Connect with us

হলিউড

ভারত ছাড়তে মন চায় না নিকের

Avatar of author

Published

on

ক্যালিফোর্নিয়ার বাড়িতে উৎসব-পার্বণে মাঝেমধ্যেই জোনাসকে শেরওয়ানিতে দেখা যায়। পুজো হলে তার শ্বেতকপালে ওঠে মাংটিকা। এবার এসেছেন স্ত্রীর দেশে। পরনে ফুলছাপ হলুদ কুর্তায় নিক জোনাস হয়ে উঠলেন ঘরের ছেলে। এখানকার জলহাওয়া, মানুষগুলিকে ছেড়ে তার যেন আর আমেরিকায় ফিরতেই ইচ্ছে করছে না! জানালেন, ‘মনকেমন করছে!’

পাঁচ বছর পর বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা জোনাসের সঙ্গে ভারতে এলেন তার স্বামী নিক। মুম্বাইয়ের এক ফ্যাশন অনুষ্ঠানে স্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন আমেরিকার গায়ক। পেলেন জামাই আদর। অনুষ্ঠান শেষে ফেরার পালা। সেলফি পোস্ট করলেন নিক। তার পরনে হালকা হলুদ রঙের সেই ছাপছোপ জামা, চোখে রোদচশমা। ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে আছেন তিনি। ছবিটি দিয়ে নিক লিখলেন, ‘ভারতবর্ষ… আমি তোমায় মিস করেছি।’

ছবিটি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই মন্তব্যের বন্যা। কেউ তাকে বললেন, ‘ন্যাশনাল জিজু’ (জাতীয় জামাইবাবু), কেউ লিখলেন, ‘ভারতবর্ষও তোমাকে মিস্ করে।’ কেউ লিখলেন, ‘তোমাকে ভারতে ফিরতে দেখে ভালো লাগছে। আশা করি, পরিবার-সহ এই ট্রিপটা উপভোগ করছ।’

কেউ আবার নিককে পরামর্শ দিলেন, এতই মনখারাপ যখন, পাকাপাকি ভাবে ঘরজামাই হয়ে এ দেশে চলে আসতে। সেই মন্তব্য সমর্থন করলেন অনেকেই। নিক কি প্রিয়াঙ্কার দেশে এসেও মাস কয়েক থাকতে পারেন না? প্রশ্ন ছুড়ে দিলেন অনেকেই।

কন্যা মালতীর জন্মের পর নিক এই প্রথম এলেন ভারতে। সারোগেসির মাধ্যমে গত বছর জানুয়ারিতে সন্তানের জন্ম দিয়েছেন নিক-প্রিয়ঙ্কা। শুক্রবার তারা গিয়েছিলেন মুম্বইয়ের নীতা মুকেশ অম্বানী সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধনে। প্রিয়াঙ্কা সেই চাঁদের হাটের ফোটোশুটের ছবি পোস্ট করেছিলেন।

Advertisement

প্রথম ছবিটিতে প্রিয়াঙ্কা বসে আছেন, নিক তার পাশে দাঁড়িয়ে। দ্বিতীয়টিতে পরস্পরের দিকে দৃষ্টিনিবদ্ধ তাদের। তৃতীয় ছবিটি তার একার। পকেটে হাত ঢুকিয়ে দাড়িয়ে রয়েছেন তিনি।

Advertisement
Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

বিনোদন

৯৩ বছর বয়সে মিডিয়া মোগল রুপার্ট মারডকের ৫ম বিয়ে!

Published

on

পঞ্চমবারের মতো বিয়ে করেছেন ৯৩ বছর বয়সী মিডিয়া মোগল ও ধনকুবের রুপার্ট মারডক। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় মারডকের আঙুরবাগানে এই বিয়ের অনুষ্ঠান হয়।

শনিবার (১ জুন) ৬৭ বছর বয়সী এলেনা জুকোভার সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন তিনি। এলেনা একজন অবসরপ্রাপ্ত রুশ জীববিজ্ঞানী। চলতি বছরের মার্চে মারডকের সঙ্গে এলেনার বাগ্‌দান হয়। তখনই নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, জুনে দুজনের বিয়ে।

২০২৩ সালের মার্চে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা চ্যাপলেইন পুলিশের বিশেষ পরামর্শক অ্যান লেসলি স্মিথের সঙ্গে মারডকের বাগ্‌দান হয়েছিল। তারা বিয়ের পরিকল্পপনাও করেছিলেন। কিন্তু বাগ্‌দানের পরের মাসেই বিয়ে ভেঙে যায়। তখন থেকেই এলেনার সঙ্গে মারডকের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠার খবর ছড়িয়ে পড়ে।

অ্যানের সঙ্গে মারডকের প্রথম দেখা হয়েছিল ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরে, ক্যালিফোর্নিয়ায় একটি অনুষ্ঠানে। পরিচয় পরে গড়ায় প্রণয়ে। অ্যানের সঙ্গে প্রেম ও বাগ্‌দানের বিষয়ে সংবাদমাধ্যমকে মারডক বলেন, ‘প্রেমে পড়ার পর আমি ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। আমি জানতাম যে এটাই আমার শেষ প্রেম।’ তবে শেষ পর্যন্ত অ্যানের সঙ্গে মারডকের আর ঘর বাঁধা হয়নি।

মারডক নিউজ করপোরেশনের ইমেরিটাস চেয়ারম্যান। নিউজ করপোরেশনের মালিকানায় রয়েছে ফক্স নিউজ, ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল, সান ও টাইমসের মতো গণমাধ্যম। তবে গেল বছর ফক্স ও নিউজ করপোরেশনের চেয়ারম্যান পদ ছাড়েন মারডক।

Advertisement

মারডক প্রথম বিয়ে করেছিলেন ১৯৫৬ সালে, প্যাট্রিসিয়াকে। ১৯৬৭ সালে তাঁদের বিচ্ছেদ হয়। একই বছর আন্নাকে বিয়ে করেন মারডক। ১৯৯৯ সালে তাঁদের বিচ্ছেদ হয়। ২০১৬ সালে জেরিকে বিয়ে করেন মারডক। ২০২২ সালে বিচ্ছেদ হয়। অন্যদিকে মারডকের পঞ্চম স্ত্রী এলেনার আগে বিয়ে হয়েছিল। তাঁর সাবেক স্বামী রুশ তেল ব্যবসায়ী আলেকজান্ডার জুকোভা।

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বিনোদন

ফিলিস্তিনিদের ১ মিলিয়ন ডলার দিলেন মার্কিন মডেল বেলা ও জিজি হাদিদ

Published

on

চলমান ইসরায়েলি আগ্রাসনে বিধ্বস্ত ফিলিস্তিন নিয়ে আগে থেকেই সবর ছিলেন মার্কিন সুপার মডেল বেলা হাদিদ ও জিজি হাদিদ। ফিলিস্তিনে নিপীড়িত জনগণের সহায়তায় একাধিকবার মোটা অঙ্কের টাকা পাঠিয়েছেন এই দুই বোন।

এজন্য ক্যারিয়ারে নানান বিপত্তিতেও পড়তে হয়েছে তাদেরকে। এমন কি তাদের প্রাণনাশের হুমকিও দিয়েছে ইসরায়েল। তবুও মত বদলান নি তারা। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, সম্প্রতি ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ মানুষের জন্য ১ মিলিয়ন ডলারের অনুদান দিয়েছেন বেলা হাদিদ ও জিজি হাদিদ। যা চারটি দাতব্য সংস্থার মাধ্যমে পাঠানো হবে। ইতোমধ্যে এই অর্থ বিভিন্ন সংস্থায় সমানভাবে বরাদ্দ করে দিয়েছেন তারা।

দাতব্য সংস্থাগুলো হলো- হিল প্যালেস্টাইন, ওয়ার্ল্ড সেন্ট্রাল কিচেন (ডব্লিউসিকে), প্যালেস্টাইন চিলড্রেনস রিলিফ ফান্ড (পিসিআরএফ) এবং ইউএন রিলিফ অ্যান্ড ওয়ার্কস এজেন্সি (ইউএনআরডব্লিওএ)। সামগ্রিকভাবে এই সংস্থাগুলো বাস্তুচ্যুত পরিবারের সহায়তায় খাদ্য, চিকিৎসা কার্যক্রমের মতো সেবামূলক কাজ করে।

সদ্য সমাপ্ত কান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে বেলা হাদিদ ফিলিস্তিনের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতীক লাল কেফিয়াহ পোশাক পরে কান সৈকত থেকে দ্যুতি ছড়ান।

সেই ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করে বেলা হাদিদ লিখেছিলেন, ‘ফিলিস্তিনকে মুক্ত করা হোক। এটি সর্বদা আমার মনে, রক্তে এবং হৃদয়ে মিশে রয়েছে। যদিও আমাকে এখনও এই ভয়াবহতার মধ্যেই কাজ করে যেতে হবে, আমরা আমাদের সংস্কৃতিকে উপস্থাপন করছি।’

Advertisement

এই ‍সুপার মডেল আরো লেখেন, ‘আমরা যেখানেই যাই না কেন, সারা বিশ্ব ফিলিস্তিনকে দেখতে পাবে। পরনের এমন কেফিয়াহ পোশাক ফিলিস্তিনকে উপস্থাপন করছে। গাজায় এই মুহূর্তে গণহত্যার মত যা ঘটছে, সে সম্পর্কে বোঝার চেষ্টা করুন।’

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বলিউড

অনন্ত-রাধিকার দ্বিতীয় প্রি-ওয়েডিংয়ে মঞ্চ মাতালেন কেটি পেরি

Published

on

শাকিরার পর এবার অনন্ত আম্বানী ও রাধিকা মার্চেন্টের প্রি-ওয়েডিংয়ে পারফর্ম করেছেন মার্কিন পপতারকা কেটি পেরি। এর আগে জামনগরে অনুষ্ঠিত প্রথম প্রাক-বিয়ের আয়োজনে গান গেয়েছিলেন রিহানা। যার জন্য ৫২ কোটি  রূপি পারিশ্রমিক নিয়েছিলেন তিনি। এবার জানা গেলো ভূমধ্যসাগরে বিলাসবহুল ক্রুজে পরফর্ম করেছেন ব্যাকস্ট্রিট বয়েজ থেকে উঠে আসা পপস্টার কেটি পেরি।

দেশ বিদেশের বড় বড় শিল্পপতি থেকে শুরু করে, বলিউড অভিনেতারা অংশ নিয়েছেন আম্বানিদের জমকালো এই আয়োজনে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, কেটি পেরি লা ভিট ই আন ভিয়াজিও নামে একটি পার্টিতে পারফর্ম করেন। এই পারফরম্যান্সের জন্য ৪২ কোটি রূপি নিয়েছেন কেটি পেরি।

আসছে ১২ জুলাই বান্দ্রা-কুরলা কমপ্লেক্সের (বিকেসি) জিও ওয়ার্ল্ড কনভেনশন সেন্টারে হিন্দু বৈদিক রীতি অনুসারে সাত পাক ঘুরবেন অনন্ত-রাধিকা। ইতোমধ্যে তাদের বিয়ের কার্ড বেশ সাড়া ফেলেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। বরাবরই ধর্মের প্রতি গভীর টান ধরা পড়েছে আম্বানিদের। বিয়ের কার্ডেও রেখে গেলেন তারা সেই ছাপ।

১২ জুলাই থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত তিন দিন ধরে চলবে বিয়ের অনুষ্ঠান। ১২ জুলাই, শুক্রবার মূল বিয়ের অনুষ্ঠান বা শুভ বিবাহের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হবে। এরপর শুভ আশীর্বাদ বা ঐশ্বরিক আশীর্বাদের জন্য একটি দিন রাখা হচ্ছে, যা হল শনিবার, ১৩ জুলাই। আর তারপর দিন ১৪ জুলাই রবিবার হবে জমকালো বিবাহোত্তর সংবর্ধনা বা মঙ্গল উৎসব। বিয়ের মূল অনুষ্ঠানের জন্য অতিথিদের ভারতীয় ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে আসতে বলা হয়েছে। পরের দিন শুভ আশীর্বাদ অনুষ্ঠানের জন্য ড্রেস কোড হল ইন্ডিয়ান ফরমালস। ১৪ জুলাইয়ের রিসেপশনে অতিথিরা ‘ইন্ডিয়ান চিক’ থিম অনুযায়ী পোশাক পরতে পারবেন।

এসআই/

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত