Connect with us

লাইফস্টাইল

বয়ঃসন্ধিতে ক্ষতির কারণ ছোটবেলার অপর্যাপ্ত ঘুম

Avatar of author

Published

on

শিশুর-ঘুম

বাচ্চাদের ঘুম নিয়ে মায়েদের নানা রকম অভিযোগ থাকে। কেউ রাতে একেবারেই ঘুমোতে চায় না। কারও  ঘুম আবার ভীষণ পাতলা। দিনের বেলা ঘুমিয়ে নিয়ে যে সেই ঘাটতি পূরণ হয়, তা নয়। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, দিনের পর দিন অপর্যাপ্ত ঘুম হলে বয়ঃসন্ধিতে ‘সাইকোটিক ডিজঅর্ডার’ আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে বেশি।

মাস ছয়েকের শিশু থেকে সাত বছর বয়সি ১২,৪০০ শিশুর ঘুমের স্বাভাবিক প্রবণতা নিয়ে ইংল্যান্ডের বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ে একদল বিজ্ঞানী এই গবেষণা করেন। তারা জানাচ্ছেন, ছোটবেলায় কম ঘুমোলে বয়ঃসন্ধিতে কল্পনার জগতে বিচরণ করা বা ‘হ্যালুসিনেট’ করার প্রবণতা বেড়ে যেতে পারে। চিকিৎসা বিজ্ঞানে যাকে ‘সাইকোটিক ডিজঅর্ডার’ বলা হয়। ‘জার্নাল অফ আমেরিকান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন সাইকিয়াট্রি’-তে সেই গবেষণা প্রকাশিত হয়েছে।

শরীর ও মনের সার্বিক সুস্থতায় পর্যাপ্ত ঘুমের গুরুত্ব রয়েছে। একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রে প্রতিদিন অন্তত ৬ থেকে ৮ ঘণ্টা নিরবচ্ছিন্ন ঘুমের প্রয়োজন। তবে, শিশুদের ঘুমের চাহিদা একটু বেশি। শিশুদের মস্তিষ্কের সঠিক বিকাশের জন্য পর্যাপ্ত ঘুম অত্যন্ত প্রয়োজন। বাচ্চারা কম ঘুমোলে পাল্টে যেতে পারে মস্তিষ্কের গড়ন। স্মৃতিশক্তিও ফিকে হয়ে যেতে পারে। মেধা কমে যাচ্ছে। স্থায়ীভাবে মস্তিষ্কের এই গড়ন পাল্টে যাওয়ার জেরে শিশুদের কেউ অবসাদে ভুগছে, কেউ আলস্যে, কেউ আবার কৈশোরেই নেশায় আসক্ত হয়ে যাচ্ছে। এমনটাই জানা গিয়েছে সম্প্রতি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সমীক্ষায়।

গবেষকরা জানিয়েছেন, কম ঘুমোলে মস্তিষ্ক ক্লান্ত হয়ে পড়ে, আর ঘুমের ‌মধ্যেই মস্তিষ্কের স্মৃতি সঞ্চয় হয়। সারাদিন ধরে আমরা যা শিখছি তা সবই যে মস্তিষ্কের একদিকে জমা হয় তেমনটা কিন্তু নয়। বিষয় নিরিখে ভিন্ন প্রকোষ্ঠে তা সঞ্চিত হয়। ইতিবাচক স্মৃতিগুলি হিপোক্যাম্পাস অংশে জমে। আর নেতিবাচক স্মৃতিগুলি অ্যামিগডালা অংশে সঞ্চিত হয়। ঘুম কম হলে হিপোক্যাম্পাস ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই গঠনমূলক চিন্তা ভাবনাগুলি বেশি দিন মাথায় থাকতে চায় না।

 

Advertisement

এসি//

Advertisement

পরামর্শ

কাঠবাদাম যেভাবে খেলে পুষ্টিগুণ বাড়ে

Published

on

সকালে ঘুম থেকে উঠে দাঁত মাজার মতোই অনেকের কাছে এ-ও যেন একটা নিয়মে পরিণত হয়েছে। খালি পেটে কয়েকটা ভেজানো বাদাম খাওয়া। অনেক সময় আখরোট বা চিনেবাদামও থাকে। তবে এখানে কাঠবাদামই মুখ্য। অনেকে আবার সকালের জলখাবার মানে দুধ-ওট্‌স, দুধ-কর্নফ্লেক্স কিংবা স্মুদিতেও কাঠবাদামের কুচি মিশিয়ে দেন। নিয়মিত কাঠবাদাম খেলে ক্যালশিয়াম, ভিটামিন ডি, ই-র ঘাটতি পূরণ হয়। এই বাদামের মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্যকর ফ্যাট। যা হার্টের জন্যেও ভালো। পুষ্টিবিদেরা বলছেন, কাঠবাদামের পুষ্টিগুণ বাড়িয়ে তোলারও কিছু নিয়ম রয়েছে। খাওয়ার আগে সেগুলি জেনে রাখা প্রয়োজন।

১. পানি ভেজানো কাঠাবাদাম তো খেয়েই থাকেন। তবে বাদামগুলি দুধে ভিজিয়ে রাখলে তার পুষ্টিগুণ আরও বৃদ্ধি পায়। বাদামের মধ্যে থাকা ফাইবার আরও সহজপাচ্য হয়। অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট উপাদানগুলিও সক্রিয় হয়ে ওঠে।

২. ভেজানো কাঠবাদাম গোটা খাওয়ার চেয়ে ছোট টুকরো করে খাওয়া ভালো। যাদের দাঁতে সমস্যা রয়েছে, তারা সহজেই বাদাম চিবিয়ে খেতে পারেন। তবে পুষ্টিবিদেরা বলছেন বাদাম যত টুকরো হবে, পুষ্টিগুণ শোষণের কাজটিও তত সহজ হবে।

৩. পানি বা দুধে যদি বাদাম ভেজাতে না চান, সে ক্ষেত্রে শুকনো কাঠবাদামও খাওয়া যায়। কাঠবাদামে রয়েছে ট্যানিন। শুকনো বাদামে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের পরিমাণও বেশি থাকে।

৪. কাঠবাদামের খোসা ছাড়িয়ে খেতে পারলে আরও ভালো। খোসা ছাড়ানো কাঠবাদাম খেলে হজম সংক্রান্ত কোনও সমস্যা হওয়ার ভয় থাকে না। বিপাকক্রিয়াও ভালো হয়।

Advertisement

৫. ঘি বা সামান্য তেলে কাঠবাদাম ভেজেও খাওয়া যেতে পারে। যারা ওজন বাড়াতে চাইছেন, তাদের জন্য এই ভাবে বাদাম খাওয়া বেশ কাজের। কারণ, কাঠবাদাম ভাজলে তার মধ্যে ক্যালোরি এবং ফ্যাটের পরিমাণ বেড়ে যায়।

জেএইচ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

লাইফস্টাইল

দুর্যোগে বাইরে বেরোলে ব্যাগে ছাতা ছাড়াও রাখুন ৫ জিনিস

Published

on

বৃষ্টি,-অফিস

মুষলধারে বৃষ্টি হয়েই চলেছে। সেই সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া। ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’-এর প্রভাব এখনও পুরোপুরি কাটেনি। কিন্তু এই দুর্যোগেও বাড়ি বসে থাকার উপায় নেই অনেকেরই। কাজের তাগিদে বাইরে বেরোতেই হচ্ছে। যেতে হচ্ছে অফিসে। এমন আবহাওয়ায় সঙ্গে ছাতা তো রাখতেই হবে। তাছাড়া ঝড়-বৃষ্টিতে আরও অনেক সমস্যার ঝুঁকি থাকে। তাই প্রস্তুত হয়েই বাড়ি থেকে বেরোনো জরুরি। তবে শুধু ছাতা নয়, অফিসের ব্যাগে আরও কয়েকটি জিনিস রাখা জরুরি।

বাড়তি পোশাক

কখন বর্ষা নামবে, তা আগে থেকে বলা যায় না। বাড়ি থেকে বেরোলেন রোদ দেখে, এ দিকে মাঝরাস্তায় হঠাৎ বৃষ্টি নামল ঝেঁপে। ছাতা না থাকলে তো আরও বিপদ! কতক্ষণ আর বৃষ্টি থামার অপেক্ষা করা যায়। ফলে ভিজতে ভিজতে অফিস যাওয়া ছাড়া উপায় নেই। তাছাড়া মাঝেমাঝে এমন জোরে বৃষ্টি নামে যে, ছাতা থাকলেও ভিজে যেতে হয়। ভিজে পোশাক পরে তো বেশিক্ষণ থাকা ঠিক হবে না। তাই সঙ্গে বাড়তি জামাকাপড় থাকলে বদলে নিতে পারবেন। ঠান্ডা লেগে যাওয়ার ভয় থাকবে না।

পাওয়ার ব্যাঙ্ক

মোবাইল সচল না থাকলে অনেক কাজেই বিঘ্ন ঘটে। মোবাইল ব্যবহার করলেও চার্জ দেয়ার কথা ভুলে যান অনেকেই। বাড়ি থেকে কিছু দূর আসতেই যদি ফোন বন্ধ হয়ে যায়, তা হলে বিপদ। অফিসের মেল, হোয়াটসঅ্যাপ কিছুই দেখা যায় না। সেই সময় পাওয়ার ব্যাঙ্ক থাকলে রাস্তাতেই চার্জ দিয়ে নেয়া যায়। বিশেষ করে বর্ষাকালে পাওয়ার ব্যাঙ্কের আরও বেশি দরকার পড়ে। কারণ, এই সময়ে ঘন ঘন লোডশেডিং হয়। ফলে অফিসেও পাওয়ার কাট হতে পারে। পাওয়ার ব্যাঙ্ক থাকলে সমস্যা হবে না।

স্যানিটাইজার

বর্ষায় সংক্রমণের ভয় বেশি। তাই সব সময়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা জরুরি। বিশেষ করে খাবার খাওয়ার আগে স্যানিটাইজার ব্যবহার করা জরুরি। রাস্তায় দাঁড়িয়ে খাবার খাওয়ার আগে স্যানিটাইজার না মেখে খাওয়া একেবারেই ঠিক হবে না। তাই ব্যাগে সব সময় স্যানিটাইজারের একটি বোতল রেখে দিন।

রুমাল

সঙ্গে ছাতা থাকলেও বৃষ্টির ছিটে গায়ে এসে লাগেই। আবার অনেকেই ছাতা নিয়ে যেতেও ভুলে যান। কোনও কারণে ভিজে গেলে পানি মোছার জন্য রুমাল রাখুন সঙ্গে। অন্তত মাথা এবং হাত-পা মুছে নিলেও ঠান্ডা লেগে যাওয়ার ঝুঁকি কমবে।

Advertisement

ওয়াটারপ্রুফ ব্যাগ

দরকারি কাগজপত্র, কোনও যন্ত্রপাতি কিংবা অন্য কোনও প্রয়োজনীয় জিনিস সঙ্গে থাকলে সেগুলি একটি ওয়াটারপ্রুফ পাউচে ভরে তার পর ব্যাগে ভরুন। গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র সুরক্ষিত রাখতে এ সময়ে পানিরোধী ব্যাগ ব্যবহার করা জরুরি।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

পরামর্শ

শুধু ডায়েট নয়, মেদ ঝরাতে যেসব ফল খাবেন

Published

on

দৈনন্দিন ব্যস্ততায় খাবার গ্রহণে অনিয়ম, তেল-মশলা দিয়ে রান্না করা ভারি খাবার, শরীর চর্চার নামে আলসেমি এবং আরও বিভিন্ন কারণে শরীরে একটু একটু করে মেদ জমতে থাকে। চেষ্টা করে ওজন যদিও বা কমানো যায়, পেটে মেদ জমলে তা কিন্তু সহজে ঝরাতে চায় না। তাই বাড়তি মেদ নিয়ে কমবেশি সবাই ভয়ে থাকেন।

আমাদের শরীরে বিন্দু বিন্দু মেদ জমে যখন সিন্ধু হয়ে ওঠে, তখনই টনক নড়ে। শুরু হয়ে যায় ডায়েট কিংবা জিমে গিয়ে শরীরচর্চা। তাতে লাভ বিশেষ কিছুই হয় না। তবে এক্ষেত্রে আশার আলো হতে পারে কিছু ফল। এমনিতেও ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে রোজ ফল খাওয়ার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদেরা। পেটের মেদ ঝরাতে কিছু ফল আসলেই কার্যকরী। চলুন জেনে নেই সেই উপকারী ফলগুলো পরিচিতি।

আপেল

আপেল শুধু সুস্বাদুই নয়, দ্রবণীয় ফাইবারে ভরপুর। যা হজমশক্তি উন্নত করে। রোজ একটা করে আপেল খেলে হজমের গোলমাল হওয়ার ঝুঁকি কম থাকে। হজম ঠিক করে হয় না বলেই ওজন বাড়তে থাকে, জমে মেদ। তাই নিয়মিত আপেল খেলে মেদ জমে থাকার সম্ভাবনা কম।

পাতিলেবু

Advertisement

পাতিলেবু কমবেশি সবার বাড়িতেই থাকে। সহজলভ্য এই ফলে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি। রোজ পাতিলেবু খেলে যে ওজন কমানো সহজ হয়ে যায়, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। পাতিলেবুতে থাকা পলিফেনলস ওজন বাড়তে দেয় না। সেই সঙ্গে মেদ জমারও কোনও সুযোগ থাকে না।

কলা

কলায় আছে প্রচুর পরিমানে কার্বোহাইড্রেট। ফলে কলা খেলে দীর্ঘ ক্ষণ পেট ভর্তি থাকে। ফলে বারে বারে খাবার খাওয়ার প্রবণতা কমে। তাছাড়া কলায় আছে ফাইবার। যা হজমের গোলমাল দূর করে। মেদ জমার সুযোগ পায় না।

টমেটো

টমেটো ফল না সবজি, তা নিয়ে চর্চার অন্ত নেই। তবে টমেটো যে ওজন কমাতে সাহায্য করে, তা নিয়ে কোনও দ্বিমত থাকার কথা নয়। কারণ টমেটোতে আছে লাইকোপেন, অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টের মতো উপাদান, যা মেদ ঝরানোর জন্য কার্যকরী।

Advertisement

তরমুজ

গরমে স্বস্তি দেওয়া ছাড়াও তরমুজ ওজন কমাতেও পারদর্শী। পেটের মেদ ঝরানোর চেষ্টা করছেন যাঁরা, তরমুজ খেতে পারেন। এতে রয়েছে অ্যামাইনো অ্যাসিড, যা জমে থাকা মেদ ঝরায়। এছাড়া শরীরে প্রয়োজনীয় পানির ঘাটতি তৈরি হলেও ওজন বাড়তে থাকে। তরমুজ সেই ঘাটতি পূরণ করে।

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত