Connect with us

বলিউড

‘বাবা চান না আমি বিয়ে করি’, বিস্ফোরক মন্তব্য সোনাক্ষীর

Avatar of author

Published

on

সংগৃহীত ছবি

বি-টাউনে কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে অভিনেত্রী সোনাক্ষী সিনহা ও জাহির ইকবালের বিয়ের খবর। তাদের দুজনের বিয়ের স্পেশাল অডিও কার্ড ভাইরাল হয়েছে।  এরইমধ্যে অন্যান্য তারকারা হবু দম্পতিকে শুভেচ্ছা জানাতে শুরু করে দিয়েছেন।  সবকিছু ঠিক থাকলে আসছে ২৩ জুন সোনাক্ষী-জাহিরের চার হাত এক হবে।  বলিউডের ডাকসাইটে অভিনেতা শত্রুঘ্ন সিনহার একমাত্র মেয়ে সোনাক্ষী। তাঁর নয়নের মণি। তবে শত্রুঘ্ন সিন্‌হা নাকি মেয়ের বিয়েই দিতে চান না।  তাঁর হাতে পুরো বিষয়টা থাকলে নাকি কখনও সোনাক্ষীর বিয়েই দিতেন না।  সম্প্রতি এক সাক্ষাতকারে এসব কথা বলেছেন অভিনেত্রী সোনাক্ষী সিনহা।

আনন্দবাজার, হিন্দুস্তান টাইমসসহ বেশ কয়েকটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই সাক্ষাৎকারে বিয়ের পরিকল্পনা নিয়ে তার পরিবার কী ভাবছে এমন প্রশ্ন করা হয় সোনাক্ষীকে। জবাবে বলিউড অভিনেত্রী জানান, বাবার হাতে বিষয়টা থাকলে তিনি কোনও দিনই তাঁর বিয়ে দেবেন না। আসলে বাবা হিসেবে তিনি চাইতেন, মেয়ে যত দিন বাড়িতে থাকেন, ততই ভাল। তাই সোনাক্ষীর বিয়ে নিয়ে আদৌ মাথা ঘামাতেন না তিনি।  মাঝেমধ্যে অভিনেত্রীর মা বিয়ের কথা বলতেন। কিন্তু সোনাক্ষী কবে বিয়ে করছেন, এ জাতীয় প্রশ্ন কখনওই করতেন না শত্রুঘ্ন সিনহা।

২০২১ সালে দেওয়া ওই সাক্ষাৎকারে সোনাক্ষী নিজেই হাসতে হাসতে বলেছিলেন, ‘বাবা চান না, আমি কোনও দিন বিয়ে করি। মা মাঝে মধ্যে বলেন আমার বিয়ের কথা। বলেন যে, এ বার আমার বিয়ে করা উচিত। কিন্তু আমি এমন ভাবে তাকাই, মা আর কিছু বলেন না।বলেন, আচ্ছা ঠিক আছে।’

এর পরই আবার সোনাক্ষী বলেন, ‘সত্যি কথা বলতে আমি খুবই লাকি যে ওনারা আমাকে এতটা স্বাধীনতা দিয়েছেন। যতক্ষণ না আমি চাইব, তাঁরা কখনও বলবেন না যে বিয়ে করে নাও। আমি এখন নিজের কাজ নিয়েই খুশি।”

এর আগে বিয়ের ব্যাপারে সোনাক্ষীকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলতেন কাজ নিয়েই থাকতে ভালবাসেন। তাই বিয়ের কথা ভাবছেন না। তাঁর বাবা-মাও বিয়ে নিয়ে তাঁকে কখনও জোর করেননি। বরং কাজ নিয়ে ভাল আছেন দেখে তাঁরা খুশিই ছিলেন।

Advertisement

তবে সিদ্ধান্ত পালটাতে বেশি সময় নেননি ‘দাবাং’ কন্যা সোনাক্ষী।  কপিল শর্মার একটি শোতে হাজির হয়ে বলেছিলেন, তিনি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বিয়ে করতে চান। এর পরই ২৩ তারিখের বিয়ের খবর প্রকাশ্যে আসে। হানি সিং, পুনম ধিল্লোঁ, ডেইজি শাহরা বিয়েতে যাবেন বলেও তিনি জানিয়ে দেন।

তবে বলিউডে জোর গুঞ্জন চলছে, শত্রুঘ্ন সিনহা নাকি মেয়ের বিয়েতে খুশি নন।  যদিও অভিনেতা এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে বলেছেন, ‘বিয়ের খবরে আমি সিলমোহরও দিচ্ছি না আবার উড়িয়েও দিচ্ছি না। সময়ই এর জবাব দেবে। ও (সোনাক্ষী) যেটাই করবে আমার আশীর্বাদ সবসময় পাবে।’

বলিউডের বর্ষীয়ান এই অভিনেতা মেয়ের প্রতিভা নিয়ে  গর্ব করে বলেন, ‘সোনাক্ষী আমার নয়নের মণি। আমার একমাত্র মেয়ে আর খুব কাছের। আমার ওকে নিয়ে গর্বের শেষ নেই। কারণ, ‘লুটেরা’, ‘দাহাড়’ থেকে ‘হীরামাণ্ডি’ পর্যন্ত, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে প্রত্যেকবার ও নিজেকে আরও ভালো অভিনেত্রী হিসেবে প্রমাণ করেছে।’

বিয়ের প্রসঙ্গে শত্রুঘ্ন বলেছিলেন, ‘‘মেয়ে বিয়ে করলে তার প্রতি আমার আশীর্বাদ থাকবে। ওর সিদ্ধান্ত যা-ই হোক, আমার সম্মতি থাকবে। নিজে মনের মতো সঙ্গী বেছে নেওয়ার অধিকার ওর আছে। ওর বিয়েতে আমি সবচেয়ে খুশি হব বাবা হিসেবে। একটাই তো মেয়ে আমার!’’

প্রসঙ্গত, অভিনেতা জ়াহির ইকবালের সঙ্গে ৭ বছর ধরে সম্পর্কে আছেন অভিনেত্রী সোনাক্ষী।আসছে ২৩ জুন বিয়ে করছেন তারা। বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেঠির রেস্তরাঁয় বসবে বিয়ের আসর।

Advertisement

এমআর//

Advertisement

বলিউড

অবশেষে সাতপাকে বাঁধা পড়লেন অনন্ত আম্বানি ও রাধিকা মার্চেন্ট

Published

on

এ যেনো এক স্বপ্নের বিয়ে। এমন রাজকীয় বিয়ের সাক্ষী নিকট অতীতে হয়নি গোটা ভারত। রাজনীতি থেকে গ্ল্যামার ইন্ডাস্ট্রি এবং বিশ্বের বড় বড় ব্যক্তিত্বরা উপস্থিত ছিলেন বিয়ের অনুষ্ঠানে। গেল ১২ জুলাই, শুক্রবার অনন্ত আম্বানির সঙ্গে সাতপাকে বাঁধা পড়লেন রাধিকা মার্চেন্ট।

বলিউড থেকে শুরু করে পশ্চিমা বিনোদন জগতের সবাই বিয়ের অনুষ্ঠান আলোকিত করেন। এ দিন ছাদনাতলায় যাওয়ার আগে দাদা ধীরুভাই আম্বানির থেকে আশীর্বাদ নেন অনন্ত । পারিবারিক ও ধর্মীয় রীতি-রেওয়াজ মেনে আম্বানি ছেলে ‘শেহেরাবন্দি’ অনুষ্ঠান পালন করেন। দাদা-বউদি আকাশ-শ্লোক এবং বোন-জামাই ইশা-আনন্দ সকলেই অনন্ত-রাধিকার বিয়েতে আগত অতিথিদের আপ্যায়ণে কড়া নজর রেখেছিলেন।

অনন্ত-রাধিকার বিয়ের থিম ছিল ‘অ্যান অড টু বারাণসী। যা উৎসর্গ করা হয়েছে বারাণসীকে। বিয়ের থিমের সঙ্গে মিলিয়ে গোলাপি পোশাকে সেজেছিলো আম্বানি পরিবার। অতিথি আপ্যায়ণে বিশেষ মেন্যুর ব্যবস্থা ছিলো। অনন্তের মা নীতা আম্বানির প্রিয় বারাণসী স্ট্রিট ফুড প্রাধান্য পেয়েছিলো নৈশভোজের তালিকায়। এলাহি বারাণসী স্পেশাল চাট, মিষ্টি, লস্যি, চা, খারি, পান এবং মুখসুদ্ধির মতো নানান পদ ছিল। সোনার মঙ্গল প্রদীপ হাতে ছেলের বরযাত্রীতে দেখা গিয়েছে নীতা আম্বানিকে। গেল দেড় বছর ধরে অনন্ত-রাধিকার স্বপ্নের বিয়ের প্রস্তুতি নিয়েছিল আম্বানি পরিবার। কখনও দেশে কখনও বিদেশে তারকাখচিত পার্টির ঝলক দেখেছে নেট দুনিয়া। এবার জীবনের নতুন ইনিংস শুরু করলেন অনন্ত-রাধিকা।

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বলিউড

ঢাকা মাতাবেন রাহাত ফাতেহ আলী খান

Published

on

গুণী তারকাদের আগমনে বার বার মুখরিত হয়ে ওঠে রাজধানী। সেই ধারাবাহিকতায় এবার ঢাকায় আসছেন পাকিস্তানের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী রাহাত ফাতেহ আলী খান। আগামী ২০ জুলাই ঢাকায় আসবেন এই গুনী সংগীতশিল্পী।

ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে ই-কমার্স সাইট বাই হেয়ার নাউ (বিএইচএন) নিশ্চিত করেছে ফাতেহ আলী খান আসার বিষয়টি।

ওই পোস্টে জানানো হয় , আগামী ২০ জুলাই ২০২৪-এ রাহাত ফাতেহ আলী খানের মায়াবী সুরে মুগ্ধ হতে চলে আসুন। রাহাত ফাতেহ আলী খানের একটি ভিডিও জুড়ে দেয়া হয়েছে ওই স্ট্যাটাসের সঙ্গে। সেখানে প্রি-রেজিস্টেশনের জন্য যোগ করা হয়েছে ইভেন্ট লিঙ্ক। তার গান উপভোগ করতে চাইলে প্রি-রেজিস্টেশন করতে হবে। পরে টিকিট মূল্য ও ভেন্যু জানিয়ে দেয়া হবে।

এর আগেও ব্যাপক সফলতা রয়েছে এই প্রতিষ্ঠানটির। গেলো মাসে বলিউড অভিনেতা অর্জুন রামপালকে দিয়ে রাজধানীতে একটি আয়োজন করেছিল তারা। সংগীতশিল্পী লাকী আলীকেও ঢাকায় এনেছিল তারা।

প্রসঙ্গত, দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় ও সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া গায়ক রাহাত ফাতেহ আলী খান । বলিউডেও বিভিন্ন গানে কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে মুসলিম সুফি হিসেবে ভক্তিমুলক গান গাইতেন। ওস্তাদ নুসরাত ফাতেহ আলী খানের ভাস্তে রাহাত ফাতেহ আলী খান এবং ওস্তাদ ফররুখ ফাতেহ আলী খানের পুত্র।

Advertisement

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বলিউড

হার্দিক-নাতাশার সম্পর্ক নিয়ে নতুন তথ্য দিলেন দম্পতির ঘনিষ্ঠ বন্ধু

Published

on

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালের একেবারে শেষ ওভারে হার্দিক পান্ডিয়ার বোলিং মন জয় করে নিয়েছে তাঁর সমালোচকদেরও। কিন্তু তাঁর পারিবারিক অশান্তি কি মিটেছে? ব্যক্তিগত জীবনে স্ত্রী নাতাশা স্ট্যাঙ্কোভিচের সঙ্গে টানাপড়েন যেন থামছেই না এই ক্রিকেটারের।

সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তারকা দম্পতির এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু জানিয়েছেন, হয়তো নাতাশা-হার্দিকের সম্পর্কের ফাটল মেরামত হওয়ার আর কোনো সম্ভাবনা নেই। সেক্ষেত্রে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দেশের জয় কোনো বিশেষ ভূমিকা নিতে পারছে না। ওই বন্ধু জানিয়েছেন, ‘সম্পর্ক সম্ভবত শেষ।’

তাঁর দাবি, নাতাশা এবং হার্দিক তাদের মান-অভিমানের পালা মিটিয়ে একত্রিত হওয়ার মতো অবস্থায় নেই। ফলে এটা স্পষ্ট যে, হার্দিক ও তার স্ত্রী নিজেদের সম্পর্ক শুধরে নিতে রাজি নন। সামাজিকমাধ্যমে তাদের বিবাহবিচ্ছেদের গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে বেশ কিছুদিন আগে। ইতিমধ্যেই হার্দিক ও নাতাশা তাদের সামাজিকমাধ্যম থেকে একে অপরের সমস্ত ছবি মুছে দিয়েছেন। বিশ্বকাপ জয়ের পর হার্দিকের উদ্দেশে একটি শুভেচ্ছাবার্তাও জানাননি নাতাশা।

অন্যদিকে, বিশ্বকাপ জয়ের পর ফোনে কাঁদতে দেখা গিয়েছে হার্দিককে। তখন অনুমান করা হয়েছিল, স্ত্রীর সঙ্গেই আনন্দাশ্রু ভাগ করে নিচ্ছেন ভারতীয় ক্রিকেটার। কিন্তু ঘনিষ্ঠ মহল থেকে যে ধরনের কথা শোনা যাচ্ছে তাতে এই সম্ভাবনা ক্ষীণ হচ্ছে। দম্পতির ওই বন্ধু অবশ্য শেষ পর্যন্ত বলেছেন, ‘কেউ জানে না ভবিষ্যতে কী ঘটবে। কিন্তু বর্তমানে যা পরিস্থিতি, তাতে হার্দিক এবং নাতাশার সম্পর্ক ঠিক হওয়ার আশা নেই। সম্ভবত, এটা শেষ হয়ে গিয়েছে।’

২০২০ সালে গাঁটছড়া বাঁধেন নাতাশা এবং হার্দিক, ২০২৩ সালে রাজস্থানের উদয়পুরে বিয়ের জমকালো অনুষ্ঠান হয়েছিল। হিন্দু এবং খ্রিস্টান মতে বিয়ে করেছিলেন এই দম্পতি।

Advertisement

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত