Connect with us

আন্তর্জাতিক

টোকিওতে সানজা মাতসুরি উৎসবে জাপানিদের ঢল

Avatar of author

Published

on

টোকিওতে হয়ে গেলো জাপানিদের বৃহত্তম ধর্মীয় সানজা মাতসুরি উৎসব।গ্রীষ্মের আগমনের ঘোষণা দেয়া এই উৎসব টোকিও’র আসাকুসা এলাকায় উদযাপিত হয়েছে। রোববার(১৯ মে) খুব সকালে আসাকুসা মন্দির থেকে তিনটি ভ্রাম্যমান মন্দির বয়ে আনা হয়। এরপর, ‘মিকোশি’ নামে ওই বহনযোগ্য মন্দির নিয়ে শহরের বাসিন্দারা বিভিন্ন সড়কে শোভাযাত্রা করেন।

বার্ষিক সানজা মাতসুরি উৎসবে অংশ নিতে শুক্রবার থেকেই হাজারো ভক্ত টোকিওর রাস্তায় ভীড় জমায়। জাপানিদের তিনটি বড় উৎসবের মধ্যে এটি বৃহত্তম হিসেবে বিবেচিত। ঐতিহাসিক সেনসো-জি বৌদ্ধ মন্দিরের তিন প্রতিষ্ঠাতা হিনোকুমা হামানারি, হিনোকুমা তাকেনারি এবং হাজিনো নাকাতোমোর সম্মানে এটি উদযাপন করা হয়।

উৎসবের নিয়ম অনুযায়ি, শনিবার আসাকুসার ৪৪টি জেলা থেকে প্রায় ১০০ মিকোশি জড়ো হয় কামিনারিমনে। তারপর নাকামিসে ডোরি দিয়ে প্যারেড করতে করতে হোজোমনে গিয়ে থামে। সেখানে তারা ধর্মীয় গুরু কাননের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়। পরে মিকোশিগুলোকে আসাকুসা মন্দিরে নেওয়া হয়। সেখানে শিন্টো পুরোহিতরা আসছে বছরের জন্য আশির্বাদ ও শুদ্ধ করে।

তিন দিনের ওই উৎসবটি শুরু হয় আসাকুসা জিনজা মন্দিরে। উৎসবের শেষ দিন রোববার কুখ্যাত ইয়াকুজা ক্রাইম সিন্ডিকেটের ট্যাটু করা সদস্যরা আসাকুসা জেলার মধ্য দিয়ে ‘মিকোশি’ নামে পরিচিত তিনটি বড় মন্দির বহন করে নিয়ে যায়। এই মন্দিরে মিকোশিগুলোকে রাস্তায় নামানোর আগে ঐতিহ্যবাহী প্যারেড করেন। এসময় সংগীতশিল্পী, অভিনয়শিল্পী এবং নৃত্যশিল্পীরাও ঐতিহ্যবাহী জাপানি পোশাকে আসাকুসার রাস্তায় অংশগ্রহণ করেন। আর এটি চলে গভীর রাত পর্যন্ত।

সোনার ভাস্কর্য দিয়ে সাজানো ও সোনার পাতা দিয়ে আঁকা তিনটি বড় মিকোশির প্রত্যেকটির ওজন প্রায় এক টন। প্রতিটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে প্রায় ৪০ মিলিয়ন ইয়েন। বাংলাদেশি মুদ্রায় এর পরিমাণ প্রায় তিন কোটি টাকা।প্রতিটি মিকোশিকে চারটি লম্বা খুঁটির ওপরে দড়ি দিয়ে বেঁধে নিয়ে যাওয়া হয় এবং মিকোশিকে ৪০ জন লোক বহন করে থাকে।

Advertisement

১৩১২ সাল থেকে চলে আসছে জাপানের এই ঐতিহ্যবাহী ধর্মীয় উৎসব। প্রতি বছর প্রায় ২০ লাখ দেশি-বিদেশি পর্যটক এই উৎসবে যোগ দিতে টোকিও আসেন।
এমআর//

Advertisement

আন্তর্জাতিক

ইসরাইলের বাধায় হজ করতে পারলেন না ২৫০০ ফিলিস্তিনি

Published

on

ফাইলি ছবি

পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে সৌদি আরবের মক্কা নগরীতে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে লাখ লাখ মুসল্লি এতে যোগ দিয়েছেন। তবে ইসরাইলের বাধা কারণে গাজার প্রায় ২৫০০ নাগরিক পবিত্র হজে যোগদান করতে পারেনি।

গাজার এনডাউমেন্টস মন্ত্রণালয়ের বরাতে তুরস্কের আনাদোলু পত্রিকা বলছে, রাফা ক্রসিং ইসরাইলের দখলে থাকায় এবং ভূখণ্ডটি অবরুদ্ধ করে রাখায় এসব মুসল্লি এবার হজ করতে যেতে পারেননি।

প্রসঙ্গত, গাজার মানুষ সাধারণত রাফা ক্রসিং দিয়ে প্রথমে মিসরে যান। এরপর সেখান থেকে তারা সৌদিতে পৌঁছান। কিন্তু মে মাস থেকে এই ক্রসিংটি বন্ধ করে রেখেছে ইসরাইলি সেনাবাহিনী।

অবশ্য এবার ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীর থেকে হজ পালনে মক্কায় গেছেন ৪ হাজার ২০০ জন।

 

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

অর্থনীতি

মস্কো এক্সচেঞ্জের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা, পাল্টা ব্যবস্থা নিলো রাশিয়া

Published

on

সংগৃহীত ছবি

মার্কিন ডলার ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের মুদ্রা ইউরোর লেনদেন বন্ধ করে দিয়েছে রাশিয়ার প্রধান শেয়ার ও মুদ্রাবাজার মস্কো এক্সচেঞ্জ। ওয়াশিংটন নতুন করে মস্কোর ওপর বেশ কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার একদিন পরই পুতিন সরকার এ পদক্ষেপ নেয়।

বুধবার সন্ধ্যায় দেওয়া এক বিবৃতিতে রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানায়, মস্কো এক্সচেঞ্জ গ্রুপের বিপক্ষে নেওয়া যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণমূলক পদক্ষেপের কারণে মার্কিন ডলার ও ইউরোভিত্তিক সম্পদের লেনদেন ও নিষ্পত্তি স্থগিত থাকবে।

ফরাসি বার্তা সংস্থা এজেন্সি ফ্রান্স-প্রেস (এএফপি) এর প্রতিবেদনে বলা হয়, বুধবার মস্কো এক্সচেঞ্জের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়টি জানিয়েছে ওয়াশিংটন । রাশিয়ার প্রধান শেয়ার ও মুদ্রাবাজারের পাশাপাশি  বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনের নিকাশঘর হিসেবেও কাজ করে মস্কো এক্সচেঞ্জ। এ কারণে মার্কিন নিষেধাজ্ঞাকে রাশিয়ার জন্য একটি বড় আর্থিক শাস্তি হিসেবে মনে করছে বিশ্লেষকরা।

মুদ্রার বিনিময় হারের মাধ্যমেই জানা যায় একটি দেশের অর্থনীতি কেমন করছে। সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পরের তিন দশকে বেশ কয়েকবার  রুবলের অবমূল্যায়ন হয়েছে। এ নিয়ে রুশ সমাজে ভীতি কাজ করছে। ফলে রাশিয়ার নাগরিকদের অনেকে পশ্চিমা মুদ্রায় তাদের অর্থ সঞ্চয় করতে পছন্দ করেন। আর অর্থনৈতিক সংকটের সময় তারা রুবল বিক্রি করে দেন।

বুধবার সন্ধ্যায় রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংক খুব দ্রুত উত্তেজনা প্রশমিত করতে ব্যবস্থা নেয়। ব্যাংকের বিবৃতিতে বলা হয়, যেকোনো কোম্পানি বা ব্যক্তি রাশিয়ার ব্যাংকের মাধ্যমে মার্কিন ডলার ও ইউরো কিনতে বা বিক্রি করতে পারবেন। নিজস্ব হিসাবে যদি কারও ডলার থাকে, তাহলে তা নিরাপদ থাকবে।

Advertisement

ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর পর বেশিরভাগ রুশ কোম্পানি ও ব্যাংক ইতিমধ্যেই পশ্চিমা মুদ্রার ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়েছে।  মস্কো এক্সচেঞ্জে লেনদেন হওয়া বিদেশি মুদ্রার বেশির ভাগই চীনা মুদ্রা ইউয়ান।

এমআর//

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

তীব্র অপুষ্টিতে ভুগছে গাজার ৮ হাজার শিশু

Published

on

ফিলিস্তিন-শিশু

দিন যত যাচ্ছে গাজার পরিস্থিতি ততই সংকটময় হয়ে উঠছে। খাবার-পানির সংকটে দিশেহারা হয়ে উঠছে নিরীহ ফিলিস্তিনিরা। এমনকি শিশুদের মুখে তুলে দেয়ার মতো খাবারের জোগানও দেয়া যাচ্ছে না।গাজা হামাস-নিয়ন্ত্রিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গাজায় ২৫০ দিন ধরে চলা যুদ্ধে ১৫ হাজার ৬৯৪ জন শিশু নিহত হয়েছে এবং ১৭ হাজার শিশু তাদের বাবা-মাকে হারিয়ে এতিম হয়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা আল জাজিরার প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাজায় খাদ্য সংকটের বিপর্যয় সম্পর্কে সতর্ক করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান তেদ্রোস আধানম গেব্রেয়েসুস। যুদ্ধবিধ্বস্ত ওই অঞ্চলে পাঁচ বছরের কম বয়সী আট হাজার শিশু তীব্র অপুষ্টিতে ভুগছে বলে জানানো হয়েছে।

গাজা উপত্যকার উত্তরাঞ্চলে কর্মরত এক সরকারি কর্মকর্তা আল জাজিরাকে বলেন, সেখানে অধিকাংশ খাদ্যপণ্য ফুরিয়ে যাওয়ায় ভয়াবহ সংকট তৈরি হয়েছে।

জাতিসংঘ সমর্থিত একটি স্বাধীন তদন্ত কমিশন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, গাজাযুদ্ধের প্রথম দিকেই ইসরায়েল ও হামাস যুদ্ধাপরাধ করেছে। এতে বলা হয়েছে, শুধু যুদ্ধাপরাধ নয়, মানবতাবিরোধী অপরাধও করেছে ইসরায়েল। কারণ তাদের হামলায় বেসামরিক অসংখ্য মানুষ নিহত হয়েছেন।

Advertisement

দুটি প্রতিবেদনের মাধ্যমে গাজাযুদ্ধের পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়েছে, একটিতে ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের অভ্যন্তরে হামাসের হামলার বিষয়ে কথা বলা হয়েছে। অন্যটিতে গাজায় ইসরায়েলি অভিযানের তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

তদন্ত কমিশন আরও জানায়, ইসরায়েল তাদের কাজে বাধা দিয়েছে। ইসরায়েল ও গাজায় প্রবেশের ক্ষেত্রেও প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছে তেল আবিব প্রশাসন।

গেলো ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের অভ্যন্তরে হামলা চালিয়ে এক হাজার ২০০ ইসরায়েলিকে হত্যা করে ২৫০ জনকে জিম্মি করে নিয়ে আসে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস।

এর জবাবে অবরুদ্ধ গাজায় অভিযান শুরু করে দলখলদার বাহিনী। এতে এখন পর্যন্ত ৩৭ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন, যাদের অধিকাংশই নারী ও শিশু।

গাজার হামাস-নিয়ন্ত্রিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সেখানে এখন পর্যন্ত ৩৭ হাজার ২০২ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এছাড়া আহত হয়েছেন আরও ৮৪ হাজার ৯৩২ জন।

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত