Connect with us

অপরাধ

মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ৪৯

Avatar of author

Published

on

মাদকবিরোধী

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) বিভিন্ন অপরাধ ও গোয়েন্দা বিভাগ। অভিযানে মাদক বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে ৪৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার  (২৮ মার্চ) সকালে ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগ থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

ডিএমপি পক্ষ থেকে বলা হয়, ডিএমপির নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে সোমবার (২৭ মার্চ) সকাল ৬টা থেকে আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালানো হয়।

এ সময় ৫ হাজার ৩৯ পিস ইয়াবা, ১৯ কেজি ২১০ গ্রাম গাঁজা ও  ৩৯৬.২ গ্রাম ১০০ পুরিয়া হেরোইন উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তারদের বিরুদ্ধে ডিএমপির সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৩৯টি মামলা রুজু হয়েছে।

Advertisement
Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

অপরাধ

‘রাফসান দ্য ছোট ভাই’য়ের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

Published

on

রাফসান-দ্য-ছোট-ভাই

অনুমোদনহীন ব্লু ড্রিংকস বাজারজাত করায় ‘রাফসান দ্য ছোট ভাই’ খ্যাত জনপ্রিয় ইউটিউবার ইফতেখার রাফসানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকেলে তার বিরুদ্ধে এই পরোয়ানা জারি করা হয়।

গেলো মাসে নোংরা পরিবেশে কারখানায় ড্রিংকস ব্লু (BLU) তৈরির অভিযোগ ওঠে। যদিও পরে ‘ব্লু’ এর অফিশিয়াল পেজে পণ্যটি প্রসঙ্গে প্রয়োজনীয় তথ্য তুলে ধরেন।

এর আগে বাবা-মাকে বিলাসবহুল গাড়ি উপহার দিয়ে আলোচনায় আসেন এই ইউটিউবার। সে সময় একটি গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয় রাফসানের বাবা-মা ঋণখেলাপি। বাবা মায়ের ঋণ পরিশোধ না করে তিনি তাদের গাড়ি উপহার দিয়েছেন।

সে সময় বিষয়টি নিয়ে সামাজিকমাধ্যমে বেশ আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়। পরে ফেসবুক লাইভে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন তিনি। প্রায় ৫ মিনিটের ওই লাইভে রাফসান বলেন, ‘আমার গাড়ি কেনা নিয়ে যে তথ্য ছড়িয়ে পড়েছে তা ভুল। খোঁজ নিয়ে দেখেন আমার গাড়ির দাম মোটেও ২ কোটি টাকা নয়।

Advertisement

রাফসান আরও বলেন, ‘আমার বাবা, মার একটি কোম্পানি আছে। ওই কোম্পানি লোনও নিয়েছিল। ব্যাংক থেকে লোন নিতে হলে সম্পত্তি মরগেজ দিয়ে টাকা নিতে হয়। আমরা আমাদের ১০ গুণ জমির দামে ১ টাকা লোন নিয়েছি ধরেন। এখন ব্যাংক চাচ্ছে, পুরো জমিটি হাতিয়ে নিতে। এজন্য আদালতে মামলা চলছে।’

এ সময় রাফসান আফসোস করে বলেন, ‘মামলায় দুই পক্ষের কথাই আদালত শুনবেন। তবে এখনও পর্যন্ত কোর্টে সিদ্ধান্ত হয়নি আমরা ব্যাংককে কত টাকা ফেরত দেব। তাই ঋণ পরিশোধের বিষয়টি এখানে কীভাবে আসে?’

রাফসান আরও বলেন, ‘আমি বাবা-মায়ের সুসন্তান। অথচ সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই আমাকে শেখাচ্ছে, বাবা, মায়ের ঋণ পরিশোধ না করার, গাড়ি না কেনার। আমি বলতে চাই, আমার ভাই সামর্থ্য আছে গাড়ি কিনেও আমার বাবা মায়ের ঋণ পরিশোধ করার। সবাইকে বলে রাখা ভালো, কোভিডের সময় যখন আমার বাবা-মায়ের ব্যবসা ডাউন হয় ওই সময় থেকেই আমি আমার বাবা, মাকে সাপোর্ট করা শুরু করেছি। তাই ব্যাংকের ঋণ পরিশোধ করছি না- বিষয়টি অদ্ভুত। আমাদের ব্যাংক ঋণের টাকাটা আগে আদালত জানাবে, তারপর আমরা তা পরিশোধ করব।’

সবশেষে রাফসান বলেন, ‘স্টোরির একদিক শুনে কখনও বিচার করা উচিত নয়। তাই আমি আমার ও আমার পরিবারের নামে যে ভুল তথ্য ছড়ানো হচ্ছে, দ্রুত সে বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেব।’

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

অপরাধ

মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২৩  

Published

on

মাদকবিরোধী

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) বিভিন্ন অপরাধ ও গোয়েন্দা বিভাগ। অভিযানে মাদক বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে ২৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকালে ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগ থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

ডিএমপি পক্ষ থেকে বলা হয়, ডিএমপির নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে বুধবার (১২ জুন) সকাল ৬টা থেকে আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালানো হয়।

এ সময় ২৫১  পিস ইয়াবা, ২৫২  গ্রাম হেরোইন  ও  ৫ কেজি  ৩০০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তারদের বিরুদ্ধে ডিএমপির সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ১৭টি মামলা রুজু হয়েছে।

Advertisement

কেএস/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

অপরাধ

এমপি আনার হত্যার ছবি প্রকাশ, বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য

Published

on

ঝিনাইদহ- ৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের সঙ্গে কলকাতার নিউ টাউনের সঞ্জীবা গার্ডেনসের ফ্লাটটিতে ঠিক কী ঘটেছিলো, তা নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য ও ভিডিও এসেছে গণমাধ্যমের হাতে। হত্যার পর আনারকে বেঁধে রাখার চিত্রও প্রকাশ পেয়েছে।

ওই ভিডিওতে দেখা গেছে, কসাই জিহাদ স্বীকারোক্তি দিয়ে জানাচ্ছেন, বালিশ চাপা দিয়ে আনারকে হত্যা করার পর ওই ফ্ল্যাটের বাথরুমে কীভাবে তার মরদেহ টুকরো টুকরো ফ্ল্যাশ করা হয়।

ভিডিওতে আরও দেখা যাচ্ছে, অজ্ঞান করার রাসায়নিক ক্লোরোফর্ম দিয়ে অচেতন করে তাকে বালিশ চাপা দিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি খুনিরা। মৃত আনারকে চেয়ারে বসিয়ে তার হাত ও পা শক্ত করে বেঁধে রাখা হয়। ফ্ল্যাটের বাথরুমে টুকরো টুকরো করে আনারের দেহাংশ ফ্লাশ করে দেয়া হয়।

ট্রিপ্লেক্স সেই ফ্ল্যাটের বসার ঘরে আনারকে স্বাগত জানান শিলাস্তি। পরে আসে জিহাদ। তখন শিলাস্তিকে নিচের ফ্লাটে যেতে বলা হয়। পুলিশ জিহাদকে নিয়ে ফ্ল্যাটের নিচে নামার পর জিহাদ দেখায় কোথায় বালিশ চাপা দিয়ে আনারকে হত্যা করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ১২ মে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ থেকে কলকাতায় যাওয়ার পরেরদিন রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়ে যান তিনবারের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার। এরপর ২২ মে সকালের দিকে তার খুনের খবর প্রকাশ্যে আসে।

Advertisement

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত