Connect with us

টলিউড

দীপিকার ব্যাগে যে জিনিসটি সবসময় রাখেন

Avatar of author

Published

on

বলিউড অভিনেত্রী দীপিকা পাড়ুকোন মানেই ভক্তদের কাছে ভীষণ আগ্রহের। সামনে ‘সিংহাম’ সিনেমার সিক্যুয়ালে দেখা যাবে দীপিকাকে। এর মধ্যে সেপ্টেম্বরে দীপিকার ঘরে নতুন অতিথি আসতে যাচ্ছে। গর্ভবতী হওয়া সত্ত্বেও সিনেমার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। তবে অন্যান্য অনেক নায়িকার মতোই দীপিকার একটি অদ্ভূত অভ্যাস রয়েছে। সবসময়েই, নিজের ব্যাগে একটি পেনসিল নিয়ে ঘোরেন দীপিকা।

এ প্রসঙ্গে সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে দীপিকা জানান, সবসময়ে তিনি ব্যাগে একটি খাতা আর পেনসিল রাখতে পছন্দ করেন। দীপিকা টেকনোলজি পছন্দ করলেও, বিভিন্ন বিষয় তিনি মোবাইলে না টাইপ করে, খাতায় লিখে রাখতে পছন্দ করেন। তাই এ কারণে যেখানেই যান না কেন, দীপিকার ব্যাগে থাকে একটি খাতা ও একটি পেনসিল। কলম রেখে পেনসিল কেন- সেই কথাও খোলসা করেছিলেন দীপিকা পাড়ুকোন।

অভিনেত্রী বলেন তিনি পেনসিল ছোলা, আর ভুল হলে ইরেজার দিয়ে সেটা মুছে ফেলার বিষয়টা খুব পছন্দ করেন। শুধু এই একটা কারণ নয়, দীপিকা পেনসিল ব্যবহার করেন আরও একটি কাজেও।

দীপিকা জানিয়েছেন, যদি কোনো সংলাপ বলতে গিয়ে তিনি বারে বারে আটকে যান, তাহলে বিশেষ একটি ব্যায়াম করেন তিনি। দাঁতের মধ্যে পেনসিল চেপে ধরে সেই সংলাপটি বলতে থাকেন কয়েকবার।

এরপরে দাঁত থেকে পেনসিল বের করে নিলেও, সেই সংলাপটি ঝরঝরে হয়ে যায়। এই কাজটিই নাকি আর ও একটি কারণ, যার জন্য কলম নয়, ব্যাগে পেনসিল রাখতেই পছন্দ করেন দীপিকা।

Advertisement

এছাড়া দীপিকা নিজের ব্যাগে মাউথ ফ্রেশনার, ফেস মিস্ট, পারফিউম, মোবাইল স্ট্যান্ডের মতো ছোট ছোট জিনিস নিয়ে ঘুরতে পছন্দ করেন। সঙ্গে থাকে দীপিকার বাড়ির চাবি ও চুল বাঁধার জিনিসও।

এএম/

Advertisement

টলিউড

ছেলের মুখ দেখালেন অভিনেতা জিৎ

Published

on

দিনটা ছিল ২০২৩-এর ১৬ নভেম্বর। মকরসংক্রান্তির দিন দ্বিতীয় বার বাবা হয়েছিলেন অভিনেতা জিৎ মদনানি। মেয়ে হওয়ার ১১ বছর পর ফের বাবা-মা হয়েছেন জিৎ ও তার স্ত্রী মোহনা মদনানি। ছেলের জন্মের পর প্রায় ছয় মাস কেটে গেলেও তাকে আড়ালেই রেখেছিলেন অভিনেতা। ছেলের নাম রেখেছেন রোনভ। তবে ছবি ‘বুমেরাং’ মুক্তি পেতেই ছেলেকে প্রকাশ্যে আনলেন অভিনেতা।

এর আগে মোহনার সঙ্গে মেটারনিটি ফটোশ্যুটের ছবি শেয়ার করে মা-বাবা হওয়ার সুখবরও দিয়েছিলেন খোদ জিৎ। তারকা পরিবারের নতুন সদস্যকে দেখতে উদগ্রীব ছিল জিতের ভক্তরা। ২০২৩-এর ১২ নভেম্বর আলোর উৎসব দীপাবলিতে দ্বিতীয় সন্তানের সঙ্গে সকলের পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন সুপারস্টার জিৎ। সেই সময় ছেলের মুখের উপর ছিল ইমোজি। ১৪ জুন, শুক্রবার খুদে সদস্যকে দেখার সাধ পূরণ হলো জিতের অনুরাগীদের। মা-বাবা, স্ত্রী, কন্যাকে নিয়েই আবর্তিত জিতের জগৎ। কোনও রকম ফিল্মি পার্টি কিংবা প্রিমিয়ার, কোথাও দেখা যায় না নায়ককে। সিনেমার প্রচার ছাড়া সাংবাদিকদের মুখোমুখিও কম হয়েছেন তিনি। নিজের পরিবারের নতুন সদস্যকে যে খানিক রেখে ঢেখেই প্রকাশ্যে আনবেন তেমনটাই প্রত্যাশিত ছিল। প্রিয় তারকার ছেলেকে কেমন দেখতে সেই অপেক্ষায় ছিলেন জিতের অনুরাগীরা।

Advertisement

একদিকে বুমেরাংয়ের সাফল্য আর অন্যদিকে তারকা পুত্রের গোলুমুলু ছবি, জিত ভক্তদের কাছে নিঃসন্দেহে খুশির ডবল ডোজ।

জেএইচ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

টলিউড

তৃণমূলের জয়ে নুসরাতের পোস্ট, দল বদলের সুর?

Published

on

টলিউডের আলোচিত নায়িকা নুসরাত জাহান। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বসিহারহাট আসনে তৃণমূল কংগ্রেস থেকে প্রার্থী হয়েছিলেন। প্রথমবার টিকিট পেয়েই বিজয়ের হাসি হাসেন এই অভিনেত্রী।

তবে এবারের লোকসভা নির্বাচনে নানা কারণে টিকিট পাননি নুসরাত। ফলে এ আসনে প্রার্থী হন হাজী নুরুল ইসলাম। নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে ৪২টি আসনের মধ্যে ২৯টি পেয়েছে মমতা ব্যানার্জির দল তৃণমূল কংগ্রেস। কিন্তু পুরো নির্বাচনে নুসরাত জাহানের কোনো রাজনৈতিক কার্যক্রম চোখে পড়েনি।

তবে তৃণমূলের জয়ের পর কী বলছেন নুসরাত জাহান? বুধবার (৫ জুন) নুসরাত জাহান তার এক্স (টুইটার) অ্যাকাউন্টে মমতা ব্যানার্জির একটি ছবি পোস্ট করে লেখেন, ‘দিদির জয়! বাংলার মানুষ মমতা ব্যানার্জি এবং অভিষেক ব্যানার্জির প্রতি তাদের বিশ্বাস আরো শক্তিশালী করেছেন। তৃণমূল কংগ্রেসের সমস্ত বিজয়ী এমপিদের অনেক শুভেচ্ছা।’

এবারের লোকসভা নির্বাচনে নুসরাত জাহান কেন টিকিট পাননি তা নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক মহলে নানা কথা উড়েছে। অনেকে মনে করেন, রাজনৈতিক বিষয় ছাড়াও নুসরাতের ব্যক্তিগত জীবনের নানা বিতর্ক নুসরাতের রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে প্রভাব ফেলেছে। বিশেষ করে নিখিল জৈনর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ, যশ দাশগুপ্তর সঙ্গে নুসরাতের সম্পর্ক, তাকে বিয়ে না করেও সন্তানের নেয়ায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

এছাড়া সন্দেশখালি ইস্যুতেও এই তারকা সাংসদকে সেভাবে পাশে পায়নি সেখানকার জনগণ। উল্টো সংবাদ মাধ্যমের হাত ধরে শুধু ‘গা বাঁচানো’ অডিও বার্তা দিয়ে কর্তব্য সেরেছিলেন নুসরাত। বার বার রাজনীতিতে নুসরাতের এমন ‘দুর্বল অংশগ্রহণে’ স্বাভাবিকভাবেই ক্ষোভ জমেছিল সাধারণের মনে। সেই আভাস হয়তো পেয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। এরপর থেকেই লোকসভায় নুসরাতের উপর আস্থা হারায় তৃণমূল সরকার।

Advertisement

তবে লোকসভা নির্বাচনে মনোনয়ন না পেলেও তৃণমূল ছাড়েননি নুসরাত। এবার শুভেচ্ছা জানিয়ে তা আরেকবার পরিষ্কার করলেন অভিনেত্রী।

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

টলিউড

লোকসভা নির্বাচনে যেসব বলিউড ও টালিউড তারকা জয় পেলেন

Published

on

এবারও ভারতের লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন এক ঝাঁক বলিউড ও টালিউড তারকারা। ভোটের মাঠে লড়েছেন কঙ্গনা রানাউত, মনোজ তিওয়ারি, শত্রুঘ্ন সিনহা, হেমা মালিনী, অরুণ গোভিল, পবন সিং, রবি কিশন, দীনেশ লাল যাদব, সুরেশ গোপি ও নবনীত রানা।

তবে ফল প্রকাশের পর জয়ের হাসছেন হাতে গোনা কয়েকজনই। যাদের মধ্যে কেরালার ত্রিশুর থেকে জয়ী হয়েছেন বিজেপির তারকা প্রার্থী এবং মালায়ালাম অভিনেতা সুরেশ গোপী। এই প্রথম কেরালায় লোকসভার আসন দখল করল বিজেপি।

প্রথমবার নির্বাচনে দাড়িয়েই বিজয় নিশ্চিত করেছেন বলিউড কুইন খ্যাত কঙ্গনা  রানাউত। সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বীরভদ্র সিংয়ের ছেলে বিক্রমাদিত্য সিংয়ের এবং বিদায়ী সংসদ সদস্য প্রতিভা সিংয়ের বিরুদ্ধে ভোটের লড়াইয়ে জয়ী হয়েছেন তিনি। হিমাচল প্রদেশের মান্ডি কেন্দ্রে বিজেপির কঙ্গনা রানাউতের মোট প্রাপ্ত ভোট ৫,২১,৭৪০।

বলিউড অভিনেত্রী সোনাক্ষী সিনহার বাবা অভিনেতা শত্রুঘ্ন সিনহা তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষে জয়ী হয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গের আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রে থেকে নির্বাচন করেন তিনি।

মথুরা আসনে তৃতীয়বারের মতো বিজেপির হয়ে নির্বাচনে দাঁড়িয়েছিলেন হেমা মালিনী। আসনটিতে ৫ লাখ ১০ হাজার ৬৪ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন তিনি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেসের মুকেশ ধানগার পেয়েছেন ২ লাখ ৯৩ হাজার ৪০৭ ভোট।

Advertisement

ভোজপুরি সিনেমার তারকা মনোজ তিওয়ারি উত্তর-পূর্ব দিল্লি থেকে বিজেপির প্রার্থী হয়েছিলেন। তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন কংগ্রেস প্রার্থী, জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের সাবেক সভাপতি কানহাইয়া কুমার। কানহাইয়াকে ১ লাখ ৩৮ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেছেন মনোজ তিওয়ারি।

অন্যদিকে, সমাজবাদী পার্টির কাজল নিষাদকে ১ লাখ ৩ হাজার ৫২৬ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে গোরখপুর আসনে জিতেছেন বিজেপি প্রার্থী রবি কিষাণ। তিনি মোট ৫ লাখ ৮৫ হাজার ৮৩৪ ভোট পেয়েছেন। এছাড়া, বিজেপির হয়ে মিরাট থেকে বিজয়ী হয়েছেন রামায়ন টিভি সিরিজ করে জনপ্রিয়তা পান অভিনেতা অরুণ গোভিল।

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত