Connect with us

রেসিপি

চিংড়ি ভালোবাসলে বানিয়ে ফেলুন এ রেসিপিটি…

Avatar of author

Published

on

চিংড়ি

রোজ রোজ একই স্বাদের রান্না খেতে খেতে মুখে বিষাদ চলে আসে তাই না! তাই দুপুরে বা রাতে একটু ভিন্ন স্বাদের রান্না না হলে ঠিক জমে না। বিশেষ করে ছুটির দিন আমাদের মনযোগ কেড়ে নেয় একমাত্র মাংস। তবে এ দিনটিতে শুধু মাংসের রেসিপি না করে বানাতে পারেন ভিন্ন কিছু আইটেম, বিশেষ করে বিকেলের নাশতায়।

অনেকেই আছেন যারা মাংসের চেয়েও চিংড়ি বেশি পছন্দ করেন। আজকে জানাবো চিংড়ির একটি দুর্দান্ত রেসিপি। যার নাম স্টাফড টাইগার প্রনস।

উপকরণ-

টাইগার প্রণ : ৮-১০ টা/ ১ কেজি

হলুদ গুঁড়ো : ১ চা চামচ

আদা রসুন বাটা : ১ চামচ)

Advertisement

শুকনা মরিচ : ৬ টা

লবঙ্গ : ৮ টা

গোলমরিচ : ১০ টা

দারচিনি : বড় ১টা

গোটা জিরে : আধ চা চামচ

Advertisement

চপড রসুন : ৮ টি

চপড পেঁয়াজ : মাঝারি ২ টি

চিনি : ১ চা চামচ

ভিনিগার : ৪চা চামচ

সয়াবিন তেল : পরিমানমতো

Advertisement

লবণ : স্বাদমতো

চিংড়ি

প্রণালী-

চিংড়ি মাছ মাঝখানে চিরে নিন। এবার লবণ, হলুদ গুঁড়ো,আদা রসুন বাটা দিয়ে ১৫ মিনিট ম্যারিনেট করে রাখুন। লাল মরিচ, লবঙ্গ , গোলমরিচ , দারচিনি, ধনে, রসুন, পেঁয়াজ, চিনি , ভিনিগার এবং লবণ দিয়ে একসঙ্গে পেস্ট করে নিন। প্রয়োজনে অল্প পানি নিতে পারেন।

প্যানে ২ চামচ তেল দিন। তাতে মশলার পেস্টটা দিয়ে ২ মিনিট নাড়ুন। চুলা থেকে নামিয়ে রাখুন। এবারে চিংড়ির মধ্যে দেড় চামচ করে পুরটা দিন। বাকি চিংড়ির অংশ জুড়ে তাতে সুতো বেধে নিন যাতে খুলে না যায়। প্যানে তেল গরম করুন। সব চিংড়ি এইভাবে পুর ভরে বেধে নিয়ে শ্যালো ফ্রাই করে নিন। সবশেষে সস দিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন স্টাফড টাইগার প্রনস।

Advertisement
মন্তব্য করতে ক্লিক রুন

মন্তব্য করতে লগিন করুন লগিন

রিপ্লাই দিন

রেসিপি

নবাবী সেমাাই রেসিপি

Published

on

নবাবী

আমরা সবাই কম বেশি সেমাইয়ের সঙ্গে পরিচিত। আমরা সবাই-ই সেমাই রান্না করতে জানি। কিন্তু আজ আমি আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম নওয়াবি সেমাই-এর রেসিপি। এটা এতটাই মজাদার যে, খেয়ে মনে হবে, আপনি যেন কোনো রাজাদের বাড়িতে রাজ ভোজনে আছেন! তাহলে চলুন যেনে নেই কী করে এই স্পেশাল নওয়াবি সেমাই-টি তৈরি করতে হয়।

উপকরণ

২ টেবিল চামচ ঘি

২ প্যাকেট লাচ্ছা সেমাই (প্রতি প্যাকেট ১৮০ গ্রাম করে)

১ কাপ চিনি

Advertisement

৩ টেবিল চামচ গুঁড়া দুধ

কাজু ও পেস্তা বাদাম ক্রাশ করা ১ টেবিল চামচ

ক্রিম তৈরির জন্য-

১ লিটার দুধ

১ কাপ কনডেন্স মিল্ক

Advertisement

১/২ কাপ গুঁড়া দুধ

১/২ কাপ ডানো অথবা নেসলে ক্রিম (সুপারশপে পেয়ে যাবেন)

৪ টেবিল চামচ কর্নফ্লাওয়ার

প্রণালী

(১) একটি ফ্রাই প্যানে ঘি দিন। ঘি একটু গরম হয়ে এলে লাচ্ছা সেমাইটি নেড়েচেড়ে হালকা করে ভেঁজে নিন। কিছুটা ভাঁজা হয়ে গেলে চিনি দিয়ে দিন এবং ভালোভাবে মিশিয়ে নিন।

Advertisement

চিনি ভালো করে মিশে যাওয়ার পর গুঁড়া দুধ দিয়ে ৬-৭ মিনিট নাড়াচাড়া করে রান্না করতে হবে। সেমাইয়ের রঙটি হালকা বাদামি হয়ে এলে নামিয়ে রাখুন।

(২) এরপর ক্রিম তৈরি করার পালা। ১ লিটার দুধকে জ্বালিয়ে ১/২ লিটার করে নিতে হবে। এখন চুলায় মিডিয়াম আঁচে এই দুধের মধ্যে দিয়ে দিন কনডেন্স মিল্ক এবং গুঁড়া দুধ।

ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এরপর ক্রিম দিয়ে ভালোভাবে নাড়াচাড়া করে, কর্নফ্লাওয়ার দিয়ে হ্যান্ড বিটার দিয়ে ভালোভাবে নেড়ে স্মুথ করে ফেলুন। ১০ মিনিট পর্যন্ত রান্না করতে থাকুন যা একটি ঘন ক্রিমে পরিনত হবে।

(৩) এখন ভেঁজে রাখা সেমাইগুলো একটি সারভিং ডিসে ১/৪ ভাগ ছড়িয়ে তুলে নিন। এরপর পুরো সেমাইটির উপরে সব ক্রিমগুলো আলতোভাবে ঢেলে দিন। এখন ৪-৫ মিনিট অপেক্ষা করুন।

ঠাণ্ডা হয়ে আসলে বাকি সেমাইটুকু হাত দিয়ে উপরে ভালোভাবে ছড়িয়ে দিন। এখন এর উপরে কাজু ও পেস্তা বাদাম সুন্দর করে ছড়িয়ে দিন।তৈরি হয়ে গেল মজাদার নওয়াবি সেমাই। উপভোগ করুন সবাই মিলে।

Advertisement

 

কেএস/

পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

রেসিপি

লাউয়ের চারটি রকমারি রেসিপি

Published

on

লাউ

পেট ঠান্ডা রাখতে লাউয়ের জুড়ি মেলা ভার। কিন্তু অনেকেই লাউ খেতে চান না। তাই একঘেয়ে লাউয়ের রান্না না করে এবার বরং কিছু অন্যরকম ট্রাই করুন। যদিও রন্ধন পটিয়সীদের ভালোই জানা যে ঠাকুমা-দিদিমাদের আমলে লাউয়ের কতরকম পদ দিয়ে খাওয়া হত। তাই ঝটপট জেনে নিন কিছু রেসিপি।

 

ছোলার ডাল দিয়ে লাউ ঘন্ট

উপকরণ

ঘণ্টর মতো কুচো করে কাটা লাউ ভাপিয়ে নেয়া

Advertisement

১ কাপ সেদ্ধ ছোলার ডাল

২ টেবিল চামচ সাদা তেল

২ টি তেজপাতা

২ টি শুকনো মরিচ

১ চা চামচ গোটা জিরা

Advertisement

১ টেবিল চামচ আদা, কাঁচা মরিচ বাটা

১ চা চামচ হলুদগুঁড়ো

গরমমশলা ১ চাচামচ

স্বাদ মত লবণ-চিনি

প্রণালী

Advertisement

একটা পাত্রে তেল গরম করে তেজপাতা, শুকনো মরিচ ও জিরে ফোড়ন দিয়ে নিতে হবে। এবার এতে ডাল দিয়ে আদা ও কাঁচা মরিচ বাটা, হলুদ, লবণ দিয়ে ভালো করে ভেজে নিন। এতে সামান্য পানি দিয়ে ফুটিয়ে নিতে হবে। এবার লাউ দিয়ে মিশিয়ে নিন। মাখো মাখো হয়ে এলে উপর দিয়ে গরম মশলা ছড়িয়ে নামিয়ে নিন।

 

লাউ কুমড়ো বড়ি ঘন্ট

উপকরণ

১ টি গোটা লাউ কুচি করা

Advertisement

একফালি বড় সাইজের কুমড়ো (ডুমো করে কাটা)

৬-৭ টা ডালের বড়ি

১ চা চামচ রাঁধুনি, জিরে

১ চা চামচ কাঁচা মরিচ কুচি

১ চা চামচ হলুদগুঁড়ো

Advertisement

৩-৪ টেবিল চামচ নারকেল কোরা

স্বাদ অনুযায়ী লবণ-চিনি

প্রয়োজন অনুযায়ী তেল

প্রণালী

কড়ায় তেল গরম করে ডালের বড়িগুলো ভেজে তুলে রাখুন। এবার ওই তেলেই রাধুনি ও জিরে, কাঁচা মরিচ ফোড়ন দিন। এতে কুচি করে কেটে রাখা লাউ দিয়ে ভালো করে নাড়ুন। এবার এতে ডুমো করে কাটা কুমড়ো দিয়ে লবণ ও হলুদ দিয়ে আবার নেড়ে ঢেকে দিন। বেশি ঘাটবেন না এতে লাউ-কুমড়ো দুটোই গলে যাবে। মিনিট পাঁচেক বাদে ঢাকা তুলে দেখুন জল ছাড়ছে কিনা। চেরা কাঁচা মরিচ দিয়ে আবার একবার নেড়ে ঢেকে দিয়ে ঢিমে আঁচে রান্না করুন। নামানোর আগে বড়িভাজা ছড়িয়ে ভালো করে মিশিয়ে করে ঘন্টর সঙ্গে মিশিয়ে নিন। এবার উপর থেকে নারকেল কোড়া ছড়িয়ে দিন। ব্যস, তৈরি লাউ-কুমড়োর ঘণ্ট।

Advertisement

 

চিংড়ি দিয়ে লাউশাক ভর্তা

উপকরণ

লাউ শাক ১ আঁটি

খোসা ছাড়ানো ছোট চিংড়ি এককাপের তিনভাগের একভাগ

Advertisement

পিঁয়াজ ১টি মাঝারি আকারের (মোটা করে কাটা)

রসুন ৩ কোয়া (মোটা করে কাটা)

কাঁচা মরিচ ৭-৮টি বা স্বাদ অনুযায়ী

লবণ স্বাদমতো

তেল অল্প

Advertisement

প্রণালী

আঁশ আর ডাটা বাদ দিয়ে লাউশাক বেছে নিতে হবে। চিংড়ি মাছ লবণ দিয়ে মাখিয়ে রাখুন। প্যানে বেশ কিছুটা পানি দিয়ে তাতে অল্প লবণ দিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে শাকগুলো ছেড়ে দিতে হবে। মিনিট দুই তিনেক রেখেই গরম পানি থেকে উঠিয়ে ফেলুন। তারপর প্যানে তেল দিয়ে লবণ মাখানো চিংড়ি, পেঁয়াজ-রসুন, কাঁচা মরিচ দিয়ে ভেজে তুলে রেখে, সেই তেলেই বেশি আঁচে শাক আর প্রয়োজন মতো লবণ দিয়ে ভাজা ভাজা করতে হবে যাতে পানি না থাকে। এবার সব ভাজা উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে শিলপাটা বা মিক্সারে পিষে নিলেই ভর্তা একদম রেডি।

 

লাউয়ের হালুয়া

উপকরণ

Advertisement

কুচনো লাউ

কুচনো গাজর

মিল্কমেড

চিনির গুঁড়ো

ঘি

Advertisement

গোটা দারচিনি

সাদা তেল

এলাচ

দারচিনি গুঁড়ো

অল্প লবণ

Advertisement

প্রণালী

ননস্টিক কড়াইতে অল্প সাদা তেল দিয়ে, তাতে গোটা দারচিনি আর এলাচ ফোড়ন দিন। তারপর গাজর আর লাউ দিন। একটু ঘি, গুঁড়ো চিনি আর মিল্কমেড দিয়ে কম আঁচে নাড়তে থাকুন। নাড়তে নাড়তে যখন পানি একদম কমে যাবে ওপরে দারচিনির গুঁড়ো ও চেরির টুকরো দিয়ে পরিবেশন করুন। শেষপাতে দারুণ লাগবে খেতে।

 

কেএস/

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

রেসিপি

পাকা আমের স্মুদি বানানোর রেসিপি

Published

on

এখন আমের সময়। বাজারে পাওয়া যাচ্ছে মুধুময় আম। কাঁচা বা পাকা আম দিয়ে তৈরি স্মুদি শরীরের তাপ নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি ইম্যুনিটি সিস্টেম ভালো রাখতে কার্যকরী ভূমিকা রাখে। আজকে আমরা জেনে নিবো পাকা আম দিয়ে কীভাবে খুব সহজেই তৈরি করা যায় মজাদার ড্রিংকস। পাকা আমের স্মুদি বানানোর রেসিপিটি জেনে নেই চলুন।

উপকরণ

বড় পাকা আম- ২টি

বিট লবণ- ১/২ চা চামচ

চিনি- স্বাদমতো

Advertisement

পুদিনা পাতা কুঁচি- ১ টেবিল চামচ

ধনিয়া পাতা কুচি- ১ টেবিল চামচ

কাঁচামরিচ কুঁচি- সামান্য

লেবুর রস- ২ টেবিল চামচ

ঠান্ডা পানি- প্রয়োজন অনুযায়ী

Advertisement

বরফ- ৫-১০ টুকরো

এই উপকরণ ব্যবহার করে সহজেই ৪ থেকে ৫ জনের জন্যে আমের শরবত বানাতে পারবেন।

প্রস্তুত প্রণালী

১. আম ধুয়ে নিয়ে ভালোভাবে খোসা ছাড়িয়ে নিতে হবে। এবার ১ ইঞ্চি পরিমাপে টুকরো করে কেটে নিন।

২. এবার আমের টুকরোগুলো ব্লেন্ডারের জগে দিয়ে দিন। আমের ফালিগুলো দিয়ে আগে কয়েক সেকেন্ড বিট করে নিতে পারেন।

Advertisement

৩. এই পর্যায়ে এতে একে একে পরিমাপমতো পানি, বিট লবণ, স্বাদমতো চিনি, পুদিনা পাতা কুঁচি, ধনিয়া পাতা কুচি, কাঁচামরিচ কুঁচি, লেবুর রস এ সকল উপকরণ দিয়ে খুব ভালো করে ব্লেন্ড করে নিতে হবে।

৪. সব উপকরণ একসাথে ভালোভাবে ব্লেন্ড করে নিয়ে গ্লাসে ঢেলে ২/৩ টুকরো বরফ দিয়ে পরিবেশন করুন।

আপনারা চাইলে একটি ছাঁকনি দিয়ে ছেঁকে নিয়ে এই পাকা আমের শরবত পরিবেশন করতে পারেন। তাহলে উপকরণগুলো হাতের কাছে থাকলে আজই বানিয়ে ফেলুন পাকা আমের স্মুদি।

জেএইচ

Advertisement
পুরো পরতিবেদনটি পড়ুন

সর্বাধিক পঠিত