Connect with us

আবহাওয়া

আজ ঢাকার বাতাস ‘গ্রহণযোগ্য’

Avatar of author

Published

on

ঢাকা

বায়ুদূষণের কারণে বিশ্বে দূষিত শহরের তালিকায় আজ ১৪তম স্থানে রয়েছে ঢাকা।

শনিবার (১৮ মে) সকালে বায়ু মানের সূচক (একিউআই) অনুযায়ী ঢাকায় বাতাসের মান ছিল ৯৯। বায়ুর মান বিচারে এ মাত্রাকে ‘গ্রহণযোগ্য’ বলা হয়।

ভারতের দিল্লি, ইরাকের বাগদাদ ও ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অব কঙ্গোর কিনশাসা যথাক্রমে ৩৩৯, ২৪১ ও ২০৩ একিউআই স্কোর নিয়ে তালিকার প্রথম তিনটি স্থান দখল করেছে।

ঢাকায় বায়ু দূষণের জন্য ইটভাটা, যানবাহনের ধোঁয়া ও নির্মাণ সাইটের ধুলোকে দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। বায়ুদূষণের ফলে বাড়ছে শ্বাসকষ্ট, কাশি, নিম্ন শ্বাসনালির সংক্রমণ এবং বিষণ্ণতার ঝুঁকি।

বায়ু বিশেষজ্ঞরা বলেন, শূন্য থেকে ৫০ পর্যন্ত ‘ভালো’। ৫১ থেকে ১০০ ‘মোটামুটি’, ১০১ থেকে ১৫০ এর মধ্যে একিউআই স্কোরকে ‘সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ বলে ধরা হয়। ১৫১ থেকে ২০০ এর মধ্যে একিউআই স্কোরকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ বলে মনে করা হয়। ২০১ থেকে ৩০০ একিউআই স্কোরকে ‘খুব অস্বাস্থ্যকর’ এবং ৩০১ থেকে ৪০০ একিউআই স্কোরকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে বিবেচনা করা হয়, যা বাসিন্দাদের জন্য গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করে থাকে।

Advertisement

কেএস/

Advertisement

আবহাওয়া

দেশের ৬ অঞ্চলে ৬০ কিমি বেগে ঝড়ের আশঙ্কা

Published

on

বাংলাদেশের ৬ অঞ্চলের ওপর দিয়ে ৬০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। এসব অঞ্চলে যে নদীবন্দরগুলো আছে, সেখানে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আজ (১২ জুন) শুক্রবার ভোর ৫ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরগুলো যাতে সতর্ক থাকে। পাশাপাশি এই ঝড়ো হাওয়া নিয়ে পর্যাপ্ত প্রস্তুতি গ্রহণ করে।

আবহাওয়া অফিস থেকে দেওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, দিনাজপুর, বগুড়া, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ ও সিলেট অঞ্চলের ওপর দিয়ে পশ্চিম অথবা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

এমন আশঙ্কার কারণে এই এলাকার যে নদীবন্দরগুলো আছে, সেখানে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত জারি করা হয়েছে।

 

Advertisement

এম/এইচ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আবহাওয়া

কাকভেজা বৃষ্টিতে ভিজলো রাজধানী

Published

on

ক্ষণে ক্ষণে মেঘের গর্জনে কেঁপে উঠছে আকাশ। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় বৃষ্টি যেন একটু স্বস্তি এনে দিলো। গেলো কয়েকদিনের হাঁসফাঁস গরম থেকে কিছুটা শান্তি পেলো নগরবাসী।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সন্ধ্যা থেকে রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় ভারী বৃষ্টি শুরু হয়।

এদিকে, ঘরমুখো মানুষের বাড়ি ফেরার তাড়ায় ব্যস্ত নগরীর সড়ক মহাসড়কগুলো। এর মধ্যেই বৃষ্টি হওয়ায় আরেক ভোগান্তিতে নগরবাসী।

এছাড়া সকালে, দেশের ৯ অঞ্চলসমূহের ওপর দিয়ে ঘণ্টায় ৬০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

এতে বলা হয়েছে, ঢাকা, ফরিদপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, কুমিল্লা, নোয়াখালী, বরিশাল, পটুয়াখালী এবং সিলেট অঞ্চল সমূহের ওপর দিয়ে পশ্চিম অথবা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে।

Advertisement

এসব এলাকার নদীবন্দর সমূহকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

টিআর/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আবহাওয়া

দেশের সব বিভাগে বৃষ্টির পূর্বাভাস

Published

on

বৃষ্টি

দেশের সব বিভাগেই বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া দেশের চার অঞ্চলে সর্বোচ্চ ৬০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। সেসব এলাকার নদীবন্দর সমূহকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকালে দেয়া এক পূর্বাভাসে এসব তথ্য জানানো হয়।

পূর্বাভাসে বলা হয়, রংপুর, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং ঢাকা বিভাগসহ রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বর্ষণ হতে পারে। এছাড়া রংপুর, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে।

তাপপ্রবাহের পূর্বাভাসে বলা হয়, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, রাজশাহী, পাবনা, যশোর, চুয়াডাঙ্গা এবং কুষ্টিয়া জেলাসমূহের উপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। তা অব্যাহত থাকতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। চলমান তাপপ্রবাহ অব্যাহত থেকে সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে।

অন্যদিকে দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরের জন্য দেয়া সতর্কবার্তায় বলা হয়, পাবনা, ফরিদপুর, সিলেট এবং ময়মনসিংহ অঞ্চলসমূহের উপর দিয়ে ৪৫-৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি ও তার সঙ্গে ঝড় বয়ে যেতে পারে। তাই, এসব এলাকার নদীবন্দর সমূহকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

Advertisement

কেএস/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত