Connect with us

বাংলাদেশ

একটি পদের বেতন অবৈধভাবে তুলছেন দুই শিক্ষক

Avatar of author

Published

on

অবৈধভাবে

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার ফকিরপাড়া বিএল উচ্চবিদ্যালয়ে অবৈধভাবে দুই মৌলভি শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এমপিও কাঠামো অনুযায়ী একজন মৌলভি শিক্ষক থাকার কথা থাকলেও, বিদ্যালয়টিতে আট বছর ধরে দুইজন মৌলভি শিক্ষক আছেন। আট বছর ধরে তারা বেতন উত্তোলন করলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি শিক্ষা কর্মকর্তারা।

স্থানীয়দের দাবি, প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির যোগসাজশে আইবুল হক এবং জাহাঙ্গীর হোসেন নামের এই দুই শিক্ষক আট বছর ধরে প্রায় ৪২ লাখ টাকা বেতন উত্তোলন করছেন। তবে শিক্ষা অধিদপ্তরের মুদ্রণ ত্রুটির কারণে পরিস্থিতির শিকার বলে দাবি করছেন প্রধান শিক্ষক আজিজুল হক।

বিদ্যালয় এবং স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, প্রতিষ্ঠার পর ১৯৯৭ সালে আইবুল হককে সহকারী শিক্ষক (সামাজিক বিজ্ঞান) হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। ২০০৪ সালে বিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্বও পালন করেছিল আইবুল হক। পরে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হলে তিনি ইংরেজি শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিল। তৎকালীন সামাজিক বিজ্ঞানে তিনজন শিক্ষক থাকায় আইবুল হককে কোন বিষয়ে শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন এ নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়েছিল বিদ্যালয়ে।

এদিকে ২০০৯ সালে সহকারী শিক্ষক (ধর্মীয়) হিসেবে জাহাঙ্গীর হোসেনকে নিয়োগ দেয়া হয়। পরে ২০১৩ সালে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বিদ্যালয়টির শিক্ষকের তালিকা চাওয়া হলে প্রধান শিক্ষক আইবুল হককে মৌলভি শিক্ষক হিসেবে তালিকা দেন। পরে ২০১৫ সাল থেকে দুইজনই মৌলভি শিক্ষক (এমআরটি) হিসেবে বেতন তুলছেন। এরমধ্যে টাইম স্কেলের জন্য আইবুল হক আবেদন করলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে তাকে প্রত্যাখ্যান করে। মন্ত্রণালয় থেকে আইবুল হককে মৌলভি শিক্ষক পদ পরিবর্তন করার নির্দেশনা দেন। তবে তিনি পদ পরিবর্তন না করেই বেতন তুলছেন।

চলতি বছরের এমপিও সিট অনুযায়ী বিদ্যালয়ের আইবুল হক ২৬ হাজার ৭৯০ টাকা এবং জাহাঙ্গীর হোসেন ২৩ হাজার ৩৩৪ টাকা করে প্রতি মাসে বেতন তুলছেন।

Advertisement

সহকারী শিক্ষক (মৌলভী) জাহাঙ্গীর হোসেন জানায়, পূর্ণাঙ্গ নিয়োগের মাধ্যমে ২০০৯ সালে আমাকে মৌলভি শিক্ষক এমআরটি হিসেবে নিয়োগ পেয়ে শিক্ষকতা করে আসছি। আমি আইবুল হককে বলেছিলাম আপনার পদ সংশোধন করে নেন। কিন্তু তিনি আমাকে বলেছিল এটা প্রধান শিক্ষকের ব্যাপার। প্রধান শিক্ষক আমার পদটি সংশোধন করবেন।

অভিযুক্ত মৌলভি শিক্ষক আইবুল হক জানান, আমি মৌলভি শিক্ষক না, আমি ইংরেজি বিষয়ে বিদ্যালয়ে পাঠদান করি। আমি আমার পদ সংশোধনের জন্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছি। তবে আট বছর কেন সংশোধন করেননি, এমন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি।

ওই বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র ইয়াসিনুল ইসলাম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন আইবুল হক আসলে অতিরিক্ত শিক্ষক হিসেবে ছিল। অবৈধভাবে স্কুলে কর্মরত রয়েছেন। এই স্কুলের কমিটিও অবৈধ। আমরা এলাকাবাসী চাই একজন মৌলভি শিক্ষকের পদে একজনই থাকবে।

স্থানীয় শিক্ষক দানিয়েল হোসেন জানান, বৈধ শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম। আমি মনে করি ফকিরপাড়া বিএল উচ্চবিদ্যালয়ে যেহেতু একজন মৌলভি শিক্ষকের পদ। এজন্য একজন মৌলভি শিক্ষকের বেতন হওয়া উচিত।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক আজিজুল হক এ বিষয়ে জানান, আসলে আমাদের ভুল হয়েছে। আট বছর ধরে শিক্ষক আইবুল হক তার পদ সংশোধনের জন্য তেমন কোনো চেস্টা করেনি, তবে এ বছর আমরা সংশোধনের জন্য আবেদন করেছি। আমরা সংশোধনের চেষ্টা করছি।

Advertisement

এদিকে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শাহিন আকতার এ বিষয়ে প্রথমে জেলা প্রশাসকের কাছে মন্তব্য নেয়ার কথা জানায়। পরে তিনি বলেন, নথিপত্র না দেখে এবং তদন্ত না হওয়া পর্যন্ত এ বিষয়ে মন্তব্য করা যাবে না।

Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

বাংলাদেশ

রেল চালুর সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করলো কর্তৃপক্ষ

Published

on

কারফিউ শিথিল অবস্থায় সীমিত পরিসরে রেল চালুর কথা থাকলেও। নিরাপত্তা বিবেচনায় সে সিদ্ধান্ত বদল করে রেল চলাচল বন্ধ রেখেছে কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) সকালে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার আনোয়ার হোসেন গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, আজ স্বল্প দূরত্বের কয়েকটি ট্রেন চলাচলের কথা ছিল।কিন্তু কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছে। সকাল থেকে কমলাপুর স্টেশন থেকে একটি ট্রেনও  ছেড়ে যায়নি।

এর আগে রেল সচিব জানিয়েছিলেন, শুরুতে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা-টাঙ্গাইলসহ দেশের আরও বেশ কিছু রুটে ট্রেন চলবে।

আই/এ

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

জাতীয়

রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংসকারীদের বিচার হবে : প্রধানমন্ত্রী

Published

on

প্রধানমন্ত্রী,-মেট্রোরেল-১০-সেটশন

সরকারের উন্নয়ন যারা ধ্বংস করেছে তাদের বিরুদ্ধে দেশবাসীকেই রুখে দাঁড়াতে হবে। এ তাণ্ডব যারা করেছে, তাদের বিচার দেশবাসীকে করতে হবে।  একই সঙ্গে ধ্বংসযজ্ঞকারীদের রুখে দিতে জনসাধারণকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) সকাল সাড়ে ৮টায় মিরপুরে ১০ এ  কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় দুর্বৃত্তদের হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত মেট্রোরেল স্টেশন পরিদর্শন শেষে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এসময় প্রধানমন্ত্রী গণমাধ্যমকে বলেন, সাধারণ মানুষ যেন নির্বিঘ্নে কর্মক্ষেত্রে পৌঁছাতে পারে সেটা সুনিশ্চিত করা হবে। দেশটা যাতে আর্থিকভাবে সচ্ছল হতে পারে সেই চেষ্টাই করবো। এ দেশের মানুষ রক্ত দিয়ে দেশ স্বাধীন করেছে। সেই দেশটা ব্যর্থ হতে পারে না।

তিনি বলেন, যে স্থাপনাগুলো মানুষের জীবনকে সহজ করে সেগুলো ধ্বংস করা আসলে কোনো ধরনের মানসিকতা। ঢাকা শহর যানজটে নাকাল থাকলেও মেট্রো স্বস্তি দিয়েছে। আধুনিক প্রযুক্তির এ পরিবহন এভাবে ধ্বংস করেছে, বিষয়টা মানতে পারছি না।

উল্লেখ্য, গেলো শুক্রবার (১৯ জুলাই) বিকেলে রাজধানীর মিরপুর-১০ ও কাজীপাড়া স্টেশনে হামলা হয়। ভাঙচুর করা হয় সিসি (ক্লোজড সার্কিট) ক্যামেরা, এলইডি মনিটর, টিকিট কাটার মেশিনসহ বিভিন্ন জায়গা। লুট করা হয় মূল্যবান অনেক জিনিস। পরে কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা নির্ণয়ে কমিটি করেছে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ।

Advertisement

ক্ষতিগ্রস্ত মিরপুর-১০ ও কাজীপাড়া স্টেশন চালু হতে কমপক্ষে এক বছর লাগতে পারে বলে জানায় মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ।

 

এসি//

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বাংলাদেশ

আজ থেকে চালু হচ্ছে স্বল্প দূরত্বের ট্রেন

Published

on

ট্রেন

কারফিউ শিথিল হওয়ায় আজ থেকে চালু হচ্ছে স্বল্প দূরত্বের ট্রেন। সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত  স্বল্প দূরত্বের কিছু সংখ্যক লোকাল ও কমিউটার ট্রেন চলবে।

গেলো বুধবার (২৪ জুলাই) দুপুরে যাত্রীবাহী ট্রেন চালুর বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হুমায়ুন কবীর।

রেল সচিব জানান, শুরুতে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা-টাঙ্গাইলসহ দেশের আরও বেশ কিছু রুটে ট্রেন চলবে। এরপর সরকার কারফিউ নিয়ে নতুন কোনো সিদ্ধান্ত নিলে সে অনুযায়ী ট্রেন চালানোর বিষয়ে আবার সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

রেলওয়ে কতৃপক্ষ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা-গাজীপুর এবং ঢাকা-টাঙ্গাইল পথের কমিউটার ট্রেনগুলো চলাচল করবে। তবে সময় পাঁচ ঘণ্টা। এ সময়ের মধ্যে দুই থেকে তিনবার যাতায়াত (ট্রিপ) করতে পারবে। দূরবর্তী যাত্রার মধ্যে ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মধ্যে চলাচল করবে তিতাস কমিউটার ট্রেন। স্বাভাবিক সময়ে তিতাস ট্রেন দিনে চারবার আসা-যাওয়া করে। বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ১০টায় যাবে। দুপুর ১ টা ৫ মিনিটে ফিরতি যাত্রা শুরু করবে।

এছাড়া, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পথে স্বাভাবিক সময়ে ২০ বারের বেশি কমিউটার ট্রেন যাতায়াত করে। তবে বর্তমানে এটি তিন-চারবার আসা-যাওয়া করতে পারে বলে রেল কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

Advertisement

উল্লেখ্য, রেলের পশ্চিমাঞ্চলে (রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগ) দুটি পথে ট্রেন চলাচল করতে পারে। এর মধ্যে রাজশাহী থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ এবং লালমনিরহাট থেকে বুড়িমারী পর্যন্ত চলাচল করবে কমিউটার ট্রেন।

আই/এ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত