Connect with us

ফিচার

ঝাল খাবার খেলে শরীরে হয় যে প্রতিক্রিয়া

Avatar of author

Published

on

মরিচ

অনেকেই আছেন যারা নিয়মিত ঝাল খাবার খেতে পছন্দ করেন। লক্ষ্য করে দেখবেন ঝাল খাবার গ্রহণের প্রতিক্রিয়া হিসেবে সাধারণত শরীর তাৎক্ষণিকভাবে ঘেমে যায়। মূলত ঝাল খাবারের কয়েকটি উপাদান মুখ থেকে শুরু করে পাকস্থলী পর্যন্ত থাকা স্নায়ু রিসেপ্টরগুলোতে উষ্ণ অনুভূতি সৃষ্টির ফলে এমনটি ঘটে থাকে।

কিন্তু ঝাল খাবার খেলে শরীরে ঠিক কী ধরনের প্রতিক্রিয়া হতে পারে সেটা বেশিরভাগেরই অজানা। আন্তজার্তিক সংবাদ সংস্থা নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদন থেকে জানা গেল সেরকমই কিছু তথ্য।

ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার ফিজিওলজিস্ট ডেভিড জুলিয়াস বলেন, “ঝাল খাবার গ্রহণের ফলে দেহে বিভিন্ন শরীরবৃত্তীয় প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হতে পারে। জিহ্বা ও ঠোঁটে অসাড় অনুভূতি থেকে শুরু করে শরীর ঘেমে যাওয়া এর মধ্যে অন্যতম।”

তবে ঝাল খাবার গ্রহণের ফলে দেহে সৃষ্ট সবধরনের প্রতিক্রিয়াই যে ইতিবাচক, এমনটি নয়। এমনকি কেউ যদি ঝাল খেতে ভালোবাসে তবুও সেটি নেতিবাচক হতে পারে। কেননা প্রতিক্রিয়া হিসেবে দেহে ঝাল খাবারের উপকারিতা ও ক্ষতিকারক উভয় দিকই রয়েছে।

শরীর ঘেমে যাওয়া

ঝাল খাবার গ্রহণের পর তাৎক্ষণিকভাবে শরীরঘেমে যায়। মূলত ঝাল খাবারের কয়েকটি উপাদান মুখ থেকে শুরু করে পাকস্থলী পর্যন্ত থাকা স্নায়ু রিসেপ্টরগুলোতে উষ্ণ অনুভূতি সৃষ্টির ফলে এমনটি ঘটে থাকে।

Advertisement

উদাহরণ হিসেবে বহুল প্রচলিত ঝাল খাবার মরিচের কথাই বলা যাক। এতে ক্যাপসাইসিন নামের এক প্রকার যৌগ থাকে যা খাওয়ার সময় পরিপাকতন্ত্রের স্নায়ু রিসেপ্টরের সংস্পর্শে আসে। ফলে রিসেপ্টরগুলো মস্তিষ্কে এক প্রকার পীড়াদায়ক সংকেত পাঠায়।

বাস্তব জীবনে আগুনের আশেপাশে থাকলেও স্নায়ু ব্যক্তির মস্তিষ্কে একই ধরনের সংকেত পাঠায়। যার ফলে শরীর ঘেমে যায় এবং এই প্রক্রিয়ায় দেহ ঠান্ডা করার চেষ্টা করা হয়।

এ বিষয়ে ডেভিড জুলিয়াস বলেন, “ক্যাপসাইসিন স্নায়ুকোষে এমন বার্তা দেয় যে, দেশের তাপমাত্রা বেড়ে গিয়েছে। তাই মস্তিষ্ক তখন তাপমাত্রা কমানোর প্রয়োজন অনুভব করে। আর এই তাপমাত্রা কমাতেই শরীর বেশিরভাগ সময় ঘেমে যায়।”

পরিপাকতন্ত্রে সমস্যা

পাকস্থলীতে সমস্যা না থাকলে পরিমিত মাত্রায় ঝাল খাবার গ্রহণে তেমন কোনো সমস্যা নেই। তবে ক্ষেত্রবিশেষে এসব খাবার পরিপাকতন্ত্রে ক্ষত সৃষ্টি থেকে শুরু করে বুকজ্বালা, পেটে ব্যাথা ও ডায়রিয়ার মতো অবস্থা সৃষ্টি করতে পারে। বিশেষ করে গ্যাস্ট্রিকে আক্রান্ত ব্যক্তিদের এই ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি।

দেহের জন্য ঝাল হতে পারে উপকারী

দেহে ঝাল খাবার গ্রহণের প্রতিক্রিয়া নিয়ে করা বেশ কয়েকটি গবেষণায় স্বাস্থ্যগত দিক থেকে এর উপকারিতা পাওয়া গিয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, একটি গবেষণায় দেখা যায়, প্রতিদিন ক্যাপসাইসিন গ্রহণের ফলে দেহে বিপাকীয় কার্যক্রম গতি লাভ করে। একইসাথে গবেষণায় অংশ নেওয়া ব্যক্তিদের দেহে প্রতিদিন অতিরিক্ত ২০০ ক্যালরি শক্তি বেশি ব্যয় হয়।

Advertisement

অন্যদিকে ২০২২ সালে ৬ হাজার প্রাপ্তবয়স্কের ওপর করা একটি গবেষণায় দেখা যায়, দেহে ঝাল খাবার করোনারি আর্টারিতে ক্যালসিয়াম জমতে দেয় না। ফলে বাধাহীনভাবে হৃদপিণ্ডে রক্ত চলাচল করতে পারে।

প্রতিনিয়ত ঝাল খাবার গ্রহণের ফলে স্থূলতা, হার্ট এটাকের প্রবণতা কমে বলেও বহু বিশেষজ্ঞ মত দিয়েছেন। তবে এটি এখনো পুরোপুরি নিশ্চিত নয়, তাই অধিকতর গবেষণা জরুরী।

আবার দেহে ক্যান্সারের সাথে ঝাল খাবারের সম্পর্ক নিয়েও রয়েছে পরস্পরবিরোধী মতামত। কয়েকটি গবেষণায় দেখা যায়, প্রতিনিয়ত ঝাল খাবার গ্রহণের ফলে খাদ্যনালীর ক্যান্সারের প্রবণতা বেড়ে যায়।

অন্যদিকে গবেষণাগারে কোষের ওপর করা বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা যায়, গোলমরিচে থাকা ক্যাপসাইসিনের মতো রাসায়নিক স্তন ক্যান্সার রোধে কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারে। এমনকি ঝাল খাবারের এই প্রভাবের ওপর ভিত্তি করে ক্যান্সারের চিকিৎসা করা যায় কি-না সেটাও ভাবা হচ্ছে।

২০১৫ সালে চীনে প্রায় ৫ লাখ লোকের ওপর করা এক গবেষণায় দেখা যায়, যেসব ব্যক্তি সপ্তাহে একবার ঝাল খাবার গ্রহণ করে, তাদের তুলনায় যারা বহুদিন ধরে সপ্তাহে গড়ে ৬ থেকে ৭ বার ঝাল খাবার গ্রহণ করে তাদের মৃত্যুঝুঁকির পরিমাণ ১৪ ভাগ কম।

Advertisement

মারাত্মক প্রতিক্রিয়ার সম্ভাবনাও আছে

অত্যাধিক ঝাল মরিচ দেহে প্রচণ্ড মাথাব্যাথা ও বমির মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারে। তবে সাধারণ মরিচ হলে কিংবা ঝাল খাবারে অভ্যস্ততা থাকলে এমনটি হওয়ার সম্ভবনা খুবই কম।

ব্যক্তি যদি নিজের সহ্য ক্ষমতার চেয়ে বেশি ঝাল খাবার খেয়ে ফেলে তবে তা প্রশমনে উচ্চমাত্রার ফ্যাটজাতীয় খাবার খেতে হবে। এক্ষেত্রে দুধ কিংবা এক চা-চামচ টকজাতীয় খাবার বেশ কার্যকরী।

এ বিষয়ে জুলিয়াস বলেন, “ফ্যাটজাতীয় খাদ্য পরিপাকতন্ত্রের টিস্যু থেকে ক্যাপসাইসিন যৌগটিকে সরিয়ে ফেলে। ফলে ঝালের কারণে যে অস্বস্তিকর অনুভূতি, সেটিও কমে আসে। এক্ষেত্রে ফ্যাটজাতীয় খাদ্যের মতো পানি ততটা কার্যকরী নয়।”

জুলিয়াস জানান, একজন ব্যক্তির দেহ ঠিক যতটুক ঝাল খাবার সহ্য করতে পারে তার ঠিক ততটুক ঝালই গ্রহণ করা উচিত। এতে করে খাবার তৃপ্তিদায়ক মনে হয়। আর কেউ যদি ঝাল খেতে পছন্দ করে এবং শরীর তা সহ্য করতে পারে তবে ঝাল খাবার এড়িয়ে চলার কোনো প্রয়োজন নেই।

Advertisement
Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

ফিচার

বর্ষার ছন্দে এসেছে আষাঢ়ে মেঘের ভেলা!

Published

on

বাংলা পঞ্জিকা না খুললেও প্রকৃতি যেন একটু একটু করে বলছে আষাঢ় এসে গেছে। সকালে আকাশ মেঘলা জানিয়ে দিয়ে আজ শনিবার (১৫ জুন) বাংলা তৃতীয় মাসের আর্বিভাব ঘটে গেছে। বৃষ্টি না থাকলে মেঘলা মেঘলা একটা অনুভূতি কিন্তু আছে।

আর তাই হয়তো কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখে গেছেন, ‘আবার এসেছে আষাঢ় আকাশ ছেয়ে, আসে বৃষ্টির সুবাস বাতাস বেয়ে। এই পুরাতন হৃদয় আমার আজি পুলকে দুলিয়া উঠিছে আবার বাজি নূতন মেঘের ঘনিমার পানে চেয়ে আবার এসেছে আষাঢ় আকাশ ছেয়ে। ‘

ঋতুচক্রে আষাঢ়-শ্রাবণ বর্ষাকাল। আষাঢ় মানে বিশাল আকাশে কালো মেঘের পালকিতে ভেসে বেড়ানো মুহুর্মুহু ডঙ্কা-নিনাদ, ঝমঝম বৃষ্টি। বর্ষার শীতল জলে নবজীবন লাভ করে পল্লবপুঞ্জ। প্রকৃতিকে প্রাণবন্ত, সতেজ ও শত সহস্র মনের প্রেমে ভিজিয়ে রাখার সাধ্য যে একমাত্র আষাঢ়েরই আছে, তা অস্বীকার করার সাধ্যি কার। কদম, কেয়া আর কেতকীর নয়নাভিরাম রূপের পসরা ও পেখম খোলা ময়ূরের উচ্ছল নৃত্যের আবাহন নিয়ে আসে বৃষ্টি।

আষাঢ় শব্দটি এসেছে পূর্বাষাঢ়া ও উত্তরাষাঢ়া নক্ষত্রে সূর্যের অবস্থান থেকে। আষাঢ় বাংলা সনের তৃতীয় মাস। গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসারে জুন-জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে আষাঢ় আসে।

বছরভর বাংলার প্রকৃতি হাজির হয় ভিন্ন ভিন্ন অপরূপ সাজে। তার মধ্যে বর্ষার সজল, শ্যামল রূপ অনন্যতায় ভরপুর। ধানের ক্ষেতে রৌদ্র-হাওয়ার লুকোচুরির মতো অপার্থিব দৃশ্য আর কখন মেলে! আষাঢ় আর শ্রাবণ দুই মাসজুড়ে ব্যাপ্তি বর্ষার। মাস দুয়েক নানা মাত্রায় বাদলের ধারা ঝরে ঝরঝর। টিপটিপ, ঝিরিঝিরি, ইলশেগুঁড়ি, মুষলধার—বর্ষার বারিধারার কতই না নাম! কবিরা তার মধ্যে শোনেন নূপুর, মৃদঙ্গ আর মাদলের বোল। আকাশের চেহারারও সে কী বৈচিত্র্য! সারাদিন ঘোলাটে থেকে শুরু করে ছাইরঙা হয়ে মোষের মতো কালো। বর্ষার প্রকৃতিতে ডাকাতের মতোই দৌরাত্ম্য চলে মেঘেদের। কখনো কখনো বর্ষণ শেষে সেই মেঘের ফাঁকে হঠাৎ উঁকি দেয় আকাশজোড়া স্বর্গীয় রঙধনু।

Advertisement

একালে অবশ্য আমাদের কেবল বর্ষা নিয়ে কাব্যকথায় বুঁদ হয়ে থাকলে চলে না। বিশেষ করে নগরে বর্ষা মানে মাথায় রাখতে হয় যানজট আর জলজটের কথা। জলবায়ুর পরিবর্তনের কারণেই নাকি গ্রীষ্ম-বর্ষা জুড়ে বেড়ে চলেছে বজ্রপাত আর তাতে হতাহতের সংখ্যাও।

টিআর/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ফিচার

সীমার মাঝে অসীম ‘মা’

Published

on

কবি কাজী নজরুল ইসলাম ঠিকই লিখেছিলেন ‘যেখানেতে দেখি যাহা, মা-এর মতন আহা। মার বড়ো কেউ নাই –কেউ নাই কেউ নাই! নত করি বল সবে মা আমার! মা আমার!’ আর সেটাই তো মা ছাড়া আপন আর কে’ই বা আছে।

এক অক্ষরের একটি ছোট্ট শব্দ ‘মা’। অথচ ছোট্ট শব্দটির অর্থ কতোটা অসীম, অদ্বিতীয় তা প্রকাশের ভাষাও এখনো তৈরি হয়নি। যার সাথে কারোর তুলনা চলে না। সীমার মাঝে অসীম হলো ‘মা’। মা মানে মমতা, মা মানে ক্ষমতা, মা মানে নিরাপত্তা, মা মানে নিশ্চয়তা, মা মানে আশ্রয়দাতা, মা মানে সকল আশা, মা মানে এক বুক ভালোবাসা। মা এক বর্ণের এক বিশাল নাম। অস্তিত্বের নিরাপত্তার নাম। সন্তানের জন্য মা শাশ্বত।

আজ পৃথিবীর সকল মা’য়েদের জন্য একটি বিশেষ দিন। দিনটি হলো বিশ্ব মা দিবস। প্রতি বছর মে মাসের দ্বিতীয় রোববার পালন করা হয় বিশ্ব মা দিবস। এ হিসাব অনুযায়ী, আজ ১২ মে সারাবিশ্বে পালন করা হচ্ছে মা দিবসটি। দিনটিতে মাকে বিশেষভাবে ভালোবাসা এবং শ্রদ্ধা জানানোর দিন।

বিশেষ এই দিবসটি কীভাবে এলো তা হয়তো অনেকেরই অজানা। ইতিহাস বলছে, অনেক পথ পেরিয়ে এই দিবসটি নতুন রূপ পেয়েছে। ধারণা করা হয়, মা দিবসের সূচনা প্রাচীন গ্রিসের মাতৃরূপী দেবী সিবেলের এবং প্রাচীন রোমান দেবী জুনোর আরাধনা থেকে।

এছাড়া ইউরোপ ও যুক্তরাজ্য অনেক আগে থেকেই মায়েদের এবং মাতৃত্বকে সম্মান জানানোর জন্য একটি নির্দিষ্ট রোববারকে বেছে নিয়েছিলেন। ষোড়শ শতকে এটি ইংল্যান্ডে মাদারিং সানডে বলে পরিচিতি লাভ করে। অনেকেই ক্যাথলিক পঞ্জিকা অনুযায়ী এটিকে লেতারে সানডে যা লেন্টের সময়ে চতুর্থ রোববারে পালন করতে শুরু করে।

Advertisement

তবে ইতিহাস বিদদের মতে, জুলিয়া ওয়ার্ড হোই রচিত “মাদার্স ডে প্রক্লামেশন” বা “মা দিবসের ঘোষণাপত্র” মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মা দিবস পালনের গোড়ার দিকের প্রচেষ্টাগুলোর মধ্যে অন্যতম।

১৮৭০ সালে আমেরিকার গৃহযুদ্ধের পৈশাচিকতার মাত্রা ছাড়িয়ে গেলে শান্তির প্রত্যাশায় জুলিয়া একটি ঘোষণাপত্র লেখেন। এরপর যুদ্ধ শেষে পরিবারহীন অনাথদের সেবায় ও একত্রীকরণে নিয়োজিত হন মার্কিন সমাজকর্মী আনা রিভিজ জার্ভিস ও তার মেয়ে আনা মেরি জার্ভিস।

এ সময় তারা জুলিয়া ওয়ার্ড ঘোষিত মা দিবস পালন করতে শুরু করেন। কিন্তু শারীরিক অসুস্থতার কারণে আনা রিভিজ জার্ভিস ১৯০৫ সালের ৫ মে মারা যান।

মায়ের মৃত্যুর পর আনা মেরি জার্ভিস মায়ের শান্তি কামনায় ও তার সম্মানে সরকারিভাবে মা দিবস পালনের জন্য প্রচারণা চালান। তিন বছর পর ১৯০৮ সালের ১০ মে পশ্চিম ভার্জিনিয়ার আন্দ্রেউজ মেথডিস্ট এপিসকোপাল চার্চে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম মা দিবস পালন হয়।

এরপর ১৯১২ সালে এই দিবসটিকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য ব্যাপক প্রচার শুরু হয়। এই প্রচার ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ কানাডা, মেক্সিকো, চীন, জাপান, দক্ষিণ আমেরিকা ও আফ্রিকায়।

Advertisement

এ প্রচারের পরিপ্রেক্ষিতে ১৯১৪ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট উড্রো উইলসন মে মাসের দ্বিতীয় রোববারকে মা দিবস ও জাতীয় ছুটির দিন হিসেবে ঘোষণা করেন। এরপর থেকেই প্রতিটি দেশে মায়েদের সম্মান ও শ্রদ্ধা জানানোর জন্য এই দিনটি উৎসর্গ করা হয়। দেশে দেশে পালন করা হয় বিশ্ব মা দিবস।

টিআর/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

ফিচার

প্রিয় মানুষের আলিঙ্গনে বাড়ে আত্মবিশ্বাস

Published

on

আলিঙ্গন

বলিউডের ‘মুন্না ভাই এমবিবিএস’ চলচ্চিত্রের কথা মনে আছে কি? যেখানে জনপ্রিয় অভিনেতা সঞ্জয় দত্ত ‘জাদু কি ঝাপ্পি’ বলে জড়িয়ে ধরেন সামনের মানুষটিকে। মুন্না ভাই বিশ্বাস করেন এই আলিঙ্গন এনে দেয় প্রশান্তি, বাড়িয়ে দেয় নিজের মধ্যে আত্মবিশ্বাস।

এ তো গেলো চলচ্চিত্রের কথা। বিভিন্ন গবেষণাতেও দেখা গেছে,  প্রীতিপূর্ণ আলিঙ্গন মানুষের মধ্যে আত্মবিশ্বাস বাড়ায়। এর মাধ্যমে নির্গত হয় অক্সিটোসিন হরমোন, যার ফলে মানসিক অবসাদ কমে গিয়ে মনে আনন্দের অনুভূতি তৈরি হয়। দুশ্চিন্তা কমে গিয়ে স্বস্তি আসে। শুধু তাই নয় আন্তরিক আলিঙ্গন রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ায়। কমায় রক্তচাপ ও হৃদরোগের ঝুঁকি, সেই সঙ্গে দূর করে নানা শারীরিক ব্যথাও।

আজ ৬ জানুয়ারি, আলিঙ্গন দিবস। আমেরিকায় দিনটি উদযাপিত হয়। অবশ্য কবে কীভাবে এই দিবসের চল হয়েছিল তা জানা যায় না। তবে আলিঙ্গন বলতে শুধু প্রেমিক-প্রেমিকা বা স্বামী-স্ত্রীর রোমান্টিক আলিঙ্গনকে বোঝাচ্ছে না।

আলিঙ্গন

আত্মীয় বা বন্ধুর সঙ্গে আলিঙ্গনেও বাড়ে আন্তরিকতা। সম্পর্কগুলো আরও গভীর হয়, মজবুত হয়। সাধারণত, বন্ধু-বান্ধব ও আত্মীয়-স্বজনকে শুভেচ্ছা জানানোর সময়, বিদায় জানানোর সময় বা কাউকে অভিনন্দন জানানোর সময় আমরা আলিঙ্গন করি। কাউকে সান্ত্বনা দিতে বা সহানুভূতি জানাতেও আমরা আলিঙ্গন করি।

তীব্র শীত মৌসুমে একটুখানি উষ্ণতার অভাবে কষ্ট পাচ্ছে কত অসহায় মানুষ। সেসব শীতার্ত মানুষের মধ্যে আলিঙ্গনের উষ্ণতা ছড়িয়ে দিতে এ দিবসের যাত্রা শুরু। আজকের দিনটি কিন্তু পালন করতে পারেন নিজের যতটুকু সাধ্য আছে তা নিয়েই শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে। বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে চাঁদা তুলে কিনতে পারেন কিছু লেপ-কম্বল। যারা শীতে কষ্ট পাচ্ছে, তাদের বিলিয়ে দিতে পারেন। এভাবেই ছড়িয়ে দিতে পারেন আলিঙ্গনের উষ্ণতা।

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত