Connect with us

বাংলাদেশ

তন্ত্রসাধক বাবার সাধনায় মৃত্যু হলো কিশোরীর

Published

on

মেয়েকে ‘ভূতে’ ধরেছে। আর সেই ‘ভূত’ তাড়াতে তন্ত্রসাধনা করেছিলেন বাবা। মেয়ের চুলে লাঠি বেঁধে দু’টি চেয়ারের মাঝে দিনের পর দিন দাঁড় করিয়ে রেখেছিলেন তিনি। খাবার দিতেন না। দিতেন না পানিও। শেষমেশ মৃত্যু হয় বছর চৌদ্দ বছরের ওই কিশোরীর। ঘটনাটি ভারতের গুজরাতের গির সোমনাথ জেলার।

বৃহস্পতিবার (১৩ অক্টোবর) ভারতী গণমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

সুরাত থেকে গির সোমনাথ জেলার ধাওয়া গ্রামে মাস ছয়েক আগে এসেছিলেন ভবেশ অকবরী। সঙ্গে তার মেয়ে এবং ভবেশের ভাই দিলীপ। স্থানীয়দের অভিযোগ, ভবেশ এবং তার ভাই কিশোরীকে নিয়ে নানা তন্ত্রসাধনা করতেন। মেয়েকে পুরনো ও ছেঁড়া পোশাক পরিয়ে রাখতেন। তারপর কিশোরীকে নিয়ে চাকলিধরে একটি মাঠে নিয়ে যেতেন।

পুলিশ জানতে পেরেছে যে, ভবেশের বিশ্বাস ছিল তার মেয়েকে ‘ভূতে’ ধরেছে। তাই চাকলিধর মাঠে নিয়ে গিয়ে আগুন জ্বালিয়ে তার সামনে মেয়েকে দু’ঘণ্টা ধরে দাঁড় করিয়ে রাখতেন। তারপর মেয়েটির পোশাক ওই আগুনেই পুড়িয়ে দিয়ে মেয়েটিকে বেধড়ক মারধর করতেন। শুধু তাই নয়, অভিযোগ আছে মেয়েটির চুলে লাঠি বেঁধে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড় করিয়ে রাখতেন। পানি, খাবার কিছুই দিতেন না। সেই অত্যাচারে মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়ে। এরপর মৃত্যু হয় সেই কিশোরীর।

প্রমাণ লোপাট করতে ভবেশ এবং দিলীপ দু’জনে মিলে মেয়েটিকে বেশ কয়েক দিন প্লাস্টিকে মুড়িয়ে বাড়িতে রেখে দেন। তারপর গোপনে পুড়িয়ে ফেলেন। জেলার পুলিশ সুপার মনোহর সিংহ জাডেজা জানিয়েছেন, মেয়েটির পরিবারের সদস্যদের আটক করা হয়েছে। তন্ত্রসাধনার নামে কিশোরীকে খুন করার একটি মামলাও দায়ের করা হয়েছে।

Advertisement

অনন্যা চৈতী

Advertisement

বাংলাদেশ

সোনালি ব্যাংককে কোটি টাকা জরিমানা করলো ভারত

Published

on

বাংলাদেশের সোনালি ব্যাংক পিএলসিকে ৯৬.৪ লাখ রুপি জরিমানা করেছে রিজার্ভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া (আরবিআই)। খবর- হিন্দুস্তান টাইমস 

ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এক বিবৃতিতে এই জরিমানার কারণ হিসেবে বলছে, সোনালি ব্যাংক বেশ কিছু ব্যাংকিং নিয়ম নীতি ভঙ্গ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে কেওয়াইসি( আপনার গ্রাহককে জানুন) নীতি।

উল্লেখ্য, সোনালি ব্যাংক পিএলসির ভারতীয় শাখা বাংলাদেশের সোনালি ব্যাংকরই একটি অংশ।

আরবিআই বলেছে, নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম অমান্য করার জন্যেই এই জরিমানা ধার্য করা হয়েছে। এর জেরে ব্যাংক এবং গ্রাহকদের মধ্যে কোনও লেনদেন বা চুক্তি প্রভাবিত হবে না। এই জরিমানা ছাড়া ব্যাংকের বিরুদ্ধে অন্য কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না।

এনএস/

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বাংলাদেশ

দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী

Published

on

প্রধানমন্ত্রী-শেখ-হাসিনা

আগামীকাল (১৭ জুন) দেশে উদযাপিত হবে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎসব ঈদুল আজহা। পবিত্র এই উৎসব উপলক্ষ্যে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোবাবার (১৬ জুন) তিনি এক ভিডিও বার্তায় বলেন, প্রিয় দেশবাসী, আসসালামু আলাইকুম, এক বছর পর আবারও আমাদের জীবনে ফিরে এসেছে পবিত্র ঈদুল আজহা। আমি আপনাদেরকে ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানাই।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, আসুন ঈদুল আজহার শিক্ষা গ্রহণ করে ত্যাগের মহিমায় উজ্জ্বীবিত হয়ে দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করি।

বার্তার শেষে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পবিত্র ঈদুল আজহা আপনার জীবনে বয়ে আনুক অনাবিল আনন্দ, সুখ, শান্তি ও স্বাচ্ছন্দ। সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন। ঈদ মোবারক।

 

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

জাতীয়

ঈদকে ঘিরে নাশকতার হুমকি নেই : র‍্যাব ডিজি

Published

on

র‌্যাব-ডিজি-ব্যারিস্টার-মো.-হারুন-অর-রশিদ

পবিত্র ঈদুল আজহাকে ঘিরে সুনির্দিষ্ট কোনো হামলা বা নাশকতার তথ্য নেই। তবে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুতি ও সক্ষমতা রয়েছে র‍্যাব। বলেছেন র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) মহাপরিচালক (ডিজি) ব্যারিস্টার মো. হারুন অর রশিদ।

রোববার (১৬ জুন)  জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে নিরাপত্তা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন র‍্যাব ডিজি।

ঈদের জামাতে র‍্যাবের পক্ষ থেকে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ঈদের দিনে ঢাকায় জাতীয় ঈদগাহে সবচেয়ে বড় জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া, শোলাকিয়া, রংপুর, দিনাজপুরে বড় জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এসব ঈদ জামাতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ নজরদারি জোরদার করা হয়েছে। র‍্যাব সদর দপ্তর থেকে কন্ট্রোলরুম স্থাপন করে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা মনিটরিং করা হবে।

র‌্যাব ডিজি বলেন, গোয়েন্দা তথ্য ও সাইবার মনিটরিংসহ অন্যান্য তথ্য বিশ্লেষণ করে এবারের ঈদ সামনে রেখে কোনও জঙ্গি হামলার ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া যায়নি। তবুও আমাদের গোয়েন্দা নজরদারি ও তৎপরতা সার্বক্ষণিক সময়ের জন্য বজায় থাকবে।

হারুন অর রশিদ বলেন, পবিত্র ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে রাজধানীসহ সারাদেশে পশুর হাট জমে উঠেছে। হাটকেন্দ্রীক মলম পার্টি, অজ্ঞানপার্টি প্রতিরোধে র‍্যাব সার্বক্ষণিক নজরদারি রেখেছে। হাটগুলোতে পর্যাপ্ত ফোর্স মোতায়েন রাখা হয়েছে, জাল টাকা শনাক্তের জন্য ডিভাইস রয়েছে। প্রতিটা বাস টার্মিনাল, লঞ্চঘাট, ট্রেন স্টেশনে র‍্যাব সদস্য মোতায়েন রয়েছে। টিকিট কালোবাজারির সঙ্গে সংঘবদ্ধ ১০ জনের একটি দলকে র‍্যাব গ্রেপ্তার করেছে। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে পশুবাহী গাড়ি ঢাকায় আসছে। এসব গাড়ি যাতে কোথাও বাধাগ্রস্ত না হয় আমরা নজর রাখছি।

Advertisement

ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, র‍্যাবের ডগ স্কোয়াড, বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটসহ দুটি হেলিকপ্টারকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। যেকোনো ধরনের নাশকতা-হামলা প্রতিরোধ করতে র‍্যাব প্রস্তুত রয়েছে। সাইবার ওয়ার্ল্ডে সাইবার পেট্রোলিং জোরদার করা হয়েছে, যেকোনো গুজব প্রতিরোধ করতে প্রস্তুতি রয়েছে।

 

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত