Connect with us

উত্তর আমেরিকা

রুশ বিমানের আঘাতে মার্কিন ড্রোন ভেঙে কৃষ্ণসাগরে

Avatar of author

Published

on

রাশিয়ার যুদ্ধবিমান সু-২৭ এর আঘাতে কৃষ্ণসাগরে একটি মার্কিন ড্রোন ভেঙে পড়েছে। সংঘর্ষের কারণে সামরিক ড্রোনটি ওড়ার অযোগ্য হয়ে সমুদ্রে বিধ্বস্ত হয়েছে। জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন।  এই ঘটনায় দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে।

বুধবার (১৫ মার্চ) আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম সিএনএন’র দেয়া এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য নিশ্চিত জানা যায়।

প্রতিবেদন বলছে, রুশ যুদ্ধবিমানের আঘাতে মার্কিন সামরিক ড্রোন বিধ্বস্তের ঘটনাকে ‘বেপরোয়া’ বলে উল্লেখ করেছে পেন্টাগন। অপরদিকে রাশিয়া জানিয়েছে মার্কিন ড্রোনের সঙ্গে রুশ যুদ্ধবিমানের সরাসরি সংঘর্ষ হয়নি।

এক বিবৃতিতে ইউএস এয়ার ফোর্স জেনারেল জেমস হেকার বলেছেন, আমাদের এমকিউ-৯ ড্রোনটি আন্তর্জাতিক আকাশসীমায় রুটিন অপারেশন পরিচালনা করছিল। তখন একটি রাশিয়ান বিমান তাকে আঘাত করে। ফলে এমকিউ-৯ বিধ্বস্ত হয় এবং সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।’

দুটি রুশ যুদ্ধবিমান এ ঘটনায় জড়িত ছিল বলে জানিয়েছে মার্কিন ইউরোপীয় কমান্ড। স্থানীয় সময় আনুমানিক মঙ্গলবার দিবাগত রাত দুইটার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

Advertisement

যুক্তরাষ্ট্রের ইউরোপীয় ওই কমান্ডার বলেন, সংঘর্ষের আগে রুশ যুদ্ধবিমানগুলো ড্রোনের ওপর জ্বালানি ফেলেছিল। এরপর বেপরোয়া, পরিবেশগতভাবে অস্বাস্থ্যকর এবং অ-পেশাদার উপায়ে এর সামনে উড়েছিল।

পেন্টাগনের মুখপাত্র রাইডার বলেন, এই ঘটনায় রাশিয়ান জেটটি সম্ভবত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিন্তু পরে এটি অবতরণ করেছে। জেটটি কোথায় অবতরণ করেছে তা তিনি বলতে পারেননি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নজরদারি এবং আক্রমণ উভয়ের জন্য এমকিউ-৯ ড্রোন ব্যবহার করে। দেশটি মধ্যপ্রাচ্য এবং আফ্রিকাসহ বিভিন্ন স্থানে ড্রোনগুলো ব্যবহার করেছে। ব্রিটেন এবং ফ্রান্সসহ অন্যান্য দেশগুলোও এই ধরনের ড্রোন ব্যবহার করে।

এদিকে রাশিয়া যুক্তরাষ্ট্রের এমন দাবি অস্বীকার করেছে। তারা জানিয়েছে, ড্রোন বিধ্বস্তে রাশিয়া দায়ী নয়।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘তীক্ষ্ণ কৌশলের ফলে এমকিউ-৯ ড্রোনটি উচ্চতা হারিয়ে ফেলে এবং নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। এর ফলে পানির সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। রাশিয়ার দুটি যুদ্ধবিমানের সঙ্গে ওই ড্রোনের সংঘর্ষ হয়নি এবং কোনও অস্ত্র ব্যবহার করা হয়নি।

Advertisement

রাশিয়ার বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের জন্য রাশিয়া যে অস্থায়ী আকাশপথ তৈরি করা হয়েছে, ড্রোনটি তা লংঘন করছিল। ওই ড্রোন চিহ্নিত করার জন্য যুদ্ধ বিমান পাঠায় রাশিয়া। কিন্তু বাক বদল করতে গিয়ে এমকিউ–৯ ড্রোনটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সাগরে পড়ে যায়।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ড্রোনটিকে ‘অনুপ্রবেশকারী’ উল্লেখ করে বলেছে যে, ড্রোনটি রাশিয়ার সীমান্তের দিকে যাচ্ছিল। তবে পেন্টাগন মুখপাত্র রাইডার সাংবাদিকদের বলেছেন, ড্রোনটি আন্তর্জাতিক জলসীমার উপরে কাজ করছিল।

গেলো বছরের ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের ফলে মস্কো এবং ন্যাটো জোটের মধ্যে সরাসরি সংঘর্ষের আশঙ্কা বেড়েছে। তবে এতদিন এমন কোনও ঘটনা ঘটেনি।

এই ঘটনার পর যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়াকে আক্রমণাত্মক পদক্ষেপ নেয়ার বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছে।

Advertisement
Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

উত্তর আমেরিকা

জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূতের আচরণে বিস্মিত

Published

on

‘বিশ্বের সবচেয়ে নৈতিক সেনাবাহিনী ইসরায়েলের। গুতেরেস সন্ত্রাসবাদকে উৎসাহিত করেন এবং তিনি ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ঘৃণা উসকে দেন’। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে  জাতিসংঘে নিযুক্ত ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূত গিলাদের এমন বক্তব্যে বিস্মিত হয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক।

শনিবার (৭ জুন) জাতিসংঘ কার্যালয়ে এ কথা বলেন মহাসচিবের মুখপাত্র ডুজারিক।

ডুজারিক বলেন, তার ২৪ বছরের চাকরিজীবনে কোনো কূটনীতিককে এমন অপেশাদারি আচরণ করতে দেখেননি।

তিনি বলেন, সশস্ত্র সংঘাতে শিশুদের প্রতি আইন লঙ্ঘনকারী দেশগুলোর তালিকাসংবলিত একটি প্রতিবেদন আগামী ১৪ জুন নিরাপত্তা পরিষদের সভায় উপস্থাপন করা হবে। তালিকায় ইসরায়েলের সেনাবাহিনীর নামও রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এ তথ্য জানাতেই কাজের অংশ হিসেবে তাদের একজন কর্মকর্তা জাতিসংঘে নিযুক্ত ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূত গিলাদকে ফোন করেন। অথচ গিলাদ ওই ফোনকলের কথোপকথনের ভিডিও করেন এবং অংশবিশেষ এক্স হ্যান্ডেলে প্রকাশ করেন।

Advertisement

এদিকে জাতিসংঘের এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা রিয়াদ মালিকি এক বিবৃতিতে বলেছেন, অনেক বিলম্বে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। গাজায় কোন ধরনের বিপর্যয় চলছে, তা বিশ্ব এখন খালি চোখেই দেখছে। সেখানে গণহত্যা চালানো হচ্ছে, বিশেষ করে নারী ও শিশুদের লক্ষ্যবস্তু করা হচ্ছে।

আই/এ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

উত্তর আমেরিকা

বঙ্গোপসাগরে বিমান ঘাঁটি তৈরির চক্রান্ত নিয়ে যা বললো যুক্তরাষ্ট্র

Published

on

ম্যাথিউ মিলার, যুক্তরাষ্ট্র

বঙ্গোপসাগরে বিমান ঘাঁটি তৈরি এবং বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের অংশ নিয়ে একটি খ্রিস্টান দেশ বানানোর চক্রান্তের বিষয়ে সাম্প্রতিক সময়ে যে অভিযোগ সামনে এসেছে তা নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটি বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের বিষয়ে এসব তথ্য সঠিক নয়।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (৪ জুন) নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার।

তিনি জানান, গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ও নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিচারিক কর্মকাণ্ডের বিষয়টিও মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের ব্রিফিংয়ে উঠে এসেছে। ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে মামলার বিষয়টি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে যুক্তরাষ্ট্র।

এমনকি ড. ইউনূসকে হয়রানি এবং হুমকি প্রদর্শনের জন্য শ্রম আইনের অপব্যবহার হতে পারে বলেও যুক্তরাষ্ট্রের উদ্বেগের কথা জানিয়েছে ম্যাথিউ মিলার।

ব্রিফিংয়ে এক সাংবাদিক বঙ্গোপসাগরে ঘাঁটি বানাতে ‘শ্বেতাঙ্গ ব্যক্তির’ প্রস্তাব এবং বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের একটি অংশ নিয়ে খ্রিষ্টান দেশ বানানোর চক্রান্ত চলছে বলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চান।

Advertisement

ওই সাংবাদিক বলেন, বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্প্রতি দাবি করেছেন, একজন শ্বেতাঙ্গ ব্যক্তি তাকে প্রস্তাব দিয়েছিলেন— তিনি কোনো চাপ ছাড়াই ক্ষমতায় থাকতে পারবেন যদি তিনি একটি বিদেশি দেশকে বঙ্গোপসাগরে বিমানঘাঁটি স্থাপনের অনুমতি দেন।

ম্যাথিউ মিলার আরও উল্লেখ করেন, বঙ্গোপসাগরে ঘাঁটি বানিয়ে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের একটি অংশ নিয়ে পূর্ব তিমুরের মতো খ্রিস্টান দেশ বানানোর ষড়যন্ত্র চলছে। শেখ হাসিনা কী এসব অভিযোগের তীর যুক্তরাষ্ট্রের দিকেই ছুঁড়ছেন? কারণ যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশে একটি অবাধ এবং সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজন, আইনের শাসন এবং দুর্নীতি দমন নিয়ে অব্যাহতভাবে আহ্বান জানিয়ে আসছে?

জবাবে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার বলেন, আমি ঠিক নিশ্চিত নই যে এই মন্তব্যগুলো কাকে উদ্দেশ্য করে করা হয়েছে। কিন্তু যদি এসব কথা প্রকৃতপক্ষে যুক্তরাষ্ট্রকে ইঙ্গিত করে বলা হয়, তাহলে আমি শুধু বলব, এগুলো সঠিক নয়।

অপর এক প্রশ্নে ওই সাংবাদিক জানতে চান, নোবেল বিজয়ী অধ্যাপক মুহাম্মদ ইউনূসকে গত রোববার আদালত কক্ষের ভেতরে আসামিদের জন্য নির্ধারিত অন্ধকার ও লোহার খাঁচার মতো ঘেরে প্রবেশ করে করানো হয় এবং এই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে ড. ইউনূস বলেছেন, তিনি তার অভিশপ্ত জীবনের সবচেয়ে খারাপ পর্যায়ে রয়েছেন। একইভাবে, গণতন্ত্র, আইনের শাসনের অনুপস্থিতি এবং ব্যাপক দুর্নীতির কারণে লাখ লাখ বাংলাদেশি তাদের অভিশপ্ত জীবনের সবচেয়ে খারাপ পর্যায়ে রয়েছে। আমরা দেখেছি, যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান ও পুলিশ প্রধানের ওপর কিছু নিষেধাজ্ঞা ও ভিসা বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। আপনি কি মনে করেন, গত ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনের পর সরকারকে জবাবদিহি করার জন্য এসব পদক্ষেপই যথেষ্ট, নাকি আপনি অতীতের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক-গণতন্ত্রপ্রেমী জনগণের সাথে সংহতি প্রদর্শনের জন্য আরও পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বিবেচনা করবেন?

জবাবে ম্যাথিউ মিলার বলেন, আমরা ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে মামলার অগ্রগতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। ড. ইউনূসকে হয়রানি এবং হুমকি প্রদর্শনের জন্য শ্রম আইনের অপব্যবহার হতে পারে এমন শঙ্কায় আমরা আমাদের উদ্বেগ প্রকাশ করেছি।

Advertisement

তিনি আরও বলেন, আমরা আরও উদ্বিগ্ন, শ্রম এবং দুর্নীতিবিরোধী আইনের এই ধরনের অপব্যবহার আইনের শাসন নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারে এবং সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগে বাধা আসতে পারে।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের এই মুখপাত্র বলেন, বিচার প্রক্রিয়া চলতে থাকায় আমরা বাংলাদেশ সরকারকে ড. ইউনূসের বিষয়ে ন্যায্য ও স্বচ্ছ আইনি প্রক্রিয়া নিশ্চিত করতে উৎসাহিত করতে থাকব, কিন্তু (নিষেধাজ্ঞা বা বিধিনিষেধ) আরোপ নিয়ে আগাম বলার মতো কোনও তথ্য আমার কাছে নেই।

টিআর/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

উত্তর আমেরিকা

প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট পেলো মেক্সিকো

Published

on

মেক্সিকোর প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন ক্লাউডিয়া শেইনবাম। দেশটির শাসক দল মরেনা পার্টি রোববার (৩ জুন) তাকে নির্বাচনে বিজয়ী ঘোষণা করেছে। টেলিভিশন চ্যানেল এনএমএএস এবং সংবাদপত্র এল ফিনান্সিরো বলেছে, ভোটে শেইনবাউম বিজয়ী হয়েছে, যদিও তারা পরিসংখ্যান দেয়নি।

সোমবার (৩ জুন) রয়টার্সের দেয়া প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

ক্ষমতাসীন মোরেনা পার্টির প্রধান মারিও ডেলগাডো মেক্সিকো সিটিতে সমর্থকদের বলেছেন, শেইনবাম ‘খুব বড়’ ব্যবধানে জিতেছেন।

পোলস্টার প্যারামেট্রিয়া পূর্বাভাস দিয়েছে শেইনবাম ৫৬ শতাংশ ভোটে জয়ী হয়েছেন। যেখানে তার বিরোধী প্রার্থী যোসিটি গ্যালভেজ ৩০ শতাংশ ভোট পেয়েছেন।

নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর আগামী ১ অক্টোবর তিনি ছয় বছরের জন্য রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করবেন।

Advertisement

গতকাল সকালে ভোট দিতে যাওয়ার পথে শেইনবাম সাংবাদিকদের বলেন, এটি একটি ‘ঐতিহাসিক দিন’ এবং তিনি স্বাচ্ছন্দ্য করছেন।

তার বিজয় মেক্সিকোর জন্য একটি বড় পদক্ষেপের প্রতিনিধিত্ব করে।

টিআর/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত