Connect with us

জাতীয়

‘অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নারীরা অধিকার বঞ্চিত’

Published

on

বাংলাদেশের জনসংখ্যার অর্ধেক নারী হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তারা অধিকার থেকে বঞ্চিত। নারীর সমতা নিশ্চিত করার মাধ্যমেই টেকসই উন্নয়নের পথ সুগম হয়। বললেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক সাদেকা হালিম।

সোমবার (১৭ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী মিলনায়তনে ‘সম্পত্তিতে নারীর সমঅধিকার এবং সিডও সনদের সংরক্ষণ প্রত্যাহারপূর্বক পূর্ণ বাস্তবায়নের প্রাসঙ্গিকতা’ বিষয়ক ‘দিল মনোয়ারা মনু’ স্মারক বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি বাংলাদেশে সম্পত্তিতে নারীর সমঅধিকার, আইনগত অধিকার ও নারীর প্রতি সব ধরনের বৈষম্য দূর করার দাবি জানান।

অধ্যাপক সাদেকা হালিম বলেন, মুসলিম আইনে নারীদের সম্পত্তিতে অধিকার দেয়া হলেও নারীরা সম্পদের প্রকৃত মালিকানা পায় খুবই কম। মুসলিম উত্তরাধিকার তিন ধরনের সম্পর্কের ওপর নির্ভর করে বৈবাহিক সম্পর্ক, রক্তের সম্পর্ক, এবং দূর সম্পর্ক। বৈবাহিক সম্পর্কে স্ত্রী ও স্বামীর ক্ষেত্রে উত্তরাধিকার আইনটির সমালোচনা আমরা এখানে প্রাসঙ্গিক মনে করছি। কোনো পুরুষ সন্তানহীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করলে কিংবা তার কোনো ছেলে সন্তান না থাকলে, ওই লোকের স্ত্রী মোট সম্পত্তির ১/৪ ভাগ পাবেন। কিন্তু, কোনো সন্তান থাকলে বা কোনো ছেলে সন্তান থাকলে, স্ত্রী মোট সম্পত্তির ১/৮ ভাগ পাবেন। অর্থাৎ নারীকে সম্পদ থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, একজন হিন্দু নারী স্বাধীনভাবে তার সম্পত্তি বিক্রয়ের সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। হিন্দু পুরুষদের ক্ষেত্রে এমন কোনো আইন নেই। পুরুষরা স্বাধীনভাবে ক্রয়, ভোগদখল ও বিক্রি করতে পারে। হিন্দু আইন পরিষ্কারভাবেই অসম একটি আইন। পৈতৃকসূত্রে একজন নারী কখনোই জমির মালিকানা পায় না। স্বামীর মৃত্যুর পরও স্বামীর জমির কোনো মালিকানা তারা পায় না। বরং স্বামীর মৃত্যুবরণের পর সাধারণত পরিবারের অন্য সদস্যদের অনুগ্রহে বেঁচে থাকে। ১৯৫৬ সালে সংশোধনের মাধ্যমে সম্পত্তিতে নারী সমঅধিকার ভারতে প্রতিষ্ঠিত হলেও বাংলাদেশে হয়নি।

Advertisement

তিনি আরও বলেন, নারীর উত্তরাধিকার সূত্রে সম্পদ তাদের অধিকার শুধু পরিবারে না, সমাজেও তাদের অবস্থান নির্দেশ করে। পৃথিবীর প্রায় সব সমাজেই নারীরা সম্পত্তিতে বৈষম্যের শিকার হয়ে আসছে যুগ যুগ ধরে। উন্নয়ন হলেই হয় না; তা টেকসই করতে ন্যায্যতা প্রয়োজন। নারীর সমতা নিশ্চিত করার মাধ্যমেই টেকসই উন্নয়নের পথ সুগম হয়।

অধ্যাপক হালিম বলেন, সংবিধানের ধারা ২৭ অনুযায়ী নারীকে আইনের দৃষ্টিতে সমতা দেয়া হয়েছে। রাষ্ট্র ও গণজীবনের সর্বস্তরে নারী ও পুরুষ সমান অধিকার লাভ করবে। কিন্তু নারীকে পেছনে রাখার আইনও এ সময় দেখা গেছে। দীর্ঘসময় পর সংবিধানে ধর্মনিরপেক্ষতা ফিরে এলেও নারীর প্রতি বৈষম্যমূলক মানসিকতা সমাজে রয়েই গেছে।

তিনি বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়নের মাধ্যমে নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করা সম্ভব ছিল, কিন্তু এ পদক্ষেপ নিতে রাষ্ট্র ব্যর্থ হয়েছে পুরুষের তুলনায় নারী কাজ বেশি করলেও অনেক ক্ষেত্রে নারী যথাযথ পারিশ্রমিক পায় না। সরকারি দপ্তরগুলোতে যেভাবে প্রধানরূপে নারী প্রশাসক প্রয়োজন ছিল, সেভাবে পদায়ন হয়নি। সংরক্ষিত নারী আসন সাময়িক হিসেবে ঠিক থাকলেও নারী যাতে সরাসরি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারে, সে বিষয়ে অগ্রাধিকার দেয়া প্রয়োজন। ক্ষমতা স্তরে পুরুষরা ওপরে আর নারীরা নিচেই থেকে যায়।

সাদেকা হালিম বলেন, কৃষিকাজে যুক্ত নারীদের ৪৮ শতাংশই জমির মালিকানা থেকে বঞ্চিত। গ্রামীণ এলাকায় কৃষি চাষযোগ্য জমির ৭ দশমিক ২ শতাংশ জমি নারীরা চাষ করে। জমিতে নারীদের মালিকানা থাকলে উৎপাদনের পরিমাণ বাড়ে ও অর্থনৈতিকভাবে স্বাধীন হওয়ার সুযোগ বাড়ে।

অধ্যাপক হালিম বলেন, এ সময় নারীদের ভূমি অধিকার প্রতিষ্ঠায় ৪টি প্রস্তাব উপস্থাপন করে। সম্পদে লিঙ্গ সমতা বিধান করতে হবে, উত্তরাধিকার আইনে পরিবর্তন আনতে হবে, হিন্দু নারীদের আইনগত অধিকার দিতে হবে, আদিবাসী নারীদের জমিতে অধিকার দিতে হবে। আদিবাসীদের সম্পদে উন্নয়ন কাজের নামে জমি দখল বন্ধ করতে হবে।

Advertisement

স্মারক বক্তৃতায় এএলআরডির সহ সভাপতি ড. রওশন আরা ফিরোজের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এএলআরডির নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা।

 

Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

Warning: Undefined variable $user_ID in /home/bayanno.com/public_html/wp-content/themes/zox-news-github/comments.php on line 49

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

আর্কাইভ

শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯ 

জাতীয়

আইন-বিচার5 hours ago

কারামুক্ত হলেন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন

বিএনপির  ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী এয়ারভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী জামিনে কারামুক্ত হয়েছেন। এসময় কেন্দ্রীয় ও পটুয়াখালী থেকে...

জাতীয়5 hours ago

ঢাকা ছাড়লেন পিটার হাস

ছুটি কাটাতে সিঙ্গাপুরের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন  মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস। মার্কিন প্রতিনিধিদলের বাংলাদেশ সফরের মধ্যেই তিনি ঢাকা ছাড়লেন। রোববার...

দুর্ঘটনা6 hours ago

জানুয়ারিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪৮৬ জন

গেলো জানুয়ারি মাসে সারাদেশে ৫২১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৮৬ জন নিহত হয়েছেন। এসময়ে ১০৫৪ জন আহত হয়েছেন। দেশের জাতীয়,আঞ্চলিক ও অনলাইন...

জাতীয়7 hours ago

সম্পর্ক এগিয়ে নিতে ঢাকায় মার্কিন প্রতিনিধিদল : লুবাখার

বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার চলমান সম্পর্ক আরও এগিয়ে নি‌তে মা‌র্কিন প্রতি‌নি‌ধিদল ঢাকা সফর করেছে। বললেন, যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা পরিষদের দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক...

জাতীয়8 hours ago

বাইডেনের চিঠির উত্তর পাঠাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন  চলতি মাসের শুরুর দিকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি পাঠিয়েছিলেন। এবার সে চিঠির প্রতিউত্তরে ওয়াশিংটনে চিঠি পাঠাচ্ছেন শেখ...

জাতীয়9 hours ago

যুক্তরাষ্ট্র এখন দেশের বড় উন্নয়ন সহযোগী : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

যুক্তরাষ্ট্র এখন দেশের বড় উন্নয়ন সহযোগী। পণ্য রপ্তানির বড় গন্তব্য যুক্তরাষ্ট্র। সম্পর্কের নতুন যুগ সৃষ্টিতে কাজ করতে চায়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।...

জাতীয়9 hours ago

ভিসিদের নিয়ে সংসদে ক্ষোভ হানিফের

মেডিকেল ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিদের নীতি নৈতিকতা ও স্বজনপ্রীতি নিয়ে সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল...

জাতীয়11 hours ago

মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি বন্ধে আইন হচ্ছে : আইনমন্ত্রী

মিথ্যা তথ্য ও খবর দিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করা বন্ধে কিছু আইন সংসদে আনা হবে। তবে সরকার কোনোভাবে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব...

জাতীয়12 hours ago

নারী উদ্যোক্তা উন্নয়নে বিশ্বব্যাংকের কাছে বিশেষ তহবিল চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

বিশ্বব্যাংকের কাছে আর্থ-সামাজিক অগ্রগতির জন্য আরও বেশি নারী উদ্যোক্তা তৈরির লক্ষ্যে বিশেষ তহবিল এবং জলবায়ু সংক্রান্ত প্রকল্প বাস্তবায়নে রেয়াতি হারে...

জাতীয়14 hours ago

মূল্যস্ফীতি রাতারাতি নিয়ন্ত্রণ হবে না : অর্থমন্ত্রী

রাতারাতি মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ হবে না। এটা নিয়ে কাজ চলছে, অপেক্ষা করতে হবে। আল্টিমেটলি এই ক্রাইসিসটা তো ম্যানেজ করতে হবে। বললেন...

Advertisement
আইন-বিচার5 hours ago

কারামুক্ত হলেন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন

জাতীয়5 hours ago

ঢাকা ছাড়লেন পিটার হাস

দুর্ঘটনা6 hours ago

জানুয়ারিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪৮৬ জন

জাতীয়7 hours ago

সম্পর্ক এগিয়ে নিতে ঢাকায় মার্কিন প্রতিনিধিদল : লুবাখার

অর্থনীতি7 hours ago

ফেব্রুয়ারিতেও রেমিট্যান্সে সুবাতাস

জাতীয়8 hours ago

বাইডেনের চিঠির উত্তর পাঠাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

জাতীয়9 hours ago

যুক্তরাষ্ট্র এখন দেশের বড় উন্নয়ন সহযোগী : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

জাতীয়9 hours ago

ভিসিদের নিয়ে সংসদে ক্ষোভ হানিফের

স্বাস্থ্যমন্ত্রী
স্বাস্থ্য9 hours ago

কেন্দ্রীয় ঔষধাগারে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ঝটিকা অভিযান, নিজ চোখেই দেখলেন অনিয়ম

দাঁতে
লাইফস্টাইল11 hours ago

দাঁতে হলুদ ছোপ দূর হবে ৫ খাবার এড়িয়ে চললেই

অপরাধ1 week ago

ডিবিতে যে অভিযোগ দিলেন তিশার বাবা

ব্যারিস্টার-সৈয়দ-সায়েদুল-হক-সুমন
আওয়ামী লীগ3 weeks ago

‘আমি ফেসবুকের এমপি ঠিকই, ফসল হিসেবে তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী’

ওবায়দুল-কাদের
জাতীয়3 weeks ago

বাংলাদেশ কারো সঙ্গেই যুদ্ধে জড়াতে চায় না : কাদের

এশিয়া4 weeks ago

হামাসের ৮০ ভাগ টানেল অক্ষত, ঘুম হারাম ইসরায়েলের!

মঈন-খান
বিএনপি1 month ago

প্রতিহিংসার রাজনীতির শিকার হয়েছিলেন কোকো: মঈন খান

ফিচার2 months ago

শেখ হাসিনা-খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার করেও ঠেকানো যায়নি যে নির্বাচন (ভিডিও)

প্রধানমন্ত্রী.-সাকিব-আল-হাসান
আওয়ামী লীগ2 months ago

এইবারও ইলেকশনে ছক্কা মেরে দিও: সাকিবকে প্রধানমন্ত্রী

৭ম-জাতীয়-নির্বাচন
জাতীয়2 months ago

‘তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে প্রথম নির্বাচন’

জাতীয়2 months ago

৫ম জাতীয় নির্বাচন: প্রথমবারের মতো নারী প্রধানমন্ত্রী পায় বাংলাদেশ

জাতীয়2 months ago

তৃতীয় জাতীয় সংসদ যে কারণে ভেঙে দিতে বাধ্য হন এরশাদ

সর্বাধিক পঠিত