Connect with us

খুলনা

নগরবাসী ভোট না দিলে পরাজয় মেনে নেব: খালেক

Avatar of author

Published

on

নগরবাসী

খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে। নগরবাসী ভোট না দিলে পরাজয় মেনে নেব।

সোমবার (১২ জুন) সকাল ৯টা ২০ মিনিটে মহানগরীর ২২ নম্বর ওয়ার্ডের সাউথ সেন্ট্রাল রোডে পাইওনিয়ার মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেখা শেষে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, এখনও তো অনেক সময় রয়েছে। বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোট দেয়ার সময়। রান্না ও অন্যান্য কাজ শেষ করে মানুষ ভোট দিতে আসবে আশা করি।

এর আগে সকাল ৮টায় খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

এদিকে ইসলামী আন্দোলনের মেয়র প্রার্থী মো. আব্দুল আউয়াল সকাল ১০টায় নগরীর ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের বানিয়াখামার এলাকার দারুল কোরআন বহুমুখী মাদরাসা কেন্দ্রে, জাতীয় পার্টির শফিকুল ইসলাম মধু সকাল সাড়ে ১০টায় নগরীর ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের সোনাডাঙ্গা আবাসিক এলাকার কলেজিয়েট স্কুল কেন্দ্রে, সকাল ৯টায় মতিয়াখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে জাকের পার্টির এস এম সাব্বির হোসেন, আর সকাল ১০টায় আলিয়া মাদরাসা কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী এসএম শফিকুর রহমান মুশফিক।

Advertisement

কেসিসি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এবারের নির্বাচনের মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন ৫ জন। তারা হলেন আওয়ামী লীগের তালুকদার আব্দুল খালেক (নৌকা), জাতীয় পার্টির এস এম শফিকুল ইসলাম মধু (লাঙল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. আব্দুল আউয়াল (হাতপাখা), স্বতন্ত্রপ্রার্থী এস এম শফিকুর রহমান (দেয়াল ঘড়ি) ও জাকের পার্টির এস এম সাব্বির হোসেন (গোলাপ ফুল)।

৩১টি ওয়ার্ডের ২৮৯টি কেন্দ্রে ১ হাজার ৭৩২টি ভোটকক্ষে ভোট গ্রহণ চলছে। ৩১টি সাধারণ ওয়ার্ডে ১৩৬ জন ও ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৩৯ জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। যার মধ্যে নগরীর ১৩ ও ২৪ নম্বর ওয়ার্ডে ২ জন কাউন্সিলর বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

এবারের সিটি নির্বাচনে ৩১টি ওয়ার্ডে ২৮৯টি ভোটকেন্দ্রে ৫ লাখ ৩৫ হাজার ৫২৯ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করছেন। এর মধ্যে নারী ভোটার ২ লাখ ৬৬ হাজার ৬৯৬ জন ও পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৬৮ হাজার ৮৩৩ জন।

কেএস

Advertisement
Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

খুলনা

বাস চাপায় বাবা-ছেলের মৃত্যু, মা আহত

Published

on

বাবা

বাগেরহাটে যাত্রীবাহী বাস ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে বাবা-ছেলে নিহত ও গুরুতর আহত হয়েছেন মা। তাকে আশংকাজনক অবস্থায় ফকিরহাট উপজেলা হাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন, মোটরসাইকেল চালক খলিলুর রহমান (৪৫) এবং তার এক বছরের ছেলে (অজ্ঞাতনামা)। এ সময় নিহত খলিলুর রহমানের স্ত্রী মিনু বেগম (৩৫) গুরুত্বর আহত হন।

শনিবার (২২ জুন) সকালে খুলনা-বাগেরহাট আঞ্চলিক মহাসড়কের সিএন্ডবি বাজার সংলগ্ন ধরের ব্রিজ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন কাটাখালী হাইওয়ে থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান।

তিনি জানান, শনিবার (২২ জুন) সকাল ৯টার দিকে পটুয়াখালী থেকে মোটরসাইকেলযোগে তিন আরোহী যশোর গদখালী এলাকায় যাচ্ছিলেন। খুলনা-বাগেরহাট আঞ্চলিক মহাসড়কের ধরের ব্রিজ এলাকায় পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে বাগেরহাটগামী একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে হাইওয়ে থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে মরদেহ উদ্ধার করেন।

Advertisement

কাটাখালী হাইওয়ে ওসি আরও জানান, তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

কেএস/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

খুলনা

একই আসরে বিয়ে ও নববধূকে তালাক, ত্রিমুখী সংঘর্ষে আহত ৮

Published

on

প্রতীকী চিত্র

সবকিছু ঠিকঠাক চলছিলো। ধুমধামের সঙ্গে হচ্ছিলো বিয়ের অনুষ্ঠান। খাওয়ার পর্ব শেষে বিয়ের কাজও শেষ। এমন সময় স্ত্রীর দাবি নিয়ে বিয়ের আসরে উপস্থিত হন বরের খালাতো বোন। এ ঘটনায় ত্রিমুখী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত আটজন আহত হন। পরে পুলিশ ও স্থানীয় গণমাণ্য ব্যক্তি সালিশ করেন। এতে পাঁচ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার বিনিময়ে নববধূকে তালাক দেন বর ।

রোববার(১৬ জুন) সন্ধ্যায় চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা ঘটেছে চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা থানার আকন্দবাড়িয়া গ্রামে। দর্শনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার সাহা বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

দর্শনা থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়,বর আসিফ রহমান (২২) জীবননগর উপজেলার সিংনগর গ্রামের শমসের আলির ছেলে। রোববার বিকেলে আসিফ বিয়ের উদ্দেশে ৫০ জন বরযাত্রী নিয়ে যান। খাওয়া-দাওয়া শেষে সন্ধ্যায় বিবাহের কাজ শেষ হওয়ার পরপরই বিয়ের আসরে হাজির হন বরের খালাতো বোন (১৮)। তিনি উপস্থিত সবাইকে জানান, ৮ মাস আগে আসিফের সঙ্গে বিবাহ সম্পন্ন হয়েছে। ঘটনাটি জানাজানি হলে বিয়ের আসরেই ত্রিমুখী সংঘর্ষ বেধে যায়।

খবর পেয়ে দর্শনা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। এলাকাবাসী ও পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এ ঘটনায় ক্ষতিপূরণ বাবদ বরপক্ষ নববধূকে ৭৫ হাজার টাকা দেনমোহরসহ সোয়া ৫ লাখ টাকা জরিমানা দিয়েছে। পাশাপাশি বিয়ে পড়ানোর একই কাজী দিয়ে তালাক সম্পন্ন করা হয়।

দর্শনা থানার ওসি বিপ্লব কুমার সাহা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সংঘর্ষের খবর পেয়ে থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে। আট মাস আগে বিয়ে করার বিষয়টি উল্লেখ করে  বরের খালাতো বোনের পরিবারের পক্ষ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।’

Advertisement

এমআর//

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

খুলনা

পথচারীকে চাপা দিয়ে খুঁটির সঙ্গে ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ২

Published

on

যশোরের মনিরামপুরে ট্রাকচাপায় এক পথচারীসহ দুইজন নিহত হয়েছেন। সোমবার (১০ জুন) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে যশোর-চুকনগর মহাসড়কের বাঁধাঘাটা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- বাঁধাঘাটা গ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রহমান (৭০) ও দুর্ঘটনাকবলিত ট্রাকচালকের সহকারী। তার নাম পরিচয় এখনও জানা যায়নি।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন মনিরামপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এবিএম মেহেদী মাসুন।

স্থানীয়দের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি জানান, সকাল সাড়ে ৭টার দিকে যশোর থেকে চুকনগর যাচ্ছিল একটি পানির ট্যাংকি ভর্তি ট্রাক। ট্রাকটি মনিরামপুরের বাঁধাঘাটা এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এক পথচারীকে চাপা দিয়ে বৈদ্যুতিক খুঁটির সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে ঘটনাস্থলেই পথচারী আব্দুর রহমান ও ট্রাকচালকের সহকারী নিহত হন।

ওসি মেহেদী আরও বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত