবিসি বাংলাকে বলেন, যারা এমন অপরাধের সঙ্গে যুক্ত তাদের গ্রেপ্তারে কাজ করা হচ্ছে।

‘আমরা ইতোমধ্যেই কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছি। নারায়ণগঞ্জেও এর আগে গ্রেপ্তার হয়েছে। তাদের কাছে যে তথ্য পেয়েছি, সেগুলো আমরা বিশ্লেষণ করছি। তাদের সঙ্গে আরো কারা জড়িত সেগুলো বের করা এবং আইনের আওতায় আনার জন্য চেষ্টা চলছে।’

তবে এর মধ্যেও স্কোপোলামিন ব্যবহার করে প্রতারণার অভিযোগ আসছে, যেখানে সর্বস্বান্ত হচ্ছেন অনেকেই। ভয়ের জায়গা এটাই।

(এটি বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন)

Advertisement

জেএইচ

Advertisement

টুকিটাকি

শাশুড়ির প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছে জামাই, যা করলেন শ্বশুর  

Published

on

বিয়ে

বউ মারা যেতেই শাশুড়ির প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছে জামাই। শাশুড়ি-জামাইয়ের রাসলীলা দেখে তাজ্জব গোটা দেশ। শাশুড়িকে ভালোবেসে দুনিয়া উজাড় করে দিতেও রাজি তিনি। ওদিকে জামাইয়ের ডাক ফেরাতে পারেননি শাশুড়িও। ঘটনা শুনলেই কানে হাত চাপা দিচ্ছেন আম জনতা। নাহ্, কোনও সিনেমা নয়। বাস্তবেই ঘটেছে এমন চক্ষু চড়কগাছ করা ঘটনা। যেখানে খোদ শ্বশুর নিজের স্ত্রীকে তুলে দিলেন জামাইয়ের হাতে।

এ এক ‘আজব প্রেম কী গজব কাহিনী’। তবে রণবীর কাপুরের সিনেমা নয়। অবাক করা এই ঘটনাটি ঘটেছে বাস্তবেই। স্ত্রীর মৃত্যুর পর শাশুড়িকেই জীবন সঙ্গীনী হিসেবে বেছে নিয়েছেন জামাই। প্রৌঢ়াও যে বিশেষ আপত্তি করেছেন তা নয়। স্বামী, সংসার ছেড়ে জামাইয়ের মধ্যেই খুঁজে নিয়েছেন সমস্ত সুখ। তবে সবচেয়ে মজার করা বিষয় হল, শ্বশুরবাড়ির লোকেরাই জামাইয়ের সঙ্গে শাশুড়ির বিয়ে দিয়েছেন। ইতোমধ্যেই হয়ে গেছে রেজিস্ট্রিও। জানেন কোথায় ঘটেছে এমন চরম লজ্জাজনক ঘটনা?

ভারতের বিহারের হিরামতি গ্রামের ঘটনা এটি। গ্রামের বাসিন্দা দিলেশ্বর দারভের মেয়ের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছিলেন কাটোরিয়া থানা এলাকার ধোবনি গ্রামের বাসিন্দা সিকন্দর যাদব। বছর দুয়েক আগেই মৃত্যু হয় সিকন্দরের স্ত্রীর। তারপর থেকেই চরম একাকিত্ব গ্রাস করেছিল তাকে। মন হালকা করতে শ্বশুরবাড়িতে জামাইযের যাতায়াত লেগেই ছিল। আর সেখান থেকেই ঘটনার সূত্রপাত।

শাশুড়ি জামাই একসাথে সময় কাটাতে কাটাতে কখন যে তারা একে অপরকে মন দিয়ে বসেছেন তা কাকপক্ষীও টের পায়নি। দুজনের মধ্যে সম্পর্ক এতটাই গভীর হয়ে যায় যে, গোপনে রেজিস্ট্রিও সেরে ফেলেন তারা। বেশ ভালোই চলছিল শাশুড়ি-জামাইয়ের রঙ্গলীলা। তবে তাদের মাখামাখি দেখে সন্দেহ জাগে শ্বশুর দিলেশ্বর দারভের মনে। সম্পর্ক যখন মাখো মাখো পর্যায়ে, সেই সময়ই তাদের হাতে নাতে ধরেও ফেলেন দিলেশ্বর। ব্যাস, আর কী! মুহুর্তের মধ্যে গোটা গ্রাম জানাজানি হয়ে গেল।

ওদিকে দিলেশ্বরও দিলদরিয়া মানুষ। স্ত্রী-জামাইকে ঘনিষ্ঠ অবস্থায় দেখেও বিশেষ রাগ করেননি তিনি। বরং পঞ্চায়েত ডেকে তাদের সম্পর্ককে একটা পরিণতি দেওয়াকেই শ্রেয় মনে করেছেন এই শ্বশুরমশাই। আর এমন একটা সুযোগ পেয়ে তা হাতছাড়া করতে চাননি সিকন্দরও। সকলের সামনেই শাশুড়ি প্রতি প্রেম জাহির করেন এই জামাই। সম্পর্কের কথা অস্বীকার করেননি শাশুড়ি গীতাও।

Advertisement

এরপর পঞ্চায়েতের সামনেই গীতার সিঁথিতে সিঁদুর পরিয়ে তাকে স্ত্রী হিসেবে গ্রহণ করেন সিকন্দর। ওদিকে দায়িত্ব নিয়ে জামাইয়ের হাতে নিজের স্ত্রীকে তুলে দেন দিলেশ্বর। প্রাক্তন স্ত্রীর কন্যাদানও করেন তিনিই। ইতোমধ্যেই তুমুল ভাইরাল হয়েছে এই অদ্ভুত বিয়ের ভিডিও। কেউ ব্যাঙ্গ করছেন তো কেউ আবার সিকন্দরের দুই সন্তানের জন্য দুঃখ প্রকাশ করছেন। এই বিয়ে নিয়ে আপনার মতামত জানাতে ভুলবেন না কিন্তু।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

টুকিটাকি

৩৫ নারীর সঙ্গে স্বামীর অন্তরঙ্গ সম্পর্কেও নেই আক্ষেপ

Published

on

হানি-ব্রুকস

দাম্পত্য জীবনে সুখী হওয়ার উপায় খুঁজে বেড়ায় না এমন দম্পতি পাওয়া ভার। সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার বাসিন্দা এক মহিলা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানালেন সুখী দাম্পত্য লাভের আজব উপায়।

তরুণীর দাবি, বিগত কয়েক বছরে তিনি ৩৫ জন অন্য মহিলার সঙ্গে নিজের স্বামীকে ভাগ করে নিয়েছেন, আর সেই কারণেই নাকি তার বিবাহিত জীবন এতটা সুখের হয়েছে।

ইনস্টাগ্রামে হানি ব্রুকস নামে ওই তরুণীর দাবি, স্বামীর ইচ্ছায় নয় বরং তার ইচ্ছাতেই তাদের শোয়ার ঘরে অন্য মহিলারা প্রবেশ করেছেন। স্বামীর সঙ্গে এক ঘরে অন্য মহিলাকেও দেখতে তার নাকি কোনও সমস্যা হয় না।

হানি বলেন, ‘‘আমাদের বিয়ের পরে অনেকেই বলতেন, আমাদের বিয়ে নাকি খুব বেশি দিন টিকবে না। আমদের দেখে নাকি সুখী মনে হয় না। এই ধারণাগুলি শুনতে আমার বিরক্ত লাগত। আমি ‘ওপেন ম্যারেজ’-এর ধারণায় বিশ্বাসী। বর আমার পাশাপাশি অন্য মহিলার সঙ্গেও শারীরিক সম্পর্ক রাখতেই পারে, শুধু সে বিষয়ে আমার জানা থাকলেই হল।’’

হানি মনে করেন, ‘ওপেন ম্যারেজ’-এর ধারণাই তাদের সম্পর্ককে টিকিয়ে রেখেছে। তিনি বলেন, ‘‘আমার এই প্রস্তাবে প্রথম থেকেই আমার বর রাজি ছিলেন। আমরা মনে করি, সুখে থাকাটাই আসল ব্যাপার। সম্পর্কে একে অপরকে না ঠকালেই হল।’’

Advertisement

হানি পেশায় একজন সমাজমাধ্যম প্রভাবী। তার এই ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পরে তাকে অনেক কটাক্ষের সম্মুখীন হতে হয়েছে। কেউ বলেছেন, ‘‘তুমি তোমার স্বামীকে সুখ দিতে পারো না বলেই এই পথ বেছে নিয়েছ।’’ কেউ আবার বলেছেন, ‘‘আমার সঙ্গীতে অন্য কারও সঙ্গে ভাগ করে নেয়ার কথা স্বপ্নেও ভাবতে পারব না।’’
অনেকেই আবার হানির সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেছেন। এক জন লিখেছেন, ‘‘এটা তোমার জীবন, তুমি কী ভাবে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখবে, তা একান্তই তোমার উপর।’’

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

টুকিটাকি

চলন্ত বাইকেই রোম্যান্সে মত্ত প্রেমিক-প্রেমিকা!

Published

on

একালে নাগরিক সচেতনতা তথা ‘স্থান-কাল-পাত্রে’র অস্তিত্ব কি সংকটে? এই প্রশ্ন তুলে দিলো একটি ভাইরাল ভিডিও। চারপাশ দিয়ে ছুটে চলেছে অজস্র গাড়ি। তারই মাঝে বাইক চালাচ্ছেন এক যুবক। আর তার সামনে বসে রয়েছেন প্রেমিকা। বাইকের পেছনে নয়, সামনের ট্যাঙ্কে প্রেমিককে জড়িয়ে বসে রয়েছেন তরুণী। আর এভাবেই রোম্যান্সে মত্ত হয়ে জাতীয় সড়ক দিয়ে বাইকে চলেছেন এক যুগল। নেটদুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে সেই ভিডিও। যেখানে দেখা গেলো চলন্ত বাইকেই চুটিয়ে রোম্যান্সে মত্ত প্রেমিক-প্রেমিকা! সোশাল মিডিয়ায় যুগলের ভিডিও ভাইরাল হয়। বিপজ্জনকভাবে বাইক চালানোয় কড়া ব্যবস্থা নিলো পুলিশ।

পুলিশ জানায়, ভারতের ছত্তিশগড়ের জাশপুরে হাইওয়েতে দেখা গেছে ওই যুগলকে। একটি কেটিএম বাইকের সামনে দিকে তেলের ট্যাঙ্কে প্রেমিককে জড়িয়ে বসেছিলেন তরুণী। যুবকের মাথায় হেলমেট থাকলেও তরুণীর মাথায় ছিল না। যদিও বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি বিপজ্জনক ওই রোম্যান্টিক স্টান্ট। খোদ জশপুরের এসপি শশী মোহন সিংয়ের চোখে পড়ে যায় এই ঘটনা। ওই সময় ওই রাস্তায় নিজের গাড়িতে ছিলেন তিনি। গাড়ি থেকে তরুণ-তরুণীর কেরামতি ভিডিও করেন। পরে তাদের থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

এসপি শশী মোহন সিং বলেন, কুঙ্কুরি থেকে যশপুর যাওয়ার পথে যুগলকে বিপজ্জনক স্টান্ট করতে দেখি। তাঁদের থামাই এবং জিজ্ঞাসাবাদ করি। ওঁরা আমাদের জানায় যে মায়ালি বাঁধ দেখতে এসেছিল। আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি।

পুলিশ জানায়, অভিযুক্ত যুবকের নাম বিনয়। ট্রাফিক আইনে ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে তাকে।

অন্যদিকে ভিডিও ভাইরাল হতেই যুগলের নিন্দায় সরব হয়েছে নেটিজেনরা। অনেকেই হেলমেট না পরার জন্যও সমালোচনা করেছেন।

Advertisement


জেএইচ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত