Connect with us

বলিউড

আমিরপুত্রের সিনেমা ‘মহারাজ’র মুক্তি আটকে দিল আদালত

Avatar of author

Published

on

মহারাজ-এ আমিরপুত্র জুনায়েদ খানের লুক। ছবি: সংগৃহীত

বলিউড সুপারস্টার আমির খানের  ছেলে জুনায়েদ খান অনেকদিন ধরেই খবরের শিরোনামে। জুনায়েদ অভিনীত ‘মহারাজ’ সিনেমাটি কবে মুক্তি পাচ্ছে তা নিয়েই মূলত সংবাদ মাধ্যমগুলোর শিরোনাম। অসংখ্যা ছবিতে আমির খানের অভিনয় দেখলেও এবার প্রথমবারের মতো আমিরপুত্র জুনায়েদের অভিনয় দেখার জন্য প্রতীক্ষায় রয়েছেন দর্শকরা।

‘মহারাজ’ সিনেমার মাধ্যমে বলিউডে অভিষেক হচ্ছে আমিরপুত্র জুনায়েদ খানের। প্রকাশ্যে এসেছে সিনেমাটির পোস্টার। সিদ্ধার্থ পি মালহোত্রা পরিচালিত ছবিটি শুক্রবার (১৪ জুন) মুক্তির জন্য ঠিকঠাক ছিল।  তবে মুক্তির আগেই রীতিমতো বিতর্কের মুখে পড়লেন ছবির নির্মাতা। একটি হিন্দু সংগঠনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গুজরাট হাইকোর্ট ছবিটির মুক্তিতে স্থগিতাদেশ দিয়েছে।

সৌরভ শাহের বই ‘মহারাজ’ অবলম্বনে তৈরি এ সিনেমা। এ দিন নির্মাতাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন লেখকও। মামলার আগামী শুনানি ১৮ জুন। ভারতীয় গণমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়,  হাইকোর্টের এই স্থগিতাদেশের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রযোজনা সংস্থা যশ রাজ ফিল্মস ও নেটফ্লিক্স।

কী নিয়ে বিতর্ক?

মহারাজা ছবির মুক্তিতে স্থগিতাদেশ চেয়ে আবেদন করে ভগবান কৃষ্ণের ভক্ত এবং পুষ্টিমার্গ সম্প্রদায় (বৈষ্ণবধর্মের একটি সম্প্রদায়) বল্লভাচার্যের অনুগামীরা। তাদের পক্ষ থেকে দায়ের করা আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত স্থগিতাদেশ জারি করে। আবেদনে বলা হয়, ১৮৬২ সালের মহারাজ লিবেল কেসকে কেন্দ্র করে তৈরি এই ছবিটি জনগণের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি করতে পারে। শুধু তাই নয়, এই ছবিটি পুষ্টিমার্গ  সম্প্রদায়ের অনুগামীদের বিরুদ্ধে হিংসা উস্কে দিতে পারে।

Advertisement

আবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়, ১৮৬২ সালের মহারাজ লিবেল মামলাটি একজন বিশিষ্ট ব্যক্তির অসদাচরণের অভিযোগের উপর ভিত্তি করে দায়ের করা হয়েছিলো। মামলার রায় ঘোষণা করেছিলেন বোম্বে(বর্তমানে মুম্বাই) সুপ্রিম কোর্টের ইংরেজ বিচারক। আবেদনে দাবি করা হয়,  সিনেমাটিতে  ‘ভগবান কৃষ্ণ ও তাঁকে নিয়ে  ভক্তিমূলক গানের বিরুদ্ধে নিন্দামূলক মন্তব্য’ রয়েছে।  আবেদনে আরও অভিযোগ, সিনেমাটির ট্রেলারসহ পর্যাপ্ত প্রচারমূলক কাজ বেশি না করেই মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে নির্মাতারা।

কী আছে ‘মহারাজ’ ছবির গল্পে

ছবির অফিসিয়াল লগলাইনে লেখা আছে, ‘রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এক বছর পূর্ণ করেছেন এবং ১৮৫৭ সালের সিপাহী বিদ্রোহ স্বাধীনতার সংগ্রামকে জ্বালিয়ে দিচ্ছে।  সমস্ত প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে, একজন ব্যক্তি একটি ঐতিহাসিক আইনি লড়াইয়ে সাহসী অবস্থান নেন। একটি সত্য ঘটনা যেটি ১৬০ বছরেরও বেশি সময় পরে মহারাজ’র মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।’ ‘মহারাজ’ ছবিতে সাংবাদিক ও সমাজ সংস্কারক কারসানদাস মুলজির সাহসিকতা দেখানোর চেষ্টা করা হয়েছে।  কারসানদাস মুলজি সবসময়  নারী অধিকার ও সমাজ সংস্কারের পক্ষে ছিলেন।  কারসানদাস মুলজির চরিত্রে অভিনয় করেছেন জুনায়েদ খান।

চলচ্চিত্র নির্মাতা সিদ্ধার্থ পি মলহোত্রা পরিচালিত মহারাজ ছবিতে জুনায়েদ খান ছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় দেখা যাবে জয়দীপ আহলাওয়াত, শর্বরী ওয়াঘ এবং শালিনী পান্ডেকে।ছবিটির কাহিনী লিখেছেন বিপুল মেহতা ও স্নেহা দেশাই। যশরাজ ফিল্মের এন্টারটেইনমেন্টের ব্যানারে এটি প্রযোজনা করেছেন আদিত্য চোপড়া।

এমআর//

Advertisement
Advertisement

বলিউড

অবশেষে সাতপাকে বাঁধা পড়লেন অনন্ত আম্বানি ও রাধিকা মার্চেন্ট

Published

on

এ যেনো এক স্বপ্নের বিয়ে। এমন রাজকীয় বিয়ের সাক্ষী নিকট অতীতে হয়নি গোটা ভারত। রাজনীতি থেকে গ্ল্যামার ইন্ডাস্ট্রি এবং বিশ্বের বড় বড় ব্যক্তিত্বরা উপস্থিত ছিলেন বিয়ের অনুষ্ঠানে। গেল ১২ জুলাই, শুক্রবার অনন্ত আম্বানির সঙ্গে সাতপাকে বাঁধা পড়লেন রাধিকা মার্চেন্ট।

বলিউড থেকে শুরু করে পশ্চিমা বিনোদন জগতের সবাই বিয়ের অনুষ্ঠান আলোকিত করেন। এ দিন ছাদনাতলায় যাওয়ার আগে দাদা ধীরুভাই আম্বানির থেকে আশীর্বাদ নেন অনন্ত । পারিবারিক ও ধর্মীয় রীতি-রেওয়াজ মেনে আম্বানি ছেলে ‘শেহেরাবন্দি’ অনুষ্ঠান পালন করেন। দাদা-বউদি আকাশ-শ্লোক এবং বোন-জামাই ইশা-আনন্দ সকলেই অনন্ত-রাধিকার বিয়েতে আগত অতিথিদের আপ্যায়ণে কড়া নজর রেখেছিলেন।

অনন্ত-রাধিকার বিয়ের থিম ছিল ‘অ্যান অড টু বারাণসী। যা উৎসর্গ করা হয়েছে বারাণসীকে। বিয়ের থিমের সঙ্গে মিলিয়ে গোলাপি পোশাকে সেজেছিলো আম্বানি পরিবার। অতিথি আপ্যায়ণে বিশেষ মেন্যুর ব্যবস্থা ছিলো। অনন্তের মা নীতা আম্বানির প্রিয় বারাণসী স্ট্রিট ফুড প্রাধান্য পেয়েছিলো নৈশভোজের তালিকায়। এলাহি বারাণসী স্পেশাল চাট, মিষ্টি, লস্যি, চা, খারি, পান এবং মুখসুদ্ধির মতো নানান পদ ছিল। সোনার মঙ্গল প্রদীপ হাতে ছেলের বরযাত্রীতে দেখা গিয়েছে নীতা আম্বানিকে। গেল দেড় বছর ধরে অনন্ত-রাধিকার স্বপ্নের বিয়ের প্রস্তুতি নিয়েছিল আম্বানি পরিবার। কখনও দেশে কখনও বিদেশে তারকাখচিত পার্টির ঝলক দেখেছে নেট দুনিয়া। এবার জীবনের নতুন ইনিংস শুরু করলেন অনন্ত-রাধিকা।

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বলিউড

ঢাকা মাতাবেন রাহাত ফাতেহ আলী খান

Published

on

গুণী তারকাদের আগমনে বার বার মুখরিত হয়ে ওঠে রাজধানী। সেই ধারাবাহিকতায় এবার ঢাকায় আসছেন পাকিস্তানের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী রাহাত ফাতেহ আলী খান। আগামী ২০ জুলাই ঢাকায় আসবেন এই গুনী সংগীতশিল্পী।

ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে ই-কমার্স সাইট বাই হেয়ার নাউ (বিএইচএন) নিশ্চিত করেছে ফাতেহ আলী খান আসার বিষয়টি।

ওই পোস্টে জানানো হয় , আগামী ২০ জুলাই ২০২৪-এ রাহাত ফাতেহ আলী খানের মায়াবী সুরে মুগ্ধ হতে চলে আসুন। রাহাত ফাতেহ আলী খানের একটি ভিডিও জুড়ে দেয়া হয়েছে ওই স্ট্যাটাসের সঙ্গে। সেখানে প্রি-রেজিস্টেশনের জন্য যোগ করা হয়েছে ইভেন্ট লিঙ্ক। তার গান উপভোগ করতে চাইলে প্রি-রেজিস্টেশন করতে হবে। পরে টিকিট মূল্য ও ভেন্যু জানিয়ে দেয়া হবে।

এর আগেও ব্যাপক সফলতা রয়েছে এই প্রতিষ্ঠানটির। গেলো মাসে বলিউড অভিনেতা অর্জুন রামপালকে দিয়ে রাজধানীতে একটি আয়োজন করেছিল তারা। সংগীতশিল্পী লাকী আলীকেও ঢাকায় এনেছিল তারা।

প্রসঙ্গত, দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় ও সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া গায়ক রাহাত ফাতেহ আলী খান । বলিউডেও বিভিন্ন গানে কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে মুসলিম সুফি হিসেবে ভক্তিমুলক গান গাইতেন। ওস্তাদ নুসরাত ফাতেহ আলী খানের ভাস্তে রাহাত ফাতেহ আলী খান এবং ওস্তাদ ফররুখ ফাতেহ আলী খানের পুত্র।

Advertisement

এএম/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

বলিউড

হার্দিক-নাতাশার সম্পর্ক নিয়ে নতুন তথ্য দিলেন দম্পতির ঘনিষ্ঠ বন্ধু

Published

on

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালের একেবারে শেষ ওভারে হার্দিক পান্ডিয়ার বোলিং মন জয় করে নিয়েছে তাঁর সমালোচকদেরও। কিন্তু তাঁর পারিবারিক অশান্তি কি মিটেছে? ব্যক্তিগত জীবনে স্ত্রী নাতাশা স্ট্যাঙ্কোভিচের সঙ্গে টানাপড়েন যেন থামছেই না এই ক্রিকেটারের।

সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তারকা দম্পতির এক ঘনিষ্ঠ বন্ধু জানিয়েছেন, হয়তো নাতাশা-হার্দিকের সম্পর্কের ফাটল মেরামত হওয়ার আর কোনো সম্ভাবনা নেই। সেক্ষেত্রে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দেশের জয় কোনো বিশেষ ভূমিকা নিতে পারছে না। ওই বন্ধু জানিয়েছেন, ‘সম্পর্ক সম্ভবত শেষ।’

তাঁর দাবি, নাতাশা এবং হার্দিক তাদের মান-অভিমানের পালা মিটিয়ে একত্রিত হওয়ার মতো অবস্থায় নেই। ফলে এটা স্পষ্ট যে, হার্দিক ও তার স্ত্রী নিজেদের সম্পর্ক শুধরে নিতে রাজি নন। সামাজিকমাধ্যমে তাদের বিবাহবিচ্ছেদের গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে বেশ কিছুদিন আগে। ইতিমধ্যেই হার্দিক ও নাতাশা তাদের সামাজিকমাধ্যম থেকে একে অপরের সমস্ত ছবি মুছে দিয়েছেন। বিশ্বকাপ জয়ের পর হার্দিকের উদ্দেশে একটি শুভেচ্ছাবার্তাও জানাননি নাতাশা।

অন্যদিকে, বিশ্বকাপ জয়ের পর ফোনে কাঁদতে দেখা গিয়েছে হার্দিককে। তখন অনুমান করা হয়েছিল, স্ত্রীর সঙ্গেই আনন্দাশ্রু ভাগ করে নিচ্ছেন ভারতীয় ক্রিকেটার। কিন্তু ঘনিষ্ঠ মহল থেকে যে ধরনের কথা শোনা যাচ্ছে তাতে এই সম্ভাবনা ক্ষীণ হচ্ছে। দম্পতির ওই বন্ধু অবশ্য শেষ পর্যন্ত বলেছেন, ‘কেউ জানে না ভবিষ্যতে কী ঘটবে। কিন্তু বর্তমানে যা পরিস্থিতি, তাতে হার্দিক এবং নাতাশার সম্পর্ক ঠিক হওয়ার আশা নেই। সম্ভবত, এটা শেষ হয়ে গিয়েছে।’

২০২০ সালে গাঁটছড়া বাঁধেন নাতাশা এবং হার্দিক, ২০২৩ সালে রাজস্থানের উদয়পুরে বিয়ের জমকালো অনুষ্ঠান হয়েছিল। হিন্দু এবং খ্রিস্টান মতে বিয়ে করেছিলেন এই দম্পতি।

Advertisement

এসআই/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত