Connect with us

আন্তর্জাতিক

বাইডেনের যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবে সংশোধন চায় হামাস

Avatar of author

Published

on

মার্কিন-পররাষ্ট্রমন্ত্রী-অ্যান্টনি-ব্লিঙ্কেন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের দেয়া যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবে কিছু সংশোধনের দাবি জানিয়েছে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাস। বুধবার (১২ জুন) কাতারের রাজধানী দোহায় এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন।

জো বাইডেনের প্রস্তাবে ইসরাইলের কারাগারে থাকা ফিলিস্তিনিদের বিনিময়ে একটি যুদ্ধবিরতি এবং গাজায় ইসরাইলি জিম্মিদের পর্যায়ক্রমে মুক্তির পরিকল্পনা রয়েছে। এ যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবের মাধ্যমে যুদ্ধের স্থায়ী সামাধানের কথাও বলা হয়। তবে, হামাসের পাল্টা প্রস্তাবে যুদ্ধবিরতি এবং বন্দি বিনিময় প্রস্তাব অনেকটা ঝুলে গেল।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আগের আলোচনায় গৃহীত শর্তাবলী সংশোধন করতে চেয়ে পাল্টা প্রস্তাব দিয়েছে হামাস। ব্লিঙ্কেনের মতে, হামাসের নতুন প্রস্তাবের মধ্যে অনেক বিষয় কার্যকর করার মতো, আবার কিছু আছে কার্যকর সম্ভব নয়।

তবে, হামাস ও ইসরাইলের মধ্যে যুদ্ধবিরতির জন্য মধ্যস্থতাকারী দেশ কাতার ও মিশর এবং আমেরিকা কাজ চালিয়ে যাবে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়।

যুক্তরাষ্ট্র, মিশর এবং কাতারের আলোচকরা যুদ্ধবিরতির মধ্যস্থতা করার জন্য কয়েক মাস ধরে চেষ্টা করে আসছে। হামাস প্রায় দুই সপ্তাহ অপেক্ষার পর এই পরিবর্তনের প্রস্তাব দিল।

Advertisement

এ প্রস্তাবের বিষয়ে হামাসের রাজনৈতিক ব্যুরো থেকে ইজ্জাত আল-রিশক আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, মার্কিন যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবটি ‘দায়িত্বপূর্ণ, গুরুত্বপূর্ণ এবং ইতিবাচক’। এ ছাড়া প্রস্তাবটি যুদ্ধবিরতি চুক্তির জন্য বিস্তৃত পথ উন্মুক্ত করবে বলেও জানান তিনি।

এর আগে মঙ্গলবার (১১ জুন) মধ্যস্থতাকারী দেশ কাতার ও মিশরের কাছে যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবের বিষয়ে নিজেদের লিখিত প্রতিক্রিয়ায় ইসরাইলের কাছে স্থায়ী যুদ্ধবিরতির প্রতিশ্রুতি চায় হামাস।

এক বিবৃতিতে, চুক্তিতে পৌঁছানোর বিষয়ে ইতিবাচক মনোভাব প্রকাশ করে হামাস ও ফিলিস্তিনি ইসলামিক জিহাদ। জাতিসংঘে পাস হওয়া প্রস্তাবকে হামাসের গ্রহণ করার বিষয়টিকে আশাব্যঞ্জক বলছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন।

উল্লেখ্য, গেলো ৩১ মে গাজায় তিন ধাপে যুদ্ধবিরতি কার্যকরের প্রস্তাব দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এই প্রস্তাবের মূল কথা একটি স্থায়ী যুদ্ধবিরতি, জিম্মিদের মুক্তি আর ফিলিস্তিনি বন্দিদের ছেড়ে দেয়া।

প্রথম ধাপে হবে জিম্মি ও বন্দি বিনিময় এবং সাময়িক যুদ্ধবিরতি। দ্বিতীয় ধাপে সব জিম্মিকে মুক্তি দেয়া। গাজা থেকে ইসরাইলি সেনাদের সরিয়ে নেয়া। আর তৃতীয় ধাপে গাজা পুনর্গঠনে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা।

Advertisement
Advertisement

আন্তর্জাতিক

মাছ-মাংস না দেয়ায় কনেপক্ষকে বেধড়ক পিটুনি দিলো বরযাত্রী

Published

on

বিয়ের অনুষ্ঠানে বরযাত্রীদের খুশি করতে চেষ্টার কোনো কমতি রাখে না কনের পরিবার। বরের পরিবারের মানুষের মন জোগাতে আপ্যায়নের যেন কমতি থাকে না। বরযাত্রীদের সামনে দেয়া হরেক পদে খাবার। মাছ, মাংস, পোলাও থেকে শুরু করে আরও কতকি। তবে সব কিছু দিলেও এই বরযাত্রীদের মাছ ও মাংস দেয়নি কনেপক্ষ। এতে ক্ষোভে ফেটে পড়েন বরের আত্মীয়-স্বজনরা। তাদের রাগের মাত্রা এত বেশি ছিল যে কনের পরিবারের সদস্যদের লাথি ও ঘুষি মেরেই ক্ষান্ত হননি লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর পর্যন্ত করেন।

গেলো বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) ভারতের উত্তর প্রদেশে দেওরিয়া জেলার আনন্দ নগর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। পরে বিয়ে বন্ধ করে দিয়ে বর অনুষ্ঠানস্থল ছেড়ে চলে যান। এরপর বাধ্য হয়ে থানায় মারধার ও যৌতুকের অভিযোগে মামলা দায়ের করে কনের পরিবার।

এনডিটিভির প্রতিবেদন অনুযায়ী, গেলো বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) ভারতের উত্তর প্রদেশে দীনেশ শর্মার মেয়ে সুষমাকে বিয়ে করার জন্য দেওরিয়া জেলার আনন্দ নগর গ্রামে বরযাত্রী নিয়ে যান অভিষেক শর্মা। সব কিছুই পরিকল্পনা মতো চলছিল। এমনকি বরমালা বিনিময় পর্যন্ত হয়ে যায়। তখনই বরপক্ষকে জানানো হয়, খাবারের আয়োজনে কোনো আমিষ রাখা হয়নি।

পুলিশের কাছে দায়ের করা অভিযোগে কনের বাবা ওই প্রতিবেদনে বলেছেন, নিরামিষ খাবারের কথা বলা হলে বর, তার বাবা সুরেন্দ্র শর্মা ও অন্যরা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে শুরু করে। আমি আপত্তি জানালে অভিষেক শর্মা, সুরেন্দ্র শর্মা, রামপ্রবেশ শর্মা, রাজকুমার ও কিছু অজ্ঞাত লোক আমার পরিবারকে লাঠি দিয়ে মারতে শুরু করে এবং লাথি ও ঘুষি মারে।

অভিযোগে আরও বলা হয়, প্রায় ৫ লাখ রুপি (প্রায় সাড়ে সাত লাখ টাকা) যৌতুক হিসেবে দেয়া হয়েছে। মেয়ের বাবা জানান, যৌতুক হিসেবে গাড়ি কেনার জন্য তিনি অভিষেক শর্মাকে সাড়ে চার লাখ রুপি (পাঁচ লাখ ৬১ হাজার টাকা) দিয়েছেন। এ ছাড়া এক সেট তিলক ও দুটি সোনার আংটি (মূল্য ২৮ হাজার টাকা) দেয়া হয়েছে।

Advertisement

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

হামাসকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে তালিকাভুক্ত করলো আর্জেন্টিনা

Published

on

আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট জাভিয়ার মিলেই

ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাসকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছে আর্জেন্টিনা। পাশাপাশি সংগঠনটির সব আর্থিক সম্পত্তি জব্দের নির্দেশ দিয়েছে দেশটির সরকার। খবর- জেরুজালেম পোস্ট

ইসরাইল ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তোলার লক্ষ্যে হামাসকে সস্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট জাভিয়ার মিলেই।

প্রেসিডেন্টের দপ্তর থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, গেলো বছরের ৭ অক্টোবর ইসরাইলের অভ্যন্তরে হামলা চালিয়েছে হামাস। এতে ১২০০ জনকে হত্যা এবং ২৫০ জনকে জিম্মি করে নিয়ে যায় সংগঠনটির যোদ্ধারা।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘আর্জেন্টিনাকে অবশ্যই আরেকবার পশ্চিমা সভ্যতার সঙ্গে যুক্ত হতে হবে।’

এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে প্রথম ইসরাইল সফর করেন আর্জেন্টাইন প্রেসিডেন্ট জাভিয়ার মিলেই। ওই সময় পবিত্র নগরী জেরুজালেমে গিয়ে তিনি ইহুদিদের সঙ্গে প্রার্থনা করেন। একই সঙ্গে জেরুজালেমে আর্জেন্টিনার দূতাবাস স্থানান্তরিত করার ঘোষণা দেন।

Advertisement

এনএস/

 

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

মার্কিন ৬ প্রতিষ্ঠানের ওপর চীনের নিষেধাজ্ঞা

Published

on

তাইওয়ানে অস্ত্র বিক্রির অভিযোগে মার্কিন ৬ প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে চীন। শুক্রবার (১২ জুলাই) চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

তাইওয়ানে অস্ত্র বিক্রির ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর নিন্দা জানিয়েছে চীন। তাইওয়ানে অস্ত্র বিক্রি করাকে চীন তার দেশের স্বাধীনতা ও স্বার্বভৌমত্বে চরম হস্তক্ষেপ হিসেবে মনে করে।

আরও বলা হয়েছে, মার্কিন অস্ত্র বিক্রির ঘটনাকে বেইজিং তার একচীন নীতির প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন হিসেবে মনে করে।

নিষেধাজ্ঞার ফলে, চীনে থাকা মার্কিন ওই অস্ত্র সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সম্পদ ও অর্থ বাজেয়াপ্ত করতে পারবে বেইজিং।

এই নিষেধাজ্ঞার ফলে মার্কিন ওই প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট কোনো ব্যক্তি এখন থেকে চীনের পাশাপাশি হংকং এবং মেকাওয়েরও ভিসা পাবে না।

Advertisement

প্রঙ্গগত, ১৮ জুন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে নতুন করে অস্ত্রবাণিজ্য চুক্তি করে তাইওয়ান। ২০২১ সালে জো বাইডেন প্রেসিডেন্টের চেয়ারে বসার পর থেকে এ নিয়ে ওয়াশিংটন ও তাইপের মধ্যে ১৬টি অস্ত্র বিক্রর চুক্তি হয়।

এনএস/

 

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত