Connect with us

ক্রিকেট

বিশ্বকাপ খেলতে যুক্তরাষ্ট্রের পথে উড়াল দিলো টাইগাররা

Avatar of author

Published

on

আগামী ২ জুন বিশ্বকাপ শুরু হলেও বাংলাদেশের বিশ্বকাপ শুরু হবে ৮ জুন। বিশ্বকাপের এখনও অনেকটা সময় বাকি থাকলেও বুধবার (১৫ মে) দিবাগত রাত পৌনে দুইটায় যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে উড়াল দিয়েছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা।
সেখানে গিয়ে অনুশীলন সেরে স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তিনটি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ দল।  এরপর আরও দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে নামবে বিশ্বকাপের মূল মঞ্চে।  সব মিলিয়ে বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতিতে কোনো ঘাটতি রাখছে না বাংলাদেশ। এখন প্রত্যাশা সাফল্যের।
একটু আগে ভাগেই ক্রিকেটাররা চলে যান বিমানবন্দরে।  বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার ব্যক্তিগত গাড়িতে করে বিমানবন্দরে এলেও কিছু ক্রিকেটার বিসিবির গাড়িতে করে স্টেডিয়াম থেকে বিমানবন্দরে পৌঁছান।  অফ স্পিন অলরাউন্ডার শেখ মেহেদী হাসানের সঙ্গে বাসে ছিলেন তানজিদ হাসান তামিম, জাকের আলী অনিক, রিশাদ হোসেন, তানজিম হাসান সাকিব ও রিজার্ভে থাকা আরেক ক্রিকেটার হাসান মাহমুদ।
এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ‘ডি’ গ্রুপে রয়েছে বাংলাদেশ।  যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ হিসেবে রয়েছে শ্রীলঙ্কা, দক্ষিণ আফ্রিকা, নেদারল্যান্ডস এবং নেপাল। আগামী ৮ জুন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ।
বিশ্বকাপের মূল পর্বে খেলতে নামার আগে ১ জুন নিউইয়র্কে ভারতের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে আরেকটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার কথা থাকলেও সেটার সম্ভাবনা ক্ষীণ। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে সহ-আয়োজক দেশটির সঙ্গে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলে বিশ্বকাপের মঞ্চে মাঠে নামবে বাংলাদেশ।  আগামী ২১ মে ,২৩ এবং ২৫ মে ম্যাচগুলো মাঠে গড়াবে।
বিশ্বকাপে রওনা হওয়ার আগে বুধবার মিরপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে বিশ্বকাপ নিয়ে নিজেদের লক্ষ্য ও সম্ভাবনার কথা জানিয়ে গেছেন প্রধান কোচ চান্ডিকা হাথুরুহিংসে।
টিআর/
Advertisement

ক্রিকেট

যুক্তরাষ্ট্রকে সুপার এইটে দেখছেন ব্রায়ান লারা

Published

on

যুক্তরাষ্ট্র এখন পর্যন্ত চলতি বিশ্বকাপে নিজেদের পারফরম্যান্স দিয়ে সামর্থ্যের প্রমাণ রেখেছে। দলটির এমন ক্রিকেটীয় প্রদর্শনীতে নানারকম আলোচনা উঠছে তাদের সম্ভাবনা নিয়ে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবদন্তি ব্রায়ান লারা এই দল নিয়ে কথা বলেছেন। সুপার এইটে ওঠার আশা রাখছেন।

কানাডাকে হারিয়ে গ্রুপ পর্বের খেলা শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র। এরপর দ্বিতীয় ম্যাচে পাকিস্তান দলকে হারিয়ে বসে তারা। সুপার ওভারের সেই ম্যাচ নিয়ে নানা উত্তেজনা তৈরি হয়। সেসময় বলা হচ্ছিল, যুক্তরাষ্ট্র নানা কিছু করে ফেলতে পারে। সবশেষ ভারতের বিপক্ষে পরাজিত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

ভারতের বিপক্ষেও চাপ তৈরি করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেট হারিয়ে ১১০ রান সংগ্রহ করে যুক্তরাষ্ট্র। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটায় চাপ তৈরি হয়েছিল ভারতের ব্যাটিং লাইনআপে।

৭ ৩ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ৩৯ রানে ছিল ভারত। সেখান থেকে পরবর্তীতে সূর্যকুমার যাদব ও শিভাম দুবের জুটিতে জয় নিশ্চিত করে তারা। সুপার এইট প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে লারা বলেন,

‘অবশ্যই খাতা-কলমে তাদের (পাকিস্তান) সুযোগ আছে। আমার মনে হয় যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের শেষ ম্যাচটি সচেতনভাবেই খেলবে এবং তারা কোয়ালিফাই করবে। আমার বাজি যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষেই। আমার মনে হয় তারা পুরো আত্মবিশ্বাসপূর্ণ অবস্থায় আছে। এবং তারা সুপার এইট নিশ্চিত করবে, যেটা বিশাল এক ব্যাপার হবে, ঐতিহাসিক ঘটনা হবে যুক্তরাষ্ট্রের ক্রিকেটের জন্য।’

Advertisement

যুক্তরাষ্ট্র তাদের শেষ ম্যাচটি খেলবে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে। পয়েন্ট টেবিলে ৩ ম্যাচের মধ্যে ২ জয় নিয়ে ৬ পয়েন্ট সহযোগে দ্বিতীয় স্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র।

 

এম/এইচ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ক্রিকেট

রাদারফোর্ডের উচ্ছ্বাস, নিউজিল্যান্ড শঙ্কায়

Published

on

দারুণ এক জয় তুলে নিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে এই জয়ে সুপার এইট নিশ্চিত হয়ে গেছে তাদের। ম্যাচের আগেই বলছিলেন উইন্ডিজ অধিনায়ক; নিউজিল্যান্ডকে হারানোর এটাই সময়। আর এই হারে বেশ চাপেই পড়েছে কিউইরা। দলটির পক্ষে পরের রাউন্ডে যাওয়া নিয়ে তৈরি হয়েছে শঙ্কা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে অনেকটা বাঁচিয়ে দিয়েছেন শার্ফেন রাদারফোর্ড। প্রয়োজনের মুহূর্তে তার ব্যাটিংয়ের প্রশংসা আপনাকে করতেই হবে। দলের রান যখন ৭৬, পতন ঘটেছে ৭ উইকেটের। সেই সময় থেকে ম্যাচটি টেনে নিয়ে গেলেন। এক পর্যায়ে তা ৯ উইকেট হারিয়ে ১৪৯ রানে শেষ হয়।

আর রাদারফোর্ডের ঝুলিতে তখন ৩৯ বলে ৬৮ রানের ইনিংস। যেখানে ৬ টি ছক্কা ২ টি চারের মার ছিল। এই রান পেরোতে পারেনি নিউজিল্যান্ড। নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ১৩ রানের পরাজয় স্বীকার করে নিতে হয়েছে কিউইদের।

রাদারফোর্ড ম্যাচ শেষে জানান, ‘আমার দলকে সাহায্য করতে পারা, এটা ভালো একটা অনুভূতি।’

‘একটা বিশ্বকাপ ম্যাচ খেলা আমাদের স্বপ্নের মধ্যে থাকে। এর জন্যই আমাদের বেঁচে থাকা, কঠোর ভাবে কাজ করা, আমি দলের প্রতি অবদান রাখতে পেরে অনেক খুশি।’

Advertisement

নিউজিল্যান্ড দলের সামনে ১৫০ রানের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। যা পেরোতে ব্যর্থ হয় তারা। আলজারি জোসেফের ৪ উইকেট, গুদাকেশ মোতির ৩ উইকেট আর বাকিদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ১৩৬ রানে শেষ হয়েছে কেন উইলিয়ামসনদের ইনিংস।

 

এম/এইচ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ক্রিকেট

সুপার এইটের স্বপ্ন নিয়ে সাগরপাড়ে ডাচদের মুখোমুখি বাংলাদেশ

Published

on

আর্নোস ভেল, ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলতে যাচ্ছে ক্যারিবিয়ানদের মাঠে। প্রতিপক্ষ সেখানে নেদারল্যান্ডস। সহযোগী দেশ হিসেবে ডাচদের সহজ হিসেবে নেওয়ার সুযোগ কি আছে? পরিষ্কার করে এর উত্তর দেওয়া যায়, না। এই দেশটির সাথে টাইগারদের ক্রিকেটের ইতিহাস যে খুব সুখকর, এমনটি তো নয়।

বাংলাদেশ সময় আজ (১৩ জুন) রাত সাড়ে ৮ টায় মাঠে নামবে বাংলাদেশ ও নেদারল্যান্ডস। দুই দলই দুইটি করে ম্যাচ খেলেছে। একটি করে ম্যাচ জিতেছে, একটি হেরেছে। নেট রান রেটে কিছুটা এগিয়ে থাকায় বাংলাদেশ আছে টেবিলের দুইয়ে আর নেদারল্যান্ডস তিনে।

আজকের ম্যাচটি বাংলাদেশ জয় ছিনিয়ে নিতে পারলে, অনেককিছুই সহজ হয়ে যাবে। অনেককিছু বলতে সুপার এইটের সমীকরণ। যা নিয়ে এখন সবচেয়ে বড় চিন্তা বা আকাঙ্ক্ষা। বাংলাদেশের সামনে সুযোগ আছে। দুই দেশের মধ্যে শক্তিশালী হিসেবে তো বাংলাদেশ দলকেই এগিয়ে রাখতে হবে।

নেদারল্যান্ডসের সাথে সর্বশেষ দেখায় অবশ্য পুড়তে হয়েছে বাংলাদেশকে। ওডিআই বিশ্বকাপ ২০২৩, ডাচদের বিপক্ষে পরাজয়ের স্বাদ পেয়েছিল লাল সবুজের দল। টি-টোয়েন্টি’তে অবশ্য যে চার বার দেখা হয়েছে, প্রতিবারই জিতেছে বাংলাদেশ। আর সংক্ষিপ্ত সংস্করণের বিশ্বকাপে ২ বার সাক্ষাৎ হয় দুই দলের, ২০১৬ ও ২০২২; যার দুইটিই বাংলাদেশ জিতে যায়।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাঠ আর্নোস ভেল নিয়ে নিশ্চিতভাবে কিছু বলা যাচ্ছে না। এই মাঠে প্রায় ১০ বছর পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরেছে। এখানে কোনো ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) ম্যাচও আয়োজন করা হয়নি এখন পর্যন্ত।

Advertisement

এই মাঠের শেষ ম্যাচটিতে বাংলাদেশ খেলেছিল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সে ম্যাচটি ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত হয়, আর বাংলাদেশ দল সেখানে পরাজিত হয়। সেই দলের একমাত্র মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবারের বিশ্বকাপ স্কোয়াডে আছেন।

বাংলাদেশ অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত বলেন, ‘আমরা এই মাঠ নিয়ে কথা বলেছি। আমার মনে হয়, সাকিব ভাই আমাকে বলছিল সে তার অধিনায়কত্বের অভিষেক করে এই মাঠে। রিয়াদ ভাইয়ের টেস্টে ৫ উইকেট আছে এখানে।’

বাংলাদেশ দল এখন চাইবে ম্যাচটি জিততে। এই ম্যাচে জয় নিশ্চিত করতে পারলে, নেপালের বিপক্ষে পরের ম্যাচটিতে অনেকটাই নির্ভার হয়ে খেলতে পারবে তারা। এদিকে নেদারল্যান্ডসের ভাবনাতেও জয় থাকবে। সুপার এইটে যাওয়ার সুযোগ আছে তাদের হাতেও রয়েছে।

 

এম/এইচ

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত