Connect with us

লাইফস্টাইল

কোলেস্টেরল থেকে ডায়াবিটিস দূর হয় সজনে পাতায়

Avatar of author

Published

on

সজনে-পাতা

শুক্তো হোক বা নিরামিষ চচ্চড়ি কিংবা পাতলা মাছের ঝোল- সজনে ডাঁটা না পড়লে রান্নার স্বাদটা ঠিক জমে না। তবে শুধু ডাঁটা নয়, সজনে গাছের পাতাও কিন্তু শরীরের জন্য বেশ উপকারী। শাকের নামে নাক কুঁচকোলেও ইদানীং অনেক স্বাস্থ্য সচেতন মানুষই অনলাইনে অর্ডার দিয়ে যে মোরিঙ্গা পাউডার কিনে খান, তা আসলে সজনে পাতা শুকিয়ে গুঁড়ো করে প্যাকেটজাত করা। প্রোটিন, ফাইবার, ক্যালশিয়াম, আয়রন, জিঙ্ক, ভিটামিন এ, ভিটামিন বি-১, বি-২, ভিটামিন সি, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম ভরপুর মাত্রায় রয়েছে পাতায়। অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টে ভরপুর সজনে পাতা কেবল রোগ প্রতিরোধ শক্তি বৃদ্ধি করে না, এর রয়েছে আরও অনেক গুণ।

সজনেপাতায় যে পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট রয়েছে, তা মস্তিষ্কের স্নায়ুর বয়সজনিত অবক্ষয়কে লাগাম পরিয়ে স্মৃতিশক্তিকে সতেজ রাখতে সক্ষম।

ক্যালশিয়াম, পটাশিয়াম, আয়রন, জিঙ্কের মতো খনিজ, প্রয়োজনীয় নানা রকম ভিটামিন, প্রোটিন রয়েছে সজনেপাতায়। তাই এক পাতার গুণেই শরীরের অনেক উপাদানের ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব।

সজনেপাতায় রয়েছে বিটা-ক্যারোটিন, ক্লোরোজেনিক অ্যাসিড এবং কোয়ারসেটিনের মতো উপাদান। এই সব উপাদান ফ্রি র‌্যাডিক্যাল, অক্সিডেটিভ স্ট্রেস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

সজনেপাতা, ডাঁটা এবং ফুলে আইসোথিয়োকায়ানেট নামক একটি উপাদান রয়েছে। যা প্রদাহজনিত সমস্যা নির্মূল করতে সাহায্য করে।

Advertisement

উচ্চ রক্তচাপ, কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে সজনেপাতা। কারণ, এই পাতার মধ্যে পটাশিয়াম রয়েছে যথেষ্ট মাত্রায়। তাছাড়া এই পাতায় যথেষ্ট পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এবং অ্যান্টিইনফ্ল্যামেটরি যৌগ থাকায় তা সামগ্রিক ভাবে হৃদ্‌যন্ত্র ভাল রাখতে সাহায্য করে।

সজনেপাতা রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণে রাখতেও সাহায্য করে। তাই ডায়াবিটিস রোগীদের জন্য এই পাতা নিঃসন্দেহে উপকারী।

সজনেপাতায় যে পরিমাণ ফাইবার রয়েছে, তা অন্ত্র ভাল রাখতে সাহায্য করে। যাদের হজমের বা কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা রয়েছে, তাদের জন্য এই পাতা উপকারী।

কী ভাবে খাবেন?

সজনেপাতা ভেজে শাকভাজার মতো বানিয়ে খেতে পারেন, প্রথম পাতে ভাতের সঙ্গে খেতে মন্দ লাগে না। এছাড়া ডালেও সজনেপাতা দিয়ে খাওয়া যেতে পারে। বাজারে সজনেপাতার গুঁড়ো কিনতে পাওয়া যায়। রোজ সকালে সেই গুঁড়ো গরম পানিতে মিশিয়ে চা বানিয়ে খেলেও উপকার পাবেন। তবে সারা দিনে ১ চামচ সজনেপাতার গুঁড়ো খেলেই যথেষ্ট।

 

Advertisement

এসি//

Advertisement

পরামর্শ

কাঠবাদাম যেভাবে খেলে পুষ্টিগুণ বাড়ে

Published

on

সকালে ঘুম থেকে উঠে দাঁত মাজার মতোই অনেকের কাছে এ-ও যেন একটা নিয়মে পরিণত হয়েছে। খালি পেটে কয়েকটা ভেজানো বাদাম খাওয়া। অনেক সময় আখরোট বা চিনেবাদামও থাকে। তবে এখানে কাঠবাদামই মুখ্য। অনেকে আবার সকালের জলখাবার মানে দুধ-ওট্‌স, দুধ-কর্নফ্লেক্স কিংবা স্মুদিতেও কাঠবাদামের কুচি মিশিয়ে দেন। নিয়মিত কাঠবাদাম খেলে ক্যালশিয়াম, ভিটামিন ডি, ই-র ঘাটতি পূরণ হয়। এই বাদামের মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্যকর ফ্যাট। যা হার্টের জন্যেও ভালো। পুষ্টিবিদেরা বলছেন, কাঠবাদামের পুষ্টিগুণ বাড়িয়ে তোলারও কিছু নিয়ম রয়েছে। খাওয়ার আগে সেগুলি জেনে রাখা প্রয়োজন।

১. পানি ভেজানো কাঠাবাদাম তো খেয়েই থাকেন। তবে বাদামগুলি দুধে ভিজিয়ে রাখলে তার পুষ্টিগুণ আরও বৃদ্ধি পায়। বাদামের মধ্যে থাকা ফাইবার আরও সহজপাচ্য হয়। অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট উপাদানগুলিও সক্রিয় হয়ে ওঠে।

২. ভেজানো কাঠবাদাম গোটা খাওয়ার চেয়ে ছোট টুকরো করে খাওয়া ভালো। যাদের দাঁতে সমস্যা রয়েছে, তারা সহজেই বাদাম চিবিয়ে খেতে পারেন। তবে পুষ্টিবিদেরা বলছেন বাদাম যত টুকরো হবে, পুষ্টিগুণ শোষণের কাজটিও তত সহজ হবে।

৩. পানি বা দুধে যদি বাদাম ভেজাতে না চান, সে ক্ষেত্রে শুকনো কাঠবাদামও খাওয়া যায়। কাঠবাদামে রয়েছে ট্যানিন। শুকনো বাদামে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের পরিমাণও বেশি থাকে।

৪. কাঠবাদামের খোসা ছাড়িয়ে খেতে পারলে আরও ভালো। খোসা ছাড়ানো কাঠবাদাম খেলে হজম সংক্রান্ত কোনও সমস্যা হওয়ার ভয় থাকে না। বিপাকক্রিয়াও ভালো হয়।

Advertisement

৫. ঘি বা সামান্য তেলে কাঠবাদাম ভেজেও খাওয়া যেতে পারে। যারা ওজন বাড়াতে চাইছেন, তাদের জন্য এই ভাবে বাদাম খাওয়া বেশ কাজের। কারণ, কাঠবাদাম ভাজলে তার মধ্যে ক্যালোরি এবং ফ্যাটের পরিমাণ বেড়ে যায়।

জেএইচ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

লাইফস্টাইল

দুর্যোগে বাইরে বেরোলে ব্যাগে ছাতা ছাড়াও রাখুন ৫ জিনিস

Published

on

বৃষ্টি,-অফিস

মুষলধারে বৃষ্টি হয়েই চলেছে। সেই সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া। ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’-এর প্রভাব এখনও পুরোপুরি কাটেনি। কিন্তু এই দুর্যোগেও বাড়ি বসে থাকার উপায় নেই অনেকেরই। কাজের তাগিদে বাইরে বেরোতেই হচ্ছে। যেতে হচ্ছে অফিসে। এমন আবহাওয়ায় সঙ্গে ছাতা তো রাখতেই হবে। তাছাড়া ঝড়-বৃষ্টিতে আরও অনেক সমস্যার ঝুঁকি থাকে। তাই প্রস্তুত হয়েই বাড়ি থেকে বেরোনো জরুরি। তবে শুধু ছাতা নয়, অফিসের ব্যাগে আরও কয়েকটি জিনিস রাখা জরুরি।

বাড়তি পোশাক

কখন বর্ষা নামবে, তা আগে থেকে বলা যায় না। বাড়ি থেকে বেরোলেন রোদ দেখে, এ দিকে মাঝরাস্তায় হঠাৎ বৃষ্টি নামল ঝেঁপে। ছাতা না থাকলে তো আরও বিপদ! কতক্ষণ আর বৃষ্টি থামার অপেক্ষা করা যায়। ফলে ভিজতে ভিজতে অফিস যাওয়া ছাড়া উপায় নেই। তাছাড়া মাঝেমাঝে এমন জোরে বৃষ্টি নামে যে, ছাতা থাকলেও ভিজে যেতে হয়। ভিজে পোশাক পরে তো বেশিক্ষণ থাকা ঠিক হবে না। তাই সঙ্গে বাড়তি জামাকাপড় থাকলে বদলে নিতে পারবেন। ঠান্ডা লেগে যাওয়ার ভয় থাকবে না।

পাওয়ার ব্যাঙ্ক

মোবাইল সচল না থাকলে অনেক কাজেই বিঘ্ন ঘটে। মোবাইল ব্যবহার করলেও চার্জ দেয়ার কথা ভুলে যান অনেকেই। বাড়ি থেকে কিছু দূর আসতেই যদি ফোন বন্ধ হয়ে যায়, তা হলে বিপদ। অফিসের মেল, হোয়াটসঅ্যাপ কিছুই দেখা যায় না। সেই সময় পাওয়ার ব্যাঙ্ক থাকলে রাস্তাতেই চার্জ দিয়ে নেয়া যায়। বিশেষ করে বর্ষাকালে পাওয়ার ব্যাঙ্কের আরও বেশি দরকার পড়ে। কারণ, এই সময়ে ঘন ঘন লোডশেডিং হয়। ফলে অফিসেও পাওয়ার কাট হতে পারে। পাওয়ার ব্যাঙ্ক থাকলে সমস্যা হবে না।

স্যানিটাইজার

বর্ষায় সংক্রমণের ভয় বেশি। তাই সব সময়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা জরুরি। বিশেষ করে খাবার খাওয়ার আগে স্যানিটাইজার ব্যবহার করা জরুরি। রাস্তায় দাঁড়িয়ে খাবার খাওয়ার আগে স্যানিটাইজার না মেখে খাওয়া একেবারেই ঠিক হবে না। তাই ব্যাগে সব সময় স্যানিটাইজারের একটি বোতল রেখে দিন।

রুমাল

সঙ্গে ছাতা থাকলেও বৃষ্টির ছিটে গায়ে এসে লাগেই। আবার অনেকেই ছাতা নিয়ে যেতেও ভুলে যান। কোনও কারণে ভিজে গেলে পানি মোছার জন্য রুমাল রাখুন সঙ্গে। অন্তত মাথা এবং হাত-পা মুছে নিলেও ঠান্ডা লেগে যাওয়ার ঝুঁকি কমবে।

Advertisement

ওয়াটারপ্রুফ ব্যাগ

দরকারি কাগজপত্র, কোনও যন্ত্রপাতি কিংবা অন্য কোনও প্রয়োজনীয় জিনিস সঙ্গে থাকলে সেগুলি একটি ওয়াটারপ্রুফ পাউচে ভরে তার পর ব্যাগে ভরুন। গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র সুরক্ষিত রাখতে এ সময়ে পানিরোধী ব্যাগ ব্যবহার করা জরুরি।

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

পরামর্শ

শুধু ডায়েট নয়, মেদ ঝরাতে যেসব ফল খাবেন

Published

on

দৈনন্দিন ব্যস্ততায় খাবার গ্রহণে অনিয়ম, তেল-মশলা দিয়ে রান্না করা ভারি খাবার, শরীর চর্চার নামে আলসেমি এবং আরও বিভিন্ন কারণে শরীরে একটু একটু করে মেদ জমতে থাকে। চেষ্টা করে ওজন যদিও বা কমানো যায়, পেটে মেদ জমলে তা কিন্তু সহজে ঝরাতে চায় না। তাই বাড়তি মেদ নিয়ে কমবেশি সবাই ভয়ে থাকেন।

আমাদের শরীরে বিন্দু বিন্দু মেদ জমে যখন সিন্ধু হয়ে ওঠে, তখনই টনক নড়ে। শুরু হয়ে যায় ডায়েট কিংবা জিমে গিয়ে শরীরচর্চা। তাতে লাভ বিশেষ কিছুই হয় না। তবে এক্ষেত্রে আশার আলো হতে পারে কিছু ফল। এমনিতেও ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে রোজ ফল খাওয়ার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদেরা। পেটের মেদ ঝরাতে কিছু ফল আসলেই কার্যকরী। চলুন জেনে নেই সেই উপকারী ফলগুলো পরিচিতি।

আপেল

আপেল শুধু সুস্বাদুই নয়, দ্রবণীয় ফাইবারে ভরপুর। যা হজমশক্তি উন্নত করে। রোজ একটা করে আপেল খেলে হজমের গোলমাল হওয়ার ঝুঁকি কম থাকে। হজম ঠিক করে হয় না বলেই ওজন বাড়তে থাকে, জমে মেদ। তাই নিয়মিত আপেল খেলে মেদ জমে থাকার সম্ভাবনা কম।

পাতিলেবু

Advertisement

পাতিলেবু কমবেশি সবার বাড়িতেই থাকে। সহজলভ্য এই ফলে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি। রোজ পাতিলেবু খেলে যে ওজন কমানো সহজ হয়ে যায়, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। পাতিলেবুতে থাকা পলিফেনলস ওজন বাড়তে দেয় না। সেই সঙ্গে মেদ জমারও কোনও সুযোগ থাকে না।

কলা

কলায় আছে প্রচুর পরিমানে কার্বোহাইড্রেট। ফলে কলা খেলে দীর্ঘ ক্ষণ পেট ভর্তি থাকে। ফলে বারে বারে খাবার খাওয়ার প্রবণতা কমে। তাছাড়া কলায় আছে ফাইবার। যা হজমের গোলমাল দূর করে। মেদ জমার সুযোগ পায় না।

টমেটো

টমেটো ফল না সবজি, তা নিয়ে চর্চার অন্ত নেই। তবে টমেটো যে ওজন কমাতে সাহায্য করে, তা নিয়ে কোনও দ্বিমত থাকার কথা নয়। কারণ টমেটোতে আছে লাইকোপেন, অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টের মতো উপাদান, যা মেদ ঝরানোর জন্য কার্যকরী।

Advertisement

তরমুজ

গরমে স্বস্তি দেওয়া ছাড়াও তরমুজ ওজন কমাতেও পারদর্শী। পেটের মেদ ঝরানোর চেষ্টা করছেন যাঁরা, তরমুজ খেতে পারেন। এতে রয়েছে অ্যামাইনো অ্যাসিড, যা জমে থাকা মেদ ঝরায়। এছাড়া শরীরে প্রয়োজনীয় পানির ঘাটতি তৈরি হলেও ওজন বাড়তে থাকে। তরমুজ সেই ঘাটতি পূরণ করে।

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত