Connect with us

আন্তর্জাতিক

রুশ সামরিক নেতৃত্বের পতন ঘটানোর প্রতিশ্রুতি ওয়াগনার প্রধানের

Avatar of author

Published

on

ওয়াগনার প্রধান

ওয়াগনার ভাড়াটে গোষ্ঠীর প্রধান শনিবার (২৪ জুন) রুশ সামরিক নেতৃত্বের পতন ঘটাতে ‘চূড়ান্ত পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার’ প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন।

ওয়াগনার প্রধান তার লোকদের উপর হামলা চালানোর জন্য রুশ বাহিনীকে অভিযুক্ত করেছেন। তবে রাশিয়ার প্রসিকিউটর জেনারেল বলেছেন, ‘সশস্ত্র বিদ্রোহের’ অভিযোগে ওয়াগনার প্রধানের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে।

ওয়াগনার প্রধান ইয়েভজেনি প্রিগোঝিন (৬২) এক অডিও বার্তায় বলেছেন, ‘আমরা এগিয়ে যাচ্ছি এবং আমরা শেষ পর্যন্ত যাব।’

গত বছর ইউক্রেনে আক্রমণ শুরু হওয়ার পর প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সামনে সবচেয়ে সাহসী চ্যালেঞ্জ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের পথে যা কিছু দাঁড়াবে আমরা তা ধ্বংস করব।’

পরে তিনি দাবি করেন, তার বাহিনী রাশিয়ার একটি সামরিক হেলিকপ্টার গুলি করে ভূপাতিত করেছে।

Advertisement

তিনি বলেন, ‘একটি হেলিকপ্টার এইমাত্র একটি বেসামরিক এলাকায় গুলি চালিয়েছে। পিএমসি ওয়াগনারের ইউনিটগুলো এটিকে গুলি করে ভূপাতিত করেছে।’
প্রিগোঝিন এর আগে বলেছেন, তার বাহিনী রাশিয়ার ব্যাপক আক্রমণের নেতৃত্ব দিয়েছে। তারা দক্ষিণ রাশিয়ার রোস্তভ অঞ্চলে প্রবেশ করেছে, কিন্তু এই ব্যাপারে তারা কোনো প্রমাণ হাজির করেনি এবং এএফপি স্বাধীনভাবে তার দাবিগুলো যাচাই করতে পারেনি।

রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন নিউজ এজেন্সি ‘তাস’ আইন শৃংঙ্খলা বাহিনীর উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, মস্কোতে কর্তৃপক্ষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা কঠোর করেছে। জরুরি অবকাঠামোগুলো ‘কড়া সুরক্ষার অধীনে রাখা হয়েছে।’

ফেডারেল সিকিউরিটি সার্ভিস (এফএসবি) ওয়াগনার যোদ্ধাদের প্রিগোঝিনকে ‘আটক করার ব্যবস্থা নিতে’ আহ্বান জানিয়েছে।

ক্রেমলিন জানিয়েছে, ওয়াগনার গ্রুপ এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মধ্যে উদ্ভূত উত্তেজনা সম্পর্কে পুতিনকে নিয়মিত আপডেট দেওয়া হচ্ছে।

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, প্রসিকিউটর জেনারেল ইগর ক্রাসনভ পুতিনকে প্রিগোঝিনের বিরুদ্ধে ‘সশস্ত্র বিদ্রোহ সংগঠিত করার প্রচেষ্টার জন্য একটি ফৌজদারি মামলার সূচনা’ সম্পর্কে জানিয়েছেন।

Advertisement

প্রিগোঝিন তার বাহিনীকে লক্ষ্য করে মারাত্মক ক্ষেপণাস্ত্র হামলার জন্য মস্কোকে অভিযুক্ত করার পরে এই বিরোধ ও সংঘাতের সূচনা ঘটে।

প্রিগোঝিন তার মুখপাত্রের প্রকাশিত বেশ কয়েকটি ক্ষুদ্ধ অডিও বার্তায় বলেছেন, ‘তারা (রাশিয়ার সামরিক বাহিনী) আমাদের পিছনের শিবির গুলোতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে। আমাদের বিপুল সংখ্যক যোদ্ধা, কমরেড মারা গেছে।’

‘পিএমসি ওয়াগনারের কমান্ডার কাউন্সিল একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। দেশের অশুভ সামরিক নেতৃত্বের কার্যক্রম অবশ্যই বন্ধ করতে হবে।’
তিনি তার বাহিনীকে প্রতিরোধ করার বিরুদ্ধে রাশিয়ানদের সতর্ক করে দিয়েছেন এবং তাদের সাথে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বলেছেন, ‘তার নেতৃত্বে ২৫ হাজার যোদ্ধা রয়েছে।’

‘আমাদের এই জগাখিচুড়ির অবসান ঘটাতে হবে’ এই কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এটি একটি সামরিক অভ্যুত্থান নয়, বরং ন্যায় বিচারের জন্য লড়াই।’
এফএসবি এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘প্রিগোঝিনের বিবৃতি এবং কর্মকান্ডগুলো আসলে রাশিয়ান ফেডারেশনের ভূখন্ডে একটি সশস্ত্র গৃহযুদ্ধ শুরু করার আহ্বান এবং ফ্যাসিবাদী ইউক্রেনীয় সমর্থকদের সাথে লড়াই করা রাশিয়ান সেনাদের পিঠে ছুরিকাঘাত করার আহ্বান।’

প্রিগোঝিনের দল ইউক্রেনে রাশিয়ার বেশিরভাগ আক্রমণের নেতৃত্ব দিয়েছে। তিনি সাম্প্রতিক মাসগুলোতে মস্কোর সামরিক নেতৃত্বের সাথে একটি তিক্ত দ্ব›েদ্ধ জড়িয়ে পড়েছেন এবং বারবার প্রতিরক্ষা মন্ত্রী সের্গেই শোইগু এবং জেনারেল স্টাফের প্রধান ভ্যালেরি গেরাসিমভকে তার যোদ্ধাদের মৃত্যুর জন্য দায়ী করেছেন।

Advertisement

প্রিগোঝিনের বাহিনীর উপর রাশিয়ান হামলার দাবি অস্বীকার করে রাশিয়ান প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয় বলেছে, বিবৃতিগুলো ‘বাস্তবতার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ নয়’ এবং সেগুলোকে ‘উস্কানি’ বলে অভিহিত করেছে।

রাশিয়ান প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয় পরে বলেছে, ইউক্রেনীয় সেনারা পূর্ব ইউক্রেনের হটস্পট বাখমুতের কাছে একটি আক্রমণের জন্য প্রস্তুত হওয়ার জন্য অন্তর্দ্ব›েদ্ধর সুযোগ নিয়েছিল।

একজন বিশিষ্ট রাশিয়ান জেনারেল মস্কোর প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের নেতৃত্ব অপসারণের প্রচেষ্টা প্রত্যাহার করার জন্য প্রিগোঝিনকে আহ্বান জানিয়েছেন।
একটি অত্যন্ত অস্বাভাবিক ভিডিও ঠিকানা থেকে রাশিয়ার বিমান বাহিনীর কমান্ডার সের্গেই সুরোভিকিন ওয়াগনার প্রধান প্রিগোঝিনকে লক্ষ্য করে বলেছেন, ‘আমি আপনাকে থামতে অনুরোধ করছি।’

‘শত্রুরা আমাদের দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে। কাল বিলম্ব না করে রুশ ফেডারেশনের জনপ্রিয় নির্বাচিত প্রেসিডেন্টের ইচ্ছা ও আদেশ মেনে চলা প্রয়োজন।’

কিয়েভ বলেছে, তারা মস্কোর অন্তর্দ্ব›দ্ধ পর্যবেক্ষণ করছে।

Advertisement

ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক টুইটে বলেছে, ‘পরিস্থিতি আমরা দেখছি’। ইউক্রেনের সামরিক গোয়েন্দা প্রধান কিরিলো বুদানভ বলেছেন, প্রতিদ্ব›দ্ধী রাশিয়ান দলগুলো ‘ক্ষমতা এবং অর্থের জন্য একে অপরকে খেতে শুরু করেছে।’

 

Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

আন্তর্জাতিক

গাজার রাফায় ইসরাইলের ভয়াবহ হামলা, নিহত ১৭

Published

on

ইসরাইলি বিমান হামলায় গাজার দুটি ঐতিহাসিক শরণার্থী ক্যাম্পের ১৭ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) এই হামলা চালানো হয় ।স্থানীয় বাসিন্দা এবং মেডিকেলকর্মীদের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে রয়টার্স

বাসিন্দারা বলছে, ট্যাংক থেকে রাফার বিভিন্ন এলাকায় বোমা হামলা চালানো হচ্ছে এবং একযোগে বিমান থেকেও হামলা চালানো হচ্ছে।

মে মাসে আগে থেকেই এখানে ১০ লাখের বেশি ফিলিস্তিনি শরণার্থী আশ্রয় নিয়েছিল।

ইসরাইল বাহিনী নতুন করে এখানে হামলা চালানোর পর অনেক শরণার্থী উত্তরাঞ্চলে পালিয়ে গেছে।

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবে নিহত ১০, বাংলাদেশিসহ জীবিত উদ্ধার ৫১

Published

on

ভূমধ্যসাগরে-নৌকা-ডুবি

লিবিয়ার জোয়ারা উপকূল থেকে ৬১ জন অভিবাসী নিয়ে যাত্রা করা একটি কাঠের নৌকা থেকে ১০ অভিবাসীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। নৌকাটিতে গ্যাসোলিনের ধোঁয়া থেকে সৃষ্ট বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা যায়। জার্মান এনজিও রেসকিউশিপ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) কাতারভিত্তিক সংবাদ সংস্থা আল-জাজিরা ইতালিয়ান কোস্ট গার্ড, জাতিসংঘের সংস্থা ও জার্মান একটি দাতব্য সংস্থার বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে।

জার্মান দাতব্য সংস্থা রিসকিউশিপ জানিয়েছে, গতকাল সোমবার (১৭ জুন) ল্যাম্পেডুসা দ্বীপের কাছে তারা একটি ডুবন্ত কাঠের নৌকা থেকে ৫১ জনকে উদ্ধার করেছেন। এ সময় নৌকার নীচের ডেকে ১০ জনের মরদেহ পাওয়া গেছে।

সংস্থাটি বলছে, বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিদের সোমবার (১৭ জুন) সকালে ইতালীয় কোস্টগার্ডের কাছে হস্তান্তরের পর তাদের তীরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে মৃতদের ল্যাম্পেডুসা দ্বীপে নেয়া হয়েছে।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর, ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আইওএম) এবং জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ এক যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছে, নৌকাটি লিবিয়া থেকে যাত্রা করেছিল। এতে সিরিয়া, মিসর, পাকিস্তান ও বাংলাদেশের অভিবাসীরা ছিলেন। তবে কোন দেশের কত যাত্রী ছিলেন, তা জানানো হয়নি।

Advertisement

একই দিনে পৃথক আরেক নৌকাডুবির ঘটনায় ৬০ জনের বেশি মানুষ নিখোঁজ হয়েছেন। তাদের মধ্যে ২৬ জনের মতো শিশু রয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। দক্ষিণ ইতালির ক্যালাব্রিয়ার উপকূল থেকে প্রায় ১২৫ মাইল দূরে এই ঘটনা ঘটে। মেডেসিনস সানস ফ্রন্টিয়েরস (এমএসএফ) নামে একটি সংগঠন এই তথ্য জানিয়েছে।

এই ঘটনায় ১২ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। তবে তাদের সবাইকে তীরে নেয়ার পর একজন মারা যান বলে জানিয়েছে ইতালীয় কোস্টগার্ড।

ভূমধ্যসাগর বিশ্বের সবচেয়ে প্রাণঘাতী মাইগ্রেশন রুট হিসেবে পরিচিত। জাতিসংঘের তথ্য অনুসারে, ২০১৪ সাল থেকে এই রুটে ২৩ হাজার ৫০০ জনের বেশি অভিবাসী মারা গেছে বা নিখোঁজ হয়েছে।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

ভেঙে গেলো নেতানিয়াহুর যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা

Published

on

ইসরাইলের-প্রধানমন্ত্রী-বেনিয়ামিন-নেতানিয়াহু
ফাইল ছবি

ছয় সদস্যকে নিয়ে গঠিত যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা ভেঙে দিয়েছেন ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু। খবর- আলজাজিরা

গেলো রোববার সন্ধ্যায় ইসরাইলি এই নেতা রাজনৈতিক নিরাপত্তা মন্ত্রিসভার সঙ্গে বৈঠক করে সোমবার (১৭ জুন) তিনি এ ঘোষণা দেন।

নেতানিয়াহুর অতি ডানপন্থী জোটের অংশীদারগণ নতুন যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা গঠনের চাপ দিচ্ছেন। বেনি গ্যান্টজ যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাদের পর এ আবেদন আরও জোড়ালো হচ্ছে।

ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু এখন গাজা যুদ্ধ নিয়ে মন্ত্রিদের একটি ছোট দলের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাবেন। যাদের মধ্যে রয়েছে প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ট এবং কৌশলগত পররাষ্ট্রমন্ত্রী রন দারমার।

 

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত