Connect with us

আন্তর্জাতিক

আমেরিকা গিয়ে বাইডেনের সঙ্গে যে বিষয়ে আলোচনা করবেন মোদী

Avatar of author

Published

on

ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসাবে আমেরিকার সংসদে দ্বিতীয় বারের জন্য বক্তব্য রাখবেন মোদী। মোদীর সঙ্গে বাইডেনের আলোচনায় কোন বিষয়গুলি অগ্রাধিকার পাবে, তা জানিয়েছে হোয়াইট হাউস।

চলতি মাসের (২১ জুন) তিন দিনের সফরে আমেরিকা যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে বৈঠক করার পাশাপাশি, আমেরিকার সংসদের যৌথ অধিবেশনে বক্তব্য রাখবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। অধিবেশনে শেষে বাইডেন এবং তার পত্নী জিল বাইডেন আয়োজিত নৈশভোজের আসরেও যোগ দেবেন তিনি।

বাইডেন প্রশাসন সূত্রের খবর, ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসাবে আমেরিকার সংসদে দ্বিতীয় বারের জন্য বক্তব্য রাখবেন মোদী। মোদীর সঙ্গে বাইডেনের আলোচনায় কোন বিষয়গুলি অগ্রাধিকার পাবে, তা স্পষ্ট করে দিয়েছে হোয়াইট হাউস।

বাইডেন প্রশাসনের প্রেস সচিব ক্যারিন জাঁ পিঁয়ের জানিয়েছেন, আমেরিকা এবং ভারতের মধ্যে বোঝাপড়াকে আরও জোরদার করার জন্য, ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকাকে অবাধ এবং মুক্ত রাখার জন্য আলোচনায় বসবেন দুই দেশের রাষ্ট্রপ্রধান। এ ছাড়াও প্রতিরক্ষা ক্ষেত্র নিয়েও বাইডেন এবং মোদী আলোচনা করবেন বলে জানিয়েছেন প্রেস সচিব।

ক্যারিনের আরও জানান , ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলকে অবাধ এবং মুক্ত রাখার উদ্দেশে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করার বিষয়ে তো বটেই, প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত বিষয়কেও আলোচনায় অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

Advertisement

একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, এখনই তার পক্ষে এর বেশি কিছু বলা সম্ভব নয়। আমেরিকা এবং ভারতের পারস্পরিক সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে ক্যারিন বলেন, ভারত আর আমেরিকা এমনই বন্ধুত্বের বন্ধনে আবদ্ধ যে, মনে হয় ভারতীয় এবং আমেরিকানরা একসঙ্গেই আছেন।

বর্তমান ভূরাজনৈতিক পরিস্থিতিতে একাধিক কারণে মোদী এবং বাইডেনের বৈঠককে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের আবহে ভারতের ‘নিরপেক্ষ’ ভূমিকায় এবং ভ্লাদিমির পুতিনের দেশ থেকে অপরিশোধিত তেল কিনে যাওয়ার সিদ্ধান্তে খুশি নয় আমেরিকা। আবার ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে চিনের আগ্রাসন রুখতে ভারতকে প্রয়োজন আমেরিকার। জি৭ বৈঠকে ভারত, আমেরিকা, জাপান এবং অস্ট্রেলিয়া— কোয়াড গোষ্ঠীভুক্ত চার দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের সাক্ষাৎ হয়। সেই সাক্ষাতের পর আবারও বাইডেনের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছেন মোদী।

Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

আন্তর্জাতিক

‘গেইমি’র তাণ্ডবে এশিয়ার ৩ দেশে মৃত্যু ১৭, বন্ধ ফ্লাইট

Published

on

শক্তিশালী-ঝড়-গেইমি

শক্তিশালী ঝড় গেইমির তাণ্ডবে এশিয়ার তিন দেশ ফিলিপিন্স,তাইওয়ান ও ভিয়েতনামে এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের। বুধবার (২৪ জুলাই) আঘাত হানে এ ঝড়।

বৃহস্পতিবার (২৪ জুলাই) আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট’র প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় বুধবার ফিলিপাইনে আঘাত হানা এ ঝড় আজ বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) তাইওয়ানের উপকূলে আছড়ে পড়বে। তবে এর আগেই দেশটিতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন ২২০ জন। ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে সতর্কতামূলকভাবে উড়োজাহাজ চলাচল ও স্কুল বন্ধ রাখা হয়েছে।

বুধবার শক্তিশালী টাইফুনের আঘাতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলা ও আশপাশের বেশ কয়েকটি শহর। ভারি বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়ায় ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া রাস্তাঘাটের পাশাপাশি তলিয়ে গেছে ঘরবাড়ি ও গুরুত্বপূর্ণ নানা স্থাপনা। সম্ভাব্য ক্ষতি এড়াতে বন্ধ রাখা হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সরকারি দপ্তর।

শক্তিশালী-ঝড়-গেইমি

ফিলিপাইন ছাড়াও ঘূর্ণিঝড় গেইমি আঘাত হেনেছে জাপান ও ভিয়েতনামে। দেশটির ওকিনাওয়া ও ইশিগাকা অঞ্চলে ঝড়ের কারণে জারি করা হয়েছে সর্বোচ্চ সতর্কতা। স্থানীয় সময় বুধবার মধ্যরাতে ২৫০ কিলোমিটার বেগে আঘাত হানে মৌসুমী ঝড়টি। এর প্রভাবে তলিয়ে গেছে নিচু এলাকা। আবহাওয়ার পূর্বাভাসে ভূমিধস নিয়েও সতর্ক করা হয়েছে।

Advertisement

ইশিগাকা অঞ্চল থেকে খুব দ্রুত তাইওয়ান প্রণালীর দিকে পৌঁছেছে গেইমি। এরই মধ্যে প্রণালীটিতে অন্তত একজনের মৃত্যু ও ৫৮ জন আহত হয়েছেন।

স্থানীয় সময় বুধবার সন্ধ্যার দিকে দেশটির উত্তরপূর্ব উপকূলে আঘাত হানে ঝড়টি। এর আগেই বাতিল করা হয় বেশ কিছু ফ্লাইট। এদিকে ভয়াবহ বন্যায় বেশ কয়েকজন হতাহতের ঘটনা ঘটেছে এশিয়ার আরেক দেশ ভিয়েতনামে।

 

এসি//

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

জরিপে ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে কমলা হ্যারিস

Published

on

ফাইল ছবি

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক পার্টি থেকে প্রার্থিতার দৌড়ে এগিয়ে এসেছে ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস।

জনমত জরিপগুলোয় রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে জোর টক্কর দিচ্ছেন তিনি।

রয়টার্স/ইপসোসের সর্বশেষ জরিপে ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে গেছেন কমলা।

গেলো সোমবার ও মঙ্গলবার এই জরিপ চালানো হয়। যেখানে কমলার প্রতি ৪৪ শতাংশ এবং ট্রাম্পের প্রতি ৪২ শতাংশ ভোটার সমর্থন জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গেলো রোববার বাইডেন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলে সামনে আসেন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস।  এর আগে গেলো সপ্তাহের সর্বশেষ জনমত জরিপে তিনি ট্রাম্পের চেয়ে এই ২ পয়েন্টেই পিছিয়ে ছিলেন।

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

নেপালে উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত, নিহত ১৮

Published

on

সংগৃহীত ছবি

নেপালে আবারও উড়োজাহাজ দুর্ঘটনা ঘটলো। দেশটির সুরিয়া এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট টেক অফের সময় কাঠমান্ডুর ত্রিভূবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভেঙ্গে পড়েছে। এতে উড়োজাহাজে থাকা ১৮ জন যাত্রী প্রাণ হারিয়েছেন। তবে ভাগ্যক্রমে বেঁচে গেছেন উড়োজাহাজের এক পাইলট। নেপালের সিভিল অ্যাভিয়েশনের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা-বিবিসি’র প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

জ্ঞ্যানেন্দ্র ভুল নামে নেপালের সিভিল এভিয়েশনের এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, কাঠমান্ডু থেকে পোখরাগামী উড়োজাহাজটির ফ্লাইটে দুজন ক্রু এবং ১৭ জন যাত্রী ছিলেন। বিমানটি ত্রিভুবন বিমানবন্দরের উত্তর দিকের অংশে বিধ্বস্ত হয়েছে। বিমানবন্দরের রানওয়ে থেকে ছিটকে উড়োজাহাজটি পাশের জমিতে গিয়ে পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে উড়োজাহাজটিতে আগুন ধরে যায়।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়, বিমানবন্দরের আকাশ কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছে। পাইলটকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

নেপালের ডোমেস্টিক এয়ারলাইন্স সুরিয়া। মাত্র তিনটি বিমান রয়েছে তাদের বহরে। নেপালের মধ্যেই বিভিন্ন রুটে সেগুলো চলাচল করে। প্রত্যেকটি বিমানে ৫০ জন যাত্রী বহনে ক্ষমতা রয়েছে। কিন্তু পোখরাগামী উড়োজাহাজটিতে মাত্র ১৯ জন যাত্রী ছিলেন বলে জানা যায়।

নেপালি সংবাদ মাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়েছে, এখন পর্যন্ত পাঁচ জনের দেহ উদ্ধার করা গিয়েছে। উড়োজাহাজটির পাইলট মণীশ সাইকিয়াকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে সিনামঙ্গল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

Advertisement

দুর্ঘটনার প্রাথমিক কারণ হিসেবে জানানো হয়েছে, টেক অফের সময় উড়োজাহাজের চাকা স্কিড করে বা স্লিপ করে। সেকারণে উড়োজাহাজটির রানওয়ের পাশের জমিতে গিয়ে আছড়ে পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে উড়োজাহাজটিতে আগুন ধরে যায়।  আগুন নেভানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।

নেপালের ডোমেস্টিক উড়োজাহাজটির মালিকানা রয়েছে ভারতীয় শিল্প সংস্থা কুবের গ্রুপের। ২০১৯ সালে এই নেপালি এয়ারলাইন্সটি কিনে নেয় তাঁরা।  তার নাম বদল করার পরিকল্পনা ছিল কিন্তু সেটা বদল করা হয়নি।

নেপালে উড়োজাহাজটির দুর্ঘটনার রেকর্ড: ত্রিভূবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উড়োজাহাজ দুর্ঘটনা নতুন নয়। এর আগে, বাংলাদেশের বেসরকারি ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি যাত্রীবাহী উড়োজাহাজ ২০১৮ সালের মার্চে নেপাল থেকে ঢাকায় আসার সময় ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভেঙে পড়লে ৫১ জন যাত্রী প্রাণ হারান।

রয়টার্সের খবর অনুযায়ী ২০০০ সাল থেকে নেপালে উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় প্রায় ৩৫০ জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনাটি ঘটে ১৯৯২ সালে। ওইসময় পাকিস্তান ইন্টারন্যাশানাল এয়ারলাইন্সের একটি এয়ারবাস কাঠমান্ডুতে অবতরণের সময় একটি পাহাড়ে বিধ্বস্ত হলে ১৬৭ যাত্রী প্রাণ হারায়।

সবশেষ, ২০২৩ সালের জানুয়ারিতে ইয়েতি এয়ারলাইন্সের একটি যাত্রীবাহী উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হলে ৭২ জন আরোহী প্রাণ হারায়। ইয়েতি এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজটি কাঠমান্ডু থেকে পোখারায় যাওয়ার পর অবতরণের সময় বিধ্বস্ত হয়। এটিআর ৭২ মডেলের দুই ইঞ্জিনের উড়োজাহাজটিতে মোট ৬৮ জন যাত্রী ছিলেন।  অন্য চারজন ছিলেন পাইলট ও কর্মী। বিদেশি যাত্রী ছিলেন ১৫ জন।

Advertisement

এমআর//এম/এইচ

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত