Connect with us

রংপুর

ধর্ষণের শিকার মানসিক ভারসাম্যহীন নারী, গ্রেপ্তার ১

Avatar of author

Published

on

ভারসাম্যহীন

পঞ্চগড়ে এক মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে (৫০) ধর্ষণের অভিযোগে মোজাম্মেল হক (৫৫) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে সদর থানা পুলিশ।

শনিবার (১১মে) দিবাগত রাতে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতাল চত্বর এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। পরে ধর্ষণের শিকার ওই নারীর চিৎকারে আশপাশে থাকা এ্যাম্বুলেন্স চালকেরা এগিয়ে গিয়ে মোজাম্মেল হক নামের ওই ব্যাক্তিকে আটক করে পঞ্চগড় সদর থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

এদিকে রোববার (১২ মে) বিকেলে এ ঘটনায় পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের সেচ্ছাসেবী কর্মী খোকন বাদী হয়ে পঞ্চগড় সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। পরে বিকেলেই অভিযুক্ত মোজাম্মেলকে আদালতে তোলা হলে তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করেন আদালত। ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া মোজাম্মেল হকের বাড়ি নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার দক্ষিণ আমবাড়ি এলাকায়। তিনি ওই এলাকার আফসার আলীর ছেলে।

পুলিশ জানায়, ওই মানসিক ভারসাম্যহীন নারী তার পরিচয় বলতে পারছে না। একটি দুর্ঘটনায় তার পা ভেঙে গেলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করায় কিছু স্বেচ্ছাসেবী। প্রায় দেড় মাস ধরে তিনি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। ভর্তি থাকলেও কখনো হাসপাতালের বারান্দায় আবার কখনো হাসপাতাল চত্বরে ওই নারীকে দেখা যেত। পরে শনিবার (১১ মে) দিবাগত রাত ৩ টায় হাসপাতালের সামনের এ্যাম্বুলেন্স শেডের পাশে ওই নারী শুয়ে ঘুমাচ্ছিলেন। সুযোগ বুঝে মোজাম্মেল হক তাকে জোর করে ধর্ষণ করে। পরে ওই নারীর চিৎকারে আশপাশে থাকা এ্যাম্বুলেন্স চালকরা এসে তাকে হাতেনাতে আটক করে পঞ্চগড় সদর থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়। ধর্ষণে অভিযুক্ত মোজাম্মেল গেলো শুক্রবার (১০ মে) শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন।

পঞ্চগড় সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রঞ্জু আহম্মেদ বলেন, একজন মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে আমরা মোজাম্মেল হক নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছি। থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। ওই নারীকে হাসপাতালেই চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।  তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার কাজ চলছে।

Advertisement

কেএস/

Advertisement

রংপুর

সৈয়দপুর বিমানবন্দরে বিমান চলাচল স্বাভাবিক

Published

on

সৈয়দপুর-বিমানবন্দর

ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে নীলফামারীর সৈয়দপুর বিমানবন্দরে বিমান চলাচল বন্ধ থাকার পর আজ সকালে ফের বিমান চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৮ মে) সকাল থেকে সৈয়দপুর বিমানবন্দরে বিমান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সৈয়দপুর বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক সুপ্লব কুমার ঘোষ।

তিনি বলেন, সোমবার দুপুর ২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত ৫টি ফ্লাইট বাতিল করে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। বাতিল হওয়া ফ্লাইটগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ বিমানের একটি, ইউএস-বাংলার একটি ও নভোএয়ারের একটি করে আরও তিনটি ফ্লাইট রয়েছে। তবে আজ আবহাওয়া ভালো থাকায় সকাল থেকে বিমান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

রংপুর

‘স্বর্ণের খোঁজ মেলা’ সেই ইটভাটায় ১৪৪ ধারা জারি

Published

on

ইটভাটা

গেলো কয়েক দিন ধরে ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার বাচোর ইউনিয়নের কাতিহার গ্রামে আরবিবি ইটভাটায় স্বর্ণের খোঁজে জেলার কয়েক হাজার মানুষ দিনরাত মাটি খুঁড়ছিলেন। প্রশাসন নিরাপত্তা ঝুঁকি চিন্তা করে সেই ইটভাটায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে।

শনিবার (২৫ মে) সন্ধ্যায় রাণীশংকৈল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রকিবুল হাসান এক বিজ্ঞপ্তি জারি করে এ তথ্য জানান। ওই দিন রাত সাড়ে ১০টা থেকে তা কার্যকর হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রাণীশংকৈল থানার ৫ নম্বর বাচোর ইউনিয়নের অন্তর্গত কাতিহার বাজারের উত্তর পার্শ্বে রাজোর গ্রামে মো. রুহুল আমিনের মালিকানাধীন আরবিবি ইটভাটায় মাটির স্তূপ খুঁড়ে সোনা পাওয়া যাচ্ছে। এমন খবরে স্থানীয় লোকজনসহ আশপাশের বিভিন্ন জায়গার অসংখ্য মানুষ বেশ কিছুদিন ধরে খুন্তি, কোদাল ইত্যাদি দিয়ে মাটি খোঁড়াখুঁড়ি শুরু করে। প্রতিদিন সেই স্থানে তারা স্বর্ণের সন্ধান করছে। ফলে আগ্রাসী লোকজন স্বর্ণ পাওয়ার আশায় ঝগড়া-বিবাদ, কলহ ও দ্বন্দ্বে লিপ্ত হচ্ছে।

এতে আরও উল্লেখ করা হয়, প্রতিদিন জনগণ মাটি খুঁড়ে স্বর্ণের সন্ধান করতে থাকলে যেকোনো সময় ঘটনাস্থলে মারামারি, খুন, জখমসহ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই জেলা প্রশাসকের নির্দেশে সেই স্থানে আইনশৃঙ্খলার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ইটভাটা এলাকা ও এর আশপাশে ফৌজদারি কার্যবিধি ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, কাতিহার সামুরাই মন্দিরের পাশ থেকে মাটি খনন করে ইটভাটায় স্তূপ করা হয়েছে। গুজব উঠেছে ওই মাটির স্তূপ থেকে স্বর্ণের জিনিস পাওয়া গেছে। এরপর থেকেই সাধারণ মানুষ দিনরাত ওই মাটির স্তূপ খনন করে বাছাই শুরু করেছে। তবে কেউ স্বর্ণের কোনো অংশ পেয়েছে, এমন খবর পাওয়া যায়নি।

Advertisement

কেএস/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

রংপুর

বিদ্যুৎস্পৃষ্ট বড় ভাইকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ গেল ছোট ভাইয়েরও

Published

on

ঠাকুরগাঁও

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। মৃত দুই ভাইয়ের নাম তমিজ উদ্দিন (৫০) ও রবিউল ইসলাম (৪৫)।

শুক্রবার (২৫ মে) রাতে উপজেলার ভানোর ইউনিয়নের বর্মতোল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বালিয়াডাঙ্গী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ কবির বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

ভানোর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম বলেন, দিনভর ভুট্টা ভাঙার কাজ শেষে রাতে নিজ বাড়িতে তমিজ উদ্দিন ফ্যানের বৈদ্যুতিক তারের লিকেজ পলিথিন দিয়ে ঠিক করছিলেন। এ সময় তিনি বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। তাকে বাঁচাতে গিয়ে ছোট ভাই রবিউল ইসলামও বিদ্যুতায়িত হয়ে ঘটনাস্থলে মারা যান।

ভানোর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম মামুন বলেন, ৫ ভাইয়ের মধ্যে এক ভাই তিন বছর আগে মারা গেছেন। দুই ভাই ঢাকায় চাকরি করেন ও দুই ভাই এলাকায় কৃষিকাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। মারা যাওয়া দুই ভাইয়ের সাত সন্তান থাকলেও সবাই নাবালক। দুই ভাইয়ের মর্মান্তিক মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

ওসি ফিরোজ কবির বলেন, অপমৃত্যুর ডায়রি হয়েছে। এভাবে মৃত্যু অত্যন্ত দুঃখজনক। সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছি।

Advertisement

 

এসি//

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত