Connect with us

টুকিটাকি

চলন্ত বাইকেই রোম্যান্সে মত্ত প্রেমিক-প্রেমিকা!

Published

on

একালে নাগরিক সচেতনতা তথা ‘স্থান-কাল-পাত্রে’র অস্তিত্ব কি সংকটে? এই প্রশ্ন তুলে দিলো একটি ভাইরাল ভিডিও। চারপাশ দিয়ে ছুটে চলেছে অজস্র গাড়ি। তারই মাঝে বাইক চালাচ্ছেন এক যুবক। আর তার সামনে বসে রয়েছেন প্রেমিকা। বাইকের পেছনে নয়, সামনের ট্যাঙ্কে প্রেমিককে জড়িয়ে বসে রয়েছেন তরুণী। আর এভাবেই রোম্যান্সে মত্ত হয়ে জাতীয় সড়ক দিয়ে বাইকে চলেছেন এক যুগল। নেটদুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে সেই ভিডিও। যেখানে দেখা গেলো চলন্ত বাইকেই চুটিয়ে রোম্যান্সে মত্ত প্রেমিক-প্রেমিকা! সোশাল মিডিয়ায় যুগলের ভিডিও ভাইরাল হয়। বিপজ্জনকভাবে বাইক চালানোয় কড়া ব্যবস্থা নিলো পুলিশ।

পুলিশ জানায়, ভারতের ছত্তিশগড়ের জাশপুরে হাইওয়েতে দেখা গেছে ওই যুগলকে। একটি কেটিএম বাইকের সামনে দিকে তেলের ট্যাঙ্কে প্রেমিককে জড়িয়ে বসেছিলেন তরুণী। যুবকের মাথায় হেলমেট থাকলেও তরুণীর মাথায় ছিল না। যদিও বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি বিপজ্জনক ওই রোম্যান্টিক স্টান্ট। খোদ জশপুরের এসপি শশী মোহন সিংয়ের চোখে পড়ে যায় এই ঘটনা। ওই সময় ওই রাস্তায় নিজের গাড়িতে ছিলেন তিনি। গাড়ি থেকে তরুণ-তরুণীর কেরামতি ভিডিও করেন। পরে তাদের থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

এসপি শশী মোহন সিং বলেন, কুঙ্কুরি থেকে যশপুর যাওয়ার পথে যুগলকে বিপজ্জনক স্টান্ট করতে দেখি। তাঁদের থামাই এবং জিজ্ঞাসাবাদ করি। ওঁরা আমাদের জানায় যে মায়ালি বাঁধ দেখতে এসেছিল। আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি।

পুলিশ জানায়, অভিযুক্ত যুবকের নাম বিনয়। ট্রাফিক আইনে ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে তাকে।

অন্যদিকে ভিডিও ভাইরাল হতেই যুগলের নিন্দায় সরব হয়েছে নেটিজেনরা। অনেকেই হেলমেট না পরার জন্যও সমালোচনা করেছেন।

Advertisement


জেএইচ

Advertisement

টুকিটাকি

পরকীয়া সন্দেহে স্ত্রীর গোপনাঙ্গে তালা দিলেন স্বামী, অতঃপর…

Published

on

নারী-নির্যাতন

নিরাপত্তারক্ষীর কাজ করেন স্বামী। আর ঘরের কাজ সামলাতেন তার স্ত্রী। প্রায়ই তাদের মধ্যে অশান্তি হতো। সম্প্রতি ওই যুবক সন্দেহ করেছিলেন, তার স্ত্রী অন্য কারও সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছেন। সেই সন্দেহ থেকেই স্ত্রীর গোপনাঙ্গে লোহার পেরেক ঢুকিয়ে দিয়েছেন তিনি। তারপর সেখানে ছোট একটি তামার তালাও বসিয়ে দিয়েছেন।

ঘটনাটি ঘটেছে প্রতিবেশি রাষ্ট্র ভারতের মহারাষ্ট্রে। যদিও অভিযুক্ত ব্যক্তি নেপালি নাগরিক।

মহারাষ্ট্রের পিম্পরি চিঞ্চওয়াড় এলাকায় নিরাপত্তারক্ষীর কাজ করতেন ৩০ বছরের এ যুবক। তার সম্পর্কে অভিযোগ, গেলো ১১ মে স্ত্রীকে পরকীয়া সন্দেহে মারধর করতে শুরু করেন অভিযুক্ত। তারপর এক সময়ে ধারালো ব্লেড দিয়ে স্ত্রীর গোপনাঙ্গ চিরে দেন। সেখানে ঢুকিয়ে দেন লোহার দু’টি পেরেক। তার মধ্যে একটি তামার তালাও বসিয়ে দেন। ঘরের মেঝেতে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে যন্ত্রণায় ছটফট করছিলেন মহিলা। চিৎকার করে তিনিই পাড়ার লোক জড়ো করেন। তারা এসে মহিলাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করান। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

হাসপাতালে চিকিৎসা চলাকালীন মহিলার বয়ান রেকর্ড করে পুলিশ। তার অভিযোগের ভিত্তিতে যুবকের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই ঘটনায় কড়া পদক্ষেপের আশ্বাসও দিয়েছে পুলিশ।

 

Advertisement

এসি//

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

টুকিটাকি

রাতের খাবার দেননি মা, তাই খুন করে গাছে ঝুলিয়ে দিলেন ছেলে

Published

on

ঝুলন্ত মরদেহ

রাতের খাবার দেননি মা! সেই কারণে রাগে মাকে পিটিয়ে মারলেন ছেলে। তার পর গাছে ঝুলিয়ে দিলেন দেহ। ঘটনাটি ভারতের মধ্যপ্রদেশের রতলামের।

পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাতে রতলাম জেলা সদর থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে সারাভান গ্রামে এই ঘটনা হয়েছে। সারাভান থানায় অভিযোগ জানিয়েছেন মৃতার স্বামী মালিয়া ভিল। পুলিশ অফিসার নীলম ছোগাড় জানিয়েছেন, মৃতার নাম জিভাবাঈ। তার বয়স ৬৫ বছর। মায়ের সঙ্গে ঝামেলার জেরে তাকে খুন করেছেন ছেলে।

পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার বাড়ি ফিরে মায়ের সঙ্গে ঝগড়া করেন ছেলে। বাবা বাধা দিলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। পরে আবার বাড়িতে ফিরে মাকে লাঠি দিয়ে মারধর করেন। তার পর ইট দিয়ে থেঁতলে খুন করে গাছে ঝুলিয়ে দেন দেহ। সে সময় তার বাবা ঘুমিয়ে ছিলেন। অভিযুক্তের বাড়ির উঠোনেই ছিল নিমগাছ। সেখান থেকেই মায়ের দেহ ঝুলিয়ে দেন তিনি। দাবি করেন, আত্মঘাতী হয়েছেন জিভাবাই। তার পর থেকে ফেরার অভিযুক্ত। পুলিশ তার খোঁজ চালাচ্ছে। মৃতার দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

জেএইচ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

টুকিটাকি

কাউন্সিলিংয়ের নামে ছাত্রকে ৩০ বার ধর্ষণ

Published

on

ধর্ষণকারী-শিক্ষিকা, আমেরিকা

প্রথমবার দেখাতেই হাইস্কুলের পড়ুয়া ছাত্রকে মনে ধরে গিয়েছিল শিক্ষিকার। এরপর কাউন্সিলিংয়ের  উছিলায় ওই ছাত্রকে নিজের মনের বাসনার কথা জানিয়েও দেন তিনি। ছাত্রের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে আগ্রহী,  তা বলতেও দ্বিধা বোধ করেননি ওই শিক্ষিকা। এরপর অন্তত বিশ থেকে তিরিশ বার নিজের ছাত্রের সঙ্গেই শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন তিনি।

চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে আমেরিকার আরকানকাসে।

শেষ পর্যন্ত অবশ্য শিক্ষিকার এই কুকীর্তি সামনে চলে আসে। তাকে গ্রেপ্তারও করে পুলিশ। স্কুলের মধ্যেই ছাত্রকে ধর্ষণের অভিযোগে আমেরিকার ৩৩ বছর বয়সি ওই শিক্ষিকাকে ১৩ বছরের কারাবাসের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। আদালতের কাছে কাকুতি মিনতি করেও ছাড় পাননি অভিযুক্ত শিক্ষিকা।

জানা গিয়েছে, স্কুলের ক্লাস রুম, পার্কিং লট, গাড়ির ভিতরে যখনই যেখানে সুযোগ পেয়েছেন, ওই ছাত্রের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছেন ওই শিক্ষিকা। এমন কি, ওই ছাত্রকে নিয়ে হোটেলেও সময় কাটিয়েছেন তিনি। ২০২২ সালে স্কুলের ছাত্রদের নিয়ে ওয়াশিংটনে শিক্ষামূলক ভ্রমণে গিয়েও ওই ছাত্রের সঙ্গে যৌনতায় লিপ্ত হন তিনি।

নিউ ইয়র্ক পোস্ট সহ আমেরিকার একাধিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, ওই ছাত্রের সঙ্গে ২০২১ সালে পরিচয় হয় ওই শিক্ষিকার। পরিচয়ের পরই একক ভাবে কাউন্সিলিংয়ের অছিলায় ওই ছাত্রকে ডেকে নিয়ে কুপ্রস্তাব দেন ওই শিক্ষিকা। কেউ কিছু জানতে পারবে না বলেও ছাত্রকে আশ্বাস দেন তিনি।

Advertisement

শেষ পর্যন্ত ২০২৩ সালের এপ্রিল মাসে ওই শিক্ষিকাকে নাবালক ছাত্রকে ধর্ষণ এবং যৌন নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

বিচারপ্রক্রিয়ার শেষে ওই শিক্ষিকাকে ১৩ বছরের কারাবাসের নির্দেশ দেয় আদালত। জেল থেকে মুক্তির পরেও আজীবন ওই শিক্ষিকার উপরে নজরদারি চলবে বলেও নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত