Connect with us

শিক্ষা

কোটা পেয়েও বিসিএসে পিছিয়ে নারীরা

Avatar of author

Published

on

নারী

বিসিএস পরীক্ষায় আবেদন ও সফলতার হারে পিছিয়ে রয়েছেন নারীরা। আবেদনকারীদের সংখ্যায় বরাবরই পুরুষরা এগিয়ে থাকছেন। পাসের হারেও পড়ছে তার প্রভাব। গেলো পাঁচটি বিসিএস পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলাফল পর্যালোচনা করে পাওয়া গেছে এ তথ্য।

সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) সূত্রে দেখা গেছে, ৩৬তম বিসিএস পরীক্ষায় মোট ২ লাখ ১১ হাজার ২৮২ জন আবেদন করেন। তাদের মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৪১ হাজার ২৭০ জন হলেও নারী মাত্র ৭০ হাজার ১২ জন। প্রিলিমিনারি, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার পর চূড়ান্তভাবে মোট ২ হাজার ৩২৩ জনকে বিভিন্ন ক্যাাডারে সুপারিশ করা হয়। তার মধ্যে ১ হাজার ৭১৪ জন পুরুষ আর ৬০৯ জন ছিলেন নারী। পুরুষের পাসের হার ছিল ৭৩ দশমিক ৭৮ শতাংশ আর নারীদের ২৬ দশমিক ২২ শতাংশ।

৩৭তম বিসিএসে এসে দেখা যায়, ২ লাখ ৪৩ হাজার ৪১৫ জন আবেদনকারীর মধ্যে ১ লাখ ৫৮ হাজার ৬৫৩ জন পুরুষ আর ৮৪ হাজার ৭২৬ জন নারী প্রার্থী ছিলেন। চূড়ান্ত ফলে ১ হাজার ৩১৩ জনকে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করে পিএসসি। তাদের মধ্যে ৯৯০ জন পুরুষ আর ৩২৩ জন নারী। শতকরা হিসাবে পুরুষ ৭৫ দশমিক ৪০ শতাংশ আর নারী ২৪ দশমিক ৬০ শতাংশ।

৩৮তম বিসিএসে আবেদনকারী ছিলেন ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৪৪০ জন। তাদের মধ্যে ৬৩ দশমিক ৪৭ শতাংশ পুরুষ আর ৩৬ দশমিক ৫৩ শতাংশ নারী প্রার্থী। চূড়ান্তভাবে ২ হাজার ২০৪ জন পাস করা প্রার্থীর মধ্যে ১ হাজার ৬১১ জন পুরুষ আর ৫৯৩ জন নারী।

এদিকে চিকিৎসক নিয়োগে ৩৯ ও ৪২তম বিশেষ বিসিএস আয়োজন করে পিএসসি। এ পরীক্ষায় নারী আবেদনকারী বেশি হলেও পাসের হারে নারীরা পিছিয়ে পড়েন। দেখা গেছে, ৩৯তম বিসিএসে ৩৭ হাজার ৫৭৬ জন আবেদনকারীর মধ্যে পুরুষ ৪৩ দশমিক ৬৫ শতাংশ আর নারী ৫৬ দশমিক ৩৫ শতাংশ। চূড়ান্তভাবে ৬ হাজার ৭৯২ জনকে ক্যাডার পদে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করে পিএসসি। সেখানে নারীর সংখ্যা ৩ হাজার ১৯২ ও পুরুষ ৩ হাজার ৬০০ জন।

Advertisement

৪২তম বিশেষ বিসিএসে ৪১ হাজার ২৬ আবেদনের মধ্যে ৫৫ দশমিক ৯২ শতাংশ নারী ও ৪৪ দশমিক ০৮ পুরুষ আবেদন করেন। নিয়োগ পান ৪ হাজার জন। এতে ২ হাজার ৩৯ জন পুরুষ (৫০ দশমিক ৯৮ শতাংশ) আর ১৯৬১ নারী (৪৯ দশমিক ০২ শতাংশ) ছিলেন।

বিসিএস পরীক্ষায় ১০ শতাংশ নারী কোটা অনুসরণ করা হয়।

জানতে চাইলে পিএসসি চেয়ারম্যান বলেন, বিসিএস পরীক্ষায় পুরুষের চাইতে নারীর অংশগ্রহণ কম, পাসের হারও তুলনামূলক কম। এ পরীক্ষায় ১০ শতাংশ নারী কোটা অনুসরণ করা হলেও নারীরা পিছিয়ে রয়েছেন। বাল্যবিবাহ, পরিবারের প্রতিবন্ধকতাসহ নানান প্রতিবন্ধকতায় অনেক ক্ষেত্রে তারা পিছিয়ে পড়ছেন।

তিনি বলেন, বর্তমানে অনেক খাতে নারীরা পুরুষকে পিছে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছে। বোর্ড পরীক্ষাতেও বরাবর মেয়েরা ভালো ফলাফল করছে। অনেক স্থানে নারীরা নেতৃত্ব দিচ্ছেন। নারী-পুরুষ উভয়ের সমন্বয়ে ও তাদের অবদানে দেশ উন্নত দেশের কাতারে পৌঁছে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Advertisement
Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

শিক্ষা

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলমান ছুটি কমতে পারে

Published

on

স্কুল খোলা

ঈদুল আজহা ও গ্রীষ্মকালীন অবকাশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে টানা ২০ দিনের ছুটি চলছে। তা কমিয়ে আনা হতে পারে। ঈদের ছুটি ঠিক থাকলেও কমানো হতে পারে গরমের ছুটি। সেক্ষেত্রে চলমান ছুটি শেষ হওয়ার এক সপ্তাহ আগেই খুলে দেওয়া হতে পারে সব স্কুল-কলেজ ও মাদরাসা।

শিক্ষা প্রশাসন সূত্র বলছে, ঈদের ছুটি শেষে অফিস খুলবে বুধবার (১৯ জুন)। প্রথম কর্মদিবস বা দ্বিতীয় কর্মদিবস বৃহস্পতিবার (২০ জুন) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটির বিষয়ে নতুন সিদ্ধান্ত আসতে পারে।

ছুটি সংক্ষিপ্ত করার পরিকল্পনার কারণ হিসেবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুক্তি হলো, নতুন কারিকুলামে চলতি বছরের বেশ গ্যাপ রয়েছে। শীত ও অতিগরমের কারণে এবার ১৫ দিনের মতো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। সেই ক্ষতি পোষাতে গ্রীষ্মের ছুটি কাটছাঁট করা হতে পারে। পাঠদানের কর্মদিবস বছরব্যাপী কমেছে। এছাড়া ঈদের পর শনিবারের বন্ধ পুনর্বহাল রাখার কারণে কর্মদিবস কমে যাবে। তাই গ্রীষ্মের ছুটির এক সপ্তাহ কমতে পারে।

জানতে চাইলে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (মাধ্যমিক) প্রফেসর সৈয়দ জাফর আলী বলেন, গ্রীষ্মের ছুটি কমানোর বিষয়ে একটি প্রস্তাব রয়েছে। এখন কী করবে, সেই সিদ্ধান্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের।

তার বক্তব্য, বাংলাদেশে আবহাওয়ার অনেক পরিবর্তন হয়েছে। গ্রীষ্মকালীন ছুটির সময় জুন-জুলাই মাসে অতি গরম থাকে। এই সময় ছুটি দেওয়া না দেওয়া সমান কথা। আমার প্রস্তাব হলো গ্রীষ্মকালীন ছুটি বাতিল করে তা শীতের ছুটির সঙ্গে সমন্বয় করা।

Advertisement

২০২৩ শিক্ষাবর্ষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের গ্রীষ্মকালীন ছুটি বাতিল করা হয়। সে বছরে ছুটি বাতিলের যুক্তি ছিল, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভোটকেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এর আগে নির্বাচনী ডামাডোল শুরু হবে। সেই কারণে ছুটি বাতিল করা হয়।

গেলো বছর শিক্ষাপঞ্জি অনুযায়ী, ২০ জুলাই থেকে ২ আগস্ট পর্যন্ত গ্রীষ্মকালীন ছুটি ছিল। বাতিল করা গ্রীষ্মকালীন ছুটি পরে শীতকালীন ছুটির সঙ্গে সমন্বয় করা হয়।

ঈদুল আজহার সরকারি ছুটির পরেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসবে বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানিয়েছে।

 

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

শিক্ষা

পদোন্নতি পেয়েছেন হিজাবকাণ্ডে অব্যাহতিপ্রাপ্ত সেই রাবি শিক্ষক

Published

on

রাবি-শিক্ষক-হাফিজুর-রহমান

ছাত্রীকে আপত্তিকর বার্তা ও হিজাব কাণ্ডে একাডেমিক কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি পাওয়া শিক্ষক হাফিজুর রহমানকে সহযোগী অধ্যাপক থেকে অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি দেয়া হয়েছে। গেলো ৩ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৩১তম সিন্ডিকেট সভায় তাকে পদোন্নতি দেয়া হয়।

বুধবার (০৫ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্যদের একটি সূত্র তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

বিষয়টি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, একাডেমিক কার্যক্রম থেকে অব্যাহতির বিষয়টি বিভাগ উল্লেখ করেছে। আবার বিভাগেরই পরিকল্পনা কমিটি তার পদোন্নতির জন্য সুপারিশও করেছে। ফলে নিয়ম মেনেই পদোন্নতি পেয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক আশরাফুজ্জামান বলেন, বিভাগের পরিকল্পনা কমিটির পক্ষ থেকে তার পদোন্নতির সুপারিশ করা হয়েছিল। এর আগে তাকে অব্যাহতির সুপারিশও করা হয়েছিল।

গেলো ১১ মার্চ ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষক ড. হাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে আপত্তিকর বার্তা ও হিজাব নিয়ে কটাক্ষের অভিযোগ উঠে। এ নিয়ে শিক্ষককে বহিষ্কারের দাবিতে দফায় দফায় আন্দোলন করেন শিক্ষার্থীরা। বিভাগে নিজের কৃতকর্মের জন্য অনুতপ্ত হওয়ায় বিভাগের একাডেমিক কার্যক্রম থেকে পাঁচ বছর তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এই অব্যাহতির মাঝেই গেলো ৩ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৩১তম সিন্ডিকেট সভায় তাকে পদোন্নতি দেয়া হলে এ নিয়ে আবার প্রশ্ন উঠেছে।

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

শিক্ষা

১৫ বছর পর কলেজে ফিরলেন শাহেদুল খবির

Published

on

কলেজে

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের একজন প্রভাবশালী পরিচালককে বদলি করা হয়েছে। অধিদপ্তরের দ্বিতীয় শীর্ষ ব্যক্তি কলেজ ও প্রশাসন শাখার পরিচালক অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরীকে ঢাকার বিজ্ঞান কলেজে বদলি করা হয়েছে।

বুধবার (৫ জুন) তাকে বদলির আদেশ দেয়া হলেও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বৃহস্পতিবার (৬ জুন) সেটি প্রকাশ করা হয়েছে।

শিক্ষা ক্যাডারে চাউর রয়েছে, এই ক্যাডারে শাহেদুল খবিরের চেয়ে বড় প্রভাবশালী কর্মকর্তা দ্বিতীয়জন কেউ নেই। তিনি বর্তমানে শিক্ষা ক্যাডারের সংগঠন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডার সমিতির বর্তমান সভাপতি। আগামী ৯ জুন এ সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সেই নির্বাচনে তিনি আবার সভাপতি প্রার্থী। নির্বাচনে ঠিক তিনদিন আগে তাকে বদলি করায় সবাই এটি নিয়ে কানাঘুষা করছেন। তবে ঠিক কী কারণে তাকে বদলি করা হয়েছে, এ ব্যাপারে কেউ অফিসিয়াল বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

শাহেদুল খবির চৌধুরী সর্বশেষ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হওয়ার দৌড়েছিলেন। শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তারা বলছেন, তিনি শিক্ষা প্রশাসনের দ্বিতীয় শীর্ষ ব্যক্তি হিসেবে আসন্ন সমিতির নির্বাচনে নানাভাবে প্রভাব বিস্তার করছিলেন। অন্য প্যানেলগুলো শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান নওফেলের কাছে অভিযোগ করার পর তদন্ত করে এর প্রমাণ মেলায় তাকে অন্যত্র বদলি করা হয়েছে।

অভিযোগে জানা যায়, বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডার সমিতির আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত কয়েকদিন ধরে শিক্ষা অধিদপ্তর, পাঠ্যপুস্তক বোর্ড, মাদ্রাসা অধিদপ্তর, ঢাকা শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা বোর্ড, কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড, রাজশাহীর নিউ ডিগ্রি কলেজ, নায়েম ও কয়েকটি কলেজের প্রধানদের প্রভাবিত করা হচ্ছিল।

Advertisement

শাহেদুল খবির চৌধুরী বর্তমান সরকারের শুরু থেকে অর্থাৎ, ২০০৯ সাল থেকে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড এবং মাউশি অধিদপ্তরে চাকরি করছেন। গেলো সাড়ে ১৫ বছরে একদিনের জন্যও তিনি সরকারি কোনো কলেজে চাকরি করেননি। তিনি ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে স্কুল পরিদর্শক, পরে সচিব ছিলেন। ২০১৯ সালে তিনি মাউশি অধিদপ্তরের পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) হিসেবে পদায়ন পান।

তার বিরুদ্ধে মাউশির একটি নিয়োগে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

কেএস/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত